ব্রহ্মপুত্রের ডানতীর রক্ষা প্রকল্পে ফের ধস ॥ নতুন করে ১‘শ ২০ মিটার নদীগর্ভে বিলীন

Picture Chilmari- 02.07.2018

এস, এম নুআস: কুড়িগ্রামের চিলমারীতে কাজ শেষ হতে না হতেই ব্রহ্মপুত্র নদের ডানতীর রক্ষা প্রকল্পে ফের ধস সৃষ্টি হয়েছে। রবিবার বিকেলে নতুন করে আবারো ১‘শ ২০মিটার নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। গত সপ্তাহে ১২ পরিবারের ১৭টি ঘর নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে। কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কর্তৃক ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙন থেকে চিলমারী উপজেলাকে রক্ষার জন্য ডানতীর প্রতিরক্ষা প্রকল্প ও বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির আশ্রয় নেয়ায় কাজ শেষ না হতেই বাঁধ ও প্রকল্পের বিভিন্ন স্থান ধসে যাচ্ছে। গত ১০ মাসে ৭ দফায় প্রায় ৩৫০ মিটার এলাকার বাঁধ ও প্রকল্পে ধস সৃষ্টি হওয়াকে ঘিরে চরম আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী।
জানাগেছে, ব্রহ্মপুত্র নদের কড়াল গ্রাস থেকে চিলমারীকে রক্ষার জন্য নির্মিত ব্রহ্মপুত্রের ডানতীর প্রতিরক্ষা প্রকল্প ও পাউবো বাঁধের কাজ শেষ হতে না হতেই গত বছরের ১৩ জুলাই কাঁচকোল উত্তরওয়ারী এলাকায় মাসুদ এন্ড কোং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের ১৮০৫৬ নম্বর সাইডের পাউবো বাঁধে ২৫ মিটার জায়গা, ১৯ জুলাই কাচকোল দঃওয়ারী মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নজরুল ইসলামের বাড়ী সংলগ্ন ডানতীর প্রতিরক্ষা প্রকল্পের সুশেন চন্দ্রের (রূপান্তর জেভি) ঠিকাদারের ড৪-২/২ নম্বর সাইডের ২৫ মিটার এলাকা, ২৫জুলাই কাঁচকোল স্লুইচগেটের উত্তরে ১০ মিটার, ২৮ জুলাই স্লুইচ গেটের ১‘শ গজ উত্তরে খন্দকার শাহিন আহমেদের ১৮০৪৯ নম্বর সাইডের প্রায় ৩০ মিটার এলাকা নদীতে ধসে যায়। চলতি শুকনা মৌসুমে নদীতে সামান্য পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ১৭ এপ্রিল গভীর রাতে কাচকোল দক্ষিণ খামার এলাকায় ডানতীর প্রতিরক্ষা প্রকল্পের সুশেন চন্দ্রের (রূপান্তর জেভি) ঠিকাদারের ড৪-২/২ নম্বর (আইডি-১৮০৪১) সাইডের ৫০ মিটার এলাকা, ১৬ জুন কাঁচকোল দক্ষিণ খামার মাঝিপাড়া এলাকায় ডানতীর প্রতিরক্ষা প্রকল্পের ফরহাদ হোসেন ঠিকাদারের ড৪-১/২ নম্বর সাইডের প্রায় ৯০ মিটার এলাকা ও গত রবিবার সকালে নতুন করে প্রায় ১‘শ ২০ মিটার ডানতীর রক্ষা প্রকল্প নদীতে ধসে যায়। এ নিয়ে গত ১০ মাসের ব্যবধানে ওই এলাকার প্রায় ৩৫০ মিটার ডানতীর প্রতিরক্ষা প্রকল্প ও বাঁধের ব্লক ধসে পড়ে।
সোমবার সকালে সরেজমিনে রাণীগঞ্জ সরদারপাড়া এলাকার স্থানীয় লোকজন এ প্রতিনিধিকে বলেন, চিলমারী প্রতিরক্ষার বাঁধ নির্মানে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে সিসি ব্ল¬ক তৈরি এবং জিও টেক্সটাইল ফিল্টার ও ব্ল¬ক বসানোয় মানা হয়নি সরকারি নিয়মাবলি। এমনকি সঠিক ব্লক ডাম্পিং এবং গাইড ওয়ালে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ব্লক না থাকায় কাজ শেষ হতে না হতেই বিভিন্ন জায়গায় ধসের সৃষ্টি হচ্ছে। স্থানীয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় থেকে ওই সাইডের ঠিকাদারের লোকজন কাজে অনিয়ম দুর্নীতি করেছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। কাজ শেষ হতে না হতেই বিভিন্ন জায়গায় ব্লক ও পিচিং ধসে যাওয়ার ঘটনায় চরমভাবে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন বার বার নদী ভাঙ্গনের শিকার হওয়া নদীতীরবর্তি মানুষ।
রাণীগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মন্জরুল ইসলাম বলেন, ওই সাইডের কাজে ডাম্পিং এবং পিচিং কোনটিই ঠিক মতো হয়নি। যার ফলে কাজ শেষ না হতেই বিভিন্ন জায়গায় ধস দেখা দিয়েছে। এজন্য তিনি ওই এলাকার প্রভাবশালী কয়েকজনকে দায়ী করেন।
এব্যাপারে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম কাজে অনিয়মের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কাঁচকোল এলাকার ওই অংশটিতে নদী বেশী গভীর হওয়ায় ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। আমরা বিষয়টি উপরে জানিয়েছি, উপরের অনুমতিক্রমে জরুরী ভিত্তিতে জিও ব্যাগ ফেলা হবে। কিন্তু এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে কোন কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করা তো দূরের কথা ধসে যাওয়া স্থান পর্যন্ত পরিদর্শন করা হয়নি।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪