ঈদ যাত্রায় এবার ভোগান্তির আরও বাড়বে

যুগের খবর ডেস্ক: ঈদ উপলক্ষে সড়কপথে বাড়ি গেছেন, কিন্তু ভোগান্তিতে পড়েননি, এমন স্মৃতি সাম্প্রতিকালে কম মানুষেরই আছে। আগামী ঈদেও তার ব্যতিক্রম হওয়ার মতো খবর নেই। ঢাকা থেকে যে ছয়-সাতটি মহাসড়কে দেশব্যপী মানুষ বাড়ি ফেরে তার মধ্যে টাঙ্গাইল ও চট্টগ্রাম মহাসড়কে এবার ঈদ যাত্রায় এবার ভোগান্তি আরও বাড়বে।
ঢাকা থেকে সড়কপথে দেশের বিভিন্ন স্থানে যেতে যে কয়েকটি সড়ককে লাইফ লাইন হিসেবে অভিহিত করা হয় তার মধ্যে, ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-সিলেট, ঢাকা-টাঙ্গাইল, ঢাকা-মাওয়া, ঢাকা-আরিচা, ঢাকা-ময়মনসিংহ, ঢাকা-সিলেট গুরুত্বপূর্ণ। এ রাস্তাগুলোর মধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে কাজ চলছে। আগামী ঈদকে কেন্দ্র করে এই দুটি সড়কে বিশেষ নজর দিচ্ছে সড়ক জনপথ অধিদফতর।
তবে অন্যান্য বছরের মতো এবার ভাঙাচোরা সড়কের কারণে যত না ভোগান্তি হবে তার চেয়ে বড় আশংকা যানজটকে কেন্দ্র করে। চট্টগ্রাম মহাসড়কে বড় যানজটের বড় কারণ হবে কয়েকটি নির্মাণাধীন ব্রিজ ও টোল প্লাজায় ধীরগতি। অন্যদিকে টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু মহাসড়কে চারলেনের কাজ চলছে। এর বাইরে সব মহাসড়কের জন্য কমন কয়েকটি সমস্যার কথা বলছেন সংশ্লিষ্টরা। এগুলোর মধ্যে রয়েছে, মহাসড়কে বাজার, পুলিশসহ ক্ষমতাসীনদের চাঁদাবাজি, অবৈধ পার্কিং, ট্রাফিক অব্যবস্থাপনা, উল্টোপথে গাড়ি চলাচল।
ঈদে সড়কপথে যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে বহুমুখী উদ্যোগ নিচ্ছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগসহ এর অধীনস্ত প্রতিষ্ঠানগুলো। তারপরও ভোগান্তি যে কিছু হবেই তা স্বীকার করে নিয়েছেন খোদ সড়কমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গত মঙ্গলবার সড়ক ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেছেন, সড়ক পথের যাত্রীদের ভোগান্তি যাতে কম হয় তার জন্য আমরা চেষ্টা করছি। আগামী ৮ জুনের মধ্যে সব মহাসড়ক ঠিক করার নির্দেশ দিয়েছেন মন্ত্রী।
আগামী ১৬ জুন ঈদুল ফিতর হতে পারে ধরে নিয়ে সম্ভাব্য সরকারি ছুটি ঠিক করা হয়েছে ১৫ থেকে ১৭ জুন। এ কারণে জুনের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে সব রাস্তার প্রস্তুতি সম্পন্ন করার নির্দেশ দিয়ে কাদের বলেন, যেখানে যেখানে রিপেয়ার দরকার, সেটা এর মধ্যে করতে হবে। রাস্তা সংস্কারে উদাসীনতা সহ্য করা হবে না। কোনো অজুহাতও গ্রহণযোগ্য হবে না।
আজকালের খবরের টাঙ্গাইল প্রতিনিধি আরিফুর রহমান টগর জানিয়েছেন, ঢাকা-টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু মহাড়কের চান্দুরা থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত প্রায় ৪৫ কিলোমিটার রাস্তা চার লেনের কাজ চলছে। ঈদ যাত্রায় এই কাজ সম্পন্ন হচ্ছে না। এ পথে উত্তরবঙ্গসহ প্রায় ২৫টি জেলার যাত্রী যাতায়াত করেন। গাড়ির চাপে এই মহাসড়কটিতে ভোগান্তি থাকবে, এমন আশঙ্কা সংশ্লিষ্টদের।
সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের অতিরিক্ত প্রকৌশলী (পরিকল্পনা ও ব্যবস্থাপনা উইং) আবুল কাশেম ভুইয়া গতআজকালের খবরকে বলেন, ঈদ উপলক্ষে সড়কের কাঠামোগত কোনো সমস্যায় যাত্রীরা পড়বেন না বলে আশা করি। তবে, যানজটের বিষয়টি আপেক্ষিক। এই বিষয়েও আমরা প্রতি বছরের মতো এবারও বিশেষ ব্যবস্থাপনা রাখব।
কুমিল্লা সড়ক জনপথ অধিদফতরের অধীনে ১০০ কিলোমিটার রাস্তা রয়েছে। এর মধ্যে সামান্য কিছু ভাঙাচোরা থাকলেও সেগুলোর কাজ চলছে, ঈদযাত্রার আগেই শেষ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। কিন্তু যানজটই বড় সমস্যায় ফেলবে বলে মনে করছে স্থানীয় প্রশাসন।
আমাদের কুমিল্লা প্রতিনিধি আনোয়ার হোসাইন জানিয়েছেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার চান্দিনা থেকে কাঁচপুর ব্রিজ পর্যন্ত অংশটুকু ‘ভোগান্তির সড়কে’ পরিণত হয়। এর মূল কারণ দুই টোল সেতুতে মালবাহী যানবাহন আটকে সময়ক্ষেপণ করা। যার ফলে টোল সেতু থেকে যানবাহনের দীর্ঘ লাইনের সৃষ্টি হয়। সংশ্লিষ্টদের অভিমত, টোল আদায়কারীরা দ্রুত গতিতে যানবাহন ছেড়ে দিলে যানজট সৃষ্টি হবে না। দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, দুই সেতুর টোল প্লাজায় যানবাহনগুলো বিলম্বিত হয় এরপর সেতুতে উঠাকালীন যানবাহনের গতি অন্তত ৮০ ভাগই কমে আসে। আর চার লেনের গাড়িগুলো দুই লেনের সেতুতে চলাচলে ধীর গতির ফলে মূলত এই যানজট।  স্থানীয়রা বলছেন, নতুন সেতু না হওয়া পর্যন্ত এই ভোগান্তি থেকে বের হওয়া কঠিন। আর ঈদ যাত্রায় তো ভয়াবহ অবস্থা হবে।
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিষয়ে অতিরিক্ত প্রকৌশলী আবুল কাশেম বলেন, এই সড়কে রেল ওভারব্রিজের কারণে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। ঈদের আগে পুরো কাজ শেষ হবে না। তবে, ঈদ উপলক্ষে কাজ বন্ধ করে দিয়ে গাড়ি চলাচলের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেব আমরা। তিনি বলেন, যে কোনো কিছু জন্ম নিলে তার একটা প্রসব ব্যথা আছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম রোডেরও একই অবস্থা। কাজগুলো হয়ে গেলে যাত্রীরা ভ্রমণে আরাম পাবেন।
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের বিষয়ে আবুল কাশেম বলেন, এলেঙ্গার দিকে সড়কে কার্পেটিংয়ের কাজ চলছে। বৃষ্টির কারণে ঠিক মতো কাজ করা যাচ্ছে না। তারপরও মন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশ মতো আগামী ৮ জুনের আগেই ঈদ যাত্রীদের জন্য সড়ক প্রস্তুত হয়ে যাবে বলে আশা করি।
সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের চট্টগ্রাম আঞ্চলিক অফিসের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আফতাব হোসেন খান আজকালের খবরকে জানিয়েছেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাঠামোতে কোনো সমস্যা নেই। যানজটের বিষয়টি প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেখা হয়। তিনি বলেন, কুমিল্লা-নোয়াখালীর দিকে কিছু কাজ হচ্ছে। এগুলো ঈদের আগেই শেষ হয়ে যাবে।
সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের কুমিল্লা অঞ্চলে পড়েছে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মহীপাল রেল ওভারব্রিজ। চলতি মাসের মাঝামাঝি সময়ে এই ওভারব্রিজের চলমান কাজকে কেন্দ্র করে ঢাকা-চট্টগ্রাম যাত্রীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। কুমিল্লা অফিসের দায়িত্বে থাকা প্রকৌশলী এ কে এম মনির হোসেন পাঠান জানিয়েছেন, ফেনী থেকে কুমিল্লার দাউদকান্দি পর্যন্ত আমার এলাকা। তিনি বলেন, এর মধ্যে কিছু কাটিং, র্যাপিং অ্যান্ড ফিলিংয়ের কাজ চলছে। এটা সব সহাসড়কের একটি চলমান কাজ। এসব কাজ চলতি মাসের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে। এই এলাকার সড়কে কোনো সমস্যা হবে না আশা করি।
আজাকালের খবরের বগুড়া প্রতিনিধি আলমগীর হোসেন জানিয়েছেন, বগুড়া-নাটোর মহাসড়কের নন্দীগ্রামের জামাদারপুকুর হতে গাড়ীদহ সড়কের বিভিন্ন স্থানে গভীর খানাখন্দ সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া পৌরসভা এলাকার এবং জেলার অধিকাংশ আন্তঃজেলা সড়কগুলো খানাখন্দে জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হওয়ায় পথচারী ও যানবহন মালিক-শ্রমিকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এসব মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কের দেখভাল করা অধিদফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তারা বলছেন, বরাদ্দ না পাওয়ায়, বর্ষার কারণে কাজ করা সম্ভব হচ্ছে না।
বগুড়া সড়ক ও জনপথ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, সিরাজগঞ্জ-গাইবান্দার গোবিন্দগঞ্জ, নাটোর-বগুড়া, নওগাঁ-বগুড়া, বগুড়া-জয়পুরহাট, বগুড়া-শিবগঞ্জ, শহরের বানানী-মাটিডালি এবং বগুড়া-গাবতলিতে মোট ৫৪০ কিলোমিটার মহাসড়ক আছে। এসব মহাসড়ক দিয়ে উত্তরাঞ্চলের ১৬টি জেলার মানুষ ও পণ্য পরিবহন করা হয়।
বগুড়ার বাসচালক আনিছুর রহমান জানান, রাস্তায় খানাখন্দ থাকায় গাড়ি চালানো কঠিন হয়ে পড়েছে। ছোট-বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়ায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে।
বগুড়া সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আশরাফুজ্জামান বলেন, জেলায় ৫৪০ কিলোমিটার মহাসড়ক আছে। এর মধ্যে কিছু স্থানে সামান্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এ গুলোতে আমাদের নিজস্ব উপকরণ দিয়ে মেরামত করা হয়েছে। আর কিছু রাস্তায় লেয়ার করা হচ্ছে। এসব মোরামত কাজ চলমান থাকবে।
এর বাইরে ঢাকা সিলেট মহাসড়কে ভাঙা-চোরা অবস্থা বৃষ্টির ধকল বেশি না থাকলে ঈদ উপলক্ষে মেরামত হয়ে যাবে বলে আশা সংশ্লিষ্টদের। তবে ঢাকা থেকে গাজীপুর হয়ে বের হওয়া যাত্রীরা বড় ভোগান্তিতে পড়বেন গাজীপুরের অংশটুকু পার হতেই। কারণ এই রাস্তাটির ফুটপাত থেকে মহাসড়ক পর্যন্ত অবৈধ দোকান, পার্কিং, গাড়ি দাড় করিয়ে লোক উঠানো-নামানোসহ না সমস্যায় জর্জরিত। অন্যদিকে গাবতলী হয়ে সাভার মানিকগঞ্জের অবস্থাও অনেকটা গাজীপুরের মতো। ঢাকা থেকে বের হতেই ত্রাহী অবস্থার শিকার হওয়ার আশঙ্কা আছে যাত্রীদের।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪