নাগেশ্বরীতে জিপিএ-৫ পেয়েও অর্থাভাবে বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা মেধাবী ছাত্রী রিয়া’র লেখা পড়া

হাফিজুর রহমান হৃদয়, নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে অর্থাভাবে বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা মেধাবী ছাত্রী রোমানা আক্তার রিয়া’র লেখা-পড়া। এবারের ২০১৮সালের অনুষ্ঠিতব্য এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে সে জিপিএ-৫ পেলেও মনের ভিতরে খুশি নেই এক বিন্দু। কারণ গরিব বাবার সংসারে হয়তো এ পর্যন্তই ইতি টানতে হবে লেখাপড়ায়।  এতোদিনের লেখাপড়ায় খরচ কিছুটা কম ছিলো। তাতেই বহু কষ্টে চালাতে হয়েছে পড়াশোনা। এমনও দিন ছিলো এক বেলা খেলেও জোটেনি আর এক বেলা খাবারের। না খেয়েই স্কুল করতে হয়েছে। তবুুও থেমে থাকেনি সে। যেভাবেই হোক ভালো রেজাল্ট করতেই হবে। তার স্বপ্ন ভালো কলেজে ভর্তি হয়ে উচ্চ শিক্ষা নিয়ে সরকারি কোনো উচ্চ পদস্থ কর্র্মকর্তা হবে। গরিব বাবার কষ্টের রোজগারের সম্মান রাখতে হবে। একদিন বাবা মায়ের দুঃখ ঘোচাবে। এমন প্রচেষ্টার ইচ্ছা শক্তিতে যখনই সফলতার চাবিটা হাতের মুঠোর এসে ধরা দিলো ঠিক তখনই সব স্বপ্ন তার গুড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রিয়ার।
রিয়া উপজেলার রায়গঞ্জ ইউনিয়নের পশ্চিম সাপখাওয়া এলাকার রফিকুল ইসলামের মেয়ে। বাবা পেশায় একজন রেডিও মেকানিক। কালের বিবর্তনে যেমন হারিয়ে যেতে বসেছে রেডিও তেমনই তার আয় রোজগারও কমে গেছে আগের তুলনায় বহুগুনে। তাই সে পেশা ছেড়ে এখন ব্যাপারী হাট বাজারে দিয়েছেন একটি গান ডাউনলোডের ছোট্ট দোকান। এ দোকান থেকে যা আয় হয় তা দিয়ে সংসারের খরচ এবং অসুস্থ বাবা মায়ের চিকিৎসার খরচ যোগাতে হিমশিম খাচ্ছে। এখন আর্থিকভাবে খুবই নাজুক অবস্থা তার। এতে আবার মেয়ে রিয়া এবং এক ছেলের লেখাপড়া। এই চিন্তায় মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ার অবস্থা বাবা রফিকুলের।
রিয়া পিএসসিতে ভালো ফলাফলের পর ভর্তি হয় নাগেশ^রী আদর্শ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে। এ বিদ্যালয় থেকেই জেএসসিসহ প্রতিটি ক্লাসে বেশ সন্তোষজনক ফলাফল করে এবং এবারের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ অর্জন করে। কিন্তু এখন তার পড়াশোনা বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে দুঃখ প্রকাশ করে রিয়া। জল ছলছল চোখে রোমানা আক্তার রিয়া জানায়, এত কষ্ট করে লেখাপড়া করে ভালো ফলাফল করেই বা কী লাভ? পড়াশোনার এত খরচ যোগানোর মতো সাধ্য নেই বাবার। ভবিষ্যতে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্ন থাকলেও গরিবের স্বপ্ন দেখাও পাপ। বলতেই দুফোটা চোখের জলে ভিজে যায় গাল। মা লাকী বেগম বলেন, রিয়ার লেখাড়ার নেশা খুব। আমাদের তো এত সাধ্য নেই তাকে পড়ানোর। বাবা রফিকুল ইসলাম বলেন, মেয়ের লেখাপড়া করার খুবই ইচ্ছা। সে আর দশজনের মতো অনেক বড় হতে চায়। কিন্তু এত টাকা খরচ কোত্থেকে যোগাব সে চিন্তায় ঘুম আসে না। এ ব্যাপারে রায়গঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আসম আব্দুল্যাহ আল ওয়ালিদ মাসুম বলেন, আমি খোঁজ নিয়ে দেখেছি রিয়া সে মেধাবী ছাত্রী। আমি পরিষদের পক্ষ থেকে সহযোগিতা করব। এছাড়াও কোনো সরকারি সহযোগিতা এবং অন্য কোনো পৃষ্ঠপোষকতা পেলে সে অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪