জেরুজালেম: ট্রাম্প বনাম গোটা বিশ্ব

1512659028
যুগের খবর ডেস্ক: জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ায় আরব জগত, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জার্মানিসহ গোটা বিশ্ব ট্রাম্প প্রশাসনের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করছে। আজ শুক্রবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক বসছে। বায়তুল মুকাদ্দাস বা জেরুজালেমে মুসলমানদের প্রথম কেবলা আল আকসা মসজিদ অবস্থিত।
নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পালন করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গতকাল বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেন ইসরায়েলে মার্কিন দূতাবাস তেল আভিভ থেকে জেরুসালেমে স্থানান্তরিত করা হবে।
আমেরিকার এই একক সিদ্ধান্তের পরিণতি নিয়ে চরম দুশ্চিন্তা প্রকাশ করেছে একাধিক দেশ ও গোষ্ঠী। ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও জাতিসংঘের মতে, এর ফলে ইসরায়েলি ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে শান্তি প্রক্রিয়া আবার শুরু করার প্রচেষ্টা হুমকির মুখে পড়বে। দুই পক্ষের মধ্যে বোঝাপড়া ছাড়া বিতর্কিত জেরুসালেম শহরের স্থিতাবস্থার কোনো পরিবর্তনের বিরোধিতা করে আন্তর্জাতিক সমাজ।
আমেরিকার প্রায় সব ঘনিষ্ঠ সহযোগী দেশ ট্রাম্প প্রশাসনের সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেছে। জার্মানি জানিয়ে দিয়েছে, একমাত্র দ্বিরাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানসূত্রের আওতায় জেরুসালেম শহরের ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করা উচিত। ফ্রান্স এই একক সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তির ডাক দিয়েছে। বৃটেন জানিয়েছে, এর ফলে শান্তির উদ্যোগের ক্ষতি হবে এবং শেষ পর্যন্ত ইসরায়েল ও ভবিষ্যৎ ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র জেরুসালেম শহরকে নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নেবে, এমনটাই কাম্য।
বলা বাহুল্য, ইসরায়েল ট্রাম্প প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, এই সিদ্ধান্ত শান্তির পথে এক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত। ইসরায়েল রাষ্ট্রের পত্তনের প্রথম দিন থেকে এটাই লক্ষ্য ছিল। তিনি বলেন, ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে ভবিষ্যৎ শান্তি চুক্তিতে জেরুসালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিতে হবে। তিনি অন্যান্য দেশকেও ট্রাম্প-এর দৃষ্টান্ত অনুসরণ করার ডাক দিয়েছেন।
ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, জেরুসালেম ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের ‘অনন্ত রাজধানী’। তার মতে, ট্রাম্প-এর এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে শান্তির পথে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে ওয়াশিংটন তার নেতৃত্বের ভ‚মিকা ত্যাগ করলো। ট্রাম্পের এ ঘোষণা ‘আগুন নিয়ে খেলার’ শামিল বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। তিনি ট্রাম্পের এই ঘোষণাকে ধিক্কার জানিয়ে প্রত্যাখ্যান করেছেন।
মাহমুদ আব্বাস বলেন, ‘স্পষ্টতই এটা ইসরাইলের প্রতি একটি পুরস্কার।’ আর এই স্বীকৃতি যে ফিলিস্তিনের ভ‚মি ক্রমাগত দখল করতে ইসরাইলকে উৎসাহিত করবে, তা-ও উল্লেখ করেন তিনি।
গাজা উপত্যকা ও বেথলহাম শহরে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ছবি এবং গাজা উপত্যকায় ট্রাম্পের কু‚শপুত্তলিক পোড়ানো হয়েছে। এছাড়া, ট্রাম্পের ঘোষণার প্রতিবাদে বেথেলহাম শহরে খৃস্টান সম্প্রদায়ের লোকজন বড়দিন উপলক্ষে সাজানো ক্রিসমাস ট্রি’র আলোকসজ্জার সুইচ বন্ধ করে দেন। বড়দিনে আলোকসজ্জা চালু করা হবে কিনা তা নিশ্চিত নয়।
ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ তিন দিনের বিক্ষোভ ঘোষণা করেছে বলে আলজাজিরার এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে আরও বলা হয়েছে, ট্রাম্পের ঘোষণার পরপরই হাজার হাজার ফিলিস্তিনি গাজা উপত্যকায় বিক্ষোভ শুরু করেন। তাদের হাতে ছিল ফিলিস্তিনের জাতীয় পতাকা। গাজার হামাস নেতা ইসমাইল হানিয় আলজাজিরার কাছে ট্রাম্পের ঘোষণাকে ‘উন্মাদনার আগ্রাসন’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।
ট্রাম্পের ঘোষণাকে ‘অন্যায্য ও দায়িত্বজ্ঞানহীন’ বলে প্রতিক্রিয়া দিয়েছে সৌদি আরব। সৌদি রয়াল কোর্টের বিবৃতির বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, ‘যুক্তরাষ্ট্রের এই পদক্ষেপ শান্তি প্রক্রিয়ার প্রচেষ্টাকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করবে এবং এটি জেরুজালেম প্রশ্নে ঐতিহাসিকভাবে আমেরিকার নিরপেক্ষ অবস্থানের ব্যত্যয়।’
তুরস্কের রাজধানী আংকারা ও ইস্তাম্বুলে শত শত মানুষ বিক্ষোভ করেছেন। এ সময় তারা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এ ঘোষণার তীব্র নিন্দা ও সমালোচনা করেন। দুই শহরের বিক্ষোভই শান্তিপূর্ণ ছিল তবে বিক্ষুব্ধ জনতা কোথাও কোথাও কিছু কাগজে আগুন ধরিয়ে প্রতিবাদ করেন এবং ইসরাইলের পতাকা পোড়ান। বিক্ষোভকারীদের অনেকের হাতে তুরস্কের পতাকা ও নানা রকম ফেস্টুন দেখা যায় যাতে লেখা ছিল ‘ফিলিস্তিন মুক্ত করুন।’ তুরস্ক মার্কিন পদক্ষেপকে দায়িত্বজ্ঞানহীন বলে এ সিদ্ধান্ত নতুন করে বিবেচনার আহ্বান জানিয়েছে। এছাড়া, দেশটি ওআইসি’র শীর্ষ সম্মেলন আহŸান করেছে।
ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি ও তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে নয়া ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের পক্ষে মত দিয়েছেন। তুর্কি প্রেসিডেন্ট গতকাল বুধবার ইরানের প্রেসিডেন্টকে ফোন করে ওআইসি’র বৈঠকে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ জানান। এ সময় তাদের মধ্যে বায়তুল মুকাদ্দাসকে দখলদার ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার ষড়যন্ত্রের বিষয়ে কথা হয়।
উভয় নেতাই বলেন, বায়তুল মুকাদ্দাস হচ্ছে ফিলিস্তিনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। এ সময় ড. রুহানি বলেছেন, ইরান মনে করে বর্তমান পরিস্থিতিতে সব মুসলিম দেশকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে এবং আমেরিকার উসকানিমূলক, অবৈধ ও বিপজ্জনক সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপের ঘোষণা দিতে হবে। তিনি বলেন, মুসলিম বিশ্বের প্রধান এজেন্ডাগুলোর মধ্যে ফিলিস্তিন, বায়তুল মুকাদ্দাস ও ইসরাইলের অন্যায় তৎপরতা মোকাবিলা অন্যতম।
ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় এগিয়ে আসতে বিশ্বের সব মুসলিম দেশ ও শান্তিকামীদের প্রতি আহ্বান জানান রুহানি। তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বায়তুল মুকাদ্দাসের বিষয়ে মুসলমানদেরকে কঠিন দায়িত্ব পালন করতে হবে।
তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান বলেন, মুসলিম বিশ্বের নিজেদের মধ্যে অনৈক্যের কারণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বায়তুল মুকাদ্দাস ইস্যুতে ঔদ্ধত্যপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছেন। তিনিও ষড়যন্ত্রের মোকাবিলায় ঐক্যবদ্ধভাবে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের ওপর জোর দিয়েছেন।
পাকিস্তানও ট্রাম্পের পদক্ষেপের বিরোধিতা করেছে। মিশরও ট্রাম্পের ঘোষণাকে প্রত্যাখ্যান করেছে। বিষয়টি নিয়ে প্রেসিডেন্ট জেনারেল আবদেল ফাত্তাহ আস-সিসি ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন। লেবাননের প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন বলেছেন, আমেরিকার পদক্ষেপ বিপজ্জনক ও শান্তি আলোচনার মধ্যস্থতাকারী হিসেবে তার বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট হবে। প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি টুইটার বার্তায় বলেছেন, ট্রাম্পের এ ঘোষণাকে লেবানন প্রত্যাখ্যান করছে।
কাতার বলেছে, ট্রাম্পের এ ঘোষণা কথিত শান্তি আলোচনার জন্য মৃত্যুদণ্ডের শামিল। মার্কিন পদক্ষেপে মরক্কো গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। জর্দানও এ পদক্ষেপকে নাকচ করেছে। তারা বলেছে, এ ঘোষণার মধ্যদিয়ে ট্রাম্প জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব লঙ্ঘন করেছেন। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ মার্কিন ঘোষণাকে বিপজ্জনক বলে মন্তব্য করেছেন। ইরাকের প্রধানমন্ত্রী চরম উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, আমেরিকার এ ঘোষণা মধ্যপ্রাচ্যের স্থিতিশীলতা বিনাশ করবে।
গত বুধবার হোয়াইট হাউসে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এ ভাষণের মধ্য দিয়ে জেরুজালেম নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কয়েক দশকের নীতির পরিবর্তন ঘটল।
ট্রাম্প বলেন, ‘এই সিদ্ধান্তের মানে এই নয় যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মধ্যপ্রাচ্যে স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার দৃঢ় অঙ্গীকার থেকে সরে আসছে। দীর্ঘদিনের ইসরায়েল-ফিলিস্তিনি সংঘাতের অবসান ঘটাতে আমেরিকা দুই রাষ্ট্র সমাধানকে সমর্থন জানাতে প্রস্তুত, যদি উভয়পক্ষ সেটাই চায়।’
জেরুজালেম পবিত্র ভূমি হিসেবে ইসরাইল ও ফিলিস্তিন উভয়ের কাছেই গণ্য। এর দখল ও নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুই দেশের দ্ব›দ্বও বহু পুরোনো। ইসরাইল সব সময়ই জেরুজালেমকে নিজেদের রাজধানী হিসেবে দাবি করে আসছে, পাশাপাশি পূর্ব জেরুজালেম ভবিষ্যৎ ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের রাজধানী হবে বলে দেশটির নেতারা বলে আসছেন।
জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে ঘোষণার সিদ্ধান্তটি কিন্তু বেশ পুরোনো। ১৯৯৫ সালেই মার্কিন কংগ্রেস অনুমোদিত এক আইনে ইসরাইলের মার্কিন দূতাবাস তেলআবিব থেকে জেরুজালেমে স্থানান্তর করার নির্দেশ দেওয়া হয়। তবে সাবেক সব প্রেসিডেন্টই ক্ষমতায় থাকাকালীন ওই প্রক্রিয়া বিলম্বিত করার জন্য স্বাক্ষর করেন।
১৯৬৭ সালে পূর্ব জেরুজালেম দখল করে নেয় ইসরাইল। পরে ১৯৮০ সালে তারা পূর্ব জেরুজালেমকে অধিগ্রহণ করে নেয় এবং ইসরাইলের অংশ হিসেবে ঘোষণা করে। তবে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী ওই অঞ্চলকে দখলকৃত হিসেবেই বিবেচনা করা হয়।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪