‘আজ বসন্ত’

fagun1-5a827330ea6d3

যুগের খবর ডেস্ক: এ এক হৃদয় উসকে দেয়ার ঋতু, যে এলে মনে মনে, নির্জনে আগুন ধরে যায়। যে আগুনে দাহ নেই, ঔজ্জ্বল্য আছে। আর তাতে অনুভূতি ডানা মেলে দেয় প্রেমের চাঞ্চল্যে। বয়সীরাও বয়স ভুলে তরুণ হয়ে ওঠেন। যেন কবিতার মতো ‘ফুল ফুটুক বা নাই ফুটুক’ পয়লা ফাল্গুন এলেই ভোরের বাতাস শ্রেণি-পেশা-বয়স নির্বিশেষে সবার হৃদয়ের দরজায় তুমুল কড়া নেড়ে বলে দেয় ‘আজ বসন্ত’।
গাছে গাছে ফুল না ফুটলেও হৃদয়ের সব কলি মেলে দেয় পাপড়ি। হৃদয় কী যেন চায়! কাকে যেন চায়! মনে হয়, ‘এমন দিনে তারে বলা যায়!’
কেন এমন হয়? মন এমন উচাটন হয়ে ওঠে কেন? চরম উদাস হৃদয়ও কেন আড়মোড় ভেঙে জেগে ওঠে, গেয়ে ওঠে, সেজে ওঠে? কোন সে যাদুর পাখি হৃদয়ে ঢুকে তোলপাড় করে চুপচাপ বাড়ির নীরবতা? তবে কি বসন্ত জাদুকর ঋতু? তাহলে সে কী যাদু দেখায়?
ডালে ডালে নতুন পাতার যৌবন, কৃষ্ণচূড়া, ডালিয়ার ডাল রক্তরঙিন হয়ে ওঠা, ভোরের বাতাসে ফুলের পায়চারি, বাউল হাওয়ার মাতলামিই- এসবই কি এ ঋতুকে যাদুকর করে তোলে? যার তীক্ষ্ম স্পর্শে সব শরীর ও হৃদয়ে নব ভাবাবেগ জেগে ওঠে। প্রেমের নৌকায় লাগে পাল। যে পালে বসন্ত বাতাস দেয় চঞ্চল গতির প্রবাহ।
আসলে ঠিক তাই। প্রকৃতির এই আমূল বদলে যাওয়াতো মূলত শীতের পৌঢ়াকে যুবতী বাতাসের তাড়ায় অলৌকিক নব যৌবনে উদ্ভাসিত করার ফলশ্রুতিই। আর পয়লা ফাল্গুনের সঙ্গে ভালোবাসার যোগ থাকবে নাইবা কেন, এর পরের দিনই যে ভালোবাসার দিন! নব আবেশে ভালোবাসাবাসির দিন! তাই প্রকৃতিরও এই যুবতী হয়ে ওঠা। যেন বসন্ত ইন্দনের ঋতু, যে আসলে উতলঅ বাতাস পাঠিয়ে জাগাতে আসে হৃদয়ের রঙিন আগুনের রূপ। তাই ভেতর-বাহির হয় প্রকাশিত।

যাদের প্রেমিক বা প্রেমিকা রয়েছে সেই সব তরুণ বা তরুণী এইদিন পরষ্পরের হাত ধরে রমনা, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, টিএসসি, ধানমণ্ডি লেক কিংবা রবীন্দ্র সরোবরে নবআনন্দ ধারায় ঘুরবে- এতো পয়লা ফাল্গুনে এই শহরের চিরচেনা দৃশ্য। তরুণীদের পরনে থাকবে লালপাড় বাসন্তী রঙ শাড়ি, কব্জিতে বাজবে লাল বা রঙবেরঙের চুড়ি, পায়ে আলতা, করতলে আঁকা থাকবে মেহেদীর বাহারি নকশা, চুল বাঁধা লাল ফিতায় আর মুখে রংধনু হাসি।

আর প্রেমিক যুবক তো ফতুয়া বা পাঞ্জাবি পড়া হাল আমলের কৃষ্ণ। সেও যেন একটু বাউল হয়ে ওঠে, হয়ত ভ্রাম্যমাণ আঁকিয়েদের দিয়ে হাতে আঁকিয়ে নেয় ফুলের নকশা, অন্য দিন হলে হয়ত যা করতে সে লজ্জা পেত।

এই দিনে বয়সীদের বয়সও যেন উড়িয়ে নিয়ে যায় বসন্ত বাতাস। তারাও যেন একটু আড়াল খোঁজে প্রিয় সঙ্গীটিকে আরেকটু কাছে পাওয়ার, হয়ত প্রথম হাত ধরার স্মৃতি পরষ্পরের হাতকে নিয়ে আসে হাতের ওপরে। একটু বেশিই রোমাঞ্চ হয়ে যায়, লজ্জাটজ্জা ভুলে। যেন এমন দিনে সব আগল খোলা, আত্মভোলা হওয়াই নিয়ম।

গাছে গাছে নব পত্রপল্লব ও নতুন ফুলের সাম্রাজ্যে বাতাস বুক খুলে দিলে প্রকৃতির রূপও যেন এদিন ফেটে পড়তে চায়। আর নারীরাও হয়ে ওঠে প্রকৃতির প্রতিদ্বন্দ্বী! যেন বিষয়টা এমন, আমরাই বা রূপের বাহারে এমন দিনে পিছিয়ে থাকব কেন!

যে সব তরুণ বা তরুণীর প্রেমিক বা প্রেমিকা নেই তাদেরও যেন মনে হয় ‘এমনও দিনে তারে বলা যায়’। এমন প্রভাতে ওই যে বাসন্তী রঙ শাড়ি পরা তরুণী, চোখ বারবার যার দিকে টেনে নেয়, তাকে বলাই উচিত! কিংবা বন্ধুদের আড্ডায় ওই যে সবুজ-লাল ফতুয়া পড়া শ্যাম ছেলেটা, যার মুষলধারার হাসি আছড়ে পড়ছে একা তরুণীর হৃদয়ে, তাকে দেখে যেন মনে হয় ‘চোখে রাখি চোখ, চোখে চোখে কথা হোক’। আজ এমন কথা বলারই তো দিন! হয়ত এভাবেই কোনো একা তরুণের পাঠানো চিরকুট কোনো একা তরুণীর হৃদয়ের দুয়ার খুলে দেয়। দু’জনের মনের উঠানে তখন লটারি জয়ীর রোদ।

ফাল্গুনের আগমনে সবাই যেন সত্যি সত্যি বাউল। হয়ত কোনো প্রেমিকা পার্কের বেঞ্চিতে বসে ঝাঁঝাঁ দুপুরে তার প্রেমিকের আরেকটু কাছে ঘেঁষে বায়না ধরে বলে, ধরো না সেই গান…। প্রেমিকও সংকোচ ভুলে পার্কের জনমানুষের ভিড়ে গলা ছেড়ে গেয়ে উঠে, ‘দক্ষিণা পবনে দোলে, বসন্ত এসে গেছে…’। তরুণীর মনে তখন হাজার পাখির কলকাকলি, হয়ত চোখের কোনায় সুখের সামান্য নুন! যেন সে নুন বলতে চায়, এমন সুখের দিন প্রতিদিন কেন যে আসে না প্রভু!

প্রেমিক-প্রেমিকা এভাবে হাত ধরে ঘুরতে ঘুরতে ফুচকা খায়, চটচটি খায়, একটু আড়াল পেলে দুএকটা সতর্ক চুমু…! হয়ত ফুচকা খেতে খেতে প্রকাশ্যে রোমান্টিক হয়ে ওঠে, নিজ হাতে প্রিয় মানুষটির মুখে একটা ফুচকা তুলে দেয়। ফুচকাওয়ালা আড়চোখে দেখে হাসে। হয়ত মনে মনে ভাবে সন্ধ্যায় ফুসকা বিক্রি শেষে সেও বউকে নিয়ে যোগ দেবে বিকেলের বসন্তবরণ উৎসবে।

সন্ধ্যায় বাসায় ফেরার পথে সে বউয়ের জন্য একটা বাসন্তী রঙ শাড়ি কেনে, লাল চুড়ি কেনে, একটা আলতাও কিনে নেয় সাথে।  হয়ত যে প্রেমিক-প্রেমিকা দুপুরে তার দোকানে ফুচকা খেয়েছিল, তাদের সঙ্গে ফুচকাওয়ালা দম্পতির বসন্তবরণ গানের অনুষ্ঠানে দেখা হয়ে যায়। ফুচকাওয়ালা একটু লজ্জা পায়। আহা! ফাল্গুনের সংক্রামিত প্রেম!

প্রকৃতির আমন্ত্রণে সামিল দম্পতিরাও যেন বিয়ের প্রথম দিনের মতো একটু বেশিই রোমান্টিক হয়ে ওঠে। যেনবা পার্কে বেড়াতে বেড়াতে স্বামীর কনিষ্ঠ আঙুল স্ত্রীর কনিষ্ঠায় চলে যায় নিজেদের অজান্তেই। এই দেখে ইর্ষায় পোড়ে একা তরুণ বা একা তরুণী। এমন দিনে  হয়ত কোনো ছেলে বন্ধু তার মেয়ে বন্ধুর সাথে বা মেয়ে বন্ধু তার ছেলে বন্ধুর সাথে বন্ধুত্বের চেয়ে একটু বেশি রোমান্টিক হয়ে ওঠে আচরণে, যেন তারা প্রেমিক-প্রেমিকা। তাদের হৃদয়ে হয়ত বেজে ওঠে ‘আমিও চাই, হৃদয়ে হৃদয় সেলাই’।

আসলে এসব তো পয়েলা ফাল্গুনের যাদুরকাঠির ছোঁয়ায় জেগে ওঠা প্রেমের কোরাস। যা কিনা আপনাকে বুঝতে না দিয়েই আপনার পদক্ষেপ প্রেমের দিকে করে তাড়িত। আর ২০ বছর সংসার করা স্বামী-স্ত্রীরও মনে হয়, এইতো কেবল সেদিন শুরু হলো প্রণয়। একা তরুণ বা একা তরুণীর মনে হয় ‘অমি হৃদয়ের কথা বলিতে ব্যাকুল’।

আবহমান কাল ধরে প্রতি পয়েলা ফাল্গুনে এমন নানান কাহিনি ঘটে যায়, বাংলার কানায় কানায়। হয়তো কোনো একা তরুণী খুঁজে পায় তার আরাধ্য তরুণকে। আর একা তরুণ পায় স্বপ্নের তরুণীকে। আর হয়তই বা কেন, ওইতো গাছে গাছে গজিয়েছে নতুন পাতা, কৃষ্ণচূড়ার শাখায় লেগেছে আগুন, বাতাস নাড়ছে কড়া হৃদয় দুয়ারে, বাগানে ডেকে উঠছে কোকিল, হৃদয়ে হৃদয়ে বাজছে-
‘বসন্ত বাতাসে সইগো
বসন্ত বাতাসে,
বন্ধুর বাড়ির ফুলের গন্ধ
আমার বাড়ি আসে সইগো
বসন্ত বাতাসে…’

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪