নির্বাচন :তিন সিটিতেই অশান্তির ছায়া সিলেটে উদ্বেগ

সিলেট প্রতিনিধি: আধ্যাত্মিক নগরী সিলেটে শান্তির সুনাম সর্বজনবিদিত। হজরত শাহজালাল (রহ.), হজরত শাহ পরাণ (রহ.) ও হজরত বোরহান উদ্দিনের (রহ.) স্মৃতিবিজড়িত এই পুণ্যভূমিতে রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব-বিবাদ নেই। দেশের অন্য সব এলাকার মতো রাজনীতির নামে হাঙ্গামা ঘটে না এই নগরে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপি তো বটেই, জামায়াতের নেতাকর্মীরাও তাদের সঙ্গে মিলেমিশে থাকেন এখানে।
কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে সিলেটের ঐতিহ্যগত এই সুনামে কিছুটা চিড় ধরেছে। শান্তি, সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির সিলেটে এখন অশান্তি বাসা বাঁধতে শুরু করেছে। সিটি নির্বাচন সামনে রেখে ক্রমেই অশান্ত হয়ে পড়ছেন রাজনৈতিক দলের কিছু নেতাকর্মী। সুযোগ পেলেই তারা প্রতিপক্ষের পোস্টার ছিঁড়ছে, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া এবং পরস্পরের সঙ্গে তর্ক-বিতর্কে জড়িয়ে পড়ছেন। পরস্পরের বিরুদ্ধে কটূক্তিও করছেন। এ নিয়ে বিভিন্ন মহলেই দেখা দিয়েছে উদ্বেগ।
অথচ সিলেটের ঐতিহ্য অনুযায়ী, এসব কিছুই হওয়ার কথা নয়। তাই এ নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে প্রধান দুই প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগের বদর উদ্দিন আহমদ কামরান ও বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী। দুই নেতাই প্রায় অভিন্ন কণ্ঠে অতীতের মতো আগামীতেও রাজনৈতিক সহাবস্থানের বিষয়ে নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।
মূলত এই দুই প্রার্থীর সমর্থক ও কিছু নেতাকর্মীর অগণতান্ত্রিক মানসিকতা নিয়ে সিলেটে রাজনৈতিক অস্থিরতা সৃষ্টির আশঙ্কা তৈরি হয়েছে বলে এখানকার রাজনৈতিক বিশ্নেষকরা মনে করছেন। তাদের দৃষ্টিতে, এই নির্বাচনে নগর জামায়াতের আমির অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়েরের আকস্মিক অংশগ্রহণও এক ধরনের বিরূপ পরিস্থিতি তৈরি করেছে।
এ ব্যাপারে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া গতকাল মঙ্গলবার সমকালকে জানিয়েছেন, সব ধরনের পরিস্থিতি মোকাবেলায় পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। নির্বাচন-সংক্রান্ত আইনের কোনো লঙ্ঘন হলে অবশ্যই তাৎক্ষণিকভাবে জরুরিভিত্তিতে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে স্থানীয় কয়েকজন রাজনৈতিক কর্মীর দৃষ্টিতে, এহসানুল মাহবুব জুবায়ের প্রার্থী হওয়ার পর জামায়াতের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ে বিএনপির। দীর্ঘদিনের মিত্র দুই দলের নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ হন। তাদের মধ্যে মুখ দেখাদেখিও হচ্ছে না। অবশ্য এ নিয়ে চিন্তিত নন নিবন্ধন হারানো জামায়াতের প্রার্থী। তিনি বলেছেন, সিলেট সিটির নির্বাচন নিয়ে জামায়াতের সঙ্গে বিরোধ তৈরি হবে না বিএনপির। তবে বিএনপি প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী সিলেটে জামায়াতের অবস্থানকে আমলেই নিচ্ছেন না। তার ধারণা, এ নির্বাচনে জামায়াত কোনো ফ্যাক্টর নয়।
সিলেটের রাজনীতিতে জামায়াতের সঙ্গে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের সখ্য রয়েছে বলে ব্যাপক গুঞ্জন রয়েছে। আওয়ামী লীগের এই প্রার্থী অবশ্য তা অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেছেন, জামায়াতকে জড়িয়ে তার সম্পৃক্ততার গুঞ্জন একেবারেই অসত্য। বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সমন্বয়ক ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন জানিয়েছেন, একটি অপশক্তি শান্ত সিলেটকে অশান্ত করার ষড়যন্ত্র করছে। বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর দুই মেয়র প্রার্থী পাতানো খেলা খেলছে। সিলেটে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করছে।
গত তিন দিনে সিসিক নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন স্থান সরেজমিন পরিদর্শনকালে জানা গেছে, টিলাগড়, দর্শন দেউড়িসহ বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে জামায়াত নেতাকর্মীদের কয়েক দফায় ধাওয়া ও পাল্টা ধাওয়ার পাশাপাশি মাইক ভাংচুরের ঘটনা ঘটছে। নির্বাচনী প্রচার কার্যক্রম চালাতে গিয়ে মুখোমুখি হলেই তর্কযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছেন দুই দলের নেতাকর্মীরা।
অন্যদিকে জামায়াত ও ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের বিদ্রূপ করছেন বিএনপির কর্মীরা। তাদের বিরুদ্ধে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী বদরুজ্জামান সেলিমের কর্মী-সমর্থকদের নানাভাবে ভয়-ভীতি দেখানোর অভিযোগও রয়েছে।
এই নির্বাচনী এলাকায় তুলনামূলক বিচারে ধানের শীষের চাইতে নৌকা প্রতীকের পোস্টার কম। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বদর উদ্দিন আহমদ কামরান বলেছেন, বিএনপির মেয়র প্রার্থীর সমর্থকরা রাতের আঁধারে নৌকা প্রতীকের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলছে। আরিফুল হক চৌধুরী অবশ্য তা অস্বীকার করেছেন। তার বক্তব্য, পোস্টার সাঁটানোর জন্য কর্মীই খুঁজে পাচ্ছেন না আওয়ামী লীগ প্রার্থী। এই দুই প্রার্থী পরস্পরের বিরুদ্ধে মন্তব্য করলেও বাস্তবতা হলো, নির্বাচনী পোস্টার ছিঁড়ে ফেলার ঘটনা ঘটছে। এ নিয়ে অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়ছে। এক ধরনের চাপা উত্তেজনাও দেখা দিয়েছে। সর্বশেষ গতকাল ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের সমর্থনে নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের মতবিনিময় বৈঠকেও অস্থির পরিস্থিতি তৈরি হয়ে ছিল। এ নিয়ে নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে ধর্মঘটের হুমকিও দেওয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে সিলেটের সর্বজন শ্রদ্ধেয় শিক্ষাবিদ ইমেরিটাস অধ্যাপক আবদুল আজিজ সমকালকে বলেছেন, সিলেট শান্তির শহর। শান্তির এই শহরে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনই সবার প্রত্যাশা। নির্বাচনে অংশ নেওয়া রাজনৈতিক দলগুলো নিশ্চয়ই জনমনের এই প্রত্যাশাকে ধারণ করবে। তারা অশান্তির সৃষ্টি করবে না আশা করছেন এই ভাষাসংগ্রামী।
অধ্যাপক গোলাম কিবরিয়াও প্রায় একই ধরনের অভিমত দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, সিলেটের মানুষ শান্তিপ্রিয়। তারা নিজেদের শান্তির শহরে অশান্তি দেখতে চান না। সম্প্রীতির নির্বাচন দেখতে চান। সেটা নিশ্চিত করতে স্থানীয় প্রশাসন সতর্ক থাকবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন সিলেট শিক্ষা বোর্ডের সাবেক এই চেয়ারম্যান। তার বিশ্বাস, নিশ্চয়ই নির্বাচন কমিশন শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করবে। কোথাও নির্বাচন কেন্দ্রিক অশান্তি তৈরি হবে না।
সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম পরিচালক এবং ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সাবেক পরিচালক হিজকিল গুলজারের মতে, শান্তির শহর সিলেটে রাজনৈতিক অস্থিরতা সৃষ্টির আশঙ্কা নেই। নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে কিছু সংকট থাকলেও তার সমাধানও হয় বলে মনে করছেন এই ব্যবসায়ী নেতা। তার প্রত্যাশা, সিলেট শহরকে আরও শান্তিময় করে তুলতে সিলেটবাসী আগামী ৩০ জুলাইয়ের নির্বাচনে সৎ এবং যোগ্য ব্যক্তিকেই নির্বাচিত করবে।
হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান রুহুল আলম চৌধুরী উজ্জ্বল এক রকম ভীতিজড়ানো ভাষায় বলেছেন, কেন জানি হঠাৎ করেই অশান্ত হয়ে উঠছে সিলেট শহর। এটা তো শান্তিপ্রিয় সিলেটবাসীর প্রত্যাশা নয়। আধ্যাত্মিক এই নগরে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনই সবার প্রত্যাশা। নিশ্চয়ই এই প্রত্যাশা পূরণে সবাই মনোযোগী হবেন বলে মনে করছেন তিনি।
আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোকাদ্দেস বাবুলের দৃষ্টিতেও নির্বাচনকে সামনে রেখে সিলেট ক্রমেই অশান্ত হয়ে উঠছে। তার দৃষ্টিতে, এ জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর কিছু নেতাকর্মীর অস্থির মানসিকতাই দায়ী। তিনি শান্তিপ্রিয় সিলেটের ঐতিহ্য ধরে রাখতে শান্ত থাকার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
সিলেট মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মুশফিক জায়গীরদার বলেছেন, বিএনপি প্রার্থীর কারণেই অশান্ত হয়ে উঠছে সিলেট। নিশ্চিত পরাজয় বুঝতে পেরে আওয়ামী লীগের পোস্টার ছিঁড়ছে বিএনপির কর্মীরা। সিলেটকে অশান্ত করার ষড়যন্ত্রে জামায়াত কর্মীরাও জড়িত বলে দাবি করেছেন তিনি।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪