**   মায়ের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত আইয়ুব বাচ্চু **   কুড়িগ্রামে মৌচাষের উপর কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হলো হিন্দু ধর্মালম্বীদের শারদীয় দূর্গোৎসব ॥ চিলমারী উপজেলার পুজামন্ডপ পরিদর্শন করেন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ **   কুড়িগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে ফ্রেন্ডশিপের গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত **   উলিপুরে পূঁজা মন্ডপে অগ্নিদগ্ধ পুরোহিতকে চিকিৎসা সহায়তা প্রদান **   কুড়িগ্রামে বাণিজ্যিকভাবে ফুলচাষের প্রদর্শনীর উদ্বোধন **   আইয়ুব বাচ্চুর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত, মানুষের ঢল **   শূন্য শূন্য মিলে শূন্যই হয়: মুহিত **   ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ বন্ধ হয়নি, স্থগিত রাখা হয়েছে: কাদের **   দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী

বিএনপিতে প্রকাশ্য দ্বন্দ্ব আওয়ামী লীগে হিংসা

ss

যুগের খবর ডেস্ক: সিলেট মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগে মজার কিছু ঘটনা ঘটছে। স্থানীয় পর্যায়ের শীর্ষ নেতাদের কেউ কেউ সিটি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের পক্ষে ‘দরদী’ মনোভাব দেখালেও ভেতরে ভেতরে ‘হিংসা’ করছেন তারা। নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে যে কোনো মূল্যে ‘দাবিয়ে’ রাখার কৌশল নিচ্ছেন। এদিকে, বিএনপিতেও দেখা দিয়েছে প্রকাশ্য দ্বন্দ্ব।
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা জানিয়েছেন, রাজশাহী ও বরিশালের সব ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে স্থানীয় নেতারা নির্বাচনে লড়ছেন। এমনকি এ দুই সিটির কোনো কোনো ওয়ার্ডে দলের একাধিক প্রার্থী নির্বাচনে থাকায় প্রার্থিতা উন্মুক্ত রাখা হয়েছে। অথচ সিলেটে এর ব্যতিক্রম ঘটনা ঘটেছে। বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য কাউকে খুঁজেই পাওয়া যায়নি।
দলীয় প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের বাড়ি ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে। অথচ ওই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে দলের শক্ত প্রার্থী না থাকায় নেতাকর্মীদের অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। সিলেট জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট লুৎফর রহমানের বাড়ি ৫ নম্বর ওয়ার্ডে। তিনি ওই ওয়ার্ডে বিএনপি সমর্থক কাউন্সিলর প্রার্থীকে সমর্থন করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
এসব বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় নেতারা মুখ খুলতে চাননি। ‘বিষয়টি স্পর্শকাতর’ এমন মন্তব্য করে পাশ কাটিয়ে গেছেন।
তবে আকার-ইঙ্গিতে বলেছেন, বিএনপি নেতাকর্মীদের প্রকাশ্য দ্বন্দ্ব-বিবাদের সুবিধা নিতে পারছে না আওয়ামী লীগ। কিছু নেতার রহস্যজনক ভূমিকায় নির্বাচনী প্রচার কার্যক্রম প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। অনেক কর্মীই নির্বাচনী পোস্টার লাগাতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না।
সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান অবশ্য গৃহদাহের কথা মানতে নারাজ। তিনি সমকালকে জানিয়েছেন, সিলেট আওয়ামী লীগে কোনো সংকট নেই। দলের সব স্তরের নেতাকর্মী নৌকা প্রতীকের বিজয়ের জন্য দিন-রাত পরিশ্রম করছেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সমন্বয়ক ও দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেনও বলেছেন, দলে দ্বন্দ্ব নেই।
আগামী ৩০ জুলাই অনুষ্ঠেয় সিলেট সিটি করপোরেশনের নির্বাচন নিয়ে বিএনপি নেতৃত্বাধীন স্থানীয় ২০ দলীয় জোটেও সংকট তৈরি হয়েছে। মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে দল থেকে বহিস্কৃত হলেও নির্বাচনী মাঠে বেশ শক্ত অবস্থানে রয়েছেন। তিনি নাগরিক কমিটির ব্যানারে নির্বাচনে লড়ছেন। দলের একটি অংশের নেতাকর্মীরা তার সঙ্গে রয়েছেন।
আবার মহানগর জামায়াতের আমির অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের প্রার্থী হওয়ায় রীতিমতো ঝুঁকির মুখোমুখি হয়েছেন বিএনপি প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী। তিনি অবশ্য জামায়াত প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতাকে আমলেই নিতে চাইছেন না। তবে বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীরা এ নিয়ে কিছুটা নাজুক পরিস্থিতি মোকাবেলা করছেন।
সিটি নির্বাচনে মেয়র মনোনয়ন নিয়ে বছরখানেক আগে থেকেই সিলেট বিএনপির দ্বন্দ্ব প্রকাশ্য রূপ নেয়। মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম লিখিতভাবে আরিফুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে কেন্দ্রে অভিযোগ করেন। গত নির্বাচনের পর আরিফুল হক চৌধুরী দলীয় কর্মসূচি এড়িয়ে আওয়ামী লীগের সঙ্গে সখ্য গড়ে তোলেন বলে কেন্দ্রে নালিশ জানান। নির্বাচনের প্রার্থী নির্ধারণের জন্য নীতিনির্ধারকদের সাক্ষাৎকারে নাসিম হোসাইন, বদরুজ্জামান সেলিমসহ অন্যরা আরিফুল হক চৌধুরীকে মনোনয়ন না দেওয়ার আহ্বান জানান।
উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ২৭ জুন সিলেট বিএনপির ১১ নেতাকে ঢাকায় ডেকে সমঝোতা করে আরিফুল হক চৌধুরীকে মেয়র প্রার্থী ঘোষণা করা হয়। সে সময় দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে নিলেও আরিফুল তাদের পছন্দের প্রার্থী ছিলেন না বলে স্বীকার করেন নাসিম হোসাইন। অন্যদিকে, কেন্দ্রের সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হয়ে বদরুজ্জামান সেলিম স্বতন্ত্র হিসেবে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নেতা সামসুজ্জামান জামান নিজের অনুসারীদের ধানের শীষের পক্ষে কাজ না করতে নির্দেশ দিয়েছেন। পাঁচ বছর আগে সামসুজ্জামান মেয়র পদে বিএনপির সমর্থন চেয়েছিলেন।
দলীয় মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ার পর গত ১০ জুলাই পর্যন্ত আরিফুল হক চৌধুরীর প্রকাশ্যে কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি। এ ক্ষেত্রে আচরণবিধি মেনে চলার কথা বলা হলেও তিনি এ সময় নেতাকর্মীদের ম্যানেজ করতে ব্যস্ত ছিলেন। সর্বশেষ গত ৫ জুলাই সিসিক নির্বাচন সামনে রেখে মহানগর বিএনপির বর্ধিত সভায় দলের নেতাকর্মীদের কাছে অতীতের ভুলের জন্য ক্ষমা চেয়ে সহযোগিতা কামনা করেন আরিফুল হক চৌধুরী। সেদিন তিনি বদরুজ্জামান সেলিমকে নির্বাচন থেকে সরে আসারও আহ্বান জানিয়েছিলেন।
ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে জয় দিয়েই স্থানীয় রাজনীতির আলোচনার পুরোভাগে আসেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। এরপর তিনি সিলেট পৌরসভার চেয়ারম্যান পদে জয় পান। দুই দফায় সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন। দীর্ঘ এ সময়ে আওয়ামী লীগের কোনো পর্যায়ের নেতাই তাকে চ্যালেঞ্জ জানানোর মতো সাহস দেখাননি।
কিন্তু গত নির্বাচনের পর পরিস্থিতি বদলে যায়। ওই নির্বাচনে পরাজিত হন বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। তখন থেকেই তিনি মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার বেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখে পড়েন। আলোচনায় আসেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ। নগর আওয়ামী লীগের দুই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল আনোয়ার আলাউর ও জাকির হোসেন, শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক আজাদুর রহমান আজাদও মেয়র হওয়ার দৌড়ে শামিল হন।
আবার আওয়ামী লীগ ঘরানার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত না থেকেও নৌকা প্রতীকের জন্য প্রতিযোগিতায় নামেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের আস্থাভাজন সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম। শেষ পর্যন্ত দলের মনোনয়ন পান বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। তাকে অভিনন্দন জানান মনোনয়নপ্রত্যাশী সবাই। নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব হন আসাদ উদ্দিন আহমদ। তিনি বেশ সক্রিয়। তবে তার সমর্থক ও অনুসারী অনেকে এখনও নিষ্ফ্ক্রিয় রয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
এ অভিযোগকে অবশ্য বিএনপির অপপ্রচার হিসেবে দেখছেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। আসাদ উদ্দিন বলেন, তার সমর্থক নেতাকর্মীরা নিষ্ফ্ক্রিয় থাকলে পরিস্থিতি অন্য রকম হতো। বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের নামগন্ধও থাকত না। আর তিনি গাদ্দারির রাজনীতিতে বিশ্বাস করেন না। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আগের যে কোনো পরিস্থিতির চেয়ে বর্তমানে আরও বেশি ঐক্যবদ্ধ অবস্থানে রয়েছেন বলে দাবি করেছেন এই নেতা।
২০১৩ সালের ১৫ জুনের নির্বাচনে বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক ছিলেন দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ। এবারের নির্বাচনে তাকে এই পদে রাখা হয়নি। বর্তমানে তিনি লন্ডন সফরে গেছেন। নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘনিয়ে আসার পরও তার অনুপস্থিতি নিয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে নানা ধরনের আলোচনা শুরু হয়েছে। নেতাকর্মীরা গত নির্বাচনের মতো এবারের নির্বাচনেও এই নেতার আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।
অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ আগামী সংসদ নির্বাচনে সিলেট-১ আসনে দলের মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন নেতাকর্মী জানিয়েছেন, মেয়র নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগে এক ধরনের অসাধু প্রতিযোগিতাও রয়েছে। দলের কোনো কোনো নেতা মনে করছেন, বদর উদ্দিন আহমদ কামরান জয়ী হলে তাদের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। এ কারণে তারা নির্বাচনের প্রচার কার্যক্রম থেকে নিজেদের অনেকটাই গুটিয়ে রেখেছেন।
এ ধরনের নেতাদের নিষ্ফ্ক্রিয়তার কারণেও সিটি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচার কার্যক্রমে আশানুরূপ গতি আসছে না বলে অভিযোগ রয়েছে নেতাকর্মীদের। কেউ কেউ সমন্বয়হীনতার অভিযোগও করছেন। দলীয় প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেছেন, নির্বাচনের সময় আরও ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে প্রচার কার্যক্রমের গতিও বাড়বে। দলে অনৈক্য নেই। নিশ্চয়ই নির্বাচনে এর সুফল আসবে।
অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব-বিবাদের কারণে গত নির্বাচনে বদর উদ্দিন আহমদ কামরান জয় পাননি বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থন পেয়েও কমপক্ষে ৩৫টি কেন্দ্রে এজেন্ট দিতে পারেননি তিনি। তবে এবার দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হওয়ায় তিনি বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন। নানা কারণে নিষ্ফ্ক্রিয় হয়ে থাকা নেতাকর্মীরা গত নির্বাচনের মতো এবারও ভোটকেন্দ্রবিমুখ হয়ে থাকবেন না বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের এই মেয়র প্রার্থী। তার বিশ্বাস, সবাই নৌকা প্রতীকে ভোট দিতে কেন্দ্রে আসবেন।
এদিকে, সিলেট-১ আসনের এমপি ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের খুব একটা সুসম্পর্ক নেই বলে অনেকে মনে করছেন। বিদায়ী মেয়র ও মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি আরিফুল হক চৌধুরীর প্রতি অর্থমন্ত্রীর এক ধরনের দুর্বলতা রয়েছে বলে ব্যাপক প্রচার রয়েছে। এ প্রসঙ্গে নাগরিক কমিটি মনোনীত মেয়র প্রার্থী বদরুজ্জামান সেলিম বলেছেন, বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর সঙ্গে আওয়ামী লীগের সখ্য রয়েছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪