ধান কাটায় কমছে কৃষকের ভোগান্তি

যুগের খবর ডেস্ক:  কয়েক বছর ধরে হাওর অঞ্চলে আগাম বন্যা ও পাহাড়ি ঢলে ঘরে ধান তোলা নিয়ে বিপাকে পড়ছেন কৃষক। গত বছর বন্যায় ডুবে যায় হাওরের ধান। তবে এবার তা হয়নি। বন্যার আশঙ্কা থাকলেও আগেভাগে ধান কেটে ঘরে তুলতে পেরেছেন কৃষক। এবার কম্বাইন
হারভেস্টারে স্বল্প সময়ে ধান কেটে ভোগান্তি কমিয়েছেন এ অঞ্চলের কৃষক।
আবার দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোতে ধান কাটার মৌসুমে শ্রমিকের অভাব প্রকট হয়। ফলে মজুরি বৃদ্ধি পায় কয়েকগুণ। এ অবস্থায় কৃষকের উৎপাদন খরচ কমাতে কার্যকর ভূমিকা রাখছে কৃষির যান্ত্রিকীকরণ। বিশেষ করে ধান ও গম কাটা মৌসুমে জনপ্রিয় হচ্ছে মিনি কম্বাইন হারভেস্টার।
সারাদেশের কৃষকের মাঝে কম্বাইন হারভেস্টার জনপ্রিয় করতে সরকার ৫০ থেকে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত ভর্তুকি দিচ্ছে। হাওর অঞ্চলের সাত জেলায় ৭০ শতাংশ এবং অন্যান্য অঞ্চলে ৫০ শতাংশ ভর্তুকিতে পাওয়া যাচ্ছে যন্ত্রটি। এ জন্য সরকারের একটি প্রকল্প চলমান রয়েছে। যার মাধ্যমে এক হাজার ৪০০টি যন্ত্র বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। এরই মধ্যে প্রায় ৫০০ কম্বাইন হারভেস্টার যন্ত্র কৃষকের মাঝে ভর্তুকি মূল্যে প্রদান করা হয়েছে। যার বেশিরভাগই হাওর অঞ্চলে দেওয়া হয়েছে। সরকারের এ কাজে অংশগ্রহণ করছে কয়েকটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। কোম্পানিগুলোর মধ্যে বিক্রয়োত্তর সেবা ও গুণগতমানের কারণে এসিআই মোটরসের কম্বাইন হারভেস্টার কৃষকের কাছে জনপ্রিয়তা পেয়েছে।
এ বিষয়ে এসিআই মোটরসের নির্বাহী পরিচালক সুব্রত রঞ্জন দাস সমকালকে বলেন, যন্ত্রটির ব্যবহার বাড়ানো গেলে ফসলের উৎপাদনশীলতা যেমন বাড়বে, তেমনি শ্রমিক সংকট কাঠিয়ে ওঠা সম্ভব হবে।
কৃষক ও সংশ্নিষ্টরা বলছেন, এসিআই মিনি কম্বাইন হারভেস্টারে খরচ সাশ্রয় হয় প্রায় ৮০ শতাংশ। এ ছাড়া সময় সাশ্রয় হয় ৮৫ শতাংশ এবং শ্রম সাশ্রয় হয় ৮৭ শতাংশ। এই মেশিনে কাদা ও শুকনো দুই পদ্ধতিতেই ধান ও গম কাটা যায়। ধান কাটার পর খড়ও আস্ত পাওয়া যায়। ধান-গম চাষে কৃষকের লাভ থাকবে অর্ধেকের বেশি।
জানা গেছে, কম্বাইন হারভেস্টারে এক একর জমির ধান কাটা, মাড়াই ও ঝাড়াই করতে সময় লাগে ৩ ঘণ্টা। এতে একজন শ্রমিক দিয়ে ৬ লিটার জ্বালানি তেল খরচ হয়। যাতে মোট খরচ হয় মাত্র ১ হাজার ৩০০ টাকা। অন্যদিকে এই একই পরিমাণ ধানে প্রচলিত পদ্ধতিতে শ্রমিক লাগবে ২১ জন। সময় লাগবে আট ঘণ্টা। ফলে মোট খরচ হবে প্রায় সাড়ে ছয় হাজার টাকা।
এ বিষয়ে খামার যান্ত্রিকীকরণের মধ্যমে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প-দ্বিতীয় পর্যায় শীর্ষক প্রকল্পের পরিচালক শেখ মো. নাজিমউদ্দিন সমকালকে বলেন, যন্ত্রটি কৃষকের কাছে দীর্ঘস্থায়ী ও টেকসই করতে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া সময়মতো সার্ভিস প্রদানের জন্য বেসরকারি কোম্পানিগুলোকেও তদারকি করা হচ্ছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪