শিরোপা মাশরাফির হাতেই ॥ শিরোপা জিতে বাজিমাত করেছে রংপুর রাইডার্স

যুগের খবর ডেস্ক: বিপিএলের পঞ্চম আসরে শিরোপা জিতে বাজিমাত করেছে রংপুর রাইডার্স। মঙ্গলবার রাতে মিরপুরে গেইল শোতে তিনবারের শিরোপা জয়ী ঢাকাকে ৫৭ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে মাশরাফির রংপুর। এবারের আসরের শুরুতে ফেভারিট না হলেও, আসর যতই গড়িয়েছে ততই নিজেদের প্রমাণ করেছে রংপুর রাইডার্স। বিশেষ করে খুলনার বিপক্ষে এলিমেনেটর ও কুমিল্লার বিপক্ষে কোয়ালিফায়ারে তারা নিজেদের প্রস্তুত করেছে ফাইনালের বড় মঞ্চের জন্য। অপরদিকে ঢাকা তিনবারের চ্যাম্পিয়ন, কুমিল্লাকে কোয়ালিফায়ারে হারিয়ে ফাইনালে উঠেও বঞ্চিত শিরোপা স্বাদ থেকে।
টি-২০ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন ক্রিস গেইল আবারো নিজেকে প্রমাণ করলেন। পুরো আসরে ঝলসে না উঠতে পারলেও, এলিমেনটরে খুলনার বিপক্ষে এবং গতরাতে ঢাকার বিপক্ষে সেঞ্চুরি তুলে নিজের জাত চেনালেন। দু-দলের ব্যাটিংয়ের পার্থক্যটা গড়ে দেন ক্রিস গেইলই। অবশ্য দিনটি যদি গেইলের হয়, সেদিন ম্যাচে কারো কিছু করার থাকে না। এর আগে এলিমিনেটর ম্যাচে গেইল-ঝড়ে ফাইনালের আগেই বিদায় নিতে হয়েছে খুলনাকে। আর ফাইনাল ম্যাচে গেইলের সামনে পড়ে বোলিংয়ে অসহায় হয়ে পড়ে সাকিবের ঢাকা। তবে ফাইনাল ম্যাচটায় যে দর্শকরা রংপুরের ব্যাটিং পুরোপুরি উপভোগ করতে পেরেছেন, সেটাতো গেইলের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের কারণেই।
অপরদিকে মাশরাফি বিপিএলের পাঁচ আসরের চারবারই ফাইনালে খেলে শিরোপা জিতে অনন্য রেকর্ড গড়লেন। এর আগে প্রথম দুই আসরে ঢাকার, তৃতীয় আসরে কুমিল্লার হয়ে ট্রফি ওঠে মাশরাফির হাতে।
জয়ের জন্য ২০৭ রানের টার্গেট নিয়ে মাঠে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে ঢাকা। তৃতীয় বলেই মাশরাফি এলবিডডিøউয়ের ফাঁদে ফেলে তুলে নেন মেহেদী মারুফের (০) উইকেট। পরের ওভারে সোহাগ গাজীর শিকার জো ডেনলি (০), মিড অনে ক্যাচ নেন নহিদুল। এক রানেই নেই দুই উইকেট। অপর ওপেনার ইভান লুইসকে নিয়ে দলের হাল ধরেন অধিনায়ক সাকিব। তবে এ জুটিও দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। সোহাগের পরের ওভারে বিদায়ে লুইসের (৯ বলে ১৫ রান)। লংঅনে প্রায় ২০ গজ দৌড়ে ক্যাচ নেন মাশরাফি, ১৯ রানেই নেই তিন উইকেট। ফলে শুরুতেই ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে ঢাকা। পঞ্চম ওভারে বোলিংয়ে এসে রুবেল তুলে নেন পোলার্ডেও উইকেট, লং লেগে ক্যাচ নেন গেইল। ২৯ রানে নেই চার উইকেট। পঞ্চম উইকেট জুটিতে উইকেটরক্ষক জহুরুল ইসলাম অমিকে নিয়ে সাকিব দলে ইনিংস ৫০ এর ঘর পার করেন। দলীয় ৭১ রানে ঢাকার শেষ ভরসা সাকিব বিদায় নেন নাজমুলের বলে বোল্ড হয়ে। ১৬ বলে তিন বাউন্ডারি ও এক ছক্কায় ২৬ রান করেন সাকিব। এরপর মোসাদ্দেক সৈকত (চারবলে এক) ও শহীদ আফ্রিদি (পাঁচ বলে আট) বিদায় নিলে গ্যালারিতে রংপুরের সমর্থকরা জয়ের উৎসব শুরু করেন। ৮৭ রানে নেই সাত উইকেট। ১৪তম ওভারে শতরান আসে ঢাকার ইনিংসে।
এরপর খেলা এগিয়ে চলে শুধু নিয়মরক্ষার জন্য। দলীয় ১২৯ রানে উদানার বলে বোল্ড নারিন (১৫ বলে ১৪ রান), অষ্টম উইকেটের পতন। সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মিছিলে ৩৭ বলে দুই ছক্কা ও চার বাউন্ডারিতে হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করে পরের বলেই উদানার দ্বিতীয় শিকার জহুরুল ইসলাম অমি। ১৩২ রানে নবম উইকেটের পতন। শেষ পর্যন্ত ২০তম ওভারে বোলিংয়ে এসে গেইল দশম উইকেট নিয়ে ১৪৯ রানেই গুটিয়ে দেন ঢাকার ইনিংস। রংপুর জয় পায় ৫৭ রানে।
এর আগে, টস জিতে ঢাকার অধিনায়ক সাকিব প্রথমে ব্যাটিংয়ের জন্য রংপুরকে আমন্ত্রণ জানান। তিন বিদেশির ওপর ভর করেই চ্যাম্পিয়ন ঢাকাকে ২০৭ রানের বিশাল টার্গেট দেয় মাশরাফির রংপুর। গতকাল ওপেনিংয়ে নামেন দুই ক্যারিবীয় ক্রিস গেইল ও জনসন চার্লস। দলীয় ৫ রানেই চার্লসকে ফিরতে হয় মাত্র তিন রানে। সাকিব নিজের বলে নিজেইে ক্যাচ নিয়ে চার্লসকে আউট করে বোলিংয়ের শুরুটা করেছিলেন ভালো কিছুর টার্গেট করেই। দলীয় ৫ রানে আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি করা ওপেনার চার্লসকে বিদায় করে বোলিংয়ের চমকটা সাকিবের দল দিয়েছিলেন ঠিকই। এর পরের ইতিহাস শুধুই রংপুর রাইডার্সের সাফল্যেও, ঢাকার হতাশার। শুরুতে চার্লস ফিরলেও ম্যাকালামকে নিয়ে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতেই ম্যাচের পুরো নিয়ন্ত্রণ নেন ক্রিস গেইল। এরপর আর কোনো উইকেট না হারিয়ে দুজন ২০১ রানে পার্টনারশিপ গড়ে দলকে নিয়ে যায় ২০৬ রানের নিরাপদ স্কোরে। গেইল ১৪৬ রান আর ম্যাককালাম ৫১ রানে অপরাজিত থেকে ইনিংস শেষ করেন। ঢাকার বোলাররা বার বার চেষ্টা করেও এই জুটির ভাঙন ধরাতে পারেনি। ফলে বিপিএলের সর্বোচ্চ ২০১ রানের পার্টনাশিপ রেকর্ড গড়েই মাঠ ছাড়েন গেইল-ম্যাককালাম জুটি। অবশ্য দলীয় ৫ রানে প্রথম উইকেট হারানো দলটি ৭.৩ ওভারে এক উইকেট হারিয়ে ৫০ রান করলেও ১০ ওভার শেষে দলের স্কোর ছিল এই উইকেটে ৬৩ রান। হয়তো ব্যাট করতে নেমে প্রথম উইকেট হারানোর ধাক্কা সাামলে উঠতেই এই দুই ব্যাটসম্যান দেখেশুনে ব্যাট করছিলেন বলেই রানটা কম হয়েছিল। তবে ১০ ওভার পরেই ব্যাটিংয়ে ঝড় তোলেন ক্রিস গেইল। ৩৩ বলে প্রথম ফিফটি করা গেইল পরের ২৪ বলে করেন দ্বিতীয় ফিফটি। ফলে ৫৭ বলেই ১১ ছক্কা আর চার বাউন্ডারিতে করেন এবারের বিপিএলে নিজের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। এর আগে খুলনার বিরুদ্ধে প্রথম সেঞ্চুরিসহ ১২৬ রান করেছিলেন গেইল। আজ গেইল নিজেই নিজের রেকর্ড ভেঙে খেলেন বিপিএলের ১৪৬ রানের সর্বোচ্চ রানের ইনিংস।
মাত্র ৬৯ বলে গেইল ১৪৬ রান করতে খেলেছেন ১৮টি ছক্কা আর পাঁচ বাউন্ডারিতে। খুলনার বিপক্ষে ১২৬ রানের ইনিংসে গেইল খেলেছিলেন ১৪টি ছক্কা। গেইলের সেঞ্চুরির ম্যাচে অপর বিদেশি ম্যাককালামও খেলেছেন ফিফটি রানের ইনিংস। ৪৩ বলে ৪টি চার আর তিন ছক্কায় ম্যাককালাম করেন ৫১ রান। গতকাল রংপুরের পক্ষে গেইল-ম্যাককালাম জুটিই ২০১ রানের পার্টনারশিপ গড়ে ঢাকাকে পিছনে ফেলে দেয়। অবশ্য এই জুটি ভাঙার সুযোগ যে ঢাকার বোলাররা পাননি তা কিন্তু নয়। কিন্তু বাজে ফিল্ডিংয়ের কারণে জুািট ভাঙতে পারেননি সাকিবের সতীর্থরা। ফলে প্রথমবারের মতো ফাইনালে খেলতে এসেই চারবারের ফাইনাল খেলা ঢাকাকে কঠিন চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয় মাশরাফির রংপুর রাইডার্স।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪