**   বিশ্বভারতী সফর: রবীন্দ্র স্মৃতিময় উদয়নে থাকবেন শেখ হাসিনা **   এই সময়ের বুবলী **   টেক্সাসে স্কুলে হামলাকারী ১৭ বছরের কিশোর, নিহত বেড়ে ১০ **   বিশ্বকাপ উপলক্ষে মীরবাজারের ছাড় **   সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় দুর্যোগ বিষয়ক মহড়া অনুষ্ঠিত **   বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে অনন্য নজির স্থাপন করেছে বাংলাদেশ : স্পিকার **   ‘অসহায় মানুষের পাশে থাকা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব’ **   শেখ হাসিনাই দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করেছেন: খালিদ **   কর্নাটকে হেরে গেল বিজেপি, সোমবার শপথ কুমারস্বামীর **   চিলমারীর ৩ জয়িতার সাফল্যের গল্প: শত বাঁধা ডিঙ্গিয়ে আজ প্রতিষ্ঠিত

তালুকদার খালেকের বিশাল জয়

1526398120
খুলনা প্রতিনিধি: খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। ফলাফলে নৌকা প্রতীক নিয়ে তালুকদার আবদুল খালেক পেয়েছেন এক লাখ ৭৬ হাজার ৯০২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নজরুল ইসলাম মঞ্জু ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন এক লাখ ৮ হাজার ৯৫৬ ভোট।
২০০৮ সাল থেকে পাঁচ বছর মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছিলেন তালুকদার খালেক। এরপর ২০১৩ সালে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মনিরুজ্জামান মনির কাছে হেরে যান তিনি। এবার আবার আওয়ামী লীগ ভরসা রাখে তালুকদার খালেকের ওপরই।
মঙ্গলবার বিকাল থেকে আজকালের খবরের বিভিন্ন উৎস থেকে কেন্দ্রভিত্তিক ভোটের প্রাপ্ত ফলাফল ও রিটার্নিং কর্মকর্তা ঘোষিত ফলাফল থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে। সোনাডাঙ্গা বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণকক্ষ থেকে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। কিছু সময় পরপর এখানে বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে ফলাফল আসে।
২৮৯টি কেন্দ্রের মধ্যে তিনটি কেন্দ্রের ভোট অনিয়মের কারণে স্থগিত হয়েছে। সকাল ৮টা থেকে খুলনা মহানগরীর ভোট কেন্দ্রগুলোয় একযোগে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণ শেষ করার পরপরই ভোট গণনা শুরু হয়।
নির্বাচন নিয়ে বিএনপি অভিযোগ করেছে, তাদের এজেন্টদের বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। সমর্থকদের ভয়ভীতি দেখানোর পাশাপাশি মারধরও করা হয়েছে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ বলেছে, পরাজয় অবশ্যম্ভাবী জেনে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই বিএনপি ‘মিথ্যা অভিযোগ’ করছে।
ভোটের সার্বিক পরিবেশ নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশনার শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেছেন, দুয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সুষ্ঠুভাবেই ভোট হয়েছে। এছাড়া ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেছেন, চমৎকার ও সুন্দর এবং উৎসবমুখর পরিবেশে খুলনায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
নির্বাচনে মেয়র পদে পাঁচজন প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন পাঁচজন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক নৌকা, বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জু ধানের শীষ, ইসলামী আন্দোলনের মুজ্জাম্মিল হক হাত পাখা, সিপিবির মিজানুর রহমান বাবু কাস্তে ও জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী এস এম শফিকুর রহমান লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। নির্বাচনে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৪৮ জন ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৩৫ জনসহ মোট ১৯১ জন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করেন।
৪৬ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এ নগরীতে মোট ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ২৮৯টি ও ভোটকক্ষ এক হাজার ৫৬১টি। নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৯৩ হাজার ৯৩ জন, যার মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪৮ হাজার ৯৮৬ জন ও নারী ভোটার ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন।
দিনভর কয়েকটি কেন্দ্রে দখল, অনিয়মের অভিযোগ, ব্যালট পেপারে জোরপূর্বক সিল মারার ঘটনা ঘটেছে। আবার সুষ্ঠু ভোটও হয়েছে অনেক কেন্দ্রে। খুলনা আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বলেন, ভোট ভালো হয়েছে। অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী বলেছেন, অন্তত ৪০টি কেন্দ্রে অনিয়মের ঘটনা ঘটেছে। জাল ভোটের অভিযোগে একটি কেন্দ্রে ভোট বাতিল, দুটি কেন্দ্র এবং এবং একটি বুথে ভোট স্থগিত করা হয়েছে। এর বাইরে একটি কেন্দ্রের অদূরে বিএনপির নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করা হয়েছে।
২৪নং ওয়ার্ডের সরকারি ইকবাল নগর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট বন্ধ করে দেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা আনিসুর রহমান। নৌকা প্রতীকে সিল মারার ঘটনায় এছাড়া রূপসা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও রূপসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রেও ভোট স্থগিত হয়। জাল ভোট দেওয়ার অভিযোগে চারটি কেন্দ্রের ভোট স্থগিত রাখা হয়েছে। এর মধ্যে দুপুরে ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের লবণচোরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নৌকা মার্কায় সিল মারার অভিযোগে কেন্দ্রটিতে ভোট স্থগিত রাখা হয়েছে।
২২ নম্বর ওয়ার্ডের ফাতিমা উচ্চ বিদ্যালয়ে একটি বুথে স্থগিত করা হয় ভোট। সেখানেও নৌকা মার্কায় সিল মারা হচ্ছিল ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের হাজী আব্দুল মালেক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কলেজ কেন্দ্রেও জাল ভোট দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।
কলেজিয়াট স্কুলে জাল ভোট দেওয়ার ঘটনার ছবি তুলতে গেলে সাংবাদিকদের প্রবেশ করতে দেওয়া হয় না। অভিযোগ উঠেছে ২৫নং ওয়ার্ডের এতিমখানা মোড়ের নূরানি মাদ্রাসায় ভোটারদের হাতে কালি দিয়ে নিজেরাই ভোট দিয়েছে সরকার দলীয় প্রার্থীর সমর্থকরা। রিটার্নিং কর্মকর্তা ইউনুচ আলী বলেন, কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া ভোট সুষ্ঠু হয়েছে।
ভোট চলাকালে দুপুরে আওয়ামী লীগের ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ভরাডুবির আশঙ্কায় খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচন নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচারের আশ্রয় নিয়েছে। এসময় তিনি বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদকে উদ্দেশ্য করে বলেন, নয়া পল্টনে রিজভী সাহেব আছেন, সেখান বসে সকাল থেকেই তিনি অবাধ শান্তিপূর্ণ নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে ভোটগ্রহণের ব্যাপারে বিভিন্ন প্রশ্ন তুলছেন। ভরাডুবির আশঙ্কা দেখে মিথ্যাচারের আশ্রয় নিয়েছে বিএনপি।
তিনি বলেন, খুলনায় ভোটাররা শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট প্রয়োগ করছেন। গণমাধ্যমই তার বড় সাক্ষী। সর্বশেষ পরিস্থিতি অনুযায়ী আমরা আশাবাদী। দিন শেষে বিপুল ভোটে নৌকার প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেককে নির্বাচিত করবেন খুলনাবাসী।
ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।
খুলনার নির্বাচন চমৎকার ও সুন্দর হয়েছে: এদিকে খুলনা সিটির ভোটকে ‘চমৎকার’ ও ‘সুন্দর’ হিসেবে আখ্যায়িত করে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেছেন, যে ভোট হয়েছে তাতে সন্তষ্ট নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তিনটি কেন্দ্রে অনিয়ম-জালভোট ছাড়া বাকি ২৮৬টি কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট হয়েছে বলেও দাবি করেছেন তিনি। গতকাল মঙ্গলবার বিকালে নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ইসি সচিব এসব কথা বলেন। এর আগে তিনি প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্য কমিশনারদের সঙ্গে কথা বলেন।
জাতীয় নির্বাচনের আগে খুলনার এমন ভোট জনমনে আস্থা কিংবা শঙ্কা বাড়বে কি না জানতে চাইলে ইসি সচিব বলেন, ‘এই মুহূর্তে এ নিয়ে মন্তব্য করব না। সবার নজর খুলনার দিকে। এটা একটা স্থানীয় নির্বাচন। তাতে যতটুকু হয়েছে তাতে নির্বাচন কমিশন সন্তুষ্ট।’
ভোট শেষ হওয়ার আধ ঘণ্টার মধ্যে ইভিএমের দুই কেন্দ্রে ফল ঘোষণা সম্ভব হয়েছে। বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে জালভোট, ভাঙচুর ও নানা অভিযোগ থাকলেও স্থগিত তিন কেন্দ্র ছাড়া অন্য কেন্দ্রে তা হয়নি বলে দাবি করেন তিনি।
এর আগে দুপুরের দিকে খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে বিএনপির অভিযোগ সুনির্দিষ্ট নয় বলে দাবি করেন নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী। একইসঙ্গে তিনি দুয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ চলছে বলে দাবি করেন।
আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নির্বাচন মনিটরিং সেল পরিদর্শন শেষে দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।
কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে বিএনপির প্রার্থীর অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বিএনপির অভিযোগ সুনির্দিষ্ট নয়। যাদের বের করে দেওয়া হয়েছে, তারা এজেন্ট কিনা সেটাও দেখার বিষয়। পরিচয়পত্র না থাকলে তাদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হয়।’
তবে খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কিছু কেন্দ্রে ঝামেলা হলেও সার্বিকভাবে ভোটকে সুষ্ঠু বলেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ইউনুচ আলী। ভোট গ্রহণ শেষে তিনি সাংবাদিকদের জানান, ২৮৯টি কেন্দ্রের মধ্যে তিনটিতে ভোট স্থগিত রয়েছে। এর বাইরে তেমন কিছুই হয়নি। তবে কিছু জায়গায় ভোট কেন্দ্রের বাইরে ঝামেলা হয়েছে। সেগুলো আমরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাধ্যমে সুরাহা করেছি।’
কত শতাংশে ভোটার ভোট দিয়েছেন, সে হিসাব এখনও আসেনি রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে। তবে তিনি ব্যক্তিগতভাবে ধারণা করছেন, এটা ৫০ থেকে ৬০ শতাংশ হতে পারে।’
বিএনপির অভিযোগ সম্পর্কে রিটার্নিং কর্মকর্তা জানান, ‘বিএনপির অভিযোগ সুনির্দিষ্ট ছিল না। তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য খোঁজখবর নিয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায়নি।’
এদিকে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনার মধ্য দিয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে খুলনা সিটি নির্বাচনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এরপর চলে ভোট গণনা ও আনুষ্ঠানিক ফল প্রকাশ।
এই নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সবধরনের আয়োজন সম্পন্ন করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বিঘেœ ভোট উৎসব শেষ করতে প্রশাসনের প্রতি কঠোর নির্দেশ ছিল ইসির। তবুও বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটেছে। ব্যালট বই ছিনতাই করে সিল মেরে বাক্সে ভরানোর অভিযোগে তিনটি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। এসব কেন্দ্র হচ্ছে ইকবালনগর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় (২০২ নম্বর কেন্দ্র), লবণচরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (২৭৭ কেন্দ্র) ও  মহানগরীর ৩১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয়ের (২৭৮ নম্বর কেন্দ্র)।
এছাড়া বিভিন্ন কেন্দ্রে জালভোটের অভিযোগ ও কয়েকটি কেন্দ্রের এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ করেছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থীর পক্ষ থেকে। তবে রিটার্নিং কর্মকর্তা এসব অভিযোগের ভিত্তি পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত এই নির্বাচনে মেয়র পদে পাঁচজন অংশ নিলেও মূলত নৌকা, আর ধানের শীষের মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছিল।
স্থানীয় সরকার নির্বাচন হলেও এই ভোটকে কেন্দ্র করে সারাদেশেই আগ্রহ ছিল সবার কাছে। সামনে জাতীয় নির্বাচন হওয়ায় এই নির্বাচন আলাদা গুরুত্ব বহন করছে।
ভোটগ্রহণ শুরুর পর থেকেই পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে সকাল থেকেই প্রতিটি কেন্দ্রে ভিড় করতে থাকে ভোটাররা। প্রতিটি লাইনে ছিল ভোটারদের দীর্ঘ সারি। পুরুষদের পাশাপাশি নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল উল্লেখযোগ্য। তারা সুশৃঙ্খলভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেন। এছাড়া নতুন ভোটারদের উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মতো।
ভোট শুরুর পরই সকালে সাড়ে ৮টার দিকে ২২ নম্বর ওয়ার্ডের পাইওনিয়ার মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন আওয়ামী লীগের তালুকদার আবদুল খালেক। এ সময় তিনি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ‘খুলনাবাসী উন্নয়নের পক্ষে ভোট দেবে। ভোটাররা যেন তাদের ইচ্ছামতো ভোট দিতে পারে, সেটা নিশ্চিত করতে নেতাকর্মীদের ব্রিফিং দেওয়া হয়েছে।’
বিএনপির প্রার্থী নজুরুল ইসলাম মঞ্জু ভোট দেন ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের রহিমা প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে। ভোট দেওয়ার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এ সময় মঞ্জু ৩০টি কেন্দ্র থেকে ধানের শীষের এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ করেন। তিনি আরও বলেন, সরকারদলীয় সমর্থকদের কারণে প্রতিটি কেন্দ্রেই ভোটাররা শঙ্কায় রয়েছে। ভোট ডাকাতি হলে ফলাফল মেনে নেওয়া হবে না বলেও হুঁশিয়ারি জানান তিনি।
নির্বাচনকে কেন্দ্র করে খুলনায় কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল। ১৩ মে থেকে খুলনা নগরীতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন শুরু হয়। তারা ১৬ মে বুধবার পর্যন্ত মাঠে থাকবে। পুলিশ, বিজিবি, র্যাব, আনসার-ভিডিপি, ব্যাটালিয়ন আনসারসহ নিয়মিত বাহিনীর প্রায় সাড়ে নয় হাজার সদস্য ভোটের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ছিল। প্রতিটি সাধারণ কেন্দ্রে ২২ জন এবং গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ২৪ জন করে নিরাপত্তাকর্মী মোতায়েন ছিল। নির্বাচনী এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য প্রতি ওয়ার্ডে পুলিশের মোবাইল ফোর্স এবং প্রতি তিন ওয়ার্ডের জন্য একটি স্ট্রাইকিং ফোর্স দায়িত্ব পালন করে। প্রতিটি ওয়ার্ডে র্যাবের একটি করে দল টহল দেয়। নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এর সঙ্গে ১৬ প্লাটুন বিজিবিও মোতায়েন ছিল। পুরো নির্বাচনী ব্যবস্থা তদারকি করতে ৬০ জন নির্বাহী এবং ১০ জন বিচারিক হাকিম নিয়োগ করা হয়।
খুলনা সিটিতে এবার মোট ভোটার সংখ্যা চার লাখ ৯৩ হাজার ৯৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার দুই লাখ ৪৮ হাজার ৯৮৬ জন আর নারী ভোটার দুই লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন। নির্বাচনে ৩১টি সাধারণ ওয়ার্ড, ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মোট ভোটকেন্দ্র ২৮৯টি। মোট ভোটকক্ষ এক হাজার ৫৬১টি। এর মধ্যে দুটি কেন্দ্রের ১০টি ভোটকক্ষে ভোট নেওয়া হয় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএমে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪