**   লাইন্সেস, পরিবেশ সনদ ছাড়াই ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারের হাট ।। উলিপুরে প্রতারিত হচ্ছে রোগিরা **   এবার ‘রেস ফোর’ নিয়ে আসছেন সালমান! **   জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে বেরিয়ে গেল যুক্তরাষ্ট্র **   আন্দোলন নয়, নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বিএনপির প্রতি আহ্বান নাসিমের **   শেষ ষোলোয় রাশিয়া, বিদায় মিসরের **   সিটি করপোরেশন নির্বাচন সবার দৃষ্টি গাজীপুরে **   দেহ ব্যবসায় জড়িত সাদিয়া! **   প্রকল্প কাজে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ ॥ ব্রহ্মপুত্রের ডানতীর রক্ষা প্রকল্পে ফের ধস ॥ একদিনে ১২ পরিবারের ১৭ঘর নদীতে **   ১০ জনের কলম্বিয়াকে হারালো জাপান **   উলিপুরে সহিংসতা না করার শপথ করলেন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ

চিলমারীর ৩ জয়িতার সাফল্যের গল্প: শত বাঁধা ডিঙ্গিয়ে আজ প্রতিষ্ঠিত

Picture Joyeta

এস, এম নুআস: মনিকা আহমেদ ওরফে মনিকা পারভীন। পেশায় একজন লেখিকা। জীবনে অনেক বাঁধা ডিঙ্গিয়ে আজ তিনি প্রতিষ্ঠিত। ১৫ জুন ১৯৬৩ সালে কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের সরদার পাড়া গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। বাবা মৃত আব্দুল হাকিম সরদার। মা নুর জাহান বেগম। সম্প্রতি তিনি কলকাতাসহ নিজ জেলা ও উপজেলায় কৃতি সন্তান এবং শ্রেষ্ঠ জয়িতা নির্বাচিত হয়ে সংবর্ধিত হয়েছেন।
পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে তিনি  সবার বড়। কোনরকম প্রাইভেট টিচার ছাড়াই পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণীতে বৃত্তি পেয়েছিলেন। স্বপ্ন ছিল বড় হয়ে ডাক্তার হবেন। অভিভাবকদের একগুয়েমির কারণে এবং মনিকার প্রবল আপত্তি থাকা স্বত্তেও মাত্র ১৫ বছর বয়সে তাকে সংসার জীবন শুরু করতে হয়েছিল। ১৭ বছরের বড় প্রকৌশলী স্বামী সম্পর্কে তার চাচাত ভাই ছিলেন। এসএসসি পরীক্ষার মাত্র ২ মাস আগে সব অভিভাবকরা মিলে বিয়ে দিয়ে দেয়। ১৯৭৯ সালে মানবিক শাখায় এসএসসি পাশ করে উলিপুর ডিগ্রী কলেজে আবার বিজ্ঞান শাখায় ভর্তি হয় মনিকা। উলিপুরে সে তার বড় মামার বাড়িতে থেকে পড়াশোনা করেছে। ১৯৮২ সনে এইচএসসি পাশ করল মনিকা। সেই বছর সরকার একটা সুযোগ দিয়েছিল যে মানবিক বিভাগ ও বিজ্ঞান বিভাগ মিলে যারা ভাল মার্কস পেয়েছে তারা মেডিকেলে ভর্তি হবার সুযোগ পাবে। কারণ ঐ বছর মাত্র ২০% ছাত্র ছাত্রী রাজশাহী বিভাগে পাশ করেছিল। এত বড় একটা সুযোগ থাকা স্বত্ত্বেও স্বামীর অসহযোগীতার কারণে দ্বিতীয়বারও স্বপ্ন পুরণ হল না তার। তখন বাধ্য হয়ে অনার্সে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেন। রংপুর কারমাইকেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে একই সাথে ৩টা বিষয়ে স্নাতক পড়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। প্রাণীবিদ্যা, উদ্ভিদবিদ্যা ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে। প্রথমে প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হলেও প্রথম সন্তানের জন্ম হবার কারণে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে স্নাতকে (সম্মাান) শ্রেণীতে ভর্তি হতে হয় তাকে। চোখে তখন নুতন স্বপ্ন, বিসিএস দিয়ে প্রশাসনে চাকুরী করবেন। অনার্সে তিনি আপার ক্লাস পেয়ে স্কলারশিপ পেয়েছিলেন। ১৯৯১ সালে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে মাষ্টার্স করার পর বিসিএস পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের জন্য আবেদন করেছিলেন। ৩ বার এডমিট কার্ড এসেছিল কিন্তু আবার স্বামীর অসহযোগিতার কারণে একবারও পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারেননি। তৃতীয়বার এবং শেষবারের মত মনিকার নিজে কিছু করার স্বপ্ন ভেঙ্গে চৌচির হয়ে যায়। ইতোমধ্যে তিনি দ্বিতীয় সন্তানের জননী হন।  মনিকা আহমেদের স্বামী স্ব-পরিবারে বিদেশে চলে যান। বিভিন্ন দেশের মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পদে মনিকা অহমেদের স্বামী চাকুরি করতেন। বিলাসী এক জীবন ছেড়ে শুধুমাত্র সন্তানদের মঙ্গল কামনায় ও তাদেরকে মানুষ করার উদ্দেশ্যে ওদেরকে সাথে করে মনিকা দেশে ফিরে এসেছিল।
দেশে ফিরে শুরু হল নতুন যুদ্ধ! সন্তানদের বাংলা শেখানোর যুদ্ধ। পরিবেশের সাথে যুদ্ধ। দীর্ঘ জীবন যুদ্ধের লড়াইয়ে আজ তিনি জয়ী হয়েছেন, নিজের কাছে। তার সন্তানদের সত্যিকারের বাঙালি মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে। মনিকা আহমেদের বড় মেয়ে এখন ডাক্তার, ৩৯তম বিসিএস এর জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছে। ছেলে কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এর ৩য় বর্ষের একজন মেধাবী ছাত্র। সন্তানদেরকে মানুষ করার পাশাপাশি তিনি নিজেকেও ধীরে ধীরে তৈরী করে নিয়েছেন নিজেকে। বাল্য বিবাহ বন্ধ করার ক্ষেত্রে কিছু কিছু কাজ করছেন। কিছু এতিম আর দরিদ্র ছেলেমেয়েদেরকে নিজ উদ্যোগেই লেখাপড়ার সুযোগ করে দিচ্ছেন। নিজ এলাকার দরিদ্র মেয়েদের বিয়ে সাদীর ব্যবস্থা করছেন, এই কাজগুলো তিনি নীরবে, নিভৃতে করে থাকেন এবং ভবিষ্যতে দরিদ্র প্রতিবন্ধী শিশুদের নিয়ে কিছু কাজ করার ইচ্ছা আছে তার।
মনিকা আহমেদ সন্তানদের আগ্রহ ও অনুপ্রেরণায় লেখালেখিতে নিজেকে সম্পৃক্ত করেছেন  বর্তমানে তিনি কলকাতা এবং বাংলাদেশ মিলেই লিখছেন। এবার একুশে মেলায় দুই বাংলা থেকে লেখিকার একটা কবিতা ও গল্পের বই প্রকাশ হচ্ছে। দেশে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও ম্যাগাজিনে তার গল্প কবিতা আর্টিকেল প্রকাশিত হচ্ছে। এখন আবার নুতন করে স্বপ্ন দেখছেন, একদিন তার লেখা কাব্য, গল্প গাঁথা দেশের মানুষ পড়বে, লেখিকাকে চিনবে! এখন আর তার এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে কেউ বাঁধা দিতে পারবে না। এই যুদ্ধে তিনি জয়ী হবেন, এটা তার আত্মবিশ্বাস !!
লেখিকা প্রাইমারী স্কুলে লেখা-পড়ার সময় নিয়মিতভাবে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় ছোটদের বিভাগে ছড়া লিখতেন। বাংলাদেশ বেতার, ঢাকা কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত ছোটদের অনুষ্ঠান “কল কাকলীতে” তার লেখা ছড়া ও গল্প প্রচারিত হতো। বাংলাদেশের বিভিন্ন ম্যাগাজিন, পত্রিকা এবং দৈনিক প্রথম আলো, দৈনিক যায়যায় দিন ও সাপ্তাহিক যুগের খবরে মনিকা আহমেদের লেখা, গল্প, কবিতা ও প্রবন্ধ নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে। এছাড়াও ভারতের বিভিন্ন পত্রিকায় তার লেখা কবিতা ও গল্প প্রকাশিত হয়েছে এবং হচ্ছে।
গত ২৪ সেপ্টম্বর, ২০১৭ইং তারিখে কলকাতার “শরত স্মৃতি সদন” মিলনায়তনে মনিকা আহমেদের একটি কবিতা সংকলন “মন কাহনের ঢেউ” এবং শারদ সংখ্যা ম্যাগাজিনে একটি গল্প “নারী” ও দুটো কবিতা প্রকাশ করা হয়। সেখানে অন্যান্য কবি ও লেখকদের সাথে তাকেও সংর্বধিত করা হয়। গত ২৯ অক্টোবর’২০১৭ ইং তারিখে চিলমারীর একজন কৃতি সন্তান হিসেবে চিলমারী প্রেস ক্লাব লেখিকা মনিকা আহমেদকে সংবর্ধিত করে। গত ৯ ডিসেম্বর কুড়িগ্রামের চিলমারীতে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে উপজেলা পর্যায়ে মনিকা আহমেদকে শিক্ষা ও চাকুরীর ক্ষেত্রে অবদান রাখায় শ্রেষ্ঠ জয়িতা হিসেবে ক্রেষ্ট ও সম্মাননা পদক প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও একই দিনে একই বিষয়ে অবদান রাখায় তাকে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসন ও জেলা মহিলা বিষয়ক অফিসের উদ্যোগে রোকেয়া দিবসের অপর একটি সংর্বধনা অনুষ্ঠানে জেলা পর্যায়েও শ্রেষ্ঠ জয়িতা হিসাবে সংবর্ধিত করেছে।
মোছাঃ ফাতেমা খাতুন বিথী: চিলমারী উপজেলার বজরাতবকপুর গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের কন্যা মোছাঃ ফাতেমা খাতুন বিথী। অল্প বয়সে বিয়ে দিয়ে দেন বাবা মা। তার কিছুদিন পরেই বাবার মৃত্যু হয়।  ফাতেমাকে চলে যেতে হয় স্বামীর ঘরে। প্রত্যেকটি নারীর স্বপ্ন থাকে স্বামীর ঘর সংসার করা। স্বামীর কাছে সোহাগ বালবাসা পাবার। কিন্তু ফাতেমা খাতুণের ভাগ্যে তা জোটেনি। বিয়ের পরেই তার জীবনে নেমে আসে যৌতুকের জন্য  শারীরিক নির্যাতন। প্রতিনিয়ত টাকার জন্য স্বামী ও সআবামীর বাড়ীর লোকজনের শারীরিক নির্যাতন সহ্য করতে হয় তাকেব। শত নির্যাতন সহ্য করেও ফাতেমা স্বামী-সংসার করতে থাকে। কিন্তু পাষন্ড স্বামী তার উপর নির্যাতিনের মাত্রা আরো বাড়িয়ে দেয়। নির্যাতন করে স্বামীর বাড়ীতে তাকে বিতাড়িত করা হয়। উপায়ান্ত না পেয়ে ফাতেমা খাতুন আদালতে মামলা করেন। পরে স্বামীর তার সম্পর্কে ছিন্ন হয়ে যায়। স্বামী-সংসার না থাকলেও থেমে থাকেনি সে। চালিয়ে যান লেখাপড়া। পাশাপাশি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। এখন সে শিশু নিকেতন চিলমারীতে কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে কাজ করছেন। ফাতেমা এখন তার জীবন নিজের মতো করে চালাতে শুরু করেছেন। স্বামীর কাছ থেকেব শত আঘাত পেলেও জীবন যুদ্ধে থেমে নেই, নিজের চেষ্ঠায় এ সর্বক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন কওরে চলেছে। গত বছর ৯ ডিসেম্বর কুড়িগ্রামের চিলমারীতে উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে মোছাঃ ফাতেমা খাতুন বিথীকে ‘নির্যাতনের বিভিীষিকা মুছে নতুন উদ্যোমে জীবন শুরু করেছেন যে নারী’ ক্যাটাগরীতে অবদান রাখায় শ্রেষ্ঠ জয়িতা হিসেবে  ক্রেষ্ট ও সম্মাননা প্রদান করা হয়।
মোছাঃ বিলকিস বেগম: চিলমারী উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের তেতুলকান্দি, পুর্ব পাটওয়ারী গ্রামের বাসিন্দা মোঃ বাবলু মিয়ার স্ত্রী মোছাঃ বিলকিস বেগম। আর্থিক অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয়। স্বামী বাবলু মিয়া ঢাকায় রিক্সা চালিয়ে যা আয় হয় তাই দিয়ে চলে সংসার। ২ মেয়ে ও ১ ছেলেকে নিয়ে সংসার চালাতে খিমশিম খাচ্ছিলেন বিলকিস বেগম। বিলকিস বেগমের বড় মেয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ে। ৩ সন্তানকে পড়ালেখা করিয়ে মানুষের মতো মানুষ করতে চান বিলকিস বেগম। কিন্তু আর্থিক অস্বচ্ছলতা বার বার তার পিছু টেনে ধরে। এক পর্যায়ে সেলাইয়ের উপর প্রশিক্ষণ নিয়ে সে নিজ বাড়ীতে সেলাইয়ের কাজ শুরু করে। দর্জি কাজের পাশাপাশি স্বামীর সাথে পরামর্শ করে একটি মুরগীর ফার্ম গড়ে তোলেন। বর্তমানে বিলকিস বেগম আর্থিকভাবে অত্যন্ত স্বচ্ছল। ছেলে- মেয়েরা পড়াশুনা করছে। ভালোভাবেই কেটে যাচ্ছে তার দিন। গত বছর ৯ ডিসেম্বর কুড়িগ্রামের চিলমারীতে উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে মোছাঃ বিলকিস বেগমকে ‘আর্থিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী নারী’ ক্যাটাগরীতে অবদান রাখায় শ্রেষ্ঠ জয়িতা হিসেবে  ক্রেষ্ট ও সম্মাননা প্রদান করা হয়।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪