**   উলিপুর ফুটবল টুর্নামেন্টের প্রথম রাউন্ডের খেলা অনুষ্ঠিত **   ঐক্যফ্রন্ট ছাল-বাকলের তৈরি: প্রধানমন্ত্রী **   সাঈদা মুনা তাসনিম যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের নতুন হাই কমিশনার **   ব্যারিস্টার মইনুলের কাছে ক্ষমা চাইতে মাসুদা ভাট্টিকে আইনি নোটিশ **   মেয়াদোত্তীর্ণ নেতাদের ভাড়া করে ঐক্য করেছে বিএনপি : হাছান মাহমুদ **   চিলমারীতে সোনালী ব্যাংক ম্যানেজারের বিদায় ও বরণ অনুষ্ঠিত **   কুড়িগ্রামে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত **   চিলমারীতে কৃষি প্রনোদনা কর্মসূচীর আওতায় কৃষকদের মাঝে বিনামুল্যে বীজ ও সার বিতরণ **   উলিপুরে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা **   ডা. জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে এবার চুরির মামলা

হাওরে বাম্পার ফলন: কৃষকের মুখে হাসি, মনে শঙ্কা

যুগের খবর ডেস্ক: হাওরের কৃষকের মুখে এখন হাসি। নেত্রকোনা ও সুনামগঞ্জের প্রায় ৩০০ হাওরে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। অনেক হাওরে ব্রি-২৮ জাতের ধানকাটা শুরু হয়েছে। দুই সপ্তাহ আগেই কাটা গেলেও ব্রি-২৯’র চেয়ে ব্রি-২৮ ফলন কিছুটা কম হয়। অন্য সমস্যা না হলে চলতি সপ্তাহের শেষ দিকে পুরোদমে ধানকাটা শুরু হবে সব হাওরে।
তারপরও কৃষকের মনে শঙ্কা। গত বছর নজিরবিহীন বন্যার স্মৃতি এখনো দূর হয়নি।
এদিকে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র ২৪ ঘণ্টা ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ করে হঠাৎ বন্যা সংক্রান্ত তথ্য সরবরাহ করছে। রবিবার এই কেন্দ্রের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, দুই দেশের আবহাওয়ার তথ্য অনুযায়ী, আগামী ৭২ ঘণ্টায় ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রদেশ আসাম, মেঘালয় ও ত্রিপুরার অনেক স্থানে বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস আছে। তবে এতে উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো কোনো কারণ নেই বলে জানিয়েছেন বন্যা তথ্যকেন্দ্রের সহকারী প্রকৌশলী জুয়েল আহমেদ।
আজ সন্ধ্যায় টেলিফোনে জানতে চাইলে তিনি আজকালের খবরকে বলেন, আপাতত বড় কোনো আশঙ্কা নেই। তবে ভারতের মেঘালয় ও আসামে এক থেকে দুইশ মিলিমিটার বৃষ্টি হলে পানি অনেক বেড়ে যায়। এটা অনেক আগে থেকে সতর্ক করার মতো সুযোগ নেই। তারপরও আমরা বাংলাদেশ এবং ভারতের তথ্য যাছাই করে পূর্বাভাস দেওয়ার চেষ্টা করি।
অন্যদিকে হাওরবাসী আরও কয়েক দিন যেন রোদ্রোজ্জ্বল আবহাওয়া থাকে সেই দোয়া করছেন। হাওর সংশ্লিষ্টরা বলছেন আর যদি ১৫-২০ দিন রোদ থাকে তাহলে হাওরের পাকা ধানের প্রায় ৭৫ ভাগ কেটে ও শুকিয়ে গোলায় তুলতে পারবেন তারা। চৈত্র শেষ হওয়ার আগেই ২৫ শতাংশ ধান কাটা হয়ে যাবে।
সুনামগঞ্জের কৃষক আলাউদ্দিন শেখ বলেন, এইবার যে ধান হয়েছে তা ঠিকমতো ঘরে তুলতে পারলে এবং সরকার দাম ভালো দিলে গতবারের দুঃখ কিছুটা হলেও ভুলতে পারব। তবে এখন সামনের কয়েকটা দিন খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই সময় বন্যার পানি, ঝড়, শিলাবৃষ্টির ভয় আছে। ভালোয় ভালোয় পার করতে পারলে মনে শান্তি আসবে।
এবার সুনামগঞ্জ জেলার ১৫৪টি হাওরে সোয়া দুই লাখ হেক্টর জমিতে ধানের চাষ হয়েছে। এ জেলায় ধানের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৩ লাখ ২১ হাজার টন।
অন্যদিকে চলতি বোরো মৌসুমে নেত্রকোনা জেলার ১৩৪টি হাওরে সরকারি লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক লাখ ৮১ হাজার ২০ হেক্টর জমি আবাদের। কিন্তু কৃষকরা তারচেয়ে আরও তিন হাজার হেক্টর বেশি জমি আবাদ করায় এক লাখ ৮৪ হাজার ৯৩০ হেক্টর জমির ফসল ঘরে উঠানোর অপেক্ষায় সংশ্লিষ্টরা। এর মধ্যে জেলার শুধু হাওর এলাকাভুক্ত  ৪২ হাজার হেক্টর জমিতে বোরোর আবাদ হয়েছে।
নেত্রকোনার কৃষক সমিতির সভাপতি খন্দকার আনিছুর রহমান মোহনগঞ্জ উপজেলার ডিঙ্গাপোতা হাওরসহ বেশ কয়েকটি হাওর দেখে এসেছেন সম্প্রতি।রবিবার আজকালের খবরকে বলেন, হাওরে ফলন খুব ভালো হয়েছে। কিন্তু কৃষক প্রকৃত দাম পাবে কি না তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। তিনি বলেন, হাওরে একসঙ্গে অনেক জমির ধান পেকে যায়। এগুলো কাটতে বাইরে থেকে মানুষ ভাড়ায় আনতে হয়। আগে মুজুরি হিসেবে তারা ধানের ভাগ নিত। কিন্তু এবার তারা টাকা চাইছে। ফলে অনেক কৃষককে জমিতে ধান রেখেই তার একটি অংশ বিক্রি করতে হচ্ছে। আমাদের এলাকায় প্রতিযোগিতা কম থাকায় তুলনামূলক কম টাকায় ধান বিক্রি করতে হয় কৃষকদের।
গত বছর ঠিক এই সময়টাতেই খুব খারাপ পরিস্থিতিতে ছিল হাওর এলাকার কৃষকরা। কৃষিকাজে জড়িত সবচেয়ে প্রবীণ মানুষরা  চৈত্রমাসের বন্যায় পানিতে ধান তলিয়ে যেতে দেখেননি। গতবার তাই হয়েছিল। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদও হাওর এলাকার মানুষ। তিনি বলেছিলেন, আমার জীবনে এত আগে বন্যায় ফসল নষ্ট হতে কখনও দেখিনি।
কৃষকরা বলছেন, হাওরে বোরোর ফলন খুব ভালো হয়েছে। ধান পাকতে শুরু করেছে। আগাম বন্যা না এলে এবার বেশি ফসল ঘরে উঠবে। আর ফসল ঘরে তুলতে পারলে গত বছরের ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে। সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক সাবিরুল ইসলাম আজকালে খবরকে বলেন, হঠাৎ বন্যা প্রতিরোধে সুনামগঞ্জে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে হাওরে বাঁধ দেওয়া হয়েছে। আশা করি স্বাভাবিক পানির চাপে কোনো সমস্যা আমাদের এলাকায় হবে না। নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক মঈন-উল ইসলাম বলেন, হাওরে ধানের ফলন খুব ভালো হয়েছে। হাওরে ঠিকমতো বাঁধ দেওয়া থেকে শুরু করে ধান কেটে বাড়িতে আনা পর্যন্ত জেলা প্রশাসন কৃষক ভাইদের পাশে আছে, থাকবে।
এই মৌসুমটিকে বোরো ধানের মৌসুম বলা হলেও বাংলাদেশে এখন আর বোরো ধান চাষ হয় না বললেই চলে। ফলন কম হওয়ায় হারও এলাকায় এখন আর কেউ বোরোর আবাদ করেন না। বোরো ধান চৈত্র মাসেই কেটে ঘরে তোলা যায়। এখন মূলত আবাদ হয় ব্রি-২৮ এবং ব্রি ২৯ জাতের ধান। এর মধ্যে প্রথমটি দ্বিতীয়টির চেয়ে ১৫ দিন আগেই পেকে যায়। এ কারণে অনেকে হঠাৎ বন্যার আক্রমণ থেকে বাঁচতে ব্রি-২৮ চাষ করেন। অন্যদিকে ব্রি-২৯ ধান পাকতে একটু দেরি হলেও ফলনের দিক থেকে ব্রি-২৮’র চেয়ে অনেক ভালো। হাওরে এই দুই জাতের ধানই চাষ করেন কৃষকরা।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪