পরমাণু চুক্তির শর্ত পরিবর্তনের আলোচনায় যাবে না ইরান

যুগের খবর ডেস্ক: চরম সময়সীমা এগিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে ইরানের পরমাণু চুক্তি নিয়ে তেহরান-ওয়াশিংটনের মধ্যকার উত্তেজনা চরমে পৌঁছেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের দাবি অনুযায়ী, ২০১৫ সালে ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পাদিত পরমাণু চুক্তির শর্তে কোন রকম পরিবর্তন চাইলে তা মানবে না তেহরান। একইসঙ্গে এ নিয়ে কোন আলোচনায় ইরান বসবে না বলে বৃহস্পতিবার (৩ মে) স্পষ্ট জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। আগামী ১২ মে ট্রাম্প চুক্তিটি নতুন করে নবায়ন না করলে নিষেধাজ্ঞাগুলো আবার কার্যকর হবে।

এ পরমাণু চুক্তির ‘ত্রুটি’ সংশোধন করা না হলে তা বাতিল হয়ে যাবে- ট্রাম্পের এমন হুঙ্কারেও পিছু হঠছে না ইরান। আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার শর্তে ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচিতে লাগাম টানতে ২০১৫ সালে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, চীন, জার্মানি ও রাশিয়ার সঙ্গে ওই চুক্তি করেছিল তেহরান। এ বছরই জয়েন্ট কমপ্রিহেনসিভ প্ল্যান অফ অ্যাকশন (জেসিপিওএ)-এর আওতায় ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় যুক্তরাষ্ট্র। এ চুক্তির মেয়াদ ছিল ২০২৫ সাল পর্যন্ত। ট্রাম্প প্রশাসন শুরু থেকেই বারাক আমলে সই করা এ চুক্তির কঠোর বিরোধিতা করে আসছেন। এদিকে এ চুক্তির ত্রুটি সংশোধনের জন্য ইউরোপীয় মিত্রদেশগুলোকে ১২ মে পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দেয়ার পর ইরান বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিক এ প্রতিক্রিয়া জানাল। ইউটিউবে প্রকাশিত ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জারিফের এক ভিডিও বার্তাকে উদ্ধৃত করে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, সম্পাদিত চুক্তিতে থাকা পূর্ববর্তী শর্তগুলো অটুট না থাকলে ইরান তা মেনে নেবে না। এদিন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ জানিয়েছেন, সম্প্রতি চুক্তির ‘ভয়ঙ্কর ত্রুটিগুলো পুনর্বিবেচনা করতে’ ইউরোপীয় শক্তিগুলোর প্রতি আহ্বান জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ইউরোপিয়ান শক্তিগুলোকে ওই চুক্তির ‘ভয়ঙ্কর ত্রুটিগুলো পুনর্বিবেচনা করতে’ ওই তারিখ পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছেন তিনি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বলেছেন, ‘অতীতে যা নিয়ে আমরা একমত হয়েছিলাম, এখনও সেখানে অটল আছি। কেউ সেটা পরিবর্তন করতে চাইলে মেনে নেয়া হবে না।’ ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, চুক্তি ‘ঠিক’ করতে ট্রাম্পের সময়সীমা বেঁধে দেয়ার বিষয়টি গ্রহণযোগ্য নয়। তিনি বলেন, আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, ‘আমরা সরল বিশ্বাসে যেই চুক্তি করেছি সেখান থেকে সরে আসব না এবং আমাদের দেশের নিরাপত্তা ব্যাহত হয় এমন কিছু করব না।’ যুক্তরাষ্ট্র বারবার এই চুক্তি ভঙ্গ করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনির এক সিনিয়র পরামর্শকও বলেছেন, এই চুক্তি নিয়ে পুনরায় আলোচনা করার কিছু নেই। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলো এমনটা চাইলে আমরা চুক্তি থেকে সরেও আসতে পারি।

তবে ট্রাম্পের দফতর হোয়াইট হাউজ চায় ইউরোপীয় স্বাক্ষরকারীরা ইরানের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের বিষয়ে স্থায়ী অবরোধ আরোপ করুক। যদিও চুক্তি সইকারী অন্য দেশগুলো কোনভাবেই এতে সম্মত নয়। যুক্তরাষ্ট্রের একা এই চুক্তি বাতিলের এখতিয়ার নেই বলেও দাবি তাদের। তবে যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরে সমঝোতার শর্ত অনুযায়ী, প্রতি ৯০ দিন পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে নিশ্চিত করতে হয় যে, ইরান এ সমঝোতা মেনে চলছে। যদি তিনি বলেন, তেহরান সমঝোতা মানছে না তাহলে মার্কিন কংগ্রেস এ সমঝোতা বাতিল করতে বাধ্য। অন্যদিকে বৃহস্পতিবার ট্রাম্পকে আন্তর্জাতিক এ চুক্তি থেকে সরে না যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। তিনি বলেন, ইরানের সঙ্গে এই চুক্তি একটি কূটনৈতিক বিজয়। এটি ধরে রাখা প্রয়োজন। ভালো কোন বিকল্প না থাকলে এটা বাতিলের কথা চিন্তা না করার পরামর্শ তার।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪