বাজেট পাস: ভ্যাট ও শুল্কে পরিবর্তন

1530220136

যুগের খবর ডেস্ক: প্রস্তাবিত বাজেটের কিছু বিষয় সংশোধন করে এবং কিছু নতুন প্রস্তাব সংযোজন করে জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৮ জুন) জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার এই বাজেট পাস হয়। এর আগে গত বুধবার (২৭ জুন) অর্থবিল পাসের মধ্য দিয়ে নতুন বাজেটের কর প্রস্তাবগুলো কার্যকর হয়। আগামী ১ জুলাই থেকে বাস্তবায়ন শুরু হবে নতুন অর্থবছরের বাজেট। এর আগে গত ৭ জুন বাজেট পেশের পর কয়েক দিন প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর জাতীয় সংসদে সদস্যরা বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। ব্যবসায়ী মহলও অনেক প্রস্তাব করেন। অর্থনীতিবিদ, পেশাজীবী, সংবাদপত্রসহ বিভিন্ন পক্ষ বাজেটের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা করেছেন। এসব আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে বেশ কিছু প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার এবং কিছু নতুন প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী। অর্থমন্ত্রীর এসব প্রস্তাব সংসদের অনুমোদনের মাধ্যমে অর্থবিলেও অন্তর্ভুক্ত হয়। বেশিরভাগ সংশোধনী আনা হয় ভ্যাট ও আমদানি শুল্কে। আগামী বাজেটে নতুন করে ইন্টারনেট সেবার মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়। কম্পিউটার ও এর যন্ত্রাংশের ওপর ভ্যাট অব্যাহতি দেয়া হয়। দেশি মোবাইল ফোন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের ওপর ভ্যাট অব্যাহতি রেখে এ শিল্পের বিকাশের জন্য সংযোজনকারী প্রতিষ্ঠানের জন্য শুধু স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে ৫ শতাংশের অতিরিক্ত ভ্যাট অব্যাহতি দেয়া হয়। নিম্নস্তরের সিগারেটের প্রতি ১০ শলাকার মূল্য ৩২ থেকে বাড়িয়ে ৩৫ টাকা এবং অতি উচ্চস্তরের সিগারেটের প্রতি ১০ শলাকার মূল্য ১০১ থেকে বাড়িয়ে ১০৫ টাকা করার প্রস্তাব করেন তিনি। প্রতি গ্রাম জর্দার ট্যারিফ মূল্য ১ টাকা ২০ পয়সা এবং প্রতি গ্রাম গুলের ট্যারিফ মূল্য ৬০ পয়সা নির্ধারণ করেন।

এছাড়া পেট্রোলিয়াম জেলি ও এনার্জি বাল্পের সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়েছে। মোটরসাইকেল সংযোজনকারী প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে শুধু স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে ৭ শতাংশের অতিরিক্ত ভ্যাট অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। ক্রেডিট রেটিং এজেন্সির ১৫ শতাংশ ভ্যাটের পরিবর্তে ৭ শতাংশ হয়েছে। অর্থমন্ত্রী বলেন, কর আরোপ, মওকুফ, বিদ্যমান করহার ও করভিত্তির যৌক্তিকীকরণ প্রস্তাব অনুমোদন হলে একটি ব্যবসায় ও করদাতা বান্ধব অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি হবে।

৭ জুন বাজেট পেশের সময় গুঁড়া দুধ বাল্ক আমদানিতে অর্থমন্ত্রী আমদানি শুল্ক ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ করার প্রস্তাব করেছিলেন। দেশের দুগ্ধ খামারিদের স্বার্থ সংরক্ষণে তা আবার ২৫ শতাংশে অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। হেপাটাইটিস বি রোগের ওষুধের কাঁচামাল আমদানির শুল্ক শূন্য করা হয়েছে। সিমকার্ড ও স্মার্টকার্ড তৈরি কাঁচামাল আনপ্রিন্টেড পিভিসি শিট আমদানিতে শুল্ক ১৫ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ করা হয়েছে। ওষুধের মোড়ক তৈরিতে ব্যবহৃত দুটি কাঁচামালের আমদানি শুল্ক ১০ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে।

দেশীয় মোটর উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সুরক্ষায় ৭৫০ ওয়াট পর্যন্ত ক্ষমতার মোটরের আমদানি শুল্ক ১ থেকে বাড়িয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে। পাশাপাশি ১৫ শতাংশ ভ্যাট, ৫ শতাংশ অগ্রিম আয়কর ও ৫ শতাংশ অগ্রিম বাণিজ্যিক ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে। টেলিভিশন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের ওপেন সেল আমদানিতে আলাদা এইচএস কোড সৃষ্টি করে ৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক বসানো হয়েছে। ডিজিটাল কার্ড তৈরির মডিউল আমদানি শুল্ক ১০ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে।

ডাবল কেবিন পিকআপ ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। বর্তমানে ২০০০ সিসি থেকে ৩০০০ সিসি পর্যন্ত ডাবল কেবিন পিকআপ আমদানিতে ২৫ শতাংশ রেগুলেটরি ডিউটি রয়েছে। এ ধরনের পিকআপ আমদানি উৎসাহিত করার জন্য নিয়ন্ত্রিত শুল্ক ২৫ থেকে কমিয়ে ২০ শতাংশ করা হয়েছে।

২০৪১ সালের মধ্যে সমৃদ্ধ দেশ গড়তে ৭ দশমিক ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্য সামনে রেখে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট পাস করা হয়েছে। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার শম জাতীয় সংসদের ২১তম (বাজেট) অধিবেশনের ১৬তম কার্যদিবসে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা এবং বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদের উপস্থিতিতে কণ্ঠভোটে সর্বসম্মতিক্রমে নির্দিষ্টকরণ বিল-২০১৮ পাসের মাধ্যমে এ বাজেট পাস করা হয়। আগামী ১ জুলাই ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম দিন থেকে এ বাজেট কার্যকর হবে।

৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার এই বাজেটের মধ্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন ৩ লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) মাধ্যমে কর হিসেবে ২ লাখ ৯৬ হাজার ২০১ কোটি টাকা আদায় করা যাবে বলে আশা করছেন অর্থমন্ত্রী। বাজেটে উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭৯ হাজার ৬৬৯ কোটি টাকা। আর পরিচালন ব্যয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ৮৪ হাজার ৯০৪ কোটি টাকা। বাজেটে সামগ্রিক ঘাটতি দেখানো হয়েছে ১ লাখ ২৫ হাজার ২৯৩ কোটি টাকা। ঘাটতির এই পরিমাণ মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৪ দশমিক ৯ শতাংশ। এই ঘাটতির মধ্যে ৪ হাজার ৫১ কোটি টাকা বৈদেশিক অনুদান থেকে মেটানোর আশা করছেন অর্থমন্ত্রী। ওই অনুদান পাওয়া গেলে ঘাটতি থাকবে ১ লাখ ২১ হাজার ২৪২ কোটি টাকা, যা জিডিপির ৪ দশমিক ৭ শতাংশ।

উচ্চতর প্রবৃদ্ধি অর্জনের ধারা অব্যাহত রাখতে গত অর্থবছরের ঘোষিত বাজেটের চেয়ে ১৬ শতাংশ ব্যয় বাড়িয়ে নতুন অর্থবছরের ব্যয়ের ফর্দ তৈরি করেছেন অর্থমন্ত্রী, যা বিদায়ী বছরের সংশোধিত বাজেটের চেয়ে ২৫ শতাংশ বেশি। বাজেটে মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৫ শতাংশ হবে বলে প্রত্যাশা করা হয়েছে। বাজেটে উন্নয়নের লক্ষ্য ও কৌশল হচ্ছে টেকসই উচ্চতর প্রবৃদ্ধি অর্জন এবং মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির মাধ্যমে জনগণের জীবনমান উন্নয়ন।

গত ৭ জুন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এ বাজেট পেশ করেন। ১০ জুন থেকে ২৭ জুন পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, সরকারি দল, বিরোধী দল ও স্বতন্ত্র সদস্যসহ ২২৩ জন সংসদ সদস্য মোট ৫৫ ঘণ্টা ৫৫ মিনিট মূল বাজেট ও সম্পূরক বাজেটের ওপর আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। বুধবার এই আলোচনা শেষ হয়। অধিবেশনের শুরুতে দিনের কার্যসূচি অনুযায়ী মন্ত্রীদের জন্য নির্ধারিত প্রশ্ন-উত্তর পর্ব টেবিলে উপস্থাপন শেষে ২০১৮-১৯ সালের বাজেটে প্রস্তাবিত দায়যুক্ত ব্যয় ব্যতীত অন্যান্য ব্যয় সম্পর্কিত মঞ্জুরি দাবির ওপর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

বাজেট পাসের প্রক্রিয়ায় মন্ত্রীরা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের ব্যয় নির্বাহের যৌক্তিকতা তুলে ধরে মোট ৫৯টি মঞ্জুরি দাবি সংসদে উত্থাপন করেন। এই মঞ্জুরি দাবিগুলো সংসদে কণ্ঠভোটে অনুমোদিত হয়। মঞ্জুরি দাবির যৌক্তিকতা নিয়ে বিরোধী দল ও স্বতন্ত্র ৯ জন সংসদ সদস্য মোট ৪৪৮টি ছাঁটাই প্রস্তাব উত্থাপন করেন। এর মধ্যে ৫টি মঞ্জুরি দাবিতে আনীত ছাঁটাই প্রস্তাবের ওপর বিরোধী দলের সদস্যরা আলোচনা করেন। পরে কণ্ঠভোটে ছাঁটাই প্রস্তাবগুলো নাকচ হয়ে যায়। এরপর সংসদ সদস্যরা টেবিল চাপড়িয়ে নির্দিষ্টকরণ বিল-২০১৮ পাসের মাধ্যমে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট অনুমোদন করেন।

নির্দিষ্টকরণ বিল-২০১৮ পাস
উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন খাতে সরকারের প্রয়োজনীয় ব্যয় নির্বাহের লক্ষ্যে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জন্য সংযুক্ত তহবিল থেকে ৫ লাখ ৭১ হাজার ৮৩৩ কোটি ৮২ লাখ ৯২ হাজার টাকা ব্যয় করার কর্তৃত্ব দিয়ে বৃহস্পতিবার সংসদে নির্দিষ্টকরণ বিল-২০১৮ সর্বসম্মতিক্রমে পাস করা হয়েছে। ২০১৯ সালের ৩০ জুন সমাপ্য অর্থবছরের জন্য সরকারের অনুমিত ব্যয় নির্বাহের লক্ষ্যে সংযুক্ত তহবিল থেকে অর্থ প্রদান ও নির্দিষ্টকরণের কর্তৃত্বদানের জন্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সংসদে এই নির্দিষ্টকরণ বিল-২০১৮ উত্থাপন করে পাসের প্রস্তাব করেন। মন্ত্রীগণ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের ব্যয় নির্বাহের যৌক্তিকতা তুলে ধরে মোট ৫৯টি মঞ্জুরি দাবি সংসদে উত্থাপন করেন। এই মঞ্জুরি দাবি প্রস্তাবগুলো সংসদে কণ্ঠভোটে অনুমোদিত হয়। বিরোধী দলের পক্ষ থেকে এসব দাবির যৌক্তিকতা নিয়ে মোট ৪৪৮টি ছাঁটাই প্রস্তাব আনা হয়। এর মধ্যে ৫টি দাবির ওপর বিরোধী দল আনীত ছাঁটাই প্রস্তাবের ওপর সংশ্লিষ্ট সদস্যগণ বক্তব্য দেন। এই ছাঁটাই প্রস্তাবগুলো কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়। পরে কণ্ঠভোটে নির্দিষ্টকরণ বিল ২০১৮ পাস হয়।

সংসদ অধিবেশন মুলতবি : বৈঠক বসবে সোমবার

সংসদের বৈঠক আগামী ২ জুলাই সোমবার বিকেল ৫টা পর্যস্ত মুলতবি করা হয়েছে। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এ মুলতবি ঘোষণা করেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪