এইচএসসির প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে ৮ সিদ্ধান্ত

যুগের খবর ডেস্ক: পরীক্ষা শুরুর আধা ঘণ্টা আগে পরীক্ষার্থীদের নিজ আসনে বসা, সবগুলো প্রশ্নের সেট কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া, পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে প্রশ্নের সেট কোড লটারির মাধ্যমে নির্ধারণসহ আট দফা সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।
আগামী ২ এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাওয়া উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষা সুষ্ঠু, নকলমুক্ত ও ইতিবাচক পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে গঠিত জাতীয় মনিটরিং এবং আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় এসব সিদ্ধান্ত হয়েছে।
রবিবার বিকালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সভাটি হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সভাপতিত্ব করেন। তিনি বলেন, প্রশ্ন ফাঁস বা ফাঁসের গুজবের কার্যক্রম দেখে প্রতীয়মান হয়, তাদের (ফাঁসকারী) লক্ষ্য সরকার, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বর্তমান ব্যবস্থাকে বিতর্কিত করা। এর মধ্যে পরিকল্পিত উদ্দেশ্য রয়েছে।
ক্ষোভ প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্ন প্রণয়ন ও বিতরণ কাজে মন্ত্রণালয়ের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনা ঘটলেই সবাই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দিকে তীর ছোড়েন। যেন মন্ত্রী-সচিব এমন অনিয়ম করছেন। অথচ শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা বোর্ডের কর্মকর্তাদের কাছে প্রশ্নপত্র আসে না বা তারা তা বিতরণও করেন না। প্রশ্ন ফাঁসের জন্য আমাদের দোষারোপ করা সমীচীন নয়।
নাহিদ বলেন, প্রশ্ন ফাঁসের দায়ভার আমরা এড়িয়ে যাইনি। তবে কতটুকু ফাঁস হয়েছে বা কি ফাঁস হয়েছে তা না যাচাই করে সবাই ঢালাওভাবে প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ তুলেছেন। এতে করে জনমানুষের মধ্যে পাবলিক পরীক্ষা আয়োজন নিয়ে বিভ্রান্ত ছড়ানো হচ্ছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির উদাহরণ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তির যুগে বর্তমান পদ্ধতিগত কারণে প্রশ্নপত্র শতভাগ নিরাপদে রাখা সম্ভব নয়। তবে প্রশ্ন ফাঁসকারীরা যতটি পদ্ধতি ব্যবহার করছে সেগুলো তালিকাবদ্ধ করা হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সেসব মনিটরিংয়ের মাধ্যমে অপরাধীদের শনাক্ত করে আটক করবে।
কত সেট প্রশ্নে পরীক্ষা হবে এমন প্রশ্নে জবাবে মন্ত্রী বলেন, এটা নিশ্চিত থাকেন, অনেক সেট প্রশ্ন হবে, তবে কত সেট প্রশ্ন হবে সেটা কেউ জানতে পারবে না। আমরা আগে বলতাম, এখন বলব না, এটা আমাদের কৌশলগত ব্যাপার।
এর আগে সভার শুরুতেই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে বিভিন্ন উদ্যোগের তথ্য তুলে ধরেন। সচিব সোহরাব হোসাইন বলেন, পরীক্ষা মানে আমার কাছে এক ধরনের আতঙ্ক। সব শক্তি, সব ব্যবস্থা নেওয়ার পরও আমরা নিশ্চিত হতে পারি না যে পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হবে। বর্তমান প্রক্রিয়ায় কারও পক্ষে শতভাগ নিশ্চয়তা দেওয়া সম্ভব না যে প্রশ্নপত্র ফাঁস হবে না। আবার প্রশ্ন ফাঁস ঠেকানো সম্ভব না তাও বলব না। ফাঁস রোধে যত ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন নেওয়া হয়েছে। আশা করি, অতীতে যে ক্ষতি হয়েছে, তা আর হবে না।
সচিব সোহরাব হোসাইন বলেন, সব সেট প্রশ্নপত্র কেন্দ্রে নিয়ে যেতে হবে। প্রতিটি বিষয়ের প্রশ্নপত্র সেটের জন্য একটি খাম ব্যবহার করা হবে। খামটি সিলগালা নয়, খাম থাকবে সিকিউরিটি টেপ দিয়ে আটকানো। জেলা প্রশাসকরা পরীক্ষা শুরুর আগে যে কোনো দিন ট্রেজারিতে এই কাজ সম্পন্ন করবেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে সিকিউরিটি টেপ লাগাতে হবে। তিনি আরও বলেন, ট্রেজারি থেকে কেন্দ্রে প্রশ্ন নেওয়ার জন্য একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বা দায়িত্বশীল কর্মকর্তা নিয়োজিত থাকবেন। ট্রেজারি বা থানা থেকে কেন্দ্রসচিবসহ পুলিশের পাহারায় কেন্দ্রে প্রশ্নপত্র নিতে হবে। ম্যাজিস্ট্রেট বা দায়িত্বশীল কর্মকর্তা, কেন্দ্রসচিব ও পুলিশ কর্মকর্তার উপস্থিতি ও স্বাক্ষরে প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খুলতে হবে। দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অবশ্যই উপস্থিত থাকতে হবে। কোনো কারণে অপারগ হলে আগের দিন জেলা প্রশাসককে জানাতে হবে।
পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীকে কেন্দ্রে অবশ্যই প্রবেশ করতে হবে জানিয়ে সচিব বলেন, যদি বিশেষ কারণে কোনো পরীক্ষার্থী কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেরি হয়, তবে রেজিস্ট্রি খাতায় ওই পরীক্ষার্থীর সব তথ্য সংগ্রহ করে তাকে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেওয়া যাবে। একাধিক দিন এমন হলে আর তাকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। এসব তথ্য কেন্দ্র থেকে সংশ্লিষ্ট বোর্ডে পাঠাতে হবে। কেন্দ্রসচিব ছাড়া কেউ মোবাইল ফোন বা ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবেন না, তা নিশ্চিত করতে হবে। কেন্দ্রসচিব শুধু একটি সাধারণ মোবাইল (ছবি তোলা যায় না এমন) ফোন ব্যবহার করতে পারবেন।
সচিব বলেন, প্রশ্ন ফাঁস রোধে আমরা সব চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এর সঙ্গে কারও জড়িতের প্রমাণ পাওয়া গেলে কোনোভাবেই তাকে রেহাই দেওয়া হবে না। ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থী তার সিটে বসলে কোনো অঘটন (প্রশ্ন ফাঁস) ঘটলেও তাহলে পরীক্ষার ওপর কোনো প্রভাব পড়বে না। কারণ তখন পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষার হলে থাকবে।
ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কশিনার (ডিবি) দেবদাস ভট্টাচার্য ট্রেজারি থেকে কেন্দ্রের দূরত্ব অনুযায়ী প্রশ্ন নেওয়ার পরামর্শ দেন। সঙ্গে সঙ্গে সচিব মো. সোহরাব হোসাইন বলেন, আপনার পরামর্শ গ্রহণ করলাম। আগামীকালই একটি আদেশ জারি করব।
ঢাকা মহানগর গোয়োন্দা বিভাগের যুগ্ম কমিশনার (উত্তর) শেখ নাজমুল আলম বলেন, গত এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে যাদের গ্রেফতার করেছি তারা একটি নতুন তথ্য দিয়েছে আমাকে। পোস্টের টাইমটা এডিট করে দেখাতে পারে। গ্রেফতারকৃতদের একজন বলেছ, অনলি মি করে একটা স্ট্যাটাস দিয়ে রাখব। পরদিন পরীক্ষা শেষ হওয়ার পরে প্রশ্নের ছবি তুলে স্ট্যাটাসটি এডিট করে অ্যাড করে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেই। পরীক্ষার আগেই এভাবে তারা প্রশ্ন ফাঁস করার প্রতারণা করছে। সে টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র। তাকে গ্রেফতার না করলে এ বিষয়টা আমাদের জানা হতো না। তিনি আরও বলেন, গত পরীক্ষায় প্রত্যেক কেন্দ্রে এক থেকে দেড়শ শিক্ষার্থী সাড়ে ৯টার পরে ঢোকে। এসব শিক্ষার্থী প্রশ্নের পিছনে ঘোরে। স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নিতে পারে না। এব্যাপারে কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে হবে।
সদ্য সমাপ্ত এসএসসিতে পরীক্ষার দিন সকালে এমসিকিউ অংশের কিছু প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে দাবি করে সচিব সোহরাব বলেন, রচনামূলক প্রশ্নের ৭০ নম্বরের প্রশ্ন ফাঁস হয়নি। ১৭টি বিষয়ের পরীক্ষার মধ্যে ১২টির এমসিকিউ ‘খ’ সেট আউট হয়েছে। প্রতিদিন পরীক্ষার ২০ মিনিট, ৩০ মিনিট ও ৪০ মিনিট আগে আমরা খবর পেয়েছি এবং ভেরিফাই করে দেখেছি যে, ছাত্রছাত্রী তখন পরীক্ষার হলে ছিল। গড়ে সাড়ে সাত নম্বরের প্রশ্ন (গত এসএসসিতে) আউট হয়েছে, এতে খুব কম সংখ্যক পরীক্ষার্থী প্রভাবিত হয়েছে। পাঁচ হাজারের মতো পরীক্ষার্থী প্রভাবিত হয়েছে। এর মধ্যে অনেকেই এক্সফেল্ড (বহিষ্কার) হয়েছে, অনেকেই অ্যারেস্ট হয়েছে। কিন্তু বিষয়টি ব্যাখ্যা, বিচার না করে গণমাধ্যমে একের পর এক প্রতিবেদন আসায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও সরকারের ইমেজ সংকট হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, যারা বিকাশে অথবা রকেটে টাকা দিয়েছেন, তাদের ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যংকের গভর্নরের সঙ্গে কথা বলেছি। একই নম্বরে যদি একাধিক ট্রানজেকশন করে তাহলে সেটা তদন্ত করা হবে।
সভায় কারিগরি ও মাদ্রসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক প্রফেসর মাহাবুবুর রহমান, বিভিন্ন বোর্ডের চেয়ারম্যান, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, বিটিআরসি, পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪