জন্ম নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে যাচ্ছে চিলমারী

index

॥ এস, এম নুরুল আমিন সরকার ॥
কুড়িগ্রামের ঐতিহ্যবাহী বন্দর নগরী চিলমারী উপজেলা। এখানকার কৃষক মাটিতে হাত দিলেই সহজেই বুঝে নিতে পারে এঁটেল মাটি, দো-আঁশ নাকি বেঁলে মাটি। কি ফসল ফলবে এই মাটিতে। আকাশের দিকে তাকালেই বলে দিতে পারে বৃষ্টি হবে কি না?। রাতে আকাশের তাঁরা দেখে নৌকা চালায় মাঝিরা। তবুও যেন অভাব পিছু ছাড়ছেনা। এখন দেশের উন্নয়ন হচ্ছে। বাড়ছে মানুষের আয় আর সক্ষমতা। এরপরও বন্যা, খড়া আর নদী ভাঙ্গণের সাথে লড়াই করে টিকে থাকতে হয় এখানকার মানুষকে। এতো কিছুর পরও জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি নিয়ে তেমন কেউ ভাবে না। কিন্তু যাদের ভাবতে হয় তাদের সংখ্যা হচ্ছে শতকরা ৯৮ ভাগ তাও আবার নারী। জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির উপর অনুসন্ধানী রিপোর্টিং এর জন্য ঘুরে বেড়িয়েছি চিলমারী উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্ত। আইপাস বাংলাদেশ ও বিএনএনআরসির সহযোগিতায় এবং ইউকেএইড এর অর্থায়নে জন্ম নিয়ন্ত্রন পদ্ধতির উপর ফেলোশীপ করছি। কাজের অংশ হিসেবে কথা হয় নানা শ্রেণি পেশার মানুষের সাথে। পুরুষরা মনে করে যত পদ্ধতি আছে সবই নারীর জন্য। পুরুষদের জন্য যে পদ্ধতি আছে তা নিতে রাজী নন তারা। কোন নারী পদ্ধতি গ্রহণ করলে বাড়ীর অন্য কাউকে জানাচ্ছেন না। আবার স্বামী-স্ত্রী একে অপরেরটা জানেন না এমন কথাও শোনা গেছে।
চিলমারী উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের মানুষ জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণে কিছুটা সচেতন বলে মনে হয়। এই ইউনিয়নের সরদারপাড়া গ্রামের সুলবাসী রাণী (২৫) ১ ছেলে সন্তানের জননী। সন্তান নিতে চাই দীর্ঘ বিরতি। তাই তিনি স্বামীর সাথে পরামর্শ করে গত ২৫ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে গ্রহণ করেন ইমপ্ল্যান্ট। একই গ্রামের ধনবালা (২০)। ১ ছেলে সন্তানের জননী ধনবালার অভাবের সংসার। সন্তান নিতে চান কিন্তু দেরীতে। তাই তিনি স্বামীর সাথে পরামর্শ করে ১৬ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে গ্রহণ করেন ইমপ্ল্যান্ট। ফকিরেরভিটা গ্রামের বিষদিনী (২৭) ১ ছেলে ২ মেয়ে আর স্বামীকে নিয়ে চলছে তার সংসার। অভাবের সংসারে চতুর্থ সন্তান নেয়ার কথা ভাবতেই পারেন না তিনি। তাই তিনি স্বামীর সাথে পরামর্শ করে স্থানীয় পরিবার কল্যাণ সহকারীর সাথে যোগাযোগ করেন। তার কথামতো ১৭ মে ২০১৭ তারিখে গ্রহণ করেন ইমপ্ল্যান্ট। চর বড়ভিটার গৃহবধু খালেদা বেগম (২৫) ছেলে সন্তানের জননী। স্বামী কন্যা সন্তান নিতে চাইলেও আপত্তি করেন খালেদা বেগম। রেডিও চিলমারীতে প্রতি বুধবার বিকেল ৪.৪৫ মিনিটে প্রচারিত ‘সুখের ঠিকানা’ অনুষ্ঠান শোনেন তিনি। একদিন জোড় করেই স্বামীকে অনুষ্ঠানটি শোনান। অনুষ্ঠানটি শোনার পর থেকে স্বামী-স্ত্রী তৃতীয় সন্তান না নেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। রেডিও’র তথ্যমতে কেন্দ্রে হাজির হয়ে গ্রহণ করেন ইমপ্ল্যান্ট। রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের সরদারপাড়া গ্রামের গৃহবধু আশা বেগম (২৮)। ২ মেয়ে সন্তানের জননী। ছেলের আশা থাকলেও তৃতীয় সন্তান নিতে চান না তিনি। গত ০৭ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে গ্রহণ করেন আইইউডি। রিনা বেগম (৩৪) ৩ মেয়ে সন্তানের জননী। মেয়েকে মানুষ করতে পারলে ছেলের অভাব পুরণ হবে। তাই তিনি গ্রহণ করেন আইইউডি। রাণীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক মনিরুজ্জামান জানান, রাণীগঞ্জ ইউয়িনের মোট সক্ষম দম্পত্তি রয়েছে ৫ হাজার ২‘শ ৩২জন। এর মধ্যে খাবার বড়ি খান ২ হাজার ৭‘শ ৫৭ জন, কনডম ব্যবহার করেন ১‘শ ৬৮জন, ইনজেকশন নেন ৪‘শ ৫৩জন, আইইউডি নেন ২‘শ ৪০জন, ইমপ্ল্যান্ট নিয়েছেন ২‘শ ৫৩জন। পুরুষ বন্ধ্যাকরণ হয়েছে ১‘শ ৫৬জন। মহিলা বন্ধ্যাকরণ হয়েছে ৩‘শ জন।
চিলমারী উপজেলার আর একটি ইউনিয়ন হচ্ছে রমনা মডেল ইউনিয়ন পষিদ। এই ইউনিয়নে অবস্থিত চিলমারী বন্দর। উপজেলার সর্ব বৃহৎ হাট বাজার হচ্ছে জোড়গাছ হাট। এখানে রয়েছে সুসজ্জিত ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন। রয়েছে উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র। যেখানে একজন এমবিবিএস ডাক্তার নিয়মিত চিকিৎসাসেবা দেয়ার কথা। কিন্তু ৩জন ডাক্তার দিয়ে চলছে পুরো চিলমারী উপজেলার চিকিৎসাসেবা। এই ইউনিয়নের মন্ডলপাড়া গ্রামের গৃহবধু অঞ্চনা রাণী (২৫) ২ কন্যা সন্তানের জননী। গত ২১ মার্চ ২০১৮ তারিখে স্বামীর সাথে পরামর্শ করে নিয়েছেন ইমপ্ল্যান্ট। ১ ছেলে সন্তানের জননী শিউলী রাণী (২০) এবং চন্দনা রাণী ২ মেয়ে সন্তানের জননী। তারা দু’জনই সন্তান নেয়ার ক্ষেত্রে চান দীর্ঘ বিরতি। আর তাই স্থানীয় পরিবার কল্যাণ সহকারী মোছাঃ সুলতানা বেগমের সাথে পরামর্শ করে গত ২১ মার্চ ২০১৮ তারিখে গ্রহণ করেন ইমপ্ল্যান্ট। খরখরিয়া ভরট্টপড়া গ্রামের গৃহবধু শেফালী বেগম (৩৫)। ছেলে সন্তানের আশায় এখন তিনি ৪ কন্যা সন্তানের জননী। পঞ্চম সন্তান নিতে রাজি নন তিনি। মেয়ে ৪টাকে মানুষ করতে পারলেই ছেলের অভাব পুরণ হবে তার। তাই গত ০৬ আগস্ট ২০১৭ তারিখে গ্রহণ করে আইইউডি। একই গ্রামের ২ কন্যা সন্তানের জননী আংগুরী বেগম (২৫) এবং রেমি বেগম (২২) ২ পুত্র সন্তানের জননী। কারো পুত্র দরকার, আবার কারো দরকার কন্যা। তারা দু‘জনই তৃতীয় সন্তান নিতে রাজী নন। আংগুরী বেগম গত ২৬ আগস্ট ২০১৭ আর রেমি বেগম ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে গ্রহণ করেন আইইউডি। রমনা এলাকার নববধু মনি (১৯), হুমায়রা হেনা (২২) ও আফসানা মীম (২৪) নিয়মিত খান খাবার বড়ি। রমনা মডেল ইউনিয়নে মোট সক্ষম দম্পত্তির সংখ্যা ৮ হাজার ৬‘শ ৫জন। এর মধ্যে খাবার বড়ি খান ৩ হাজার ৭‘শ ৩৩জন, কনডম ব্যবহার করেন ২‘শ ৭৬জন, ইনজেকশন নেন ১ হাজার ১‘শ ৭৬জন, আইইউডি নিয়েছেন ৪‘শ ৩৪জন, ইমপ্ল্যান্ট নিয়েছেন ৬‘শ ১৬জন, পুরুষ বন্ধ্যাকরণ হয়েছে ২‘শ ৮১জন, মহিলা বন্ধ্যাকরণ হয়েছে ৫‘শ ২২জন জন।
এবার আসা যাক উপজেলা সদর থানাহাট ইউনিয়নের জন্ম নিয়ন্ত্রন পদ্ধতির চিত্র আলোচনায়। সদর ইউনিয়ন চিলমারী হওয়ার কথা থাকলেও চিলমারী ইউনিয়ন এখন ব্রহ্মপুত্র নদের মধ্যখানে জেগে ওঠা বালু চর। আর উপজেলা সদর হচ্ছে থানাহাট ইউনিয়নে। ৪টি কলেজ, থানা, উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স থানাহাট ইউনিয়নে অবস্থিত। শিক্ষিতের হার সবচেয়ে বেশি এই ইউনিয়নে। জনসংখ্যার দিক থেকেও অনেক বেশি।
থানাহাট ইউনিয়নের জহদ্দির গ্রামের বাসিন্দা কল্পনা বেগম (২৮)। ৩ পুত্র ও ১ কন্যা সন্তানের জননী। নিয়মিত খাবার বড়ি খেতেন। মাঝে মধ্যে বড়ি খেতে ভুলে যেতেন তিনি। স্থানীয় পরিবার কল্যাণ সহকারীর পরামর্শ নিয়ে গত ৮ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে গ্রহণ করেন ইমপ্ল্যান্ট। একই গ্রামের মালেকা (২৫) ১ পুত্র সন্তানের জননী ও মারুফা বেগম (১৮) ১ কন্যা সন্তানের জননী। তারা দু’জনই ইমপ্ল্যান্ট গ্রহিতা। পুটিমারী কাজলডাঙ্গা গ্রামের স্বপ্না (২৮), রাশেদা (৩০), বিজলী (৩৫), কমলা (২০) ও মরিয়ম সবাই আইইউডি গ্রহিতা। তারা জানান, রোজ রোজ খাবার বড়ি খাওয়া বিরক্তকর। তাই আইইউডি গ্রহণ করেন। থানাহাট ইউনিয়নের দায়িত্বে নিয়োজিত ইউনিয়ন পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক (ভারপ্রাপ্ত) আলমগীর হোসেন জানান, থানাহাট ইউনিয়নে মোট সক্ষম দম্পতির সংখ্যা ১০ হাজার ২‘শ ১৬ জন এর মধ্যে খাবার বড়ি খান ৪ হাজার ৫‘শ ৪৩জন, কনডম ব্যবহার করেন ৫‘শ ৯৬ জন, ইনজেকশন নেন ১ হাজার ৩‘শ ৫ জন, আইইউডি নিয়েছেন ৪‘শ ৯০ জন, ইমপ্ল্যান্ট নিয়েছেন ৫‘শ ৫৪ জন, পুরুষ বন্ধ্যাকরণ হয়েছে ৩‘শ ৬৫ জন এবং মহিলা বন্ধ্যাকরণ হয়েছে ৫‘শ ২৫ জন। উপজেলা পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ শহিদুল ইসলাম জানান, চিলমারী উপজেলায় মোট সক্ষম দম্পতি ৩১ হাজার ২২ জন। এর মধ্যে খাবার বড়ি খান ১৩ হাজার ২‘শ ৭৭ জন, কনডম ব্যবহার করেন ১ হাজার ৩‘শ ১৪ জন, ইকজেকশন নেন ৪ হাজার ৭‘শ ২০জন, আইইউডি ১ হাজার ৪‘শ ৫৯ জন, ইমপ্ল্যান্ট নিয়েছেন ২ হাজার ২‘শ ৪৮ জন, পুরুষ বন্ধ্যাকরণ হয়েছে ৯‘শ ৬৪ জন, মহিলা বন্ধ্যাকরণ হয়েছে ১ হাজার ২জন। সর্বমোট গ্রহণকারীর হার ৮২.৪৭%।
উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডাঃ সায়লামা বিনতে মেফতাহুর বলেন, ইমপ্ল্যান্ট হচ্ছে একটি দীর্ঘমেয়াদী পদ্ধতি। কোন দম্পতি ইমপ্ল্যান্ট নিতে চাইলে তাকে পরিবার পরিকল্পনা অফিসে আসতে হবে। নব দম্পতি যার কমপক্ষে একটি সন্তান আছে তাকে ইমপ্ল্যান্ট পড়ানো হয়। বাম হাতে পড়ানো হয়। ১টি কাঠি পড়ালে কমপক্ষে ৩ বছর গর্ভধারণ করতে পারবে না। তবে যে কোন সময় খুলে ফেললে আবার সে গর্ভধারণ করতে পারবে। আর আইইউডি হচ্ছে নন হরমোনাল ১০ বছর মেয়াদি একটি কার্যকরী পদ্ধতি। বাচ্চা হওয়ার ৪৮ ঘন্টা পরে বা মাসিকের ১ থেকে ২ দিনের মধ্যে জরায়ুতে স্থাপন করা হয়। স্ত্রী-স্বামীর মেলামেশায় কোন সমস্যা হয় না। আইইউডি গ্রহিতা ১০ বছর পর্যন্ত গর্ভধারণ করতে পারবে না। তবে প্রয়োজন হলে যে কোন মুহূর্তে খুলে ফেলতে পারবেন। এতে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। আর দুগ্ধদানকারী মা ৬মাস পর্যন্ত আপন বড়ি খেতে পারেন। তিনিও ইমপ্ল্যান্ট নিতে পারেন।
রেডিও চিলমারীর স্টেশন ইনচার্জ বশির আহমেদ বলেন, চিলমারী উপজেলায় জন্ম নিয়ন্ত্রণে রেডিও চিলমারী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। আমরা রেডিও চিলমারীতে জন্মনিয়ন্ত্রণের জন্য স্থায়ী পদ্ধতি গ্রহণে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য বিভিন্ন অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে থাকি। ফলে জন্ম নিয়ন্ত্রণে এখন এগিয়ে যাচ্ছে চিলমারী। চর বজরাদিয়ারখাতা গ্রামের বাসিন্দা মোছাঃ শাহাজাদি বেগম (২৮)। ১ কন্যা ও ১ পুত্র সন্তানের জননী। রোজ রোজ খাবার বড়ি খেতে ভাল লাগে না তার। নিয়মিত শোনেন রেডিও চিলমারী। আইপাস বাংলাদেশ ও বিএনএনআরসির সহযোগিতায় এবং ইউকে এইডের অর্থায়নে সম্প্রচারিত অনুষ্ঠান ‘সুরক্ষা’ এবং প্রতি বুধবার বিকেল ৪টা ৪৫ মিনিটে প্রচারিত নারী ও জনসংখ্যা বিষয়ক অনুষ্ঠান ‘সুখের ঠিকানা’ তার প্রিয় অনুষ্ঠান। তিনি জানান, অনুষ্ঠান শুনেই এখন তিনি ইনজেকশন নেন। এখন ভাল আছেন শাহাজাদি বেগম।
উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ শহিদুল ইসলাম বলেন, জন্ম নিয়ন্ত্রণে চিলমারী এগিয়ে যাচ্ছে। চিলমারীর মানুষ এখন সচেতন হচ্ছেন। উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের একদল দক্ষ কর্মী নিয়মিত মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে সেবা দিচ্ছেন। মানুষকে স্থায়ী পদ্ধতি গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করছেন।
সরকারী প্রতিষ্ঠান ছাড়াও ফ্রেন্ডশিপসহ বেসরকারী উ্ন্নয়ন সংস্থাগুলো জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি নিয়ে কাজ করছে। ফলে মানুষ দিন দিন সচেতন হচ্ছেন। অন্যান্য বছরের তুলনায় চিলমারী এখন এগিয়ে যাচ্ছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪