চুক্তি হোক না হোক বড় চাপে জাপান

Untitled-6-5aa9690318ccd

যুগের খবর ডেস্ক: উত্তর কোরিয়া চুপ থাকলেও দেশটির শীর্ষ নেতা কিম জং উনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ঠিকই সম্মেলনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আর এর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে শঙ্কা বাড়ছে জাপানের। সম্ভাব্য ওই সম্মেলনে কোনো চুক্তি হোক বা না হোক- এর বিশাল চাপ পড়বে টোকিওর কাঁধে।
ট্রাম্প-কিম সম্ভাব্য বৈঠকের খবর গণমাধ্যমে আসার পরপরই জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে স্বাগত জানিয়েছেন। তবে এ সম্মেলন জাপান সরকারের কাছে যে বিনা মেঘে বজ্রপাততুল্য, তা দেশটির সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘকালীন ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের দিকে দৃষ্টি দিলেই স্পষ্ট হয়ে ওঠে। উত্তর কোরিয়া শুধু যুক্তরাষ্ট্রের কাছেই নিরাপত্তা হুমকি নয়, জাপানের কাছেও অনেক বড় নিরাপত্তা হুমকি। জাপানকে আঘাত হানার মতো মধ্যম পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রে উত্তর কোরিয়া বেশ আগেই সফল হয়েছে। আর নিজের স্বার্থ বিবেচনা করে যুক্তরাষ্ট্র যদি চুক্তি করতে গিয়ে এ ধরনের অস্ত্রকে চুক্তির শর্তের বাইরে রাখে, তাহলে তা হবে জাপানের জন্য বড় ধরনের বিপদ। অন্যদিকে, উত্তর কোরিয়ার চাপের মুখে দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান থেকে তাদের সেনাবাহিনী সরিয়ে নিতে বা হ্রাস করতে রাজি হতে পারে, তাও জাপানের নিরাপত্তা হুমকিকে বহু গুণ বাড়িয়ে তুলবে। তা ছাড়া এত দিন ধরে উত্তর কোরিয়া ইস্যুতে অনুসৃত যুক্তরাষ্ট্র-জাপানের যৌথ স্ট্র্যাটেজির পরিবর্তে এবার যুক্তরাষ্ট্রের একতরফা স্ট্র্যাটেজি সামনে চলে আসতে পারে। আর যুক্তরাষ্ট্রের মনোযোগের কেন্দ্র থেকে ছিটকে পড়তে পারে জাপান।
জাপানের আরও আশঙ্কা, তারা দীর্ঘকালের মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের ফাঁদেও পড়তে পারে। কারণ, নিজের দেশে ব্যাপক চাপে আছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের তখনকার প্রচারশিবিরে আঁতাতের বিষয়ে রবার্ট ম্যুয়েলারের আনুষ্ঠানিক তদন্ত শুরু হওয়ার পর এই চাপ অনেক বেড়ে যায়। আর এই চাপ আড়াল করতেই ট্রাম্প এখন মরিয়া। যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক মহলের দৃষ্টি সেদিক থেকে সরাতে উত্তর কোরিয়া ইস্যুকে পুরোদমে খাটাতে চাইবেন ট্রাম্প- সেটাই স্বাভাবিক বলে মনে করছেন জাপানিরা। এ পরিস্থিতিতে মিত্র জাপানের অনেক স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে একটা চুক্তিতে উপনীত হওয়া বিচিত্র কিছু নয়। এ ক্ষেত্রে মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ছাড়াও জাপানের জন্য আরও বেশ কিছু রাজনৈতিক ইস্যু রয়েছে, যার সুরাহা হবে না। ১৯৭০ থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত জাপানের অনেক ব্যক্তিকে অপহরণ করে উত্তর কোরিয়া। তারা এখনও সেখানে বন্দি রয়েছেন। ট্রাম্প হয়তো উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কর্মসূচি বন্ধের কথাই মাথায় রাখবেন আর জাপানের এ ইস্যু সহজেই ভুলে যাবেন। এবার ধরা যাক, কোনো চুক্তিই হলো না। এ পরিস্থিতিও কম ভয়াবহ নয় জাপানের জন্য। সে ক্ষেত্রে মার-খাওয়া ট্রাম্পের হাতে উত্তর কোরিয়াকে বশে আনার ক্ষেত্রে যুদ্ধের বিকল্প হয়তো থাকবে না। রাগের মাথায় যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীকে হামলার নির্দেশ দিয়ে বসতে পারেন। এ ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসেবে জাপানকেও এ বিধ্বংসী যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। আর বিপুলসংখ্যক সাধারণ জাপানি নাগরিক বিশাল অস্তিত্ব সংকটে পড়বেন।
এসব আশঙ্কার কথা এখন জাপানের আর এড়িয়ে যাওয়ার উপায় নেই। কারণ এরই মধ্যে হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়া যদি তাদের প্রতিশ্রুতির ব্যাপারে অনড় থাকে, তবে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দেশটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪