এমপি রিমিকে হত্যার হুমকি, থানায় জিডি

গাজীপুর প্রতিনিধি: দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের কন্যা ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সিমিন হোসেন রিমি এমপিকে তারই ফুফাতো ভাই কৃষকলীগ নেতা আলম আহমেদ হত্যার হুমকি দিয়েছে- এমন অভিযোগে কাপাসিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করা হয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান প্রধান বাদী হয়ে কৃষকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আলহাজ মোতাহার হোসেন মোল্লা, আলম সরকারসহ ১৬ জনের নাম উল্লেখ করে এ জিডি করেন। কাপাসিয়া থানার জিডি নম্বর ৭৯, তারিখ ২ জুন। অপরদিকে কৃষকলীগের উপজেলা সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম বাবলু বাদী হয়ে যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের ৭১ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে কাপাসিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
উল্লেখ্য, কাপাসিয়ায় স্থানীয় সংসদ সদস্য সিমিন হোসেন রিমি সমর্থিত উপজেলা আওয়ামী লীগ এবং কৃষকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোতাহার হোসেন মোল্লা সমর্থিত উপজেলা কৃষকলীগের দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচি পালনকে কেন্দ্র করে বিরোধ রয়েছে। এর ধারাবাহিকতায় এবার পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে।
থানার সাধারণ ডায়রি সূত্রে জানা যায়, গত ১ জুন বিকালে কাপাসিয়ার দক্ষিণগাঁও এলাকার আলম সরকার নিজ বাড়িতে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়। কাপাসিয়ার এমপি সিমিন হোসেন রিমিকে হত্যা করে ফেলবে ও তার ঢাকার বাসায় গিয়ে পিটিয়ে কতল করে ফেলবে এবং কাপাসিয়া থেকে এমপি রিমিকে বিতাড়িত করবে। ঈদের পর এমপি রিমিকে ও রিমির সঙ্গে থাকা আওয়ামী লীগের লোকজনকে সময় সুযোগমতো খুন-জখম করবে বলে হুমকি দেয়।
জিডিতে কৃষকলীগের উপদেষ্টা আলম সরকার (৫৩), কেন্দ্রীয় কৃষক লীগ সভাপতি মোতাহার হোসেন মোল্লা (৬২), উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি আইন উদ্দিন (৬৫), সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম বাবলু (৫০), যুগ্ম সম্পাদক হাফিজুল হক চৌধুরী আইয়ুব (৪৫), কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সদস্য জানে আলম কনকসহ (৪৫) অজ্ঞাতনামা আরো ৮-১০ জনের নাম উল্লেখ রয়েছে।
গত ১৯ এপ্রিল কড়িহাতায় কৃষকলীগ ‘সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমের প্রচার’ সভার পাশে পাল্টা কর্মসূচি দেয় ছাত্রলীগ। পরে স্থানীয় প্রশাসন সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করে। গত ৩১ মে বারিষাবতে কৃষকলীগের উন্নয়নমূলক প্রচার সভা ও ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে। পরে সেখানে পাল্টা স্থানীয় সংসদ সদস্যের সমর্থক ছাত্রলীগ ও যুবলীগ সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে মঞ্চ, তিনটি মাইক্রোবাস ভাঙচুর করে এবং ইফতার ছিনিয়ে নেয় ও তছনছ করে।
তাজউদ্দীন কন্যা সিমিন হোসেন রিমি এমপি গত শনিবার বিকেলে সরকারি ডাকবাংলোতে স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আমার মধ্যে কোনো সম্পর্কের অবনতি হয়নি। কেউ তা কখনো করতেও পারবে না। একটি চক্র কাপাসিয়াকে অশান্ত করতে ও কাপাসিয়ায় লুটের রাজ্য কায়েম করতে উঠেপড়ে লেগেছে। বঙ্গবন্ধু ও তাজউদ্দীন পরিবারের মাঝ খানে এসে কেউ দূরত্ব সৃষ্টি করতে পারবে না।
আলম আহমদের দেওয়া হুমকির প্রতিবাদে ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ হলো মূল সংগঠন। মূল সংগঠনের বাইরে সহযোগী সংগঠন যদি কোনো অবৈধ কার্যক্রম, অনৈতিক কাজ করে সেটার বিরুদ্ধে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা ও আইনগত ব্যবস্থা নিব। এছাড়া কোনোভাবেই তাকে থামানো যাবে না।
রিমি বলেন, কথায় বলে গর্ত করে অন্যকে ফাঁদে ফেলতে চাইলে নিজেই ফাঁদে পড়তে হয়। তেমনি কৃষকলীগ ফাঁদে ফেলতে গিয়ে নিজেরাই গর্তে পড়ে গেছে। এরকম প্রকাশ্যে খুনের হুমকি দিয়ে নিজের ফাঁদে নিজে আটকা পড়ে গেছে। আলম বলেছে কতল করব, খুন করব। কতল শব্দ জামায়াতে ইসলাম ব্যবহার করে। এত বড় স্পর্ধা কোথা থেকে পায়? এটা আমার প্রশ্ন, এই স্পর্ধাগুলো কারা দেয়। সেগুলো খুঁজে বের করতে হবে। মোতাহার মোল্লা, রশিদ সরকার, বাবলু, আইয়ুব এদের কাউকে আমাদের যে চিন্তা এটার বাইরে রাখতে পারব না। এদের ইন্ধনে সব হচ্ছে।
তাজউদ্দীন কন্যা নিজের ফুফাতো ভাই আলম আহমদ প্রসঙ্গে বলেন, কোনো দিন শুনিনি কৃষকলীগের উপদেষ্টা আছে। শান-শওকত করে, ঢাকঢোল পিটিয়ে কৃষকলীগ সভাপতির সম্মতিতে উপদেষ্টা পদ তৈরি করা হয়েছে।
রিমি অভিযোগ করে বলেন, গত দুই মাস আগে মোতাহার মোল্লা ফোন দিয়ে আমার সঙ্গে অশ্লীল ভাষায় কথা বলেছে। তারপর ফোন কেটে তাৎক্ষণিক কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাকে ফোন করে বিষয়টি জানাই। তখন উত্তরে রেজা বলেছেন মোতাহার মোল্লাকে নিয়ে পারতেছি না, তাকে নিয়ে আর সম্ভব না আপনি বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কাছে বলেন। তখন আমি চিন্তা করেছি আরেকটু দেখি। পরে যেখানে বলার আমি সেখানে বলব।
কাপাসিয়ার এই সংসদ সদস্য বলেন, কিছুদিন আগে ত্রিশালে নজরুল জয়ন্তী অনুষ্ঠানে গিয়েছি। সেখানকার আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ, এমপিসহ এলাকার অনেক লোক আমাকে বলেছে মোতাহার মোল্লা টাকা ছাড়া কমিটি করে না। লজ্জা লাগে আমার এসব শুনলে। এছাড়া যশোর, চট্টগ্রাম, কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আমাকে ফোন করে নেতারা অভিযোগ করেন।
তিনি আরও অভিযোগ করেন, মোতাহার মোল্লা আমার অফিসে ফোন করে অশ্লীল ভাষায় কথা বলেছে। এর রেকর্ড আমার কাছে আছে। আপনারা একটা বিষয় মনে রাখবেন, সোহেলের নামে মিথ্যা জিডি করে এই আলম সরকারের সঙ্গে যারা আছে মোতাহার মোল্লা থেকে শুরু করে সবাই কাপাসিয়ায় ছড়িয়েছে।
অপরদিকে কৃষকলীগের উপদেষ্টা আলম সরকার অভিযোগ করে বলেন, কাপাসিয়ায় আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন, জাতীয় শোক দিবস, ৭ মার্চসহ কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করে না। আমরা কৃষকলীগের মাধ্যমে গত কয়েক মাস যাবৎ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম প্রচারে সভা-সমাবেশের আয়োজন করছি। তিনি আরও বলেন, আমরা এ ধরনের প্রচার সভা করতে বাধার সম্মুখীন হচ্ছি।
গত ১৯ এপ্রিল কড়িহাতায় এমনই এক ‘সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমের প্রচার’ সভার পাশে পাল্টা কর্মসূচি দেয় ছাত্রলীগ। পরে স্থানীয় প্রশাসন সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করে। গত ৩১ মে বারিষাবতে উন্নয়নমূলক প্রচার সভা ও ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সেখানে স্থানীয় সংসদ সদস্যের সমর্থক ছাত্রলীগ ও যুবলীগ সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে মঞ্চ, তিনটি মাইক্রোবাস ভাঙচুর করে এবং ইফতার ছিনিয়ে নেয় ও তছনছ করে।
জানা যায়, ২০১৩ সালে সম্মেলনের মাধ্যমে কাপাসিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করা হয়। নির্বাচনে স্থানীয় সংসদ সদস্যের সমর্থনপুষ্ট মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ১ ভোটে অ্যাডভোকেট আমানত হোসেন খানকে পরাজিত করে সভাপতি নির্বাচিত হন। পরে উপজেলার অনেক প্রবীণ ও ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীকে কমিটি থেকে বাদ দেওয়া হয়। এ কমিটি গঠনের পর থেকে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি ঘটতে শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় উপজেলা আওয়ামী লীগ থেকে অ্যাডভোকেট আমানত হোসেন খান, সম্মেলনে নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক আনিছুর রহমান আরিফ, টোক ও সিংহশ্রী ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যানসহ ডজন খানেক নেতাকর্মীকে বহিষ্কার করা হয়। যদিও পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদিত জেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে অ্যাডভোকেট আমানত হোসেন খানকে সহসভাপতি মনোনীত করা হয়।
এছাড়া বহিষ্কৃত অনেককে জেলা ও কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন পদে নির্বাচিত করা হয়। দল ক্ষমতায় থাকার পরেও অনেক নেতাকর্মীর নামে থানায় মামলা হয়। নানা বিষয় নিয়ে কাপাসিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সভাপতি মোতাহার হোসেন মোল্লার সঙ্গে স্থানীয় সংসদ সদস্যের নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতার মধ্যে দূরত্ব তৈরি হয়। অনেক প্রবীণ ও ত্যাগী নেতাকর্মী নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন।
এ অবস্থায় তাজউদ্দীন আহমদের ভাগিনা ও শিল্পপতি আলম সরকারকে কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের উপদেষ্টা মনোনীত করা হয়। মোতাহার হোসেন মোল্লার নেতৃত্বে কৃষকলীগ উপজেলায় আলাদা কর্মসূচি পালন শুরু করে। এরই মধ্যে আলম সরকার আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে নিজের নাম ঘোষণা করেন। গত ১ জুন শুক্রবার সংবাদ সম্মেলন করে আলম আহমেদ অভিযোগ করেন। এমপি রিমিকে হত্যার হুমকি দেন।
পরে শনিবার রাতেই কাপাসিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান প্রধান বাদী হয়ে কাপাসিয়া থানায় একটি জিডি করেন (জিডি নং ৭৯)। থানায় লিপিবদ্ধ জিডিতে অভিযোগ করা হয়, বিবাদীরা ভাড়া করা সন্ত্রাসী এনে কর্মিসভা করে স্থানীয় এমপি সিমিন হোসেন রিমির বিরুদ্ধে উসকানিমূলক, আপত্তিকর, কুরুচিপূর্ণ, মানহানিকর বক্তব্য দিয়েছেন। সংসদ সদস্যকে কাপাসিয়া থেকে বিতাড়িত করার, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাকে মনোনয়ন না দেওয়ার এবং জীবননাশের হুমকি দিয়েছে। বিবাদীরা স্থানীয় রাজনীতিকে কলুষিত করছে বলে অভিযোগ করেন। এদিকে পাল্টাপাল্টি জিডি, মামলা ও সংবাদ সম্মেলনের ঘটনায় উভয় পক্ষের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪