**   ‘আমার স্বপ্নের ঠিকানা চলচ্চিত্র’ **   বর্তমানকে উৎসর্গ করেছি আগামীর জন্য: প্রধানমন্ত্রী **   ইমরুলের সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৭১ **   নদী রক্ষায় দলমত নির্বিশেষে কাজ করতে হবে -জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান **   জিডিপির আড়াই শতাংশ যাচ্ছে দুর্নীতিবাজদেরা পেটে- দুদক কমিশনার আমিনুল ইসলাম **   অদম্য মেধাবী নুর আলমের মেডিকেলে পড়ার দায়িত্ব নিলেন “ফ্রেন্ডস ৯৭” **   মায়ের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত আইয়ুব বাচ্চু **   কুড়িগ্রামে মৌচাষের উপর কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হলো হিন্দু ধর্মালম্বীদের শারদীয় দূর্গোৎসব ॥ চিলমারী উপজেলার পুজামন্ডপ পরিদর্শন করেন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ **   কুড়িগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে ফ্রেন্ডশিপের গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত

লালমনিরহাটে ২০ টাকায় ২১ পদের চিকিৎসা

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: স্বল্প শিক্ষিত নারীদের মাধ্যমে বিশ টাকা মূল্যে বিক্রি হচ্ছে একুশ পদের হোমিও প্যাথিক ঔষধ। স্বল্প শিক্ষিত এসব সেবিকার দেয়া ঔষধপত্রে মুক্তি মিলে মানবদেহ ও গবাদি পশু-পাখির সকল রোগ। গ্রামীণ সহজ সরল মানুষদের ভুল-ভাল বুঝিয়ে এভাবে রইচ উদ্দিন আকন্দ হসপিটালের নাম ভাঙ্গিয়ে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছেন লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের তালুক দুলালী গ্রামের পল্লী সমাজ উন্নয়ন সংস্থা নামে একটি স্থানীয় এনজিও।স্থায়ী রেজিস্টার্ড কোন চিকিৎসক বা আবাসিক রোগী না থাকলেও এসএসসি পাস স্বাস্থ্য সেবিকারা গ্রামীণ মানুষের সকল প্রকার রোগের চিকিৎসাপত্র দিয়ে যাচ্ছেন দীর্ঘ আড়াই মাস ধরে। হোমিও প্যাথিক এ চিকিৎসার এক একটি শিশি ২০ টাকা সার্ভিস চার্জ মূল্যে বিক্রি করছেন তারা।

এ হসপিটালের এসএসসি পাস একজন সেবিকা সুমাইয়া বেগম জানান, পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি পড়ে প্রতিমাসে ৫ হাজার ১২৫ টাকা বেতনে নিজ গ্রামে সেবিকা হিসেবে সেবা দিতে এ চাকরিতে যোগদান করেন। যোগদান করেই এ হসপিটালের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক লোকমান আলী একটি ব্যাগে কিছু ঔষধ ও তার সেবন বিধি এবং রোগের নাম সম্বলিত একটি কাগজ হাতে ধরিয়ে দেন। ঔষধের প্রতিটি শিশি ২০ টাকা মূল্যে বিক্রি করতে হবে।

নিজ গ্রামের মা, চাচি, ভাই, বোন আর খালাদের হাতে ঔষধ তুলে দিয়ে অর্থ প্রতিষ্ঠানের অফিসে জমা দেন। এভাবে দুই মাস কেটে গেলেও বেতন ভাতা কোনটাই পাননি তিনি। উল্টো টার্গেট পূরণ না করায় চাকরি হারানোর হুমকি পেতে হচ্ছে তাকে। অবশেষে সা¤প্রতিক সময় হসপিটাল থেকে বলা হয়েছে প্রতিটি শিশি বিক্রির ২০ টাকার মধ্যে ৮ টাকা সেবিকার, ৭ টাকা প্রতিষ্ঠানের এবং ৫ টাকা রইচ উদ্দিন আকন্দ হসপিটাল বা কোম্পানী পাবে। রোগের লক্ষণ, কারণ ও প্রতিকারে কোন প্রশিক্ষণ দেয়া হয়নি এবং দীর্ঘ দুই মাস চাকরির বয়স হলেও একটি টাকা বেতন পাননি বলে দাবি করেন সেবিকা সুমাইয়া বেগম।

জানা গেছে, হসপিটালের ব্যাগ ঘাড়ে গ্রামের প্রতিটি বাড়ি বাড়ি ঘুরে গ্রামীণ সকল বয়সের মানুষদের কার কি রোগ জানার চেষ্টা করা এবং তার ঔষধ বিক্রির করাই সেবিকাদের কাজ। মানবদেহের সকল রোগের সাথে তারা বাড়ির গবাদি পশু পাখির সকল সমস্যার ঔষধও বিক্রি করেন সুমাইয়ার মত কালীগঞ্জ ও আদিতমারী দুই উপজেলার ৪২ জন সেবিকা।

মানবদেহের ত্বকের ব্রুণ মেছতা থেকে শুরু করে গ্যাস্ট্রিক আলসার, অর্শ্ব, যৌন, মহিলাদের যাবতীয় গোপন ও জটিল রোগের চিকিৎসাপত্র দিচ্ছেন এসব সেবিকা। বাদ পড়েনি লিভার, ফুসফুস, মুত্রথলি, জরায়ু, মস্তিষ্ক ও চক্ষুর মত মানবদেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের চিকিৎসা। অস্ত্রোপচার ছাড়াই যে কোন জটিল ও কঠিন রোগের চিকিৎসা দিচ্ছেন। মুলতই মানুষসহ সকল প্রাণি দেহের যাবতীয় রোগের চিকিৎসা চলে এখানে।

ভেলাবাড়ি এলাকা নেয়ামত উদ্দিন কমলাবাড়ি এলাকার রফিজ উদ্দিন জানান, ঔষধের শিশি কিনেছেন কিন্তু কোন উপকার পাননি। এটা গ্রামীণ সহজ সরল মানুষদের সাথে প্রতারণা ছাড়া কিছু না। সরকারি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক একজন হোমিও প্যাথিকের পল্লী চিকিৎসক জানান, চিকিৎসা ব্যবস্থা এত সহজ হলে তো সবাই চিকিৎসক হতেন। রেজিস্টার্ড কোন চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঔষধ সেবন করা ঠিক নয়। সেখানে চার্ট দেখে ওষুধ, সে আবার মানবদেহ ও পশু পাখির সকল রোগের চিকিৎসা। আশু ব্যবস্থা না নিলে অপচিকিৎসার কারণে সহজ সরল গ্রামের এসব মানুষের বড় ধরনের ক্ষতির সম্ভবনা রয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

তালুক দুলালী গ্রামের ওই পল্লী সমাজ উন্নয়ন সংস্থার কার্যালয়ে গতকাল শুক্রবার গিয়ে দেখা যায় সুলতান মাহমুদ নামে একজন ম্যানেজার সেবিকাদের বিক্রিত ঔষধের টাকা নিচ্ছেন এবং আগামী দিনের জন্য ঔষধ তুলে দিচ্ছেন। জানতে চাইলে তিনি বলেন, পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জনবল নিয়োগ দেয়া হয়েছে। সিভিল সার্জনের লিখিত অনুমতিপত্র থাকলে ঔষধ সংরক্ষণ, বিপণন ও চিকিৎসা দেয়ার লাইসেন্সের প্রয়োজন হয় না। মানুষ কম টাকায় ঘরে বসে চিকিৎসা পাচ্ছে- এটা ক্ষতি কি? প্রশ্ন তুলেন তিনি।

লালমনিরহাট সিভিল ডা. কাসেম আলী স্বাক্ষরিত একটি কাগজে দেখা গেল গ্রামীণ দুস্থ ও হতদরিদ্রদের মাঝে বিনামুল্যে হোমিও চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য ৬ মাসের অনুমতি দেয়া হয়েছে। তবে প্রতি মাসে কার্যক্রমের অগ্রগতি স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার মাধ্যমে সিভিল সার্জনকে অবগত করতে হবে। বিনামূল্যের চিকিৎসায় ২০ টাকা নেয়ার বিষয়ে ম্যানেজার সুলতান মাহমুদ কোন মন্তব্য করেননি।

পল্লী সমাজ উন্নয়ন সংস্থার পরিচালক এ হসপিটালের মালিক লোকমান আলী জানান, ঔষধের বিপরীতে ২০ টাকা গ্রামীণ মানুষদের জন্য কোন ব্যাপার না। বাড়িতে ঔষধটা পৌছানো হচ্ছে তাই সার্ভিস চার্জ হিসেবে এটা নেয়া হচ্ছে। প্রশিক্ষণের প্রয়োজন নেই, চার্টে রোগের নামের সাথে ঔষধের নাম ও সেবন বিধি লেখা আছে সেটা দেখে সেবিকারা ঔষধ বিক্রি করছেন। এটা কোন অপরাধ নয় বরং মানব সেবা বলে দাবি করেন তিনি।

আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নবিউর রহমান জানান, গবাদি পশু ও মানুষের চিকিৎসা এক সঙ্গে হতেই পারে না। বিষয়টি তার জানা নেই। তবে খোঁজ খবর নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডা. কাসেম আলী বলেন, রেজিস্টার্ড ভুক্ত চিকিৎসক দিয়ে বিনামুল্যে হোমিও চিকিৎসা সেবার অনুমতি দেয়া হয়েছে। তাদের অনিয়মের বিষয়টি আমিও শুনেছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪