বার লাখ কোটি টাকার বিকল্প বাজেট প্রস্তাব অর্থনীতি সমিতির

যুগের খবর ডেস্ক: আসন্ন ২০১৮-’১৯ অর্থবছরের জন্য ১২ লাখ ১৬ হাজার ৪০০ কোটি টাকার বিকল্প বাজেট প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ জাতীয় অর্থনীতি সমিতি। যা গত ২০১৭-১৮ অর্থবছরের চেয়ে প্রায় তিনগুণ। গত অর্থবছরে সরকারের মোট বাজেট ছিল ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকা। সমিতির মতে সঠিক কর্মপরিকল্পনা নিলে আসছে অর্থবছরে বিশাল এ বাজেট বাস্তবায়ন সম্ভব। অথচ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এ অর্থবছরের জন্য ৪ লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকার সম্ভাব্য বাজেট প্রস্তাবনা প্রস্তুত করেছেন।

শনিবার (২৬ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির বাজেট প্রস্তাবনা ২০১৮-১৯’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এ প্রস্তাব দেয়া হয়। প্রস্তাবনা তুলে ধরেন বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আবুল বারকাত। সংবাদ সম্মেলনে সূচনা বক্তব্য রাখেন অর্থনীতি সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. জামালউদ্দিন আহমেদ।

ড. আবুল বারকাত বলেন, প্রস্তাবিত ১২ লাখ ১৬ হাজার ৪০০ কোটি টাকার বিকল্প বাজেটের অনুন্নয়ন খাতে ব্যয় হবে ৫ লাখ ১৪ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা। আর উন্নয়ন খাতে যাবে ৬ লাখ ৬৮ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে রাজস্ব আয় থেকে আসবে ৯ লাখ ৯০ হাজার ৮২০ কোটি টাকা। অর্থাৎ মোট বরাদ্দের ৮১ শতাংশ যোগান দেবে সরকারের রাজস্ব আয়। আর বাজেটের বাকি ১৯ শতাংশ ঘাটতি অর্থায়ন (২ লাখ ২৫ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা) যোগান দেবে সম্মিলিতভাবে সরকারি-বেসরকারি যৌথ অংশীদারিত্ব (মোট এক লাখ কোটি টাকা যেখান থেকে আসবে ঘাটতি অর্থায়নের ৪৪ শতাংশ), বন্ড বাজার থেকে আসবে ৪৫ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা বা ২১ শতাংশ, সঞ্চয়পত্র থেকে আসবে ৬০ হাজার কোটি টাকা বা ২৭ শতাংশ, দেশীয় ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে আসবে ২০ হাজার কোটি টাকা বা ৯ শতাংশ। তবে প্রস্তাবে ঘাটতি অর্থায়নে বৈদেশিক ঋণ-নিট এর কোন ভূমিকা থাকবে না, যা গত বছরের সরকারি বাজেট ঘাটতি পূরণে ৪৩ শতাংশ ভূমিকা রেখেছিল।

বাজেট প্রস্তাব নিয়ে আলোচনায় আবুল বারকাত বলেন, আমাদের প্রস্তাবিত বাজেটের আয় কাঠামোতে বিত্তশালী ও ধনীদের ওপর করের বোঝা অতীতের তুলনায় অনেক বৃদ্ধি পাবে যা সমাজে ধন-বৈষম্য, সম্পদ-বৈষম্য ও ক্রমবর্ধমান অসমতা হ্রাস করবে। এছাড়া প্রবৃদ্ধির সঙ্গে বণ্টন ন্যায্যতা নিশ্চিতকরণে দ্রুত ভিত্তিতে বৈষম্য হ্রাসকরণ, ভূমি-কৃষি-জলা সংস্কার, মানবসম্পদ দ্রুত বিকশিত করা, শিল্পায়ন ত্বরান্বিত করা, ক্ষুদ্র-মাঝারি উদ্যোগসহ আত্মকর্মসংস্থান বিকশিত করা, বিজ্ঞান প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার, নারীর ক্ষমতায়ন, জলবায়ু পরিবর্তন এবং সমগ্র প্রক্রিয়ায় জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

তিনি বলেন, আমাদের বাজেট প্রস্তাবের পিছনে যে দর্শন কাজ করেছে ত হলো, বৈষম্যহীন, উন্নত শক্তিশালী বাংলাদেশ গড়া। তবে এর জন্য রাষ্ট্রের ভূমিকা শক্তিশালী হতে হবে। উন্নত বিশ্বে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের আয় থেকেই বাজেটের সিংহভাগ আসে। রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান দুর্বল হতে পারে না। এছাড়া দীর্ঘমেয়াদি ও স্বল্পমেয়াদি সব ধরনের সামাজিক অধিকার বাস্তবায়নও আমাদের বাজেটের দর্শন। এছাড়া রাজস্ব আয় বাড়াতে কালো টাকা বের করে আনা, যারা কর দেয় না এমন ধনীদের করের আওতায় আনা ও রাজস্ব বোর্ডের চুরি ঠেকানোর পরামর্শ দেন তিনি। এ বাজেট বাস্তবায়নে একটি কাজ করতে হবে তা হলো রেন্ট সিকার দুর্বৃত্তদের হাত থেকে সরকার ও রাজনীতিকে মুক্ত করতে হবে। সে অবস্থা সৃষ্টি তখন যখন রেন্ট শিকাররাই সরকার ও রাজনীতির অধীনস্থ সত্তায় রূপান্তরিত হবে।

বাজেটের আয় : প্রস্তাবিত বাজেটে সরকারের মোট রাজস্ব আয় হবে ৯ লাখ ৯০ হাজার ৮২০ কোটি টাকা, যার মধ্যে ৭৭ শতাংশ হবে প্রত্যক্ষ কর এবং ২৩ শতাংশ হবে পরোক্ষ কর। কাঠামোগত এ পরিবর্তনটি মৌলিক। কারণ সরকার প্রস্তাবিত চলমান অর্থবছরের বাজেটে মোট রাজস্ব আয়ের প্রাপ্তির ৫৭ শতাংশ ছিল প্রত্যক্ষ কর এবং ৪৩ শতাংশ ছিল পরোক্ষ কর। অর্থাৎ প্রস্তাবিত বাজেটে আয় কাঠামোতে বিত্তশালী ও ধনীদের ওপর করের বোঝা অতীতের তুলনায় অনেক বৃদ্ধি পাবে যা সমাজে ধন- বৈষম্য, নম্পদ-বৈষম্য ও ক্রমবর্ধমান অসমতা হ্রাস করবে। এছাড়া এবারের বাজেটে সরকারের আয়ের উৎস নিয়ে আমাদের সম্পূর্ণ নতুন প্রস্তাবনা হলো অর্থপাচার রোধ থেকে ৩০ হাজার কোটি টাকা এবং কালো টাকা উদ্ধার থেকে ২৫ হাজার কোটি টাকা আহরণ করা। অর্থপাচার রোধে ও কালো টাকা উদ্ধার নিয়ে সরকারকে সুশাসন, দুনীতিমুক্ত পরিবেশ ও স্বচ্ছতা নিশ্চিতে করতে হবে। রাজস্ব আয়ের প্রধান খাতগুলো হবে আয় ও মুনাফার ওপর কর, মূল্য সংযোজন কর, লভ্যাংশ ও মুনাফা, জরিমানা-দ-, বাজেয়াপ্তকরণ, সম্পূরক কর, লভ্যাংশ ও মুনাফা, অর্থপাচার রোধ থেকে প্রাপ্তি, কর ব্যতীত অন্যান্য রাজস্ব ও প্রাপ্তি, কালো টাকা উদ্ধার থেকে প্রাপ্তি, সম্পদ কর, যান বহন কর, মাদক শুল্ক, ভূমি রাজস্ব।

বাজেটের ব্যয় : মোট বরাদ্দ ও আনুপাতিক বরাদ্দে উন্নয়ন বাজেট হবে অনুন্নয়ন বাজেট থেকে অনেক বেশি। এখন উন্নয়ন-অনুন্নয়ন বাজেট বরাদ্দের অনুপাত ৩৯ঃ৬১, যা প্রস্তাবিত বাজেটে হবে ৫৫ঃ৪৫। উন্নয়ন বরাদ্দ এখনকার তুলনায় প্রায় ৪ দশমিক ৩ গুণ বৃদ্ধি পেয়ে ৬ লাখ ৬৮ হাজার ৭০০ কোটি টাকায় উন্নীত হবে, আর অনুন্নয়ন খাতে ব্যয় হবে ৫ লাখ ১৪ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা। উন্নয়ন বাজেট বৃদ্ধি পাবে কারণ ব্যাপক হারে কর্মসংস্থান বৃদ্ধি পাবে। প্রস্তাবনায় উল্লেখযোগ্য ব্যয় বেড়েছে। শিক্ষা প্রযুক্তি খাত, স্বাস্থ্য, সামাজিক নিরাপত্তা ও কল্যাণ খাত, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত, পরিবহন ও যোগাযোগ খাত, ঋণের সুদ ইত্যাদি। পাশাপাশি অর্থনীতি সমিতি এবারের বিকল্প বাজেট প্রস্তবে বেশ কয়েকটি খাতে বরাদ্দ বাড়াতে বলছে। এর মধ্যে রয়েছে শিক্ষা ও প্রযুক্তিতে মোট ২ লাখ ৬৪ হাজার কোটি টাকা। এরপর বিদ্যুৎ ও জ্বালানিতে ২ লাখ ৫২ হাজার, জনপ্রশাসনে ২ রাখ ৪৫ হাজার, পরিবহন ও যোগাযোগ ১ লাখ ২৮ হাজার, স্বাস্থ্য খাতে ৮৪ হাজার, সামাজিক নিরাপত্তা ও কল্যাণ খাতে ৭২ হাজার, কৃষি খাতে ৪৩ হাজার, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়নে ৩৬ হাজার, জনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা ৩৩ হাজার, প্রতিরক্ষা ২১ হাজার, শিল্প ও অর্থনৈতিক সার্ভিসে ৮ হাজার কোটি টাকার বরাদ্দের প্রস্তাব করেছে।

আসন্ন বাজেটের জন্য সুপারিশ : বাজেট হতে হবে সম্প্রসারণমুখী, মূল্যস্ফীতি আরা নামিয়ে আনার প্রস্তাব, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি ও বেকারত্ব হ্রাস, দাফতরিক বিকেন্দ্রীকরণ, শিক্ষা খাতে বরাদ্দ জিডিপির ৮ শতাংশ উন্নিত করা, স্বাস্থ্য খাতকে অর্থনৈতিক উৎপাদনশীল খাত হিসেবে বিবেচনা করা, নারী উন্নয়ন, শিল্পায়নের দিকে নজর দেয়া, অনুন্নয়নমূলক খরচ কমানো, সরকারি ব্যয় খাতের দক্ষতা বৃদ্ধি, প্রতিরক্ষা খাতের দৃশ্যমান ও অদৃশ্য ব্যয় কমানো, বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়াত উদ্যোগ নিতে হবে, রপ্তানি বাজার বহুমুখীকরণ ও নতুন বাজার তৈরিতে গুরুত্ব দিতে হবে, আর্থিক ব্যবস্থায় অটোমেশন চালু জরুরি, কৃষিতে ভর্তুকি বাড়ানো, গবেষণা উন্নযন খাতে ব্যয় বরাদ্দ বৃদ্ধি, কৃষকদের জন্য বীমা চালু, দরিদ্র প্রান্তিক মানুষের জন্য সুদবিহীন ঋণ, বৈষম্য দূরীকরণ, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীতে বরাদ্দ বাড়াতে হবে, তেল গ্যাস উন্নয়ন তহবিল গঠন, শিল্পপার্ক স্থাপন, অর্থপাচার রোধ, কালো টাকা উদ্ধার, রাজস্ব কমিশন গঠন, মেধাস্বত্ব অধিকার নিশ্চিতকরণ এবং বিনিয়োগ বোর্ডের সংস্কার নিশ্চিত করতে হবে ইত্যাদি। ড. আবুল বারকাত বলেন, উন্নয়ন প্রক্রিয়া হতে হবে প্রবৃদ্ধির সঙ্গে বণ্টন ন্যায্যতা নিশ্চিতকরণের, দ্রুত বৈষম্য হ্রাসকরণের, মানবসম্পদ দ্রুত বিকশিতকরণের, শিল্পায়ন ত্বরান্নয়নে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগসহ (এসএমই) আত্মকর্মসংস্থান বিকশিতকরণের এবং সর্বোপরি সমগ্র প্রক্রিয়ায় জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণের। এ অর্থনীতিবিদের মতে, দেশে এখন ৭০ থেকে ৮০ হাজার কোটি টাকার সমপরিমাণ অর্থপাচার হচ্ছে। বাজেটে এ সমস্যা সমাধানে পদ্ধতিগত নির্দেশনা থাকতে হবে। অর্থপাচার রোধ থেকে আগামী অর্থবছরে ৩০ হাজার কোটি টাকা আদায়ের প্রস্তাব করা হয়েছে বাজেট প্রস্তাবে।

বর্তমানে বাজেট তৈরি করা হয় সব মন্ত্রণালয়ের সুপারিশের ভিত্তিতে, যা অর্থ বিভাগ চূড়ান্ত করে। এ ব্যবস্থায় সৃজনশীল চিন্তার সুযোগ কম। এতে সমস্যার দোরগোড়ায় পৌঁছানো যায় না এবং বাজেটও বাস্তবসম্মত হয় না। এ অবস্থা নিরসনে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে একটি রাজস্ব কমিশন গঠনের প্রস্তাব দেন এ অধ্যাপক। যেটি বাজেট কিভাবে যুগোপযোগী করা যায় তার ওপর কাজ করবে। সরকারি অর্থ যারা নাড়াচাড়া করেন তারা এ অর্থ না খেয়ে থাকতে পারেন না উল্লেখ করে ড. বারকাত কয়েকটি নতুন প্রস্তাবও দেন। এর মধ্যে এসএমই মন্ত্রণালয় গঠন ও প্রবীণ নীড় গঠন করার প্রস্তাব রয়েছে।

ধনী-দরিদ্রের ক্রমবর্ধমান বৈষম্য বড় দুর্ভাবনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, দরিদ্র মানুষের ৮২ শতাংশ গ্রামে বাস করে। গ্রামে ৬০ শতাংশ খানা ভূমিহীন, ৪০ ভাগ খানায় এখনও বিদ্যুৎ সংযোগ নেই, ৬০ ভাগ মানুষ সরকারি স্বাস্থ্যসেবা থেকেও কার্যত বঞ্চিত। এক প্রশ্নের জাবাবে দেশে আনুমানিক ৫ লক্ষ কোটি টাকা থেকে ৭ লক্ষ কোটি কালো টাকা রয়েছে জানিয়ে ড. আবুল বারকাত বলেন, অর্থ মন্ত্রণালয়ের মতে কালো টাকা দেশের মোট জিডিপির ৪২ শতাংশ থেকে ৮০ শতাংশ। এটাকে কমানোর জন্য সরকার একটি শ্বেতপত্র প্রকাশ করতে পারে এবং একটি কমিশনও গঠনের দাবি জানান তিনি।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪