**   মায়ের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত আইয়ুব বাচ্চু **   কুড়িগ্রামে মৌচাষের উপর কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হলো হিন্দু ধর্মালম্বীদের শারদীয় দূর্গোৎসব ॥ চিলমারী উপজেলার পুজামন্ডপ পরিদর্শন করেন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ **   কুড়িগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে ফ্রেন্ডশিপের গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত **   উলিপুরে পূঁজা মন্ডপে অগ্নিদগ্ধ পুরোহিতকে চিকিৎসা সহায়তা প্রদান **   কুড়িগ্রামে বাণিজ্যিকভাবে ফুলচাষের প্রদর্শনীর উদ্বোধন **   আইয়ুব বাচ্চুর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত, মানুষের ঢল **   শূন্য শূন্য মিলে শূন্যই হয়: মুহিত **   ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ বন্ধ হয়নি, স্থগিত রাখা হয়েছে: কাদের **   দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী

পরিবেশ দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী পলিথিন ছেড়ে ব্যবহার করুন ‘সোনালি ব্যাগ’

dd

যুগের খবর ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর পলিথিনের ব্যবহার কমিয়ে বিকল্প হিসেবে পাটের ব্যাগ ব্যবহার করতে হবে। তিনি বলেন, পলিথিন বিশ্বে একটি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। পলিথিনের কারণে দূষণ হয়। অনেক সময় এটি ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও খাল অচল করে দেয়। যেখানে পলিথিন সেখানেই সমস্যা।
গতকাল বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও পরিবেশ মেলা ২০১৮’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তিনি জাতীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলা ২০১৮ এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ স্মরণে সারাদেশে একযোগে ৩০ লাখ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। খবর বাসস, ইউএনবি ও বিডিনিউজের।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনারা শুনে খুশি হবেন, এখন পাটের পলিমার থেকে যেটা পচনশীল সেই ধরনের ব্যাগ তৈরি হচ্ছে। আমরা এটার নাম দিয়েছি সোনালি ব্যাগ। এই ব্যাগ পরিবেশ দূষণ করবে না। পাটকে তার সোনালি দিনে ফিরিয়ে আনার জন্য আমরা বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগ যেমন নিয়েছি, পাশাপাশি পাটের ওপর গবেষণা চলছে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি মনে করি, এই সোনালি ব্যাগ পলিথিনের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করতে পারি। তা ছাড়া পাটের ছোট ছোট থলে, ব্যাগ- এগুলোও ব্যবহার করা যায়। এমনকি ফ্যাশনের জন্যও ব্যবহার করা যায়। আমি যে ব্যাগটা (হ্যান্ডব্যাগ) ব্যবহার করছি, সেটাও পাটের তৈরি।’
এবারের জাতীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলা-২০১৮ এর প্রতিপাদ্য ‘সবুজে বাঁচি, সবুজ বাঁচাই, নগর-প্রাণ-প্রকৃতি সাজাই’।
এর সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে শেখ হাসিনা আহ্বান জানান- ‘আসুন আমরা সবাই মিলে সবুজে-সবুজে দেশটা ভরিয়ে তুলি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সড়ক, অফিস-আদালত, সরকারি ভবন, পার্ক, নদীর তীর, লেক, খেলার মাঠ, কবরস্থানসহ পতিত, পরিত্যক্ত জমি, এমনকি বাড়ির ছাদে যথাযথ কৌশল অবলম্বন করে সবুজ এলাকার পরিধি বাড়ানো যায়। তিনি বৃক্ষরোপণ করে বাংলাদেশকে একটি সমৃদ্ধিশালী দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আসুন, আমরা প্রত্যেকে অন্তত একটি করে বনজ, ফলদ ও ভেষজ গাছের চারা রোপণ করি এবং বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা নির্মাণে এগিয়ে যাই।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার ১৯টি উপকূলীয় এলাকায় জেগে ওঠা চরগুলোয় উপকূলীয় সবুজ বেষ্টনী তৈরির জন্য ব্যাপক বনায়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। বনায়নের মাধ্যমে বঙ্গোপসাগর থেকে ১ হাজার ৬০০ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের ভূমি দেশের মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে।
শেখ হাসিনা তার সরকারের সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির সাফল্য তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশে সামাজিক বনায়ন কার্যক্রম পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে নারীর ক্ষমতায়ন, নেতৃত্ব সৃষ্টি, কর্মসংস্থান ও দারিদ্র্য নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য এবং রয়েল বেঙ্গল টাইগারের আবাসস্থল সুরক্ষায় প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় সরকারের ধারাবাহিকতা বজায় থাকাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সরকার বদল হলে পরবর্তী সরকারের ভেতর যদি এই সচেতনতা না থাকে যে, কীভাবে দেশকে সুরক্ষিত করতে পারি বা দেশের পরিবেশ রক্ষা করতে পারি; তাহলে এ ধরনের সমস্যায় পড়তে হয়।
আওয়ামী লীগকে এদেশের মাটি ও মানুষের সংগঠন আখ্যায়িত করে শেখ হাসিনা বলেন, তার দল যখনই ক্ষমতায় আসে, দেশের পরিবেশ, দেশের মানুষের উন্নয়ন, দেশের অর্থনৈতিক ও সার্বিক উন্নয়নের দিকেই দৃষ্টি দেওয়া হয়।
তিনি বলেন, শিল্প দূষণ রোধ করে আমাদের প্রাকৃতিক সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণ নিশ্চিত করে পরিবেশবান্ধব একটি সবুজ অর্থনীতির দেশ গড়ে তোলার এখনই উপযুক্ত সময়।
তিনি অনুষ্ঠানে পরিবেশ পদক-২০১৮ এর জন্য নির্বাচিত ব্যক্তি ও সংস্থা এবং বঙ্গবন্ধু অ্যাওয়ার্ড ফর ওয়াইল্ড লাইফ কনজারভেশন-২০১৮, বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার-২০১৭ ও সামাজিক বনায়নের লভ্যাংশের চেকপ্রাপ্তদের মধ্যে পদক ও চেক বিতরণ করেন। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের পশ্চিম পাশে একটি ছাতিম গাছের চারা রোপণ করেন। পরে প্রধানমন্ত্রী পরিবেশ মেলা ও বৃক্ষমেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন।
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপমন্ত্রী আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব; পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. হাছান মাহমুদ বক্তৃতা করেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪