**   নদী রক্ষায় দলমত নির্বিশেষে কাজ করতে হবে -জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান **   জিডিপির আড়াই শতাংশ যাচ্ছে দুর্নীতিবাজদেরা পেটে- দুদক কমিশনার আমিনুল ইসলাম **   অদম্য মেধাবী নুর আলমের মেডিকেলে পড়ার দায়িত্ব নিলেন “ফ্রেন্ডস ৯৭” **   মায়ের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত আইয়ুব বাচ্চু **   কুড়িগ্রামে মৌচাষের উপর কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হলো হিন্দু ধর্মালম্বীদের শারদীয় দূর্গোৎসব ॥ চিলমারী উপজেলার পুজামন্ডপ পরিদর্শন করেন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ **   কুড়িগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে ফ্রেন্ডশিপের গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত **   উলিপুরে পূঁজা মন্ডপে অগ্নিদগ্ধ পুরোহিতকে চিকিৎসা সহায়তা প্রদান **   কুড়িগ্রামে বাণিজ্যিকভাবে ফুলচাষের প্রদর্শনীর উদ্বোধন **   আইয়ুব বাচ্চুর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত, মানুষের ঢল

নজরুল জন্মজয়ন্তী আজ ‘মানুষের চেয়ে নহে কিছু ঊড়, নহে কিছু মহীয়ান’

যুগের খবর ডেস্ক: ‘গাহি সাম্যের গান, মানুষের চেয়ে নহে কিছু বড়, নহে কিছু মহীয়ান’ অথবা ‘বল বীর, বল চির উন্নত মম শির’ এমন কবিতার রচয়িতা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলাম। সকল শোষনের বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন বিদ্রোহী। তাই তিনি অতিমমত্ব দিয়ে তার বিদ্রোহী কবিতায় ঘোষনা দিয়েছেন, ‘আমি সেই দিন হব শান্ত যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দন রোল আকাশে বাতাশে ধনিবে না/ অত্যাচারির খড়গ কৃপান ভীম রনভূমে রনিবে না’।

নজরুল সাহিত্য আমাদের প্রেরণার উৎস। জীবন চলার পথে নজরুল সাহিত্য সাহসী সৈনিক। কাজী নজরুল ইসলাম আমাদের জাতীয় কবি। নজরুল বিশেষজ্ঞ ইমেরিটাস অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বলেন, নজরুল ইতিহাস ও সময় সচেতন মানুষ ছিলেন যার প্রভাব তাঁর লেখায় স্পষ্টভাবে পাওয়া যায়। তিনি বলেন, তুরস্কে কামাল পাশার নেতৃত্বে প্রজাতন্ত্রের প্রতিষ্ঠা, রাশিয়ায় সমাজতান্ত্রিক বিপ¬¬¬ব আর ভারতবর্ষে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের তরঙ্গকে নজরুল তাঁর সাহিত্যে বিপুলভাবে ধারণ করেছেন। তিনি ছিলেন একাধারে কবি, সংগীতজ্ঞ, ঔপন্যাসিক, গল্পকার, নাট্যকার, প্রাবন্ধিক, সাংবাদিক, চলচ্চিত্রকার, গায়ক ও অভিনেতা। তার কবিতা, গান ও সাহিত্য কর্ম বাংলা সাহিত্যে নবজাগরণ সৃষ্টি করেছিল। তিনি ছিলেন অসাম্প্রদায়িক চেতনার পথিকৃৎ। তাঁর লেখনি জাতীয় জীবনে অসাম্প্রদায়িক চেতনা বিকাশে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে। তাঁর কবিতা ও গান মানুষকে যুগে যুগে শোষণ ও বঞ্চনা থেকে মুক্তির পথ দেখিয়ে চলছে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে তাঁর গান ও কবিতা ছিল প্রেরণার উৎস।

আজ ১১ জৈষ্ঠ্য দ্রোহ, সাম্য, মানবতা ও প্রেমের কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্মজয়ন্তী। কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা ১৩০৬ সালের ১১ জ্যৈষ্ঠ পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার আসানসোল মহকুমার চুরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। অসাম্য, অসুন্দর, সমাজ ও রাষ্ট্রের সব অন্যায়ের বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন বিদ্রোহী চির উন্নত শির। কবি নজরুল যখন জন্ম গ্রহণ করেন তখন এই ভারতবর্ষ পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ। জন্মেই তিনি মুখোমুখি হয়েছেন বিক্ষুব্ধ এক স্বদেশের। পারিবারিক অভাব-অনটনে বড় হয়েছেন। জীবনের প্রয়োজনে কখনো মসজিদের মুয়াজ্জিন, লেটো দলের গায়ক, চায়ের দোকানের কর্মচারী এমনকি সেনাবাহিনীতে পর্যন্ত যোগ দিয়েছিলেন। রবীন্দ্র সাহিত্যের বিপুল জোয়ারের যুগেও সম্পূর্ণ নতুন কাব্যভাষা নিয়ে তার আর্বিভাব। বিদ্রোহে, প্রেমে, শ্রেষ্ঠতম অগ্নিপুরুষ কবি নজরুল বাঙালির মানসপটে এক উজ্জ্বলতম নক্ষত্র। মাত্র ২৩ বছরের সাহিত্য জীবনে নজরুলের বিপুল সৃষ্টিকর্ম বাংলা সাহিত্যের অমূল্য সম্পদ।

কাজী নজরুল ইসলামের যেমন ঘটনাবহুল কর্মময় জীবন, তেমনি বিচিত্র তার সাহিত্যের গতি-প্রকৃতি। তিনি যেমন ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শোষণের শৃঙ্খল ভাঙার আহ্বান জানিয়ে কবিতা ও গান লিখেছেন, তেমনি লিখেছেন প্রেম-সাম্যের গান ও কবিতা। তাঁর কবিতা ও গান আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামেও অনুপ্রেরণা জুুগিয়েছে। তাঁর লেখা ‘চল চল চল’ বাংলাদেশের রণসংগীত। গান ও কবিতার মতো তাঁর রচিত গল্প, নাটক, উপন্যাসও বাঙালির অনন্ত প্রেরণার উৎস হয়ে আছে। বাংলায় সর্বোচ্চসংখ্যক তিন সহগ্রাধিক গানের স্রষ্টা কাজী নজরুল ইসলাম। নিজস্ব ধারার সংগীত রচনা করেছেন তিনি। প্রকৃত অসামপ্রদায়িক চেতনায় উদ্ভাসিত কবি মানুষের সংকীর্ণতা, দীনতা, মূঢ়তা, নিচতাকে মনেপ্রাণে ঘৃণা করেছেন। ‘দুখু মিয়া’ বাংলার দামাল ছেলের প্রতীক। তিনি বিদ্রোহী, তিনি সংগ্রামী, তিনি প্রেমিক, তিনিই শান্তির বার্তাবাহক। কবি নজরুল তাঁর প্রত্যয়ী ও বলিষ্ঠ লেখনী এ দেশের মানুষকে মুক্তিসংগ্রামে অনুপ্রাণিত করেছে, জাগ্রত করেছে জাতীয়তাবোধ। কবির কলম শাসকের অস্ত্রের চেয়ে বেশি শক্তিমান ছিল। বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের পর সৃষ্টিশীল এই মহান কবির আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তাঁর প্রতি সম্মান জানাতে ১৯৭২ সালের ২৪ মে ভারত সরকারের অনুমতিক্রমে কবি নজরুলকে সপরিবারে বাংলাদেশে নিয়ে আসেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁকে বাংলাদেশের জাতীয় কবির মর্যাদায় ভূষিত করা হয়। কবির বাকি জীবন বাংলাদেশেই কাটে। ১৯৭৪ সালে ৯ ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তাকে সম্মানসূচক ডি-লিট উপাধিতে ভূষিত করে। ১৯৭৬ সালে বাংলাদেশ সরকার কবিকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করে। একই বছরে তাকে একুশে পদকে ভূষিত করা হয়। বাংলা ১৩৮৩ সালের ১২ই ভাদ্র (১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট) কবি মৃত্যুবরণ করেন। ‘মসজিদেরই পাশে আমায় কবর দিও ভাই’ তাঁর গানের কথা স্মরণে রেখে তাঁকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়। কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম রওশন এরশাদ পৃথক বাণী দিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের কর্মসূচি: আজ শুক্রবার জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সকাল ৮টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গনে চিরনিদ্রায় শায়িত কবির সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক বিবৃতিতে দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের জন্য আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সকল স্তরের নেতা-কর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ী ও দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪