চরাঞ্চলে জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতিতে পুরুষের অংশগ্রহণ নেই বললেই চলে

এস, এম নুরুল আমিন সরকার:
কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলা। ঐতিহ্যগতভাবে বেশ সুনাম রয়েছে। প্রাচীন নদী বন্দর আর ব্যবসা বাণিজ্য সর্বক্ষেত্রে গুরুত্ব বহন করে চলেছে আদিকাল থেকে। পাটের কারবার ছিল জমজমাট। পাট প্রসেসিং বেল বাঁধাই শ্রমিকদের নিত্যদিনের কাজ আর কাজ দুরদুরান্ত থেকে আসা ব্যবসায়ী ও ফড়িয়াদের আনাগোনায় মুখরীত ছিল চিলমারী বন্দর। ব্রহ্মপত্র নদের ভাঙ্গণে যেন সব লন্ডভন্ড হয়ে যায়। সেই বন্দর ভেঙ্গে খানখান হয়ে যায়। ছোট ছোট বাজার গড়ে ওঠে। ব্রহ্মপুত্র নদের মধ্যখানে জেগে ওঠা বালু চরে বসতি গড়ে তোলে জমি-জীরাত হারানো মানুষ। চরাঞ্চলে বসবাসের কারণে তারা সরকারের নানা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়। মৌলিক চাহিদাগুলোর অনেকটাই পাওয়া হয়ে ওঠে না তাদের। তার মধ্যে চিকিৎসাসেবা অন্যতম। জন্ম নিয়ন্ত্রণ তো আরো পরের কথা। চরের মানুষ মনে করে যিনি মুখ দিয়েছে তিনিই আহার দেবেন। আর জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি নেয়াও ধর্ম বিরোধী কাজ মনে করেন তারা। সরকারের পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের লোকজন মানুষকে সচেতন করতে শুরু করে। এতে যোগ দেয় বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থাগুলোও। সরকারের পাশাপাশি তারা কাজ শুরু করে। কিন্তু বাঁধ সাধে পুরুষ শাসিত সমাজের স্বামী নামের পুরুষরা। তাদের ভাস্যমতে বংশ রক্ষা করতে হবে। সন্তান-সন্তুতি যত বেশি হবে লাঠিয়াল বাহিনী তত বাড়বে। মানুষ ভয় পাবে, চরের জমি রক্ষা করা যাবে। কিন্তু নাছোড় বান্দা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কর্মীবৃন্দ। তারা চরবাসীদের বোঝাতে চেষ্টা করে বছর বছর সন্তান জন্ম দিয়ে স্বাস্থ্যহানী ঘটবে। মা ও শিশুর মৃত্যুর ঝুকি বৃদ্ধিসহ অপুষ্টিকর শিকার হবে। মায়েরা শর্ত জুড়ে দেয় ‘নিতে পারি একশর্তে আমার স্বামী যেন না জানে’। কাজটা শুরু করা দরকার। তাই হবে পড়ানো হয় ইমপ্ল্যান্ট কিংবা আইইউডি।
চিলমারী উপজেলার প্রত্যন্ত চরাঞ্চল নয়ারহাট ইউনিয়ন। উপজেলা সদর থেকে যে কোন বাহনে রমনা ঘাট যেতে সময় লাগে ২০ মিনিটি। তারপর নৌকাযোগে নয়ারহাট পৌঁছাতে সময় লাগে ১ ঘন্টা থেকে দেড় ঘন্টা। নয়ারহাট ইউনিয়নেই বিচ্ছিন্ন চর রয়েছে প্রায় ২৫টি। নামগুলোও বেশ চমৎকার। সেই চরে কাজ করেন পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক মোঃ জাহিদুল ইসলাম জাহিদ। অত্যন্ত কর্মঠ, সদালাপী, সুমিষ্টি ভাষী এক যুবক। রয়েছে তার দক্ষ জনবল। সাথে আছে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ফ্রেন্ডশিপের এক ঝাঁক যুব নারী কর্মীও। তারাও কাজ করছেন জন্ম নিয়ন্ত্রন পদ্ধতি, ঠিকাদান কর্মসূচী আর ভায়া পরীক্ষা ও চিকিৎসাসেবার উপর। পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক জাহিদুল ইসলাম জাহিদ বলেন, জন্ম নিয়ন্ত্রন পদ্ধতিতে পুরুষের অংশগ্রহণ কম। নারীদের যত সহজে বুঝিয়ে রাজি করা যায়, পুরুষদের তত সহজে রাজি করা যায় না। দক্ষিণ খাউরিয়ার চর গ্রামের গৃহবধু বন্যা (৩০)। দুই সন্তানের জননী। তিনি তৃতীয় সন্তানের জননী হতে চান না। খাবার বড়ি ছিল নিত্যসঙ্গী। আর খেতে ভাল লাগেনা। চান স্থায়ী পদ্ধতি। পরামর্শ চান স্থানীয় পরিবার কল্যান সহকারী মোছাঃ নাছিমা বেগমের কাছে। পরামর্শ মতে গত ১১/০৫/২০১৫ইং তারিখে ইমপ্ল্যান্ট পড়ানো হয় তাকে। প্রথম ২/১ দিন খারাপ লাগলেও এখন ভাল আছেন। প্রত্যন্ত চরাঞ্চল খেরুয়ার চর। চরের চার পাশেই ব্রহ্মপুত্র নদ। পশ্চিমে চিলমারী উপজেলা সদর, পূবে রৌমারী উপজেলা। উপজেলা সদরে নৌকা যোগে পৌঁছাতে সময় লাগে ২টা। খেরুয়ার চর গ্রামের বাসিন্দা সুফিয়া বেগম (২৭)। স্বামী আর ২ ছেলে ও ১ মেয়ে নিয়ে চলে তার সংসার। স্বামী কখনো দিনমজুরী করে কখনো বা চরের বালু জমিতে ফসল ফলায়। একমাত্র ভরসা প্রাইমারী স্কুল। উচ্চ শিক্ষার কোন সুযোগ নেই এই চরে। ৩ সন্তানের পর ৪র্থ সন্তান নেয়ার ইচ্ছা নেই সুফিয়া বেগমের। স্বাস্থ্যটাও ভেঙ্গেছে অনেকখানী। কথা বলেন পরিবার কল্যাণ সহকারী মোছাঃ আয়শা বেগমের সাথে। গত ১৬/১১/২০১৬ইং তারিখে ইনপ্ল্যান্ট পড়ানো হয় সুফিয়া বেগমকে। ২/৪ দিন মানসিক অস্বাস্থ্যবোধ হলেও তারপর থেকে বেশ ভাল আছেন। দক্ষিণ খাউরিয়ার চরের বাসিন্দা রোজিনা (২৭) ২ সন্তানের জননী। খাবার বড়ি খেতো নিয়মিত। ছোট সংসার স্বামী কোন পদ্ধতি গ্রহণ করতে রাজি না। গত ১৫/০২/২০১৭ইং তারিখে স্বামীর অজান্তে গ্রহণ করে ইমপ্ল্যান্ট। এখন ভাল আছেন তিনি। খেরুয়ার চরের বাসিন্দা রাশেদা বেগম (১৮)। কম বয়সে বসতে হয় বিয়ের পিঁড়িতে। বছর ঘুরতে না ঘুরতেই কোল জুড়ে আসে ১পুত্র সন্তান। স্বাস্থ্যহানি ঘটে রাশেদার। শুরু করে খাবার বড়ি। মাঝে মধ্যে মাথা ঘুড়ায়, ভমি ভমি ভাব হয়। স্বামীও কর্ণপাত করে না। স্থানীয় পরিবার কল্যাণ সহকারীর পরামর্শক্রমে গত ১৭/১২/২০১৭ইং তারিখে ইমপ্ল্যান্ট গ্রহণ করে। ২/১ দিন অস্বস্থিবোধ হলেও এখন ভাল আছেন রাশেদা বেগম। খেরুয়ার চরের হাসিনা বেগম (৩৩)। ১ মেয়ে ও ২ ছেলের জননী। কষ্টে চলে তার জীবন সংসার। গরীবের সংসারে ৪র্থ সন্তান নিতে চান না হাসিনা বেগম। গত ১৭/১২/২০১৭ইং তারিখে ইমপ্ল্যান্ট গ্রহণ করেন তিনি।
দক্ষিণ খাউরিয়ার চরের ছকিনা বেগম (৩০)। ১ ছেলে ও ১ মেয়েসহ দুই সন্তানের জননী। রোজ রোজ খাবার বড়ি খেতে ভাল লাগেনা। সন্তান নিতেও চান না তিনি। শুনেছে ২ সন্তান যথেষ্ট সুখের সংসার গড়তে হলে দুই সন্তানই যথেষ্ট। তাই স্বামীকে রাজি করিয়ে গত ৩০/০৭/২০১৭ইং তারিখে গ্রহণ করেন আইইউডি।
নাম তার সুর্যভানু। বয়স এখন ৪৩। বাবা মা আদর করে নাম রেখেছেন। খেরুয়ার চরের বাসিন্দা তিনি। সুখী সংসার তার। ১ ছেলে ১ মেয়ে। সবাই বলে ‘দু‘সন্তানের জননী বুদ্ধিমতি রমনী’। তিনি আর বাচ্চা-কাচ্চা নিতে রাজী নন। প্রতিদিন খাবার বড়ি খাওয়াও বিরক্তিকর। পরিবার কল্যাণ সহকারীর সাথে পরামর্শ করে কোন পদ্ধতি ভাল আর বেশিদিন স্থায়ী হবে। পরামর্শ দেয়া হয় আইইউডি গ্রহণের। গত ১৬/০২/২০১৭ইং তারিখে আইইউডি গ্রহণ করেন তিনি। খেরুয়ার চরের আরেক গৃহবধু জায়দা বেগম (৩৮)। ২ ছেলে ও ১ মেয়ে সন্তানের জননী। অভাবের সংসারে ৪র্থ সন্তান নিতে চান না তিনি। প্রতিদিন খাবার বড়ি খেতেন। বড়ি শেষ হলে তাৎক্ষনিক পাওয়াও দুস্কর। পরিবার কল্যাণ সহকারীর বাড়ী দুরে। বাজারে আসতে গেলেও হাটের দিন ছাড়া সম্ভব নয়। রবিবার ও বুধবার চরের মানুষের জন্য উৎসবের দিন। কেননা অন্যদিন নদী পাড় হতে হলে প্রায় ১ থেকে দেড় হাজার টাকায় নৌকা রিজার্ভ নিতে হয়। আর হাটের দিন ৬০ থেকে ১০০ টাকায় নদী পারাপার করা যায়। এত্তো সামেলার চেয়ে দীর্ঘ মেয়াদি পদ্ধতি ব্যবহার করাই ভাল। স্বাস্থ্য আপার সাথে কথা বলে নির্দিষ্ট দিন ক্যাম্পে হাজির হন জায়দা বেগম। গত ২৪/১০/২০১৭ইং তারিখে গ্রহণ করেন আইইউডি। প্রথম দিকে একটু একটু অস্বস্থি লাগতো পড়ে সামান্য ব্ল্যাডিংও হতো। পরে সব ঠিক হয়ে যায়। এখন ভাল আছেন তিনি।
দক্ষিণ খাউরিয়ার চরের বাসিন্দা হামিদা বেগম (৩৩)। ২ সন্তানের জননী। তৃতীয় সন্তান নেয়ার ইচ্ছা নেই তার। স্বামীর ইচ্ছা আছে। কিন্তু চাই একটা দীর্ঘ বিরতি। কি করা যায়? বাড়ীতে হাজির হন পরিবার কণ্যাণ সহকারী নাছিমা বেগম। তিনি আইইউডি নেয়ার পরামর্শ দেন। তাছাড়া ৩ মাস পরপর স্যাটেলাইলট ক্লিনিকে গিয়ে ইনজেকশন নেয়া ঝাঁমেলার কাজ। রাস্তা ঘাট খারাপ যোগাযোগ করা মুসকিল। আইইউডি নিলে ১০ বছর পর্যন্ত কোন সমস্যা হবে না। দীর্ঘ ১০ বছর মেয়াদী আইইউডি গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন হামিদা বেগম। ১৭/০৫/২০১৬ইং তারিখে ইউনিয়ন পরিবার কল্যাণ (এফডাব্লিউসি) কেন্দ্রে হাজির হয়ে গ্রহণ করেন আইইউডি। কিছুদিন পর ব্লেডিং হলেও পরে সব ঠিকঠাক হয়ে যায়। হামিদা বেগম এখন ভাল আছেন। সুখে যাচ্ছে তাদের দিন। জায়দা, হামিদা, হাসিনা, সুফিয়া, রাশেদা, বন্যা, রোজিনা, ফাতেমা ও সূর্যভানুরা এখন আছেন। জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ইমপ্ল্যান্ট ও আইইউডি ব্যবহার করে পাচ্ছেন চরে উৎপাদিত কাঁশ ফুলের নরম ছোঁয়া। তবে চরাঞ্চলে জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতিতে পুরুষের অংশগ্রহণ নেই বললেই চলে।
উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ শহিদুল ইসলাম বলেন, চিলমারী উপজেলার নয়ারহাট ইউনিয়নে সক্ষম দম্পতির সংখ্যা রয়েছে ১ হাজার ৮৬৩ জন, খাবার বড়ি খান ৬৬৪ জন, ইনজেকশন নেন ৩৬৪ জন, কনডম ব্যবহার করেন ৮৯ জন, আইইউডি নিয়েছেন ৮৩জন, ইমপ্ল্যান্ট নিয়েছেন ২৩৬ জন, পুরুষ বন্ধ্যাকরণ ৪০জন, মহিলা বন্ধ্যাকরণ হয়েছে ৮১ জন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪