১৩ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ১৫ প্রকল্প অনুমোদন একনেকে

ecnec-5bb36596e0bec

যুগের খবর ডেস্ক: কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করতে দুই হাজার ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ের সংশোধিত প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ভূমি অধিগ্রহণ, রানওয়ে, টেপিওয়ে, ওভাররান ড্রেনেজে ব্যবস্থা, সীমানা প্রাচীরসহ চলামান নির্মাণ কাজে ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় প্রকল্পটি তৃতীয়বারের মতো সংশোধন করা হয়েছে।

অনুমোদিত প্রস্তাব অনুযায়ী প্রকল্পের মেয়াদ আরও দুই বছর বাড়িয়ে ২০২০ সালের জুন মধ্যে শেষ করার লক্ষ্য পুননির্ধারণ করা হয়েছে। এ বিমানবন্দরে সুপরিসর বিমান উড্ডয়ন ও অবতরণ কার্যক্রমে সুবিধা বাড়াতে প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কাজ শুরু হয় ২০০৯ সালে।

মঙ্গলবার শেরে বাংলানগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় সংশোধিত এ প্রকল্পটিসহ মোট ১৫ প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

সভা শেষে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান অনুমোদিত প্রকল্পগুলো বিষয়ে সাংবাদিকদের বিস্তারিত জানান। প্রতিমন্ত্রী জানান, অনুমোদন পাওয়া প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ১৩ হাজার ২১৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ৮ হাজার ৪৭৯ কোটি টাকা এবং সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে ৪৪৮ কোটি টাকা যোগান দেওয়া হবে। এছাড়া বিদেশি ঋণ ব্যবহার করা হবে ৪ হাজার ২৯০ কোটি টাকা।

এ সময় জানানো হয়, মূল প্রস্তবনায় কক্সবাজার বিমানবন্দর উন্নয়নে ব্যয় ছিল ৩০২ কোটি টাকা। এর প্রথমে ৫৪৯ কোটি টাকা এবং দ্বিতীয়বার ব্যয় বাড়িয়ে এক হাজার ১৯৩ কোটি টাকা করা হয়। দ্বিতীয় সংশোধনীর সঙ্গে এবার ব্যয় বেড়েছে ৮২২ কোটি টাকা।

প্রতিমন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বিমান বন্দরটিকে নিয়ে একনেক সভায় বড় আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, খুবই উন্নত মানের বিমান বন্দর হবে এটি। এখানে বড় বড় বিমান উঠা-নামা করবে। এ বিমানবন্দরের মাধ্যমে সাংহাই, হংকং, আসামসহ ওই অঞ্চলের অন্যান্য বাণিজ্যিক নগরীরের সঙ্গে যোগাযোগ সুযোগ তৈরি হবে। একই সঙ্গে কক্সবাজার এশিয়ার বড় অর্থনৈতিক কেন্দ্র হিসাবে গড়ে উঠবে বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করছেন।

প্রকল্প প্রস্তবনায় বলা হয়েছে, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের পাশে সামরিক প্রয়োজনে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বিমান বন্দরটি নির্মাণ করা হয়। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে এটি বেসামরিক প্রয়োজনে ব্যবহৃত হচ্ছে। বর্তামানে কার্গো ও প্যাসেঞ্জার পরিবহনের জন্য এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর। বিশ্বের সব দেশের পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে সমর্থ হয়েছে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। এ কারণে বিমানবন্দরটি পর্যাটন শিল্পের উন্নয়নে বড় ভূমিকা রাখবে।

অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী জানান, বারবার প্রকল্প সংশোধন প্রস্তাব গ্রহণ না করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। পাঁচ বছর মেয়াদের প্রকল্প চার বছরে নতুন নতুন অংশ যোগ করে সংশোধনের প্রস্তাব নিয়ে আসা হয়। মূল প্রকল্পে যে কাজ থাকবে তাই আগে শেষ করতে হবে। প্রয়োজনে কাজ বাকি থাকলে নতুন প্রকল্প নেওয়া হবে।

পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তুলাই এবং পুনর্ভবা নদীর নব্যতা উন্নয়ন চার হাজার ৩৭১ কোটি টাকার একটি প্রকল্পও একনেক সভায় অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদী বাহাদুরবাদের দক্ষিণে ব্রহ্মপুত্র হতে উৎপন্ন হয়ে জামালপুর এবং ময়মনসিংহ জেলার মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ভৈরব বাজারে মেঘনা নদীতে পতিত হয়েছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে নদীটির ২২৭ কিলোমিটার খনন করা হবে। এছাড়া ধরলা নদীর সম্পূর্ণ দৈর্ঘ্যেই ৬০ কিলোমিটারে ৩৮ মিটার প্রস্থ ব্যাপী ড্রেজিং করা হবে।

একনেক সভায় সারা দেশে স্কুল শিক্ষার্থী ঝরে পড়া রোধকরণ প্রকল্পের সংশোধিত প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় রোহিঙ্গা শিশুদেরও অনানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় আনা হচ্ছে। সেই সঙ্গে প্রকল্পের ব্যয় ২০৫ কোটি টাকা বাড়িয়ে এক হাজার ২৯০ কোটি টাকা করা হয়েছে।

অনুমোদিত প্রকল্পগুলো হচ্ছে, হাটহাজারী-ফটিকছড়ি-মানিকছড়ি-মাটিরাঙ্গা-খাগড়াছড়ি সড়ক উন্নয়ন, দুধকুমর নদীর উপর সোনাহাট সেনাহাট সেতু নির্মাণ, জার্মানির বার্লিনে বাংলাদেশ চ্যান্সারি কমপ্লেক্স নির্মাণ, সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়ি ঘাটে গুঁড়ো দুদ্ধ কারখানা স্থাপন, সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদ টেকসইকরণ, মেঘনানদীর ভাঙ্গন হতে ভোলা জেলার রাজাপুর ও পূর্ব ইলিশা ইউনিয়ন রক্ষার্থে তীর সংরক্ষণ, হালদা নদী ও ধুরং খালের তীর সংরক্ষণ, বিএফডিসি কমপ্লেক্স নির্মাণ, পেশাগত স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা বিষয়ক গবেষণা এবং প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট স্থাপন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন,সৌরশক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ক্ষুদ্র সেচের উন্নয়ন এবং টেকসই বন ও জীবিকা প্রকল্পের।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪