চিলমারীতে ভাসমান তেল ডিপো মেঘনা তেল শূন্য ॥ আসন্ন ইরি-বোরো মৌসুমে তেল সংকটের সম্ভাবনা

এস, এম নুআস: গত ১ মাস হলো কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলায় অবস্থিত  ভাসমান তেল ডিপো মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেডের বার্জ তেল শূন্য হয়ে পড়েছে। ইরি-বোরো মৌসুমের শুরুতেই ভাসমান তেল ডিপোটি তেল শূন্য হয়ে পড়ায় ভরা ইরি-বোরো মৌসুমে এ এলাকায় তেলের সংকট দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।  এনিয়ে স্থানীয় তেল ব্যবসায়ীরা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। অপরদিকে এ অঞ্চলের ইরি-বোরো মৌসুমে মেঘনা বার্জে দীর্ঘদিন ধরে তেলশূন্য থাকায় ইরি চাষ নিয়ে হতাশ হয়ে পড়েছেন স্থানীয় কৃষকরা।
১৯৮৯ সালে কুড়িগ্রামের চিলমারীতে ভাসমান তেল ডিপো পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা তিনটি কোম্পানী কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর ও লালমনিরহাট জেলায় তেল সরবরাহ করে আসছিল। কয়েক বছরের মাথায় পদ্মা তেল কোম্পানীটি বার্জ মেরামতের অযুহাত দেখিয়ে অন্যত্র সরিয়ে নেয়। এরপর থেকেই মেঘনা ও যমুনা ওয়েল কোম্পানী দুটি এ অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে তেল সরবরাহ করছে। গত কয়েক মাস পূর্বে মেঘনা কোম্পানী তাদের বার্জ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন এলাকায় স্থানান্তরিত করে। যাতায়াত ব্যবস্থা ভাল না হওয়ার কারণে কোম্পানীটির তেল বিক্রি কমে যায়। তেল ব্যবসায়ীরা জানান, দীর্ঘদিন মেঘনা বার্জটি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন এলাকায় রাখার কারণে তেল পরিবহনে ব্যারেল প্রতি অতিরিক্ত ২‘শ টাকা খরচ করে ডিলারদেরকে তেল নিয়ে আসতে হতো। তারপরও মেঘনা সংশ্লিষ্ট ডিলাররা সেখান থেকেই তেল নিতেন। কিন্তু বর্তমানে তেল শূন্য হয়ে পরায় ডিলারগণ যমুনা ওয়েল কোম্পানীর বার্জ থেকে তেল নিচ্ছে। কারণ এই সকল ডিলাররা যমুনা অয়েল কোম্পানীরও এজেন্ট। মেঘনা ডিপোর ডিলারদের চাহিদা পুরন করতে গিয়ে  যমুনা অয়েল কোম্পানীর উপর বাড়তি চাপের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে এ অঞ্চলের জ্বালানী চাহিদা পূরনে যোগান দিচ্ছে একমাত্র যমুনা অয়েল কোম্পানী লিঃ।
কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট ও জামালপুর জেলার প্রান্তিক কৃষক, ক্ষুদ্র কৃষক ও ব্যবসায়ীদের জ্বালানী চাহিদা শুধুমাত্র যমুনা অয়েল কোম্পানীর একার মাধ্যমে সরবরাহ সম্ভব নয়। উপরন্ত  চরাঞ্চলের কৃষকরা বিদ্যূৎ সুবিধা না থাকায় শুধুমাত্র জ্বালানীর উপর নির্ভরশীল। তাই মেঘনা অয়েল কোম্পানীটি তেলশূন্য থাকায় সুবিধাভোগীরা তেল সংকটের আশঙ্কা করছেন। তেল ব্যবসায়ী নজির হোসেন জানান, পার্বতীপুর ও বাঘাবাড়ি থেকে সড়কপথে তেল পরিবহন করলে লিটারপ্রতি ৮-১০ টাকা বেশি খরচ হয়। তাই জনগণের সুবিধার্থে তেলের মুজদ বাড়িয়ে এ অঞ্চলে জ্বালানী তেলের সংকট নিরসন করা দরকার। এ ব্যাপারে মেঘনা পেট্রোলিয়াম কোম্পানী লিঃ এর ডিএস আবু সাঈদ জানান, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তেল সরবরাহ করলে বিতরণে কোন বাঁধা নাই। কোম্পানীর এজিএম (সাপ্লাইয়ার ও ডিস্ট্রিবিউশন বিভাগ) টিপু সুলতান মুঠোফোনে জানান, নদীর নাব্যতা না থাকায় তেল ভর্তি জাহাজ পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিঃ এর ডিজিএম মীর সাইফুল্লাহ আল খায়ের জানান, তেল ধারণ করা বার্জটিতে ছিদ্র দেখা দেয়ায় মেরামত করে তেল সরবরাহ করা হবে।
এদিকে যমুনা অয়েল কোম্পানী লিঃ এর ডিএস আমজাদ হোসেনের সাথে কথা বলে জানা যায়, তাদের বার্জে তেল ধারন ক্ষমতা ৮ লক্ষ ২২ হাজার লিটার। তার কোম্পানীর তেলের সরবরাহ থাকায় আসন্ন ইরি-বোরো মৌসুমে একটু চাপের সৃষ্টি হলেও তা তারা সামলিয়ে নিতে পারবে। ফলে ডিপো সংশ্লিষ্ট এলাকায় তেলের কোন সংকট হবে না।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪