রোহিঙ্গা সংকট: তিন স্তরে সমাধানের প্রস্তাব চীনের

yyyyyy
যুগের খবর ডেস্ক: রোহিঙ্গা সঙ্কটের অবসানে তিন স্তরের সমাধান প্রস্তাব করেছে চীন, যার শুরুতে মিয়ানমারের রাখাইনে অস্ত্রবিরতি কার্যকর করার মাধ্যমে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার পরিবেশ তৈরির কথা বলা হয়েছে।
এশিয়া-ইউরোপের দেশগুলোর জোট-আসেমের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে যোগ দিতে মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোতে গিয়ে এই প্রস্তাব তুলে ধরেছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই। মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি গতকাল সোমবার আসেম সম্মেলনের উদ্বোধন করেন, যেখানে এশিয়া ও ইউরোপের ৫১টি দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা অংশ নিচ্ছেন। সম্মেলনে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী।
ঢাকা সফর শেষে নেপিদোতে পৌঁছে ওয়াং ই গত রবিবার বলেন, মিয়ানমার ও বাংলাদেশ- দুই দেশকেই চীন বন্ধু রাষ্ট্র বলে মনে করে। বেইজিং বিশ্বাস করে, দুই দেশ মিলে পরস্পরের কাছে গ্রহণযোগ্য একটি সমাধানের পথ ঠিকই বের করতে পারবে।
চীনের প্রস্তাব
অস্ত্রবিরতি: চীনা সরকারি বার্তা সংস্থা সিনহুয়ার খবর অনুযায়ী, ওয়াং তার পরিকল্পনার প্রথম ধাপে রাখাইনে অস্ত্রবিরতির প্রস্তাব রাখা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ওই এলাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে হবে, যাতে সেখান থেকে রোহিঙ্গাদের অন্যত্র চলে যেতে না হয়। তবে এই চীনা পরিকল্পনায় যেসব রোহিঙ্গা বাংলাদেশে শরণার্থী হয়ে আছেন, তাদের প্রত্যাবর্তনের বিষয়ে সরাসরি কোনো কথা বলা হয়নি।
সংলাপ: সিনহুয়া বলছে, চীনা পরিকল্পনার দ্বিতীয় ধাপে এই সঙ্কটের সবগুলো পক্ষ এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আলোচনার প্রক্রিয়া চালু রাখার তাগিদ দেয়া হয়েছে, যাতে ‘সমতার ভিত্তিতে এবং সৌহার্দপূর্ণভাবে’ সঙ্কটের সমাধান করা যায়।
উন্নয়ন: চীনা পরিকল্পনার তৃতীয় ধাপে রাখাইনের উন্নয়নের প্রস্তাব রাখা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে রাখাইন রাজ্য প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর। কিন্তু সেখানে উন্নয়নের ধারা থমকে গিয়েছে। রাখাইনের উন্নয়নের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সহায়তা করার ব্যাপারেও চীনা পরিকল্পনায় তাগিদ দেয়া হয়েছে।
চীনা সংবাদমাধ্যমের খবরে দাবি করা হয়েছে, এই পরিকল্পনার পেছনে মিয়ানমার এবং বাংলাদেশ উভয় সরকারের সমর্থন রয়েছে।
চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দাবি, সব পক্ষের চেষ্টায় এই ফর্মুলার প্রথম ধাপ ইতোমধ্যে ‘অর্জিত হয়েছে’। এখন সেখানে যাতে নতুন করে কোনো যুদ্ধের উসকানি তৈরি না হয়, সেটা নিশ্চিত করা সবচেয়ে জরুরি।
চায়না রেডিও ইন্টারন্যাশনাল জানায়, আনুষ্ঠানিকভাবে এ প্রস্তাব উত্থাপনের আগে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই গত রবিবার মিয়ানমারের সিনিয়র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সান সুচির সঙ্গে বৈঠক করেন। রাখাইন রাজ্য ইস্যুতে ওয়াং ই বলেন, এ বিষয়ের জটিল পটভূমি রয়েছে। কেবল মিয়ানমার ও বাংলাদেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে সুষ্ঠুভাবে তা সমাধান করা যায়। আন্তর্জাতিক সমাজ এজন্য প্রয়োজনীয় শর্ত ও সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারে।
অং সান সুচি বলেন, রাখাইন রাজ্য সমস্যায় চীনের প্রস্তাবে সম্মত মিয়ানমার। সেখানে আইনের শাসন ও শৃঙ্খলা পুনরুদ্ধার করা, বাংলাদেশের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব প্রত্যাবর্তন কাজ শুরু করবে এবং অবিলম্বে এ সমস্যার সুষ্ঠু নিষ্পত্তির চেষ্টা করবে। চীন রাখাইন রাজ্য সমস্যার মূল থেকে সমাধানের চিন্তার প্রতি মিয়ানমারকে সমর্থন দেয় এবং উন্নয়নের মাধ্যমে রাখাইন রাজ্যকে সহায়তা দেবে। অর্থাৎ মিয়ানমারে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বাস্তবায়ন প্রত্যাশা করেন তিনি। মিয়ানমার আশা করে, চীন অব্যাহতভাবে রাখাইন রাজ্য সমস্যার দ্রুত সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।
এর আগে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই গত শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত করেন। এ সময় রোহিঙ্গা সমস্যা সম্পর্কে ওয়াং ই বলেন, চীন সংলাপের মাধ্যমে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানের পক্ষে। এ ব্যাপারে বেইজিং সাহায্য করতে পারে।
উদ্বোধনী বক্তৃতায় সুচি যা বললেন
রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে জাতিগত নিধনযজ্ঞ চালানো মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি দাবি করেছেন, অবৈধ অভিবাসীরাই সন্ত্রাসবাদ ছড়াচ্ছে এবং সেকারণে  বিশ্ব অস্থিতিশীলতা ও সংঘাতের মধ্যে রয়েছে।
২৫ আগস্টের পর হতে সেনা অভিযানের মুখে রাখাইন থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নেওয়া ৬ লক্ষাধিক রোহিঙ্গার প্রসঙ্গটি ভাষণে সরাসরি উল্লেখ করেননি সু চি। কিন্তু তার ভাষণে মিয়ানমারের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের মনোভাবই উঠে এসেছে।  মিয়ানমারে অনেকেই রোহিঙ্গাদের অবৈধ অভিবাসী মনে করে এবং তারা সহিংস কার্যক্রমে জড়িত বলে অভিযোগ করে৷
সোম ও মঙ্গলবার মিয়ানমারে আসেম পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা রোহিঙ্গা সংকটের বিষয়টি তুলে ধরবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। সম্মেলনে আসা পরররাষ্ট্রমন্ত্রীদের স্বাগত জানিয়ে দেওয়া ভাষণে সু চি বলেন, বিশ্ব এখন অস্থিতিশীলতার যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে কারণ বিশ্বজুড়ে নতুন ধরনের হুমকি বাড়ছে। কারণ অবৈধ অভিবাসীরা সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস উগ্রপন্থা ছড়াচ্ছে, সামাজিক বিশৃঙ্খলা, এমনকি পারমাণবিক যুদ্ধের হুমকি তৈরি করছে। সংঘাতের কারণে সমাজ হতে শান্তি বিদায় নিয়েছে। রেখে যাচ্ছে অনুন্নয়ন ও দারিদ্র্যতা। মানুষকে এক দেশ থেকে অন্যদেশে চলে যেতে বাধ্য করছে।
সু চির সঙ্গে কথা বলে ‘দারুণ উৎসাহিত’ মোঘেরিনি
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোঘেরিনি। এর আগে তিনি মিয়ানমার নেত্রীর সঙ্গে বলেন।মোঘেরিনি বলেছেন, মিয়ানমারের অং সান সু চির সঙ্গে কথা বলে তিনি ‘দারুণ উৎসাহিত’৷ এশিয়া ও ইউরোপের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠক শুরুর আগে তাদের মধ্যে এই আলোচনা হয়৷
সু চির সঙ্গে বৈঠক শেষে মোঘেরিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি এটাকে (আলোচনা) দারুণ উৎসাহব্যাঞ্জক মনে করছি৷ রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে একটি চুক্তি হবে বলে আমি খুবই আশাবাদী৷’
নেপিডো থেকে সংবাদ সংস্থা ইউএনবি জানায় যদিও এই ১৩তম আসেম সম্মেলনে রোহিঙ্গা ইস্যুটি আলোচনার খসড়া তালিকায় নেই, কিন্তু এই বিশাল মানবিক বিপর্যয়ের বিষয়ে যে ওঠবে তা সবাই ধারনা করেছে। মনে করা হচ্ছে আসেম সম্মেলনে রোহিঙ্গা ইস্যুর সমাধানে মিয়ানমারে ওপর চাপ বাড়বে।
একজন কূটনীতিক ইউএনবিকে বলেছেন, আঞ্চলিক, আন্তর্জাতিক ইস্যু এবং নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ নিয়ে যেহেতু সম্মেলনে আলোচনা হবে। কাজেই অবধারিতভাবে সেখানে রোহিঙ্গা ইস্যুটি আসবে।
আসেম সম্মেলনের আগে গত শনি ও রবিবার চীন ও জাপানসহ কয়েকটি দেশের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি বাংলাদেশ সফর করেছেন। রোহিঙ্গাদের দ্রুত তাদের স্বদেশে ফেরত নেওয়ার জন্য তারা মিয়ানমারকে ব্যাপক চাপ দেবেন।এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে শক্ত অবস্থান প্রত্যাশা করছে বাংলাদেশ।
এ সম্মেলনে সঙ্গে একজন কূটনীতিক ইউএনবি বলেন, এখানে যোগ দেওয়া অনেকেই রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন। তারা রোহিঙ্গাদের ওপর ভয়াবহ নির্যাতন প্রত্যক্ষ করেছেন। রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের ব্যর্থতা বিষয়টি স্পটলাইটে থাকবে। তিনি বলেন, ‘আমি বলতে পারি এই বিষয়ে ইউরোপীয় নেতারা অত্যন্ত সজাগ এবং তারা অবশ্যই মিয়ানমারে ওপর কঠোর চাপ দেবেন।’
এদিকে, বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রবিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, দু’দেশের মধ্যে চুক্তি নিয়ে কথা হচ্ছে৷ রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে দিতে একটি ‘জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ’ গঠনেরও আশা প্রকাশ করা হয়েছে ওই বিবৃতিতে৷ বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর একটি ঘনিষ্ঠ সহকর্মী দাবি করেছেন, ‘দুই দেশ এক ধরনের বোঝাপড়ায় প্রায় উপনীত হয়েছে, এখন শুধু কিছু বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছানো বাকি৷’
তবে মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলোর ধারণা, এখনও যেহেতু অনেকে রাখাইন থেকে পালাচ্ছে তাই রোহিঙ্গাদের নিরাপদে ফেরত যাওয়ার প্রক্রিয়া শিগগিরই শুরু হওয়ার সম্ভাবনা কম৷ তবে বিষয়টি নিয়ে মিয়ানমারের ওপর চাপ দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন জার্মানি সহ কয়েকটি দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী৷গত রবিবার তারা বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন৷ ইইউ-র মোঘেরিনিও এই সময় সঙ্গে ছিলেন৷ মিয়ানমারে আসেম বৈঠকের সময় বিষয়টি উত্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন তারা৷
রাখাইনে সেনা অভিযান ও নিপীড়নের মুখে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে ৬ লাখ ২০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা। জাতিসংঘ এই সেনা অভিযানকে জাতিগত নিধনযজ্ঞ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। কয়েকটি দেশ মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানিয়েছে। রাখাইনে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ রয়েছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪