১৫০০ প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ প্রকল্পে ভয়াবহ দুর্নীতি

যুগের খবর ডেস্ক: নির্মাণ কাজ যথাযথ হয়নি ‘বিদ্যালয়বিহীন এলাকায় ১৫০০ প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন’ প্রকল্পে। নিম্মাননের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করায় কিছু দিনের মধ্যেই ভবন দেবে গেছে। ছাদে ফাঁটল ধরেছে। খসে পড়েছে পলেস্তারা। সামান্য বৃষ্টিতেই পানি পড়ে। ডিজাইন মেনে নির্মাণ করা হয়নি ভবন। স্থাপন করা হয়নি টিউবওয়েল। টয়লেটে রাখা হয়নি পানির ব্যবস্থা। দরপত্রের শর্ত লঙ্ঘন হয়েছে পদে পদে। ভয়াবহ অনিয়মের এসব চিত্র বেরিয়ে এসেছে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অধীন বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) তদন্তে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করেছে আইএমইডি।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মো. গিয়াস উদ্দিন আহমেদ আজ বিকালে বলেন, আইএমইডি প্রতিবেদনের সব তথ্য সত্য নয়। তাদের প্রতিবেদনের জবাব আমরা দিয়েছি। একই সঙ্গে নির্মাণ কাজে যেসব ত্রুটি রয়েছে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে ডিপিইকে (প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর) বলা হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, ৩৯টি স্কুলের নির্মাণ কাজ এখনও শেষ হয়নি। ব্যয় বাড়ানো ছাড়াই জুন মাস পর্যন্ত প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরকে আগামী জুনের মধ্যে টিউবওয়েল বসানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কার্যাদেশ অনুযায়ী কাজ বুঝিয়ে না দিলে ঠিকাদারদের সব টাকা দেওয়া হবে না।
গত নভেম্বর মাসে আইএমইডি কর্মকর্তারা বান্দরবন জেলার সদর ও রোয়াংছড়ি উপজেলার তিনটি স্কুল সরেজমিন পরিদর্শন করেন। এসময়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। স্কুল তিনটি হলো তুলাছড়িপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বড়ইতলিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রমারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দরপত্রে শর্তানুযায়ী তিনটি স্কুলে টিউবওয়েল স্থাপন করা হয়নি। টয়লেট নির্মাণ করলেও পানির ব্যবস্থা রাখা হয়নি। ফলে ২০১৬ সাল থেকে শিক্ষাকার্যক্রম চালু হওয়া এসব স্কুলের শিক্ষার্থীরা চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।
প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, নির্মাণ কাজের ত্রুটির কারণে তিনটি স্কুলের ছাদের পানি ভবনের ওয়াল বেয়ে শ্রেণি কক্ষে ঢুকে। জানালায় বিট না দেওয়ায় বৃষ্টির পানি শ্রেণি কক্ষে ঢুকে ভবনের ভিতরের দেয়াল ড্যাম হয়ে গেছে। রামারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও তুলাছড়িপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনের ছাদের ব্রিক ওয়াল ও আরসিসির বিভিন্ন অংশে ফাটল ধরেছে। তিনটি স্কুলের ভবন নির্মাণের সময়ে কিউরিং কম হওয়ায়  মেঝে ও  দেয়ালের আস্তর উঠে গেছে। কার্যাদেশের ডিজাইন পরিবর্তন করে বড়ইতলিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ করা হয়েছে। স্কুলটির ছাদের কংক্রিট নষ্ট হয়ে গেছে। চারতলা ভিতের ওপর একতলা ছাদের এ অবস্থা হওয়ায় ভবিষ্যতে নতুন করে তালা নির্মাণে সমস্যা হবে।
প্রতিবেদনের তথ্যানুযায়ী, বড়ইতলিপাড়া স্কুলটি ২০১৩ সালে চালু করা হয়েছে। স্কুলটিতে ১৪ জন ছাত্র ও ১৭ জন ছাত্রী পড়াশুনা করছে। চারতলা ভিতের ওপর একতলা ভবন নির্মাণ করা হয়েছে।
শিক্ষার্থী কম হওয়ায় ভবিষ্যতেও ভবনের তালা বাড়ানোর প্রয়োজন হবে না। দুর্গম এলাকার এ ধরণের স্কুলের চারতলা ভিত দেওয়া নিয়ে প্রতিবেদনে প্রশ্ন  তোলা হয়েছে। অর্থ সাশ্রয় করতে ভবিষ্যতে এ ধরনের প্রকল্প তৈরির ক্ষেত্রে এলাকার চাহিদা, সম্ভাব্য শিক্ষার্থীর সংখ্যা জরিপ করে প্রকল্প তৈরির পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।
ভবন নির্মাণ ছাড়াও প্রকল্পের স্কুলগুলোতে মেশিনারি সরবরাহ, আসবাবপত্র ক্রয়, সোলার প্যানেল, ভূমি অধিগ্রহণ ও জমি ভরাটে অনিয়ম হয়েছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এর আগেও আইএমইডি একাধিকবার প্রকল্পের অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন দিলেও ব্যবস্থা নেয়নি মন্ত্রণালয়।
বড়ইতলিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কালি দাস  আজকালের খবরকে বলেন, স্কুল চালুর কিছু দিন পরেই ভবনে ফাটল ধরেছে। বর্ষার সময়ে ছাদ থেকে পানি পড়ে। পানিতে অফিস রুমে রাখা সকল কাগজপত্র নষ্ট হয়ে যায়। আমার এক কোণায় জড়ো হয়ে বসে থাকি। তিনি আরও বলেন, বেশি বৃষ্টি হলে ক্লাস না করেই স্কুল ছুটি দিতে হয়। ফলে দুর্গম এলাকায় স্কুল চালুর আসল উদ্দেশ্য ব্যাহত হচ্ছে।
নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার একবছর পার না হতেই গত জুলাই মাসে হেলে পড়ছে সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার রাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন। ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় বর্তমানে ভবনটিতে পাঠদান বন্ধ রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, নিচু এলাকার মাটি ভরাট করে পাইলিং ছাড়াই ভবন নির্মাণ করার। এভাবে আরও অনেক স্কুলের ভবন নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে।
ডিপিই সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশের প্রায় দুই হাজার ১০০ গ্রামে কোনো সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নেই। পাহাড়, হাওর, চর ও উপকূলীয় এলাকায় স্কুলবিহীন গ্রামের সংখ্যা বেশি। চার থেকে পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যেও স্কুল নেই এমন এলাকাও রয়েছে। এসব দুর্গম এলাকার শিশুরা শিক্ষা বঞ্চিত হচ্ছে। জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০ এ সকল শিশুর জন্য প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে বিদ্যালয়বিহীন গ্রামে প্রাথমিক স্কুল নির্মাণের নির্দেশনা রয়েছে। নির্দেশনা বাস্তবায়নে শেখ হাসিনার সরকার বিদ্যালয়বিহীন গ্রামে একটি করে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ নেয়। ২০১০ সালের জুন মাসে ‘বিদ্যালয়বিহীন ১৫০০ গ্রামে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন’ নামে একটি প্রকল্প  নেওয়া হয়। সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় ৯০৫ কোটি ৭৪ লাখ ৯৪ হাজার টাকা। ডিপিই’র তত্ত্বাবধানে প্রকল্পটি বাস্তাবায়ন করে এলজিইডি। ২০১৬ সালে প্রকল্পের প্রথম মেয়াদ শেষ হয়। নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ না হওয়ায় গত ডিসেম্বর পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়। ১৪৫২টি স্কুল নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। মামলার কারণে পাঁচটি স্কুল প্রকল্পের বাইরে রয়েছে।
প্রকল্পের অধীনে নির্মিত স্কুলে প্রেষণে শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে অনেক স্কুল চালু করা হয়েছে। তবে ভবনের নির্মাণ কাজে অনিয়মের কারণে নির্মিত ভবনে ক্লাস করা যাচ্ছে না বলে শিক্ষকরা অভিযোগ করেছেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪