ব্রাশফায়ারে নিহত ৫

যুগের খবর ডেস্ক: রক্তাক্ত হয়ে উঠেছে পাহাড়। রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা) সহসভাপতি অ্যাডভোকেট শক্তিমান চাকমাকে প্রকাশ্য দিবালোকে গুলি করে হত্যার পর তার শেষকৃত্যে যাওয়া গাড়িতেও হামলা চালানো হয়েছে। ব্রাশফায়ারে হত্যা করা হয়েছে পাঁচজনকে। শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে খাগড়াছড়ির মহালছড়ি থেকে নানিয়ারচর যাওয়ার পথে খাগড়াছড়ি-রাঙামাটি সড়কের নানিয়ারচর উপজেলার বেতছড়ি ফরেস্ট টিলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত হয়েছেন আরও ১০ জন। এদের মধ্যে চারজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিরা খাগড়াছড়ি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। নিহত ও আহতরা সবাই খাগড়াছড়ি জেলার বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা। ওই ঘটনার পর নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে হামলাকারীদের গোলাগুলি হয় বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শী এবং আহতরা। রাঙামাটির পুলিশ সুপার আলমগীর কবির পাঁচজন নিহত হওয়ার বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।
এরা হলেন- ইউপিডিএফের (গণতান্ত্রিক) আহ্বায়ক তপন জ্যোতি চাকমা বর্মা (৪৮), জেএসএস সংস্কার সমর্থিত সেতু লাল চাকমা (৪০) ভাড়ায় চালিত মাইক্রোবাস চালক পানছড়ির বাসিন্দা মো. সজিব (৩৬), মহালছড়ি যুব সমিতির সুজন চাকমা (৩২) ও তুজিম চাকমা (২৯)।
গুলিবিদ্ধ জীবন্ত চাকমা (৩২) ও নিরু কুমার চাকমা (৪৫) সাংবাদিকদের বলেন, আমরা সবাই একটি মাইক্রোবাসে শক্তিমান চাকমার শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে যাচ্ছিলাম। মাইক্রোবাসটি খাগড়াছড়ি সীমানা অতিক্রম করে রাঙ্গামাটির নানিয়াচর উপজেলার বেতছড়ি পৌঁছামাত্র সন্ত্রাসীরা গুলি চালায়।
সন্ত্রাসীরা প্রথমে ড্রাইভারকে গুলি করে। এতে মাইক্রোবাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে যায়। এরপর সন্ত্রাসীরা এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে শুরু করে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঘটনাস্থলেই তিনজন নিহত হন। আহত হন ১০ জন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে সেনাবাহিনীর সদস্যরা পৌঁছালে সন্ত্রাসীরা তাদের লক্ষ্য করেও গুলি চালায়। দুপক্ষের মধ্যে বেশ কয়েক রাউন্ড গোলাগুলি চলে। গুলিবিদ্ধদের খাগড়াছড়ি হাসপাতালে আনা হলে মাইক্রোবাস চালক মো. সচিবসহ আরও দুজন মারা যান।
খাগড়াছড়ি হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার নয়নময় ত্রিপুরা জানান, আহতদের মধ্যে চারজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে।
পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এমএন লারমা) নেতারা ওই ঘটনার জন্য ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ) সভাপতি প্রসীত বিকাশ খীসা গ্রুপকে দায়ী করেছে।
বৃহস্পতিবার রাতে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ইউপিডিএফ সভাপতি প্রসিত বিকাশ খীসা, সাধারণ সম্পাদক রবি শংকর চাকমা, আনন্দ প্রকাশ চাকমা ও রঞ্জন মনি (আদি)কে হত্যাকাণ্ডের জন্য দায়ী করেছে দলটি। ইউপিডিএফ সদস্য লক্কোচ চাকমা এক সহকারী নিয়ে গুলি চালায় বলেও অভিযোগ করেছেন তারা। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছে ইউপিডিএফ।
গত বৃহস্পতিবার শক্তিমান চাকমা হত্যার পর থেকে এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছিল। তার ওপর গতকালের হত্যাকান্ডে এলাকাজুড়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ইউপিডিএফের (এম এন লারমা) মিডিয়া উইংয়ের দায়িত্বে থাকা লিটন চাকমা সাংবাদিকদের বলেন, ‘এই হত্যাকাণ্ডে জন্য ইউপিডিএফ দায়ী। শক্তিমান চাকমাকে হত্যার পর তপনজ্যোতি চাকমা বর্মাকে হত্যার মধ্য দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে একক সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চায় ইউপিডিএফ। এর জন্য তারা একের পর এক খুনের ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে।’
স্থানীয় সূত্র জানায়, এলাকায় একের পর এক হত্যাকাণ্ডে বাড়ছে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা। চলমান সংঘাতে দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর রক্তক্ষয়ী বিরোধের জের ধরে বাড়ছে খুন, গুম ও অপহরণ।
স্থানীয়দের অভিযোগ খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি ও বান্দরবান জেলায় পার্বত্য অঞ্চলে বেড়েছে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার। নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করেও থামানো যাচ্ছে না এসব অস্ত্রের ঝনঝনানি। অভিযোগ রয়েছে, শান্তিচুক্তি চলাকালীন শতভাগ অস্ত্র সরকারের কাছে জমা না পড়া এবং পার্বত্য অঞ্চল ঘেঁষা অরক্ষিত সীমান্তই অবৈধ অস্ত্রের প্রধান উৎস।
স্থানীয় অনেকের অভিযোগ, পাহাড়ের আঞ্চলিক সংগঠনগুলোর মধ্যে আধিপত্য বিস্তারের দ্বন্দ্বেই এই প্রাণঘাতী সংঘাত।
এ বিষয়ে নবসৃষ্ট ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) নামের একটি সংগঠনের সদস্য সচিব জেলেয়া চাকমা (তরু) বলেন, প্রসীত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউপিডিএফের কাছে গচ্ছিত রয়েছে প্রায় এক হাজার অবৈধ অস্ত্র। তবে এ বক্তব্যকে মিথ্যাচার ও পাগলের প্রলাপ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন প্রসীত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউপিডিএফ নেতা মাইকেল চাকমা।
এ বিষয়ে জনসংহতি সমিতি জেএসএসের (সন্তু লারমা) তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সজিব চাকমা বলেন, পার্বত্য চুক্তি যথাসময়ে যথাযথভাবে বাস্তবায়ন না হওয়ায় এমনটা হচ্ছে।
ইউপিডিএফ নেতা নিরন চাকমা বলেন, পাহাড়ের এ সমস্যা রাজনৈতিক। আর ভ্রাতৃঘাতী সংঘাতের জন্য সন্তু লারমা দায়ী। সে সরকারের এজেন্ট হিসেবে কাজ করছে। আগে সরকার তার নিজস্ব বাহিনী দিয়ে যা করত এখন সন্তু লারমাকে দিয়ে করানো হচ্ছে বলে দাবি।
খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার আলী আহমদ খান বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের ভারত ও মিয়ানমারের সীমান্তবর্তী হওয়ায় এসব অরক্ষিত পথে পাহাড়ে অস্ত্র ঢুকছে। ভারতের মিজোরাম এবং ত্রিপুরা রাজ্যের অধিকাংশ সীমান্ত অরক্ষিত। তা ছাড়া পার্বত্য অঞ্চলের সশস্ত্র সংগঠনগুলোর আধিপত্য বিস্তারের জন্য অবৈধ অস্ত্র ব্যবহার করছে। তবে পুলিশ এবং নিরাপত্তাবাহিনী অস্ত্র উদ্ধারে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে আসছে।’
জেএসএস এর তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সুধাকর ত্রিপুরা স্বাক্ষরিত ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ইউপিডিএফএর সভাপতি প্রসীত বিকাশ খীসা, সাধারণ সম্পাদক রবি শংকর চাকমা, আনন্দ প্রকাশ চাকমা ও রঞ্জন মনি (আদি) চাকমার সিদ্ধান্তে জনসংহতি সমিতির নেতাদের খুন করার নির্দেশ দেওয়া হয়। রঞ্জন মনি (আদি) চাকমা বর্তমানে ইউপিডিএফ এর কোম্পানি কমান্ডার। তিনি মোবাইল ফোনে বিভিন্ন ইউনিটে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করার জন্য নির্দেশ দেন। নির্দেশ পাওয়ার পর সাজেক ইউনিয়ন পরিষদের মাচালং দীপুপাড়া এলাকার লক্কোচ চাকমা, ডাক নাম বাবু চাকমা, দলীয় নাম অর্পণ চাকমা (কালেক্টর) একজন সহকারী নিয়ে মোটরসাইকেলে করে দুই ঝোলা কাঁধে রেখে অ্যাড. শক্তিমান চাকমাকে খুব কাছে ও সামনে থেকে গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়।’
বিবৃতিতে বলা হয়, ‘এই বর্বরোচিত ও ন্যক্কারজনক হত্যাকাণ্ডে জন্য সন্ত্রাসী ও হত্যাকারী সংগঠন ইউপিডিএফ সরাসরি দায়ী। পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির পক্ষ থেকে এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডে তীব্র নিন্দা, ঘৃণা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং এই হত্যাকাণ্ডে সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবি জানাই।’ ভবিষ্যতে যাতে এরকম নৃশংস ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে সেজন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি।
গত বৃহস্পতিবার সকালে রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এমএন লারমা) সহসভাপতি অ্যাডভোকেট শক্তিমান চাকমাকে দিনের আলোতে গুলি করে হত্যা করা হয়। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শক্তিমান চাকমা তার সরকারি বাসভবন থেকে স্থানীয় বাজারে যান। বাজার থেকে মোটরসাইকেলে করে উপজেলা পরিষদের সামনে আসেন। মোটরসাইকেল থেকে নামতেই গুলি করা হয় তাকে। ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি।
পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শক্তিমান চাকমার লাশ উদ্ধার করে। ওই ঘটনায় তার সহকারী রুপম চাকমা (৩৫) আহত হন। এ হত্যাকাণ্ডের জন্য ইউপিডিএফ এর শীর্ষ নেতাদের দায়ী করেছে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা)।
পার্বত্য চট্টগ্রামে আঞ্চলিক সংগঠন জেএসএসের (জন সংহতি সমিতি) সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে সম্পাদিত শান্তিচুক্তির প্রায় দুই দশক পেরিয়ে গেলেও অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার বন্ধ হয়নি। ২০১৭ সালে ১২ মাসে খাগড়াছড়িতেই অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় মামলা হয়েছে প্রায় ২৪টি। আর চলতি বছরের জানুয়ারিতেই তিনবার অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনা ঘটেছে।
নিরাপত্তার বাহিনী, বিজিবি কিংবা পুলিশের নেতৃত্বে বিভিন্ন সময় অস্ত্র উদ্ধারে ছোট-বড় অভিযান পরিচালনা করা হয়। উদ্ধার হওয়ার পর মামলা হলেও আসামিরা জামিনে আবার বেরিয়ে আসছে। তবে আটককৃতদের অধিকাংশই পাহাড়ের আঞ্চলিক দলগুলোর সদস্য। আবার অনেকে দল না করলেও দুর্গম পাহাড়ে চাঁদাবাজির জন্য এসব অবৈধ অস্ত্রই হচ্ছে প্রধান হাতিয়ার। ২০১৭ সালের নভেম্বর মাস পর্যন্ত অস্ত্র আইনে মামলা হয়েছে প্রায় ১৯টি। তবে অধিকাংশ আসামিই বর্তমানে জেলহাজতের বাইরে রয়েছে। আধিপত্য বিস্তারের নেশায় পার্বত্য চট্টগ্রামে এ সংগঠনের গ্রুপগুলো এখন পরস্পরবিরোধী হিংসা-হানাহানি, সন্ত্রাস-নৈরাজ্য অব্যাহত রেখেছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪