ব্রহ্মপুত্র বিচ্ছিন্ন চিলমারীর চরাঞ্চলে জন্মনিয়ন্ত্রণে ধীরগতি

index

এস, এম নুরুল আমিন সরকার:
সকাল ৯টা। চিলমারী ডিগ্রী কলেজ মোড়ে দাঁড়িয়ে আছি একটা অটোরিক্সার জন্য। নদী পাড়ি দিতে হবে। যাবো চিলমারী বন্দর। হ্যাঁ আমি সেই বন্দরের কথা বলছি। যেখানে ছিল বিশাল কাস্টম অফিস, হাজার হাজার নৌকা আর দেশী-বিদেশী জাহাজ। শত শত ব্যবসায়ী ও ফড়িয়াদের আনাগোনায় মুখরীত ছিল সবসময়। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ব্যবসায়ীরা এসে চিলমারীতে নোঙ্গর ফেলতো বেশ ক‘দিনের জন্য। ধান, পাট, বাদাম, কালাই, শরিষাসহ নানা পন্য ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য। বেশ ক‘টি পাটকলও ছিল। এখানে পাটের বেল বাঁধাই, পাট প্রসেসিং এর কাজে ব্যস্ত থাকতো কয়েক‘শ শ্রমিক। আসতো ভারতীয় পন্যবাহী জাহাজ। এখানে নোঙ্গর ফেলতো। স্থানীয় কাস্টমস চেক করে ছেড়ে দিত। সেই বন্দর এখন ধু ধু বালুচর। ব্রহ্মপুত্র নদের অব্যাহত ভাঙ্গণে চিলমারী বন্দর এখন শুধুই স্মৃতি। ব্রহ্মপুত্র নদের মধ্যখানে বালুচরের উপর গড়ে ওঠেছে বসতি। নড়বড়ে খুঁটি দিয়ে নির্মিত ঘরবাড়িতে বাস করছে একসময়ের প্রভাবশালী জোদ্দাররা। আমাকে জানতে হবে প্রাচীন বন্দরনগরীর মানুষগুলো কেমন আছে এখন। ক্ষুধা আর দারিদ্রতা কমেছে কিনা, জনসংখ্যার কি অবস্থা? জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি সম্পর্কে কতটা সচেতন এঁরা। সাথে রয়েছেন পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক মোঃ আলমগীর হোসেন ও রেডিও চিলমারীর প্রযোজক পঞ্চানন রায়। চিলমারী নৌবন্দর ঘাটে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ফ্রেন্ডশীপের নৌকার মাঝি আব্দুল করিম। আমরা তাঁকে খুজছি নৌকায়, আর তিনি আমাদের খুঁজছেন ঘাটের উপরে। অবশেষে দেখা হলো। নৌকায় উঠলাম। নদীতে পানি কম। এই সময়ের ব্রহ্মপুত্র আর আষাঢ়-শ্রাবণের ব্রহ্মপুত্রে অনেক ফারাক। আষাঢ়-শ্রাবণ পানিতে ভরপুর থাকে এই নদটি। আর এখনকার দৃশ্য দেখলে মনেই হবে না যে এই নদটি রাক্ষুসী রুপ ধারণ করে মানুষের বাড়ীঘর আবাদী জমি নিমিষেই গিলে ফেলে। নৌকা চলছে। প্রায় ঘন্টাখানেক নৌযাত্রার পর নামলাম চিলমারী ইউনিয়নের কড়াই বরিশাল চরে। কিছুদুর পায়ে হেঁটে যেতে না যেতেই দেখা হলো শতাধিক নারী শ্রমিকের সাথে। তাঁরা মঙ্গা নামের একটি প্রকল্পে মাটি কাটার কাজ করছেন। চেষ্টা করলাম ক‘জনের সাথে কথা বলার। বললামও। আবার কিছুদূর যেতে না যেতেই দেখা হলো পরিবার কল্যাণ সহকারী শারমিন নাহারের সাথে। অল্প বয়সী একজন যুব নারী। কাজ করেন এই চরে। রেডিও চিলমারীর উদ্যোগে কিশোরী বধু আর সক্ষম দম্পতিদের সাথে একটা উঠান বৈঠক আছে। আমিও যোগ দিলাম তাতে। জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি নিয়ে কথা-বার্তা শুরু হলো। পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক আলমগীর হোসেন জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির বিভিন্ন দিক নিয়ে কথা বললেন। কথা বললেন রেডিও চিলমারীর প্রযোজক পঞ্চানন রায় ও পরিবার কল্যাণ সহকারী শারমিন নাহার।
জানা গেলো, ব্রহ্মপুত্র বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চলে জন্মনিয়ন্ত্রন পদ্ধতি চলছে ধীরগতিতে। বৈলমনদিয়ার খাতা গ্রামের জয়গুন বেগম (২১) ১ সন্তানের জননী। খাবার বড়ি চালিয়ে যাচ্ছেন অনেকদিন ধরে। তাকে দেখে মনে হলো সে বাল্যবিয়ের শিকার এক কিশোরী বধু। একই গ্রামের সুমী (২৮) ৪ সন্তানের জননী। তিনি খাবার বড়ির উপর নির্ভরশীল। মৌসুমী (২২) ১ সন্তানের জননী, আফরোজা (২৮) ২ সন্তানের জননী, আনোয়ারা (২১) ১ সন্তানের জননী। সবাই নিয়মিত খাবার বড়ি খান। প্রথম দিকে কিছুটা অসুবিধা হলেও এখন মানিয়ে নিয়েছে।
চর মনতোলা গ্রামের কিশোরী বধু ফরিদা (২৩) ২ সন্তানের জননী। স্বামী দিন মজুর। এখনই আর নয় সন্তান। চাই দীর্ঘ একটা বিরতি। তাই যোগাযোগ করেন পরিবার কল্যাণ সহকারী শারমীন নাহারের সাথে। পরামর্শ করে গত বছরের ২৫ অক্টোবর তিন বছর মেয়াদি ইমপ্লান্ট গ্রহণ করেন। একই গ্রামের ১ সন্তানের জননী আরেক এক কিশোরী বধুর নাম কাকলী (২২)। অভাবের সংসারে ঘন ঘন সন্তান নিতে রাজি নন তিনি। স্বামীকে অতিকষ্টে রাজি করিয়ে গত ০৯ নভেম্বর ২০১৫ইং তারিখে গ্রহণ করেন ইমপ্লান্ট। প্রথম দিকে খারাপ লাগলেও এখন ভাল আছেন তিনি। বিশারপাড়া গ্রামের আদুরী বেগম (১৮)। বাল্যবিয়ের শিকার আদুরী বেগম ১৮ বছরের আগেই দুই সন্তানের জন্ম দেন। স্বাস্থ্য ভেঙ্গে পড়ে। স্বামীর সাথে পরামর্শ করে গত বছরের ১৫ ফেব্র“য়ারী হাজির হন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অবস্থিত পরিবার পরিকল্পনা অফিসে। গ্রহণ করেন ইমপ্লান্ট। একই গ্রামের কিশোরী বধুর নাম আফরোজা। ১৮ এর আগেই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে হয় তাঁকে। বর্তমানে সে এক সন্তানের জননী। নিয়মিত রেডিও চিলমারীর অনুষ্ঠান শোনেন তিনি। সেখান থেকে পরামর্শ পেয়ে ২০১৬ এর ২৬ অক্টোবর গ্রহণ করেন ইমপ্লান্ট। চর শাখাহাতি গ্রামের বাসিন্দা রুবি বেগম (২০)। ১সন্তানের জননী তিনি। সন্তানের ক্ষেত্রে চান একটা দীর্ঘ বিরতি। আর তাই দেরী না করে গত ১৩ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে গ্রহণ করেন ৩ বছর মেয়াদি ইমপ্লান্ট।
মনতোলা গ্রামের মজিদা বেগম (৪৬)। স্বামী দিন মজুর। ৫ সন্তানের জননী। অভাবের সংসার। স্বামীও চান না পরিবারের সদস্য সংখ্যা বাড়াতে। তাই সিন্ধান্ত নেন দীর্ঘমেয়াদী একটা জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির। ২০১৪ সালের ১৭ এপ্রিল, গ্রহণ করেন ১০ বছর মেয়াদি আইইউডি। চর শাখাহাতি গ্রামের গৃহবধু রাশেদা বেগম (৪১)। ৪ সন্তানের জননী। সন্তান নিতে চান না তিনি। রোজ রোজ খাবার বড়ি খাওয়াটা একটা বিরক্তিকর কাজ। তাই সিদ্ধান্ত নেন দীর্ঘ মেয়াদী পদ্ধতি নেয়ার কথা। ২০১৪ সালের ০৬ অক্টোবর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসে গিয়ে গ্রহণ করেন আইইউডি। শাখাহাতি আবাসন কেন্দ্রে বাস করেন শেফালী বেগম (৪৪)। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিজস্ব প্রকল্প এটি। গৃহহীনদের জন্য তৈরী করা এই আবাসান কেন্দ্রে বাস করেন তিনি। স্বামী আর ৪ সন্তান নিয়ে চলছে তাঁর অভাবের সংসার। আর তাই সন্তান নিতে চান না তিনি। স্বামীর সাথে আলোচনা করে গত ২০১৪ সালের ১১ জুন গ্রহণ করেন আইইউডি। বৈলমনদিয়ারখাতা গ্রামের রহিমা বেগম (৩৮)। ৪ সন্তানের জননী তিনি। পরিবারের সদস্য সংখ্যা বেশি হওয়ায় সব সময় অভাব অনটন লেগেই আছে। জীবিকা নির্বাহ করা খুবই কষ্টকর। সিদ্ধান্ত নেন সন্তান না নেয়ার। গত বছরের ১৩ অক্টোবর গ্রহন করে আইইউডি। বিশারপাড়া গ্রামের ৩০ বছর বয়সী ২ সন্তানের জননী স্বপ্না বেগম। রেডিও চিলমারীর জনসংখ্যা, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ক নিয়মিত অনুষ্ঠান ‘সুখের ঠিকানা’ শোনেন তিনি। এই অনুষ্ঠান থেকে পরামর্শ নিয়ে গত ২০১২ সালের ২২ জুন গ্রহণ করেন আইইউডি। বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ফ্রেন্ডশীপের উন্নয়ন কর্মী মোঃ শফিয়ার রহমান বলেন, চিলমারী ইউনিয়নের জনসংখ্যা অনুপাতে জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণকারীর সংখ্যা কিছুটা কম। তিনি মনে করেন যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল হলে জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণকারীর সংখ্যা আরো বৃদ্ধি পেতো। তবে মানুষ এখন সচেতন হচ্ছে। রেডিও চিলমারীর স্টেশন ইনচার্জ বশির আহমেদ বলেন, আমরা জনসংখ্যা, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ক একটি অনুষ্ঠান ‘সুখের ঠিকানা’ নিয়মিতভাবে সম্প্রচার করছি। চরাঞ্চলের মানুষও এখন সচেতন হচ্ছেন। তবে যোগাযোগের অভাবে চরাঞ্চলে জন্মনিয়ন্ত্রণ ধীরগতিতে এগিয়ে চলছে।
উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ শহিদুল ইসলাম জানান, চিলমারী ইউনিয়নে মোট সক্ষম দম্পতি ১২৮৩জন। মোট পদ্ধতি গ্রহণকারীর সংখ্যা- ১০৫৮ জন। এর মধ্যে খাবার বড়ি খান ৩৬২ জন, কনডম ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৭৭ জন, ইনজেকশন নেন ৩৫২ জন, আইইউডি নিয়েছেন ৫৯জন, ইমপ্লান্ট গ্রহনকারীর সংখ্যা ১৪৭ জন, পুরুষ বন্ধ্যাকরণ (এনএসভি) নিয়েছেন ৪১জন, মহিলা বন্ধ্যাকরণ (টিউবেকটমী) নিয়েছেন ৩৫ জন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নদী ভাঙ্গণের কারণে মানুষ স্থানান্তরিত হচ্ছে। ফলে চিলমারী ইউনিয়নে জনসংখ্যা অনুযায়ী দম্পতি সংখ্যা কম।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪