দুই কর্মচারীর দুর্নীতি নিয়ে তোলপাড় শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিব্রত ব্যবস্থা নেবেন শিক্ষামন্ত্রী তথ্যের ভিত্তিতেই গ্রেফতার : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

যুগের খবর ডেস্ক: শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গ্রেফতার দুই কর্মচারির দুর্নীতি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। তাদের অবৈধ সম্পদ নিয়ে খোদ মন্ত্রণালয় এখন বিব্রত। দুর্নীতির দায়ে দুই কর্মচারি গ্রেফতার হওয়ার পর শীর্ষ কর্মকর্তারা বলছেন, যারা দুর্নীতি করেছে কলঙ্কের দায় তাদেরকেই বহন করতে হবে। এদিকে আটক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুইজনের বিরুদ্ধে চাকরিবিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। অপরদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, শিক্ষামন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে ডিবি গ্রেফতার করেছে।

গতকাল সোমবার সচিবালয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সাংবাদিকদের বলেছেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ধরেছে, নিশ্চয়ই কোনো অভিযোগ আছে। সে অভিযোগ কোর্টে প্রমাণ হবে এবং শাস্তি হবে। সেই বিধান অনুসারে আমাদের যে সিস্টেম আছে, সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শিক্ষামন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা (পিও) মোতালেব হোসেন এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গ্রহণ ও বিতরণ শাখার উচ্চমান সহকারী নাসির উদ্দিন নিখোঁজ হওয়ার পর পুলিশ রোববার জানায় ওই দুইজন তাদের হেফাজতে আছে। দুজনের নিখোঁজের খবরে সবাই উদ্বিগ্ন হয়ে পড়লেও এখন আর ‘চিন্তা করার দরকার নেই’ মন্তব্য করে নাহিদ বলেন, এটা এখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপার। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী (ধরে) নিলে কিছু না কিছু কারণ আছে।

 দুর্নীতি হোক, অন্য যে কোনো ধরনের অপরাধ হতে পারে, অপরাধ আছে। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যদি তারা কোনো ঘুষ নিয়ে থাকে যে কোনো ধরনের অপরাধ করে থাকেন, ব্যবস্থা সরকার নেবে। আইনি ব্যবস্থায় যা আছে তাই হবে। আর সেই সাথে    এই অপরাধে অপরাধী হলে অবশ্যই আমাদের এখান থেকে চাকরিবিধি অনুযায়ী আমরা ব্যবস্থা নেব। পুলিশের হাতে আটক মোতালেব নিজের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা হলেও এখন আর তাকে কোনো সহযোগিতা দেবেন না বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, যা হওয়ার তাই হবে, আমরা এটা বরদাস্ত করব না। আমরা কোনোভাবেই বলব না যে আমার এখানে, মন্ত্রণালয়ে কাজ করে তাই তাকে আমরা সহযোগিতা দেব, মোটেই দেব না। আমরা কখনও কোনো অন্যায়কারী, কোনো ঘুষ খাওয়া, দুর্নীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত, বেআইনি কাজ করা কোনো লোককে প্রশ্রয় দেব না, তার বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নেব। আগে থেকেই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে চাকরি করলেও দুই বছর আগে নাহিদের পিও হিসেবে বদলি হয়ে মন্ত্রীর দপ্তরে আসেন মোতালেব। নাহিদ বলেন, এখানে (শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে) কারো জন্যই দুর্নীতি, অনিয়ম, ঘুষ বা আইনবিরোধী কোনো কাজ করার কোনো সুযোগ, কোনো অধিকার নেই, তারপরেও হয়ত হয়।

সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতেই গ্রেফতার : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
শিক্ষামন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তাসহ নিখোঁজ তিনজনকে সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে ডিবি গ্রেফতার করেছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। সোমবার রাজধানী উচ্চ বিদ্যালয়ে সরস্বতি পূজার অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যতদূর জানি সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে ডিবি তাদের গ্রেফতার করেছে। তদন্ত চলবে। তদন্ত শেষ হলে বোঝা যাবে তারা কতটুকু দোষী কিংবা কোনো অপরাধ করেছে কি না। গত রোববার শিক্ষামন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী মো. মোতালেব হোসেন এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে সংযুক্ত মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) উচ্চমান সহকারী মো. নাসিরউদ্দিনকে দুর্নীতির অভিযোগে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ।

 আরেক অভিযানে জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগে লেকহেড গ্রামার স্কুলের মো. খালেক হোসেন মতিনকে গুলশান থেকে গ্রেফতার করা হয়। এ বিষয়ে গতকাল সোমবার সকালে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমার ব্যক্তিগত সহকারী ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মচারী নাসিরকে কেন ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করেছে আমি জানি না। এ বিষয়ে খোঁজ-খবর নিতে এডমিনকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তারা (গ্রেফতাররা) যদি অপরাধী হয় পুলিশ আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে।’ উল্লেখ্য, শিক্ষামন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মোতালেব হোসেনকে গত শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে মোহাম্মদপুরের বসিলা সড়ক থেকে ‘অপহরণ’ করা হয় বলে অভিযোগ করেন তার পরিবার। এ বিষয়ে হাজারীবাগ থানায় একটি জিডি করা হয়। জিডিতে বলা হয়, শনিবার বিকেল ৩টার দিকে রাজধানীর বছিলা থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা তাকে তুলে নিয়ে গেছে। এছাড়া গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে বনানী থেকে উচ্চমান সহকারী নাসিরউদ্দিনকে ‘অপহরণ’ করা হয় বলেও অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায়ও রাজধানীর বনানী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন নাসিরের শ্বশুর আব্দুল মান্নান।

আটককৃতদের সম্পদের দায় নেবে না মন্ত্রণালয়
কারো ব্যক্তিগত দুর্নীতির দায় নেবে না শিক্ষা মন্ত্রণালয় কিংবা অধিদপ্তর। দুর্নীতির দায়ে দুই কর্মচারি গ্রেফতার হওয়ার পর শীর্ষ কর্মকর্তারা বলছেন, যারা দুর্নীতি করেছে কলঙ্কের দায় তাদেরকেই বহন করতে হবে। নিম্নপদস্থ কর্মচারি হয়েও তাদের অবৈধ সম্পদের পাহাড়ে বিব্রত মন্ত্রণালয়। আটক দু’জনের বিরুদ্ধে অভিযোগের মধ্যে রয়েছে, প্রশ্নপত্র ফাঁস, জিপিএ ফাইভ বিক্রি, লেকহেড গ্রামার স্কুল চালুর ব্যবস্থা করা, মন্ত্রণালয় থেকে ভুয়া সনদ সত্যায়িত করা, দুর্নীতিগ্রস্ত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনের অনুমতি পাইয়ে দেয়া এবং টাকার বিনিময়ে সরকারি কলেজ ও স্কুল শিক্ষকদের পদোন্নতি ও বদলির ব্যবস্থা করা।

 মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেছেন, দুর্নীতির দায়ে যারা আটক হয়েছে, আইন অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। দুর্নীতির অভিযোগে রোববার আটক হন শিক্ষামন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোতালেব হোসেন এবং উচ্চমান সহকারী মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন। তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী হয়েও এই দু’জনের ঢাকায় নিজস্ব বাড়ি, গাড়িসহ বিপুল সম্পদ রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আয়ের সঙ্গে সম্পদের পাহাড় সমান ব্যবধান থাকায় বিব্রত মন্ত্রণালয়।মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর বলছে, এই দায় বহন করতে হবে অভিযুক্ত দু’জনকেই। দুর্নীতির অভিযোগে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা দুর্নীতিবাজদের জন্য একটা বার্তা বলে উলেখ করেন মহাপরিচালক।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪