ফেলানী হত্যার সাত বছর আজ সীমান্ত হত্যা বন্ধ দিবস ঘোষণা দাবি

sangbad_today_1515265313

হুমায়ুন কবির সূর্য্য, কুড়িগ্রাম: আজ ৭ জানুয়ারি। ২০১১ সালের এই দিনে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফের গুলিতে নির্মমভাবে হত্যাকাণ্ডের শিকার হয় কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার রামখানা অনন্তপুর সীমান্তের বাসিন্দা কিশোরী ফেলানী। দীর্ঘ সাড়ে চার ঘণ্টা কাঁটাতারে ঝুলে থাকে কিশোরী ফেলানীর নিথর দেহ। এই হত্যাকাণ্ডে গণমাধ্যমসহ বিশ্বের মানবাধিকার সংগঠনগুলোর তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে ভারত।

ফেলানীর বাবা নুর ইসলাম নুরু জানান, দিনটি ছিল শুক্রবার। ভোর সোয়া ৬টার দিকে ভারতীয় বিএসএফের গুলিতে আহত ফেলানী আধাঘণ্টা ধরে ছটফট করে নির্মমভাবে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে। এরপর সকাল পৌনে ৭টা থেকে পৌনে ১১টা পর্যন্ত মৃতদেহ কাঁটাতারের ওপর দীর্ঘ সাড়ে ৪ ঘণ্টা ঝুলে থাকে। পরে বিএসএফ সদস্যরা লাশ নামিয়ে ভারতের অভ্যন্তরে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় বিশ্বব্যাপী তোলপাড় শুরু হলে মৃত্যুর ৩০ ঘণ্টা পর ৮ জানুয়ারি শনিবার লাশ ফেরত দেয় বিএসএফ। বাংলাদেশে আরেক দফা ময়নাতদন্ত শেষে লাশ দাফন হয় ৭৩ ঘণ্টা পর। মানবাধিকার সংস্থাগুলোর অব্যাহত চাপের মুখে তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন কুড়িগ্রামে এসে ফেলানীর মা ও ভাই-বোনদের ভারত থেকে ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দেন। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ১৫ ফেব্রুয়ারি নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা এবং কঠোর গোপনীয়তার মধ্য দিয়ে বিকেলে নিহত ফেলানীর মা ও ভাই-বোনদের বাংলাদেশে ফেরত দেয় ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।

ফেলানীর মা জাহানারা বেগম জানান, হাতে মেহেদী রাঙাতে যে কিশোরী মেয়েকে দেশে পাঠিয়েছিলাম, সেই ফেলানী বিএসএফের গুলিতে চিরবিদায় নিয়ে শুয়ে আছে ৭ বছর ধরে। কবরের পাশে বসে হাঁহাকার করা ছাড়া আর আমাদের কিছুই করার নেই। রামখানা ইউনিয়নে টিনের একটি ঘরে কোনরকমে মাথা গুঁজে দিন কাটছে আমাদের। ওই ঘরটির সামনের অংশে একটি ছোট মুদি দোকান দিয়ে সংসার চালাই। নাখারগঞ্জ বাজারে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসন ও বিজিবি’র দেয়া অপর দোকানটি চালায় ফেলানীর বাবা নুর ইসলাম। কিন্তু মূলধনের অভাবে ব্যবসা ভালো চলছে না।

রামখানা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আলিম সরকার জানান, দীর্ঘদিন ধরে ফেলানীর হত্যার ন্যায়বিচার না পেয়ে ফেলানীর পরিবার ও গ্রামবাসীরাও হতাশ হয়ে পড়েছে। সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের দেয়া অনেক প্রতিশ্রুতির মধ্যে শুধুমাত্র ফেলানীর কবরটি পাকাকরণ ছাড়া আজ পর্যন্ত অন্যান্য প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন হয়নি। ফেলানী হত্যাকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি আশা প্রকাশ করে সীমান্তে হত্যাকা- বন্ধের জন্য ও এই দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে জাতীয় দিবস ঘোষণার দাবি জানান তিনি।

অ্যাডভোকেট এসএম আব্রাহাম লিংকন জানান, ফেলানী হত্যার দায় স্বীকার করার পরেও বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষকে বিএসএফের বিশেষ আদালত ২ বছর ৮ মাস পরে বেকসুর খালাস দেয়। তবে সেই রায় যথার্থ মনে করেনি বিএসএফের মহাপরিচালক। তিনি রায় পুনর্বিবেচনার জন্য আদেশ দেন। এরপর ২ জুলাই ২০১৫ সালে বিএসএফ বিশেষ আদালত আবারও নির্দোষ ঘোষণা করেন অভিযুক্ত অমিয় ঘোষকে। মেয়ের হত্যার ন্যায়বিচার পেতে ভারতের মানবাধিকার সংস্থা (মাসুম)-এর মাধ্যমে ফেলানীর পরিবার একই বছরের ১৩ জুলাই ভারতের সুপ্রিম কোর্টে ২০১ এবং ২৪৫নং দুটি রিট করেন। ভারতের সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে গঠিত বেঞ্চে শুনানি রিট আবেদন গ্রহণ করে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ কয়েকটি সংস্থাকে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেন। গত ২৫ অক্টোবর ভারতের সর্বোচ্চ আদালত আগামী ১৮ জানুয়ারি দুটি রিটের শুনানির দিন ধার্য করেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪