**   শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে আফগানদের হারালো বাংলাদেশ **   সরকারি হাইস্কুলে পদোন্নতি: সিনিয়র শিক্ষক হচ্ছেন ৫৫০০ জন **   উলিপুরে বিজয়ের উল্লাসে বিজয় মঞ্চের কাজ শুরু **   কুড়িগ্রামে ‘অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ শীর্ষক উন্নয়ন কনসার্ট অনুষ্ঠিত **   উলিপুরে বিদ্যূৎস্পৃষ্টে অটোচালক নিহত **   আওয়ামী লীগকে ছাড়া জাতীয় ঐক্য হতে পারে না: কাদের **   ১০ জেলায় নতুন ডিসি **   দেবী রূপে অপু বিশ্বাস **   জাতিসংঘে রোহিঙ্গা নিয়ে বিশ্বের সমর্থন চাইবেন প্রধানমন্ত্রী  বৈঠক হতে পারে ট্রাম্পের সঙ্গে **   ভূরুঙ্গামারীতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মনোনয়নের দাবীতে পথ সভা, র‌্যালি অনুষ্ঠিত

রমজানে নিত্যপণ্যের মজুদ পর্যাপ্ত

যুগের খবর ডেস্ক: আসছে রমজান। কৃত্রিম সংকট না হলে আসছে রমজানে ছোলা, চিনি, খেজুর, ভোজ্যতেল ও পেঁয়াজ- এই পাঁচ নিত্যপণ্যের দাম ভোক্তাদের নাগালেই থাকবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
কারণ এসব পণ্যের অভ্যন্তরীণ উৎপাদন ও আমদানির মাধ্যমে আগাম নিরাপত্তা মজুদ গড়ে তোলা হয়েছে। যা চাহিদার তুলনায় কয়েকগুণ বেশি। বিশ্ববাজারেও পণ্যগুলোর দাম কমায় প্রায় প্রতিদিনই ব্যবসায়ীরা আমদানির এলসি (লেটার অব ক্রেডিট বা ঋণপত্র) খুলছেন। পর্যাপ্ত মজুদ থাকার পরও পাইপলাইনে আছে আরও বিপুল পরিমাণ পণ্য। এরই মধ্যে রোজার পণ্যের দাম বাড়বে কি না এ নিয়ে শুরু হয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে আলোচনা। বাণিজ্যমন্ত্রীর কাছে ব্যবসায়ীরা আশ্বাস দিয়েছেন এবার রমজানে প্রধান কয়েকটি পণ্যের দাম বাড়বে না। রোজার প্রধান পণ্যগুলোর যথেষ্ট মজুদ আছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।
বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ট্যারিফ কমিশনের প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, রমজানে যেসব পণ্যের চাহিদা বাড়ে, সেগুলোর অভ্যন্তরীণ উৎপাদন ও আমদানির মাধ্যমে আগাম নিরাপত্তা মজুদ গড়ে তোলা হয়েছে। রমজানে ভোজ্যতেলের চাহিদা থাকে ২.৫ লাখ টন, চিনি তিন লাখ টন, ছোলা ৮০ হাজার টন, খেজুর ১৮ হাজার টন এবং পেঁয়াজ চার লাখ টন। এর বিপরীতে দেশে ১৮ মার্চ পর্যন্ত ভোজ্যতেলের মজুদের পরিমাণ আট গুণ বেশি, ছোলা আট দশমিক ৩৩ গুণ, পেঁয়াজ তিন দশমিক ৪৮ গুণ, খেজুর দুই দশমিক ৫৬ গুণ এবং চিনি শূন্য দশমিক ৪৫ গুণ।
পণ্যে বাজার বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, কয়েক মাস আগে যেখানে ৮৫ টাকা কেজিতে ছোলা বিক্রি হয়েছে, এখন তা মিলছে ৭০ টাকায়। উৎপাদন ভালো হওয়ায় বাজারে এখন পেঁয়াজের দামও কম। দেশি পেঁয়াজের দাম এখন কেজিপ্রতি ৩২ থেকে ৩৩ টাকা। ৯৭ থেকে ১০৩ টাকা লিটারে বিক্রি হচ্ছে সয়াবিন তেল। প্রকারভেদে মসুর ডালের দাম ৫০ থেকে ১৫০ টাকা। তবে ১০০ টাকা কেজিতেও ভালো মানের মসুর ডাল মিলছে। আর বেগুনের দাম এখন কেজিতে ৪০ টাকা। কারওয়ান বাজারসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।
ব্যবসায়ীরা বলছেন, দেশে এবার পেঁয়াজের উৎপাদন ভালো হয়েছে। ভারত থেকেও পেঁয়াজ আসছে। ফলে বাজারে এখন পেয়াজের দাম কম। ৩২ থেকে ৩৩ টাকায় দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ২৩ থেকে ২৪ টাকা। পাইকারি বাজারের বড় বিক্রেতা খলিলুর রহমান বলেন, রোজায় এবার পেঁয়াজের দাম বাড়বে না। পর্যাপ্ত মজুদ আছে। ভালো মানের দেশি পেঁয়াজ ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা পাল্লায় (৫ কেজি) বিক্রি হচ্ছে। আরেক বিক্রেতা আলাউদ্দিন বলেন, দেশে এবার পেঁয়াজের উৎপাদন ভালো হয়েছে। মানুষ এখন শুধুমাত্র খাওয়ার জন্য পেঁয়াজ কিনছে। রোজার কেনাকাটা শুরু করেনি। তবে যে দামে পেঁয়াজ বিক্রি করছি, কৃষক এবং আমাদের কারোই লাভ থাকছে না।
গ্রীণ স্টোরের মালিক ইলিয়াস বেপারী বলেন, ৭০ টাকা কেজিতে এখন ভালো মানের ছোলা বিক্রি হচ্ছে। ডাবলি মটর ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। আর ভালো মানের মসুরের ডাল গড়ে ১০০ টাকা কেজি। আর বি-বাড়িয়া স্টোরের এক কর্মচারী জানান, মাস দুয়েক আগে ছোলা ৮৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে, বর্তমানে যা ৭০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। তার মতে, ছোলার দাম আর বাড়বে না। একই বাজারের সয়াবিন তেলের এক বড় কারবারি বলেন, ৯৭ থেকে ১০৩ টাকা কেজিতে সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে। এম আর ট্রেডার্সের মালিক নাসির উদ্দিন বলেন, বিগত এক মাসেও তেলের বাজারে কোনো পরিবর্তন হয়নি। কোনোকিছুর দামই কিন্তু বাড়েনি। সরকার ও বড় ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে- সব কিছুরই পর্যাপ্ত মজুদ আছে। তাই বাজারও স্থিতিশীল।
এছাড়া, চালের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, মিনিকেট ৫২ থেকে ৬১ টাকা, নাজির ৬৪ থেকে ৭২ টাকা ও কাটারিভোগ ৭২ থেকে ৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজারে কমেছে সবজির দাম। শিম ৩০ টাকা, পেঁপে ৪০ টাকা, শসা ৪০ টাকা, টমেটো ৩০ থেকে ৪০ টাকা, কাঁচামরিচ ৪০ টাকা, কাঁকরুল ১২০ টাকা ও কাঁচা আম ১০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। দাম কমেছে অন্যান্য সবজিরও। তবে একদিনের ব্যবধানেই বাজারে রসুনের দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি ৫ থেকে ৬ টাকা। একই বাজারের রসুনের পাইকারি বিক্রেতা কামরুল বলেন, ৭৪ টাকা কেজিতে চায়না রসুন বিক্রি করলেও আজ (গতকাল) তা ৮০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। দুদিনের ব্যবধানেই ৬ টাকা দাম বেড়েছে।তবে দেশি রসুনের দাম স্থিতিশীল রয়েছে।
দ্রব্যমূল্য পর্যালোচনা সংক্রান্ত বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, দ্রব্যমূল্যের স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে হলে দায়িত্বশীল সংশ্লিষ্ট সব সংস্থা, ব্যবসায়ী এবং ভোক্তাকে সতর্কতা বজায় রাখতে হবে। এ ক্ষেত্রে দায়িত্বশীলদের আমদানিকৃত পণ্য নির্বিঘ্নে খুচরা বাজারে সরবরাহ নিশ্চিত করার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। এতে পণ্যমূল্য স্থিতিশীল রাখতে হলে অবশ্যই বন্দর থেকে পণ্য খালাসের দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। সুদের হার কমানো এবং অসাধু ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করার বিষয়টিও জোরালোভাবেই উঠে আসে ওই প্রতিবেদনে।
বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাজার পরিস্থিতি নিম্নমুখী। পেঁয়াজের আন্তর্জাতিক বাজারমূল্য গত এক মাসে প্রায় ২৪ শতাংশ কমেছে। অন্য পণ্যের দামও উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে। আন্তর্জাতিক বাজারে পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি ১৮ টাকা ৬৫ পয়সা থেকে ২০ টাকার মধ্যে উঠানামা করছে। একইভাবে সয়াবিন তেলের কেজিপ্রতি দাম ৬২-৬৪ টাকা, ছোলা ৪৬-৪৮ টাকা, চিনি ৩৮-৪১.৭৬ টাকা এবং খেজুরের দাম প্রতি কেজি ৭০ টাকার মধ্যে উঠানামা করছে। এর প্রভাব পড়েছে দেশীয় বাজারে। বর্তমানে বাজারে খুচরা মূল্যে সয়াবিন কেজিপ্রতি ৮৫-৮৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া চিনি ৫৫-৬০ টাকা, ছোলা ৮০-৯০, খেজুর ১২০-৩০০ এবং পেঁয়াজ দেশি ৩৫-৪০ এবং আমদানি ২৫-৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
এ প্রসঙ্গে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সভাপতি মো. সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, বাংলাদেশে নিত্যপণ্যের সরবরাহ দেশজ উৎপাদন ও আমদানির দুইয়ের ওপর নির্ভরশীল। আন্তর্জাতিক বাজারে এসব পণ্যের দাম উঠানামা করলে দেশের বাজারেও এর প্রভাব পড়ে। এ ক্ষেত্রে মজুদ পর্যাপ্ত থাকলে এবং বাজারে প্রতিযোগী বেশি হলে দাম স্থিতিশীল থাকে। কেউ যাতে রমজাননির্ভর পণ্যে কারসাজি করার সুযোগ না পায় সে জন্য সরকারের গোয়েন্দা নজরদারি জোরদার করার পরামর্শ দেন তিনি।
এদিকে সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মুখ্য কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির ভূঁইয়া বলেন, রমজানের বাজার মোকাবিলায় প্রস্তুত টিসিবি। ইতিমধ্যে টিসিবির আমদানি ও স্থানীয়ভাবে ক্রয়কৃত মজুদ পণ্য ভোজ্যতেল, ছোলা, চিনি, মসুর ডাল গুদামে ঢুকেছে। রমজানের ৮-১০ দিন আগ থেকেই খোলা বাজারে পণ্য বিক্রি শুরু হবে। বাজারদরের চেয়ে কম মূল্যে বিক্রি হবে টিসিবির পণ্য।
মজুদ পরিস্থিতি-
পেঁয়াজ: বার্ষিক পেঁয়াজের চাহিদা আছে ২৪ লাখ টন। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী ২০১৬-১৭ অর্থবছরে পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে ২১.৫৩ লাখ টন। সে বছর আমদানি করা হয় ১২.৬৭ লাখ টন। চাহিদা পূরণের পর গেল বছরের উদ্বৃত্ত পেঁয়াজের পরিমাণ ছিল ১০.২ লাখ টন। এর সঙ্গে চলতি অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমদানি করা হয় ৪.৫০ লাখ টন। একই সঙ্গে চলতি বছরের উৎপাদনও এখন বাজারে গড়াচ্ছে। এর পরিমাণ ২০ লাখ টন ধরা হলেও বর্তমানে দেশে অভ্যন্তরীণ মজুদের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৪.৭ লাখ টন। গত ৯ মাসে পেঁয়াজ খাওয়া হয় ১৭.১৮ লাখ টন। এ ছাড়া ১১-১৮ মার্চ পর্যন্ত পণ্যটির এলসি খোলা হয়েছে ১৮ হাজার ৪০৪ টনের। একই সময়ে খালাস করা হয় আরও ২১ হাজার ৩৯ টনের। ফলে ওই সময় পর্যন্ত পেঁয়াজের সার্বিক মজুদ দাঁড়িয়েছে ১৭.৯১ টন।
ভোজ্যতেল: বাৎসরিক চাহিদা ১৫ লাখ টন। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে সব ধরনের তেলের উৎপাদন ছিল দুই লাখ টন। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের তথ্যানুযায়ী ওই অর্থবছরে ভোজ্যতেলের আমদানির পরিমাণ ছিল ২৯.২ লাখ টন। চাহিদা পূরণের পর উদ্বৃত্ত ছিল ১৬.২ টন। এর সঙ্গে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমদানি হয় ১৪.৩১ লাখ টন। এ বছর অভ্যন্তরীণ উৎপাদন হয়েছে দুই লাখ টন। তবে এ মজুদ থেকে চলতি বছর মার্চ পর্যন্ত নিয়মিত ভোগ হয় ১০.২২ লাখ টন। উদ্বৃত্ত মজুদ দাঁড়ায় ২২.২৮ টন। এর সঙ্গে গত ১১-১৮ মার্চ পর্যন্ত আমদানির উদ্দেশে নতুন এলসি খোলা হয় ১৪ হাজার ১৯২ টন। একই সময়ে নিষ্পত্তি হয় আরও ১৭ হাজার টন।
মার্চ পর্যন্ত এলসি খোলা ও নিষ্পত্তির হিসাব ধরে ভোজ্যতেলের সার্বিক মজুদ দাঁড়িয়েছে ২২.৫৯ লাখ টন।
ছোলা: বছরে ছোলার চাহিদা এক লাখ টনের। এর সিংহভাগ চাহিদাই তৈরি হয় রমজানে। দেশে উৎপাদান হয় ৫.৫ হাজার টন। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ছোলা আমদানি হয়েছে ৫.০৮ লাখ টন। পুরো বছরের চাহিদা মেটানোর পর ছোলার উদ্বৃত্ত থাকে ৪.৬৩ লাখ টন। এর সঙ্গে চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমদানি হয়েছে ১.৯৮ লাখ টন। এ ছাড়া আমদানির উদ্দেশে ১১-১৮ মার্চ পর্যন্ত ছোলার এলসি খোলা হয় ৮০০ টনের। একই সময়ে এলসির নিষ্পত্তি করা হয় দুই হাজার ২৯১ দশমিক ৪৫ টনের। গত নয় মাসের ভোগ শেষে মার্চ পর্যন্ত এলসি খোলা ও খালাসের হিসাব ধরে ছোলার মজুদ দাঁড়িয়েছে সাত লাখ ৪৬ হাজার টন।
চিনি: ২০১৪-১৫ ও ২০১৫-১৬ এবং ২০১৬-১৭ অর্থবছরে চিনির অভ্যন্তরীণ উৎপাদন ও আমদানির পরিমাণ ছিল মোট ৫৪.৭৩ লাখ টন। ওই তিন বছর দেশে চিনির চাহিদা ছিল প্রতি বছর ১৫ লাখ টন। ফলে আগের মজুদ থেকে উদ্বৃত্ত ছিল ৯.৭৩ টন। ২০১৭-১৮ অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চিনি আমদানি হয় ৩.৬৫ লাখ টন।
বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের তথ্যমতে, চলতি অর্থবছরে এ পর্যন্ত ৬৮ হাজার ৫৬২ টন চিনি উৎপাদন হয়েছে। গত ১১-১৮ মার্চ পর্যন্ত চিনির এলসি খোলা হয় ১৫ হাজার ১৭৫ টনের। এর মধ্যে খালাস হয়েছে তিন হাজার ৬০০ টন। চলতি অর্থবছরের গত নয় মাসে ভোগ হয়েছে ১০.২২ লাখ টন। ফলে ভোগের অংশ বাদ দিয়ে মার্চ পর্যন্ত সার্বিক চিনি মজুদ দাঁড়ায় ৪.৩৫ লাখ টন।
খেজুর: দেশে বছরজুড়ে খেজুরের চাহিদা তৈরি হয় ২০ হাজার টন। দেশে খেজুরের উৎপাদন হয় না বলে পুরোটাই নির্ভরশীল আমদানির ওপর। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে খেজুর আমদানি করা হয়েছে ৪৩ হাজার ৮৮২ টন। চাহিদা পূরণের পর খেজুরের উদ্বৃত্ত মজুদ আছে ২৩ হাজার ৮৮২ টন। চলতি অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমদানি করা হয় ৩৯ হাজার ১৫৪ টন। ১১-১৮ মার্চ পর্যন্ত আমদানির উদ্দেশে পণ্যটির এলসি খোলা হয়েছে ২৫৪ টন। একই সময়ে খালাস হয় এক হাজার ৬৮ দশমিক ৩১৫ টন। মার্চ পর্যন্ত এলসি খোলা ও নিষ্পত্তির হিসাব ধরে খেজুরের মজুদ দাঁড়িয়েছে ৬৪ হাজার ১০৪ দশমিক ৫৬৯ টন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪