**   লাইন্সেস, পরিবেশ সনদ ছাড়াই ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারের হাট ।। উলিপুরে প্রতারিত হচ্ছে রোগিরা **   এবার ‘রেস ফোর’ নিয়ে আসছেন সালমান! **   জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে বেরিয়ে গেল যুক্তরাষ্ট্র **   আন্দোলন নয়, নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বিএনপির প্রতি আহ্বান নাসিমের **   শেষ ষোলোয় রাশিয়া, বিদায় মিসরের **   সিটি করপোরেশন নির্বাচন সবার দৃষ্টি গাজীপুরে **   দেহ ব্যবসায় জড়িত সাদিয়া! **   প্রকল্প কাজে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ ॥ ব্রহ্মপুত্রের ডানতীর রক্ষা প্রকল্পে ফের ধস ॥ একদিনে ১২ পরিবারের ১৭ঘর নদীতে **   ১০ জনের কলম্বিয়াকে হারালো জাপান **   উলিপুরে সহিংসতা না করার শপথ করলেন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ

কর্নাটকে হেরে গেল বিজেপি, সোমবার শপথ কুমারস্বামীর

1526740561
যুগের খবর ডেস্ক: ভারতের কর্নাটকে কংগ্রেস বা জেডি(এস) বিধায়কদের ভাঙানোর মরিয়া খেলায় পেরে উঠল না বিজেপি। হার নিশ্চিত জেনে আস্থা ভোটেই গেলেন না ইয়েদুরাপ্পা। ৫৩ ঘণ্টা পরই ইস্তফা দিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে। সরকার গঠনের কংগ্রেস-জেডি(এস) জোটকে ডেকে পাঠিয়েছেন রাজ্যপাল। সোমবার শপথগ্রহণ। সেই অনুষ্ঠানে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন জেডি(এস) নেতা কুমারস্বামী।
সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে আজ বিকালেই আস্থা ভোট হওয়ার কথা ছিল। সকাল থেকেই এই আস্থা ভোট নিয়ে চলছিল টানটান উত্তেজনা। কংগ্রেস এবং জেডি(এস) নিজেদের বিধায়কদের একজোট করে ভিন্ রাজ্যে নিয়ে গিয়ে রেথেছিল দু’দিন আগেই। গতকাল সকালেই দু’দলের বিধায়করা একজোট হয়েই বেঙ্গালুরুতে ফেরেন।
বিধানসভার অধিবেশন শুরুর আগেও বিজেপি দাবি করছিল ১১২ জন বিধায়কের সমর্থন তারা নিশ্চিত করতে পেরেছে। যদিও বিধানসভার অধিবেশনের শুরু থেকেই দু’পক্ষের বডি ল্যাঙ্গুয়েজে বিপরীত ছবি ধরা পড়ছিল। বিধানসভার গ্যালারিতে যখন গুলাম নবি আজাদ, মল্লিকার্জুন খাড়গে, অশোক গহলৌতের মতো কেন্দ্রীয় কংগ্রেস নেতাদের খোশ মেজাজে বসে থাকতে দেখা গিয়েছে, তখন ইয়েদুরাপ্পা-সহ বিজেপি বিধায়কদের মুখ ছিল যথেষ্টই ম্লান।
বিধানসভায় ভাষণ দিতে উঠে রীতিমত আবেগপূর্ণ বক্তৃতা দেন ইয়েদুরাপ্পা। তারপরই নিজের পদত্যাগের কথা ঘোষণা করেন তিনি। ইয়েদু বলেন, ‘আমি এখান থেকে রাজভবনে গিয়ে পদত্যাগপত্র জমা দেব। এর পর গোটা রাজ্য ঘুরে বেড়াব। আমরা সাধারণ মানুষের প্রচুর ভালোবাসা ও সমর্থন পেয়েছি। ২০১৯-এ আমি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি লোকসভায় কর্নাটকের ২৮টার মধ্যে ২৮টা আসনই আমরা জিতব। আমি অনুতাপ করছি না। লড়াই জারি থাকবে।’
কংগ্রেস-জেডিএস এর জোটকে ‘অপবিত্র আঁতাত’ বলে উল্লেখ করেন তিনি। কর্নাটকের রাজ্যপাল বাজুভাই বালা ইয়েদুরাপ্পাকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করার জন্য ১৫ দিনের সময় দিয়েছিলেন। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট শুক্রবার তা কমিয়ে শনিবারই আস্থাভোটে যেতে নির্দেশ দেয়। ইয়েদু পদত্যাগ করায় কংগ্রেসের সমর্থনে জেডিএস-এর সরকার গঠনের পথ প্রশস্ত হয়ে যায়।
কর্নাটকে শেষমেশ কংগ্রেস-জেডি(এস) জোটের জয় হলো। এই জয়ে খুশি পশ্চিমঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তিনি টুইট করেন, গণতন্ত্রের জয় হল। অভিনন্দন কর্নাটক। পাশাপাশি তিনি অভিনন্দন জানান, এইচ ডি দেবগৌড়া, কুমারস্বামীকেও।
গতকাল সকাল থেকেই ছিল টানটান উত্তেজনা। আস্থাভোটের কয়েক ঘণ্টা আগে ছবিটা একেবারে বদলে যায়। আরও একটা অডিও টেপ ‘ফাঁস’ করে হইচই ফেলে দেয় কংগ্রেস। কংগ্রেস দাবি করে, তাদের বিধায়ক বিসি পাতিলকে টেলিফোনে মন্ত্রিত্বের টোপ দিয়ে কিনতে চেয়েছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পা। যদিও বিজেপি সেই দাবিকে সম্পূর্ণ নস্যাৎ করে। শুধু অডিও টেপ প্রকাশই নয়, দুই বিধায়কের ‘নিখোঁজ’ হওয়ার বিষয়টিও সামনে আনে কংগ্রেস। তারা দাবি করে, দুই বিধায়ক আনন্দ সিংহ এবং প্রতাপ গৌড়া পাতিল ‘নিখোঁজ’ হয়ে গিয়েছে। অভিযোগের আঙুল ওঠে বিজেপির দিকেই। কংগ্রেস অভিযোগ তোলে, তাদের কয়েক জন বিধায়ককে অপহরণ করেছিল বিজেপি।
নাক কাটা গেল মোদি, অমিত শাহের: একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল বলে ভেবেছিলেন সরকারটা তাদেরই হবে। দিল্লিতে বসে ছক কষছিলেন মোদি–অমিত শাহ। নিধিরাম সর্দারের মত ঢাল তরোয়াল ছাড়াই ইয়েদুরাপ্পাকে পাঠিয়েছিলেন যুদ্ধে। ইয়েদুরাপ্পারও পদের লোভে পিছন ফিরে তাকাননি। তাতে যা ফল হল তাকে দেশ হাসানো ছাড়া আর কিছু বলছে না। নিজেদের চাল ফিরে এলো বুমেরাং হয়ে। গোয়া বিহারের তত্ত্ব যে কর্নাটকে কাজ করবে না তা বুঝতে পারেননি বিজেপির সেনাপতি অমিত শাহ।
কংগ্রেসও এবার হাল ছাড়েনি। গোয়া আর বিহারের মত একা লড়ার চেয়ে জোট গড়া যে রাজনীতির একটা বড় অস্ত্র সেটা পর পর দুটো নির্বাচনের পর মোক্ষম বুঝেছিলেন সোনিয়া। তাই এবার আর সময় নষ্ট করেননি। ফল পুরো ঘোষণার আগেই জেডিএসের কাছে বন্ধুত্বের বার্তা নিয়ে হাজির হয়েছিলেন গুলাম নবি আজাদ। মুখ্যমন্ত্রীর পদটাও ছেড়ে দিয়েছিলেন সোনিয়া। দেবগৌড়া তো ভোটের আগেই বলেছিলেন আমরাই সরকার গড়ব। তখন ভীষণ হাসাহাসি করেছিল বিজেপি। শেষে দেবগৌড়ার সেই কথাই সত্যি হলো।
ক্ষমতা দখলে রাখতে কংগ্রেসকে জেডিএসের হাত ধরতেই হলো। রাজনীতিকদের দাবি কর্নাটক গেরুয়া রাজনীতির বাড়াবাড়িতে নতুন করে প্রশ্ন তুলে দিল। মাত্র ৫৩ ঘণ্টা স্থায়ী হল কর্নাটকের বিজেপি সরকার। এতে যত না ক্ষতি হল ইয়েদুর তার থেকে অনেক বেশি ক্ষতি হল মোদি, শাহের। কারণ, বিজেপির যাওয়ার শুরুটা বোধহয় এখান থেকেই শুরু হচ্ছে।
কর্নাটক বুঝিয়ে দিল মমতার ফর্মুলায় কার্যকর: কর্নাটক বিধানসভা নির্বাচনের ফল দিনের আলোর মতো একটা বিষয় পরিষ্কার করে দিয়েছে৷ তা হলো, ভারতীয় জনতা পার্টিকে পরাস্ত করতে বিজেপিবিরোধী সমস্ত রাজনৈতিক দলকেই এক ছাতার তলায় আসতে হবে৷এককভাবে কংগ্রেসের পক্ষে তা আর সম্ভব নয়৷ সেক্ষেত্রে আঞ্চলিক দলগুলি সম্পর্কে মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে দেশের প্রাচীন রাজনৈতিক দলটিকে৷
সম্প্রতি উত্তর প্রদেশের দু’টি উপ-নির্বাচন দিয়ে শুরুটা হয়েছিল৷ তারপর ভারতের আরও দুই রাজ্য গুজরাট ও কর্নাটক৷ একক ক্ষমতায় বিজেপিকে রুখতে ব্যর্থ হয়েছে কংগ্রেস৷ বলা ভালো, পরীক্ষিত সত্য প্রমানিত হয়েছে, আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলের সঙ্গে গাঁটছড়া না বাঁধলে একক ক্ষমতায় কোনোভাবেই বিজেপিকে হটাতে পারবে না কংগ্রেস৷ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী জান-প্রাণ এক করে লড়াইয়ের চেষ্টা করেও গুজরাট বা কর্নাটকে জনাদেশ আদায় করতে পারেননি৷ এই আবহে জাতীয় স্তরে বিজেপিবিরোধী ‘ফেডারেল ফ্রন্ট’ গড়ার উদ্যোগ আরও গতি পাচ্ছে৷ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির তত্ত্ব নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে৷ বাংলার নেত্রীর সেই তত্ত্ব হলো, ‘একের বিরুদ্ধে এক’ লড়াই৷
অর্থাৎ, আগামী লোকসভা নির্বাচনে(২০১৯) বিভিন্ন রাজ্যে কংগ্রেসকে তার ‘ইগো’ ঝেড়ে ফেলে আঞ্চলিক দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ হতেই হবে৷ সেক্ষেত্রে যে দল যেখানে শক্তিশালী, তাকে আরও শক্তিশালী করতে হবে৷ বাংলায় সদ্য সমাপ্ত পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রায় ৯০ শতাংশ আসনে জয় মমতাকে আরও শক্তিশালী করেছে৷ একইভাবে অন্ধ্রপ্রদেশে শক্তিশালী হয়ে উঠেছে তেলুগু দেশম পার্টি৷ তেলেঙ্গানায় টিআরএস৷ তামিলনাড়ুতে ডিএমকে৷ বিহারে আরজেডি৷ সর্বত্র ক্ষমতা হারিয়ে দুর্বল হচ্ছে কংগ্রেস৷ বলা যেতেই পারে, দীর্ঘ কয়েক দশক পরে আবার জোট সরকারের দিকে এগোচ্ছে ভারত৷
রাজ্যসভার সাংসদ ঋতব্রত ব্যানার্জি মনে করেন, বিজেপিবিরোধী ঐক্যে মমতা ব্যানার্জিই প্রাণকেন্দ্র৷ মমতা ব্যানার্জি আর শুধু বাংলার নেত্রী নন৷ তাকে কেন্দ্র করে দেশের বিজেপিবিরোধী রাজনীতি উত্তাল ও আলোড়িত হচ্ছে৷ বর্তমান পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে কংগ্রেস থেকে সিপিএম, সবাইকে তা উপলব্ধি করতেই হবে৷ কর্নাটকের নির্বাচনী ফল এর প্রসঙ্গ তুলে ধরে ঋতব্রত বললেন, “কর্নাটকের নির্বাচন একটা বিষয় অত্যন্ত পরিষ্কার করে দিয়েছে, তা হলো, দেশের কোনো  রাজনৈতিক নেতাই মমতা ব্যানার্জির মতো মানুষের মন বোঝেন না৷ মমতাকে ঘিরেই জাতীয় স্তরে আবর্তিত হচ্ছে বিজেপি-বিরোধী আঞ্চলিক দলগুলো৷ দানা বাঁধছে ঐক্য৷ কর্নাটক বুঝিয়ে দিয়েছে, বিজেপিবিরোধী লড়াইয়ে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর ‘ওয়ান-ইজটু-ওয়ান’ সূত্রই একমাত্র পথ৷”
শুরুর দিকে কিছুতেই এই তত্ত্ব মানতে চাননি রাজধানী দিল্লির রাজনীতিকরা৷ এমনকি কেন্দ্রীয় স্তরে প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে মমতার এই তত্ত্বকে হেয় পর্যন্ত করা হয়েছে৷ কিন্তু বর্তমানে ভারতের রাজনীতিতে সর্বোচ্চ স্তরে এবং প্রধান চর্চার বিষয় যে কর্নাটক, সেখানে দেরিতে হলেও মমতার দেখানো পথেই হাঁটতে হলো রাহুল গান্ধীর দলকে৷ অথচ নির্বাচনের আগে জেডি(এস)-এর হাত ধরলে অন্যরকম হতে পারতো ভোটের ফলাফল৷
রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, কর্নাটক পরবর্তী সময়ে রাহুল গান্ধীর সামনে আরও এক দফা সুযোগ রয়েছে৷ তা হলো, ২০১৯-কে ‘পাখির চোখ’ করে এই বছরের শেষে রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ ও ছত্তিশগড়ে বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জোর দিতে হবে৷ তিন রাজ্যেই সরকারবিরোধী হাওয়া বইছে৷ এই তিন রাজ্যেই রাহুলকে লড়তে হবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাষণের সঙ্গে৷ পাশাপাশি বিজেপি সভাপতি অমিত শাহর ভোট-ব্যবস্থাপনার সঙ্গেও লড়তে হবে তাকে৷ এই দুই ক্ষেত্রেই রাহুলের এখনও পাশ মার্ক জোটেনি৷ তাহলে ওই তিন রাজ্যের ক্ষেত্রে কৌশল কী হবে তা জানা নেই কংগ্রেসের৷ ভরসা হতে পারে মমতা ব্যানার্জির দেখানো পথ৷ যে পথে হেঁটেই কর্নাটকে জেডি(এস)-কে নিঃশর্ত সমর্থন জানিয়েছে কংগ্রেস৷
এক্ষেত্রে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি যে ‘ওয়ান-টু-ওয়ান’ লড়াইয়ের তত্ত্ব তুলে ধরেছেন, সেই দিকটিও ভাবতেই হবে রাহুলকে৷ কর্নাটক নির্বাচন থেকে সম্ভবত সেই শিক্ষা নিয়েছে কংগ্রেস৷বিশেষত উত্তরপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, বিহারের মতো বড় রাজ্যগুলিতে বিরোধীদের জায়গা ছাড়তেই হবে তাকে৷ যেখানে কংগ্রেসের তুলনায় অনেক বেশি শক্তিশালী অন্যান্য দল৷ নচেৎ কংগ্রেসকে আটকে থাকতে হবে পাঞ্জাব, মিজোরাম ও পন্ডিচেরির মতো রাজ্যেই৷ রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আগামী তিন রাজ্যের নির্বাচনে বিজেপিকে হঠাতে ভোটের আগেই আঞ্চলিক দলগুলিকে রাজনৈতিক জমি ছেড়ে দিতে হবে কংগ্রেসকে৷ কর্নাটকে বিপদে পড়ে জেডিএসকে সমর্থনের কৌশলই ২০১৯-এ কংগ্রেসের প্রধান রণকৌশল হতে পারে৷ আর যদি এমনটা করতে না পারেন, তাহলে লোকসভায় আবারও হতাশ হতে হবে রাহুল ও তার দল কংগ্রেসকে৷
প্রায় চার দশক ধরে দেশের রাজনীতির অলি-গলি ঘুরে সাংবাদিকতা করেছেন ষাটোর্ধ সাংবাদিক শরদ গুপ্তা৷ আগামী লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেস ও আঞ্চলিক দলগুলির এক ছাতার তলায় আসা-না আসা প্রসঙ্গে তার মত হলো, উত্তরপ্রদেশ, গুজরাট এবং শেষমেশ কর্নাটকের ভোটের ফলে রাহুলের গ্রহণযোগ্যতা মোটেও প্রমাণ হয়নি৷ আসলে রাহুল গান্ধীকে বুঝতে হবে, বিজেপিবিরোধী লড়াইয়ে ইগোর কোনো জায়গা নেই৷ মমতা ব্যানার্জির ফর্মুলা বেশ কার্যকরী৷
শরদের কথায়, “উত্তরপ্রদেশে তিন দশক ক্ষমতায় নেই কংগ্রেস৷ পশ্চিমবঙ্গ, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলেঙ্গানা, বিহারসহ অন্যান্য রাজ্যেও আঞ্চলিক দল অনেক শক্তিশালী হচ্ছে৷ এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, কর্নাটক নির্বাচনে অত্যন্ত খারাপ ফল করেছে কংগ্রেস৷ রাজ্যে সরকারবিরোধী হাওয়া না থাকা, রাহুল গান্ধীর একটানা প্রচার, এমনকি রাজ্যে অন্যতম প্রভাবশালী মুখ হিসেবে সিদ্দারামাইয়া থাকা সত্ত্বেও দলের এমন হাল নিয়ে বেশ চিন্তায় দলের শীর্ষ নেতারা৷ গত নির্বাচনের তুলনায় ৪৪টি আসন কম পেয়েছে কংগ্রেস৷ আসন সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৮টিতে৷ সমীক্ষা বলছে, জেডিএসের সঙ্গে প্রাক-নির্বাচনী জোট করে লড়াই করলে ৫৪ শতাংশের বেশি ভোট পেতো কংগ্রেস-জেডিএস৷’

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪