**   শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে আফগানদের হারালো বাংলাদেশ **   সরকারি হাইস্কুলে পদোন্নতি: সিনিয়র শিক্ষক হচ্ছেন ৫৫০০ জন **   উলিপুরে বিজয়ের উল্লাসে বিজয় মঞ্চের কাজ শুরু **   কুড়িগ্রামে ‘অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ শীর্ষক উন্নয়ন কনসার্ট অনুষ্ঠিত **   উলিপুরে বিদ্যূৎস্পৃষ্টে অটোচালক নিহত **   আওয়ামী লীগকে ছাড়া জাতীয় ঐক্য হতে পারে না: কাদের **   ১০ জেলায় নতুন ডিসি **   দেবী রূপে অপু বিশ্বাস **   জাতিসংঘে রোহিঙ্গা নিয়ে বিশ্বের সমর্থন চাইবেন প্রধানমন্ত্রী  বৈঠক হতে পারে ট্রাম্পের সঙ্গে **   ভূরুঙ্গামারীতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মনোনয়নের দাবীতে পথ সভা, র‌্যালি অনুষ্ঠিত

অনুমোদন পাচ্ছে নতুন ২০০ স্কুল-কলেজ

যুগের খবর ডেস্ক: রাজনৈতিক বিবেচনায় নতুন করে আরও অন্তত ২০০ স্কুল ও কলেজ পাঠদানের অনুমতি দিতে যাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রয়োজন না থাকলেও নির্বাচনী বছর হওয়ায় প্রভাবশালী মন্ত্রী ও এমপিদের চাহিদা অনুযায়ী (ডিও লেটার) খুশি করতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। অতিগোপনে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের বেসরকারি মাধ্যমিক শাখা তালিকা তৈরির কাজ প্রায় চূড়ান্ত করেছে। শিক্ষামন্ত্রীর অনুমোদন মিললেই চলতি সপ্তাহের যেকোনো দিন চিঠি দিয়ে সংশ্লিষ্টদের জানিয়ে দেওয়া হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্ভরযোগ্য সূত্র এসব তথ্য জানিয়েছে।
মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানায়, গত ৩১ ডিসেম্বর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অনুমতি, একাডেমিক স্বীকৃতি, অতিরিক্ত শ্রেণি, নতুন বিষয় ও বিভাগ খোলা সংক্রান্ত কমিটির সভা হয়। তাতে ৪৯৬টি স্কুল ও কলেজ পাঠদানের অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। সরকারি আদেশ জারির আগেই বিগত দিনে একাডেমিক অনুমতিপ্রাপ্ত প্রায় ১০ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির দাবিতে আন্দোলনে নামেন শিক্ষকরা। হাজার হাজার শিক্ষক শীতের মধ্যে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে টানা অনশনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন। শিক্ষকদের আন্দোলনে বিব্রত হয় সরকার। শেষ পর্যন্ত সরকারের আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিত করে শিক্ষকরা বাড়ি ফিরে যান। ওই সময়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মৌখিকভাবে নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনুমোদন বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে।
তবে থেমে থাকেননি মন্ত্রী, এমপি, আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা ও আমলারা। তারা নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনুমোদন দিতে অব্যাহত চাপ দিতে থাকেন শিক্ষামন্ত্রীকে। এ নিয়ে তারা প্রধানমন্ত্রীর কাছে শিক্ষামন্ত্রীর বিরুদ্ধে নালিশও করেছেন বলে সূত্র জানিয়েছে।
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মন্ত্রী ও এমপিরা বিভিন্ন সময়ে মন্ত্রণালয়ে এসে দাবি করেছেন, তারা নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকার স্কুল-কলেজ অনুমোদন করে দেওয়ার প্রতিশ্রæতি দিয়েছেন। অনুমতি না দিলে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এলাকার মানুষের কাছে ভোট চাইতে যেতে পারবেন না। প্রভাবশালীদের তদবিরে ও রাজনৈতিক বিবেচনায় শেষ পর্যন্ত অনুমোদন দিতে বাধ্য করা হয়েছে শিক্ষামন্ত্রীকে।
এ ব্যাপারে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আফসারুল আমিন বলেন, নির্বাচনী বছর। এলাকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনুমোদনের একটা চাপ আমাদের ওপর আছে। পাঠদানের অনুমতি আর এমপিওভুক্তি এক না। অনুমতি দিলেই যে এমপিও দিতে হবে তারও বাধ্যবাধকতা নেই। তাই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনুমোদন দিতেই পারে মন্ত্রণালয়।
মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কমিটি ৪৯৬টি স্কুল ও কলেজ পাঠদানের অনুমতি দেওয়ার সুপারিশ করেছিল। ওই তালিকা থেকে শতভাগ শর্ত পূরণ করা অন্তত ২০০ স্কুল ও কলেজের পাঠদানের স্বীকৃতি দেওয়ার তালিকা প্রায় চ‚ড়ান্ত। গত বৃহস্পতিবার দিনভর একজন যুগ্ম সচিবের রুম আটকিয়ে কয়েকজন কর্মকর্তা মিলে তালিকা তৈরির কাজ করেছেন। আজ ররিবার তালিকাটি চ‚ড়ান্ত করা হবে। এরপর অনুমোদন করতে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের কাছে জমা দেওয়া হবে। তিনি অনুমতি দিলেই সংশ্লিষ্ট শিক্ষাবোর্ড ও প্রতিষ্ঠান প্রধানদের চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে। বিগত দিনে স্কুল-কলেজের অনুমতির চিঠি মন্ত্রালয়ের ওয়েবসাইটে দেওয়া হলেও এবার তা দেওয়া হবে না। কৌশলগত কারণে নীতিগত এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। কারণ যাদের স্কুল-কলেজ বাদ পড়বে তারা মন্ত্রণালয়কে চাপ দেবে।
একজন যুগ্ম সচিব নিজের পরিচয় গোপন রাখার শর্তে আজকালের খবরকে বলেন, পাঠদানের স্বীকৃতির সঙ্গে সরকারের আর্থিক কোনো সম্পর্ক নেই। ভবিষ্যতে এমপিওভুক্তির দাবি করবে না, এ শর্তে শতাধিক প্রতিষ্ঠানকে পাঠদানের অনুমতি দেওয়া হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, একাডেমিক স্বীকৃতি ও নতুন বিষয় খোলার অনুমোদনের সঙ্গে আর্থিক বিষয় জড়িত থাকায় আপাতত অনুমোদন দেওয়া হবে না।
১৯৯৭ সালের বেসরকারি উদ্যোগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন ও স্বীকৃতি নীতিমালা অনুযায়ী, প্রতি আট হাজার জনসংখ্যার জন্য একটি নিম্ন মাধ্যমিক স্তরের (৬ষ্ঠ- ৮ম), ১০ হাজার জনসংখ্যার জন্য একটি মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (স্কুল বা মাদ্রাসা) এবং ৭৫ হাজার জনসংখ্যার জন্য উচ্চমাধ্যমিক স্তরের (কলেজ-আলিম মাদ্রাসা) প্রতিষ্ঠান অনুমোদন দেওয়ার কথা। দুই প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দূরত্বের শর্ত অনুযায়ী নিম্ন মাধ্যমিকের ক্ষেত্রে পৌর এলাকায় এক কিলোমিটার ও মফস্বল এলাকায় ছয় কিলোমিটার। মাধ্যমিকের ক্ষেত্রে মফস্বল এলাকায় চার কিলোমিটার। উচ্চমাধ্যমিকের ক্ষেত্রে পৌর এলাকায় দুই কিলোমিটার আর মফস্বল এলাকায় ছয় কিলোমিটার দূরত্ব থাকতে হবে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, পুরনো এই নীতিমালা অনুযায়ী প্রাপ্যতা না থাকা সত্তে¡ও সারা দেশে অসংখ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। তারই একটি পঞ্চগড়ের দেবিগঞ্জ উপজেলার হাজির হাট নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয়। মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানায়, পঞ্চগড়-২ আসনের এমপি নুরুল ইসলাম সুজন হাজির হাট নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয় পাঠদানের অনুমতির জন্য সম্প্রতি মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইনকে চাপ দেন। অপরদিকে স্থানীয় প্রশাসনের এক কর্মকর্তা সচিবকে ফোন করে বলেছেন, শেখ রাসেল নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয় ও হাজির হাট নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে দূরত্ব মাত্র একটি রাস্তা। হাজিরহাট স্কুলের অনুমোদন দিলে উভয় প্রতিষ্ঠানই শিক্ষার্থী সংকটে পড়বে। মন্ত্রণালয় বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে আটকে দিয়েছে।
অপরদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের- শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মানচিত্র অনুযায়ী রাজশাহী বিভাগে নতুন কোনো কলেজের প্রয়োজন না থাকলেও তিনটি কলেজ অনুমোদনের তালিকায় রয়েছে। কয়েকজন প্রভাবশালী মন্ত্রী ও এমপির চাপে তালিকাভুক্ত করতে বাধ্য করা হয়েছে বলে মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানিয়েছে।
শিক্ষাবোর্ডের কয়েকজন চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, বিগত দিনে রাজনৈতিক বিবেচনায় অনুমোদন দেওয়া স্কুল-কলেজের বেশিরভাগই মানসম্পন্ন শিক্ষা দিতে পারছে না। পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল ও ভর্তির তথ্যে সে চিত্র স্পষ্ট। গত নয় বছরের মধ্যে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় পাসের হার সর্বনিম্ন। এ বছরও ১০৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষার্থী পাস করেনি। গত বছর এ ধরনের প্রতিষ্ঠান ছিল ৯৩টি। গত বছরের চেয়ে শতভাগ ফেল করা ১৬টি প্রতিষ্ঠান বেড়েছে। মন্ত্রণালয়ের শর্তানুযায়ী, কাম্যসংখ্যক শিক্ষার্থী নেই, এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কয়েকশ।
অনলাইনে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হওয়ার পরে বেরিয়ে আসছে রাজনৈতিক বিবেচনায় অনুমোদন দেওয়া কলেজগুলোর চিত্র। নতুন কলেজে শিক্ষার পরিবেশ না থাকায় শিক্ষার্থীরাও ভর্তি হতে চাইছে না। কলেজগুলো তাই শিক্ষার্থী সংকটে ধুঁকছে। একাদশ শ্রেণিতে গত বছর দেড় লাখ আসন খালি ছিল। এবারও অন্তত চার লাখ আসন খালি থাকবে। গত বছর এইচএসসি পরীক্ষায় ২০টি কলেজের কোনো শিক্ষার্থীই পাস করেনি। ২০১৬ সালে শিক্ষার্থী ভর্তি না হওয়ায় বোর্ডগুলো ১৪৩টি কলেজের পাঠদান বন্ধ করেছে। গত বছর ১০৯টি কলেজ শিক্ষার্থীশূন্য ছিল। তারপরও নতুন স্কুল-কলেজ অনুমোদন দেওয়া হচ্ছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪