ফাইনালে বাংলাদেশ

mmmmm

ক্রীড়া প্রতিবেদক: বাধীনতার ৭০ বছর পূর্তিতে কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে আয়োজিত ত্রিদেশীয় নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে স্বাগতিক শ্রীলংকা এখন দর্শকের কাতারে। আগামীকাল রবিবার ফাইনালে ভারতের সঙ্গী বাংলাদেশ। ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে গতরাতে লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে শ্রীলংকাকে হতাশায় ডুবিয়ে দুই উইকেটে হারিয়ে টানা জয়ের পাশাপাশি বড় কোনো আসরের ফাইনালে টাইগাররা। লংকানদের করা ১৫৯ রান বাংলাদেশ টপকে যায় এক বল হাতে রেখেই।

জয়ের জন্য ১৬০ রানের টার্গেটে মাঠে নেমে তামিম দুরন্ত সূচনা করলেও হতাশ করেন লিটন দাস। ফার্নান্ডোর প্রথম ওভারে তামিম দুই বাউন্ডারিতে নেন নয় রান। পরের ওভারে মিডঅফে পেরেবার হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে শূন্য রানে (তিন বলে) বিদায় নেন লিটন দাস। ওয়ান ডাইনে সাব্বির  তিন বাউন্ডারি হাঁকিয়ে আশা জাগালেও ১৩ রান (আট বলে) ধনঞ্জয়ের বলে স্ট্যাম্প হয়ে ফেরেন।

৩৩ রানে দুই উইকেটের পতনের পর দলে  হাল থরেন তামিম ও মুশফিক। দলের চাহিদা অনুসারে ওভার প্রতি আট করে রান তুলে রানের চাকা সচল রাখেন এ জুটি। দুরন্ত গতিতে এগিয়ে যাওয়ার পথে মুশফিক ফেরেন দলীয় ৯৭ রানে। আগের দুই ম্যাচে অপরাজিত হাফ সেঞ্চুরিয়ার মুশি ২৫ বলে ২৮ রান (দুই বাউন্ডারি) করে
কভারে ক্যাচ দেন পেরেরার হাতে। তামিমের সঙ্গী হন সৌম্য। ১৩ ওভারে শতরান পূর্ণ হয় বাংলাদেশের ইনিংসে। পরের ওভারে গুনাতিলাকার বলে সিংগেল নিয়ে হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করা তামিম আর আগাতে পারেননি। স্ট্যাম্প হয়ে ফেরেন দলীয় ১০৫ রানে। জয়েরর জন্য তখনও প্রয়োজন ৫৫ রানের।  কিছুটা ব্যাকফুটে বাংলাদেশ। পরের ওভারে ফেরেন সৌম্য ১১ বলে ১০ রান করে।
ম্যাচে ফেরে লংকানরা। দলের শেষ ভরসা হিসেবে তখন ক্রিজে অধিনায়ক সাকিব ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। শেষ চার ওভারে প্রয়োজন ৪০ রানের। ১৭তম ওভারে লং অফ দিয়ে রিয়াদের ছক্কায় শেষ তিন ওভারে টার্গেট ২৯ রানের। ১৮তম ওভারে সাকিবের বিদায়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে বাংলাদেশ। শেষ দুই ওভারে প্রয়োজন ২৩ রান। ১৯তম ওভারের শেষ বলে মিরাজ (০) রান আউট হলে শেষ ওভারে প্রয়োজন ১২ রানের। প্রথম বল ডট, পরের বলে মোস্তাফিজ রান আউট। তবে দুটি বলই মোস্তাফিজের মাথার ওপর দিয়ে যাওয়ায় মাঠের বাইরে থেকে সাকিব আপত্তি জানান। এক পর্যায়ে খেলোয়াড়দের মাঠের বাইরে আসার আহ্বান জানালেও, ম্যানেজার সুজন তাদের ফেরত পাঠান। তৃতীয় বলেই বাউন্ডারি  রিয়াদের। চতুর্থ বলে দুই এবং পঞ্চম বলে ছক্কা। ফাইনালে বাংলাদেশ। ম্যান অব দ্য ম্যাচও রিয়াদ।
এর আগে কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে টসে জিতে ফিল্ডিং বেছে নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ইনজুরি কাটিয়ে ফেরা সাকিব বোলিং উদ্বোধন করেছেন। প্রথম ওভারে মাত্র তিন রান দেওয়ার পর নিজের দ্বিতীয় ওভারে এসে উইকেটও তুলে নিয়েছেন সাকিব। তার ঘূর্ণি বল উপরে তুলে মারতে গিয়ে সাব্বির রহমানের ক্যাচ
হয়ে ফিরেছেন দানুস্কা গুনাথিলাকা (৪)। এরপর কুশল মেন্ডিসকেও ভয়ঙ্কর হতে দেননি মোস্তাফিজুর রহমান। তার বাঁহাতি কাটারে সৌম্য সরকারের ক্যাচ হয়ে মেন্ডিস ফিরেছেন মাত্র ১১ রানে। পরের ওভারে এসে উপুল থারাঙ্গা (৫) রানআউট হয়েছেন। ওই ওভারেই শূন্য রানে দাসুন শানাকাকে উইকেটের পেছনে ক্যাচ বানিয়েছেন মোস্তাফিজ। মেহেদী হাসান মিরাজের শিকার হয়ে তিন রান করে ফিরেছেন জীবন মেন্ডিসও।
৪১ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়ে রীতিমতো ধুঁকতে থাকা দলকে এরপর টেনে নেওয়ার দায়িত্ব পালন করেছেন দুই পেরেরা-কুশল আর থিসারা। ষষ্ঠ উইকেটে তারা গড়েছেন ৯৭ রানের সময়োপযোগী জুটি। এ জুটিতে ভর করেই লঙ্কানরা লড়াই করার পুঁজি পেয়েছে। কুশল পেরেরা তুলে নিয়েছেন ক্যারিয়ারের দশম হাফসেঞ্চুরি। ৪০ বলে ৬১ রান করে সৌম্য সরকারের শিকার হন এ ব্যাটসম্যান। ৩৬ বলে ৫৮ রান করে ইনিংসের শেষ ওভারে রুবেলের বলে আউট হয়েছেন থিসারা পেরেরা। বাংলাদেশের পক্ষে দুটি উইকেট নেন মোস্তাফিজুর রহমান। তবে তিনি বেশ খরুচে ছিলেন। বাঁহাতি এ পেসার চার ওভারে দিয়েছেন ৩৯ রান। একটি করে উইকেট নেন রুবেল, সৌম্য, মিরাজ ও সাকিব। যদিও সাকিব দুই ওভারে দিয়েছেন নয় রান।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪