পিছু হটল মিয়ানমার

1538923514
যুগের খবর ডেস্ক: সেন্টমার্টিনকে নিজেদের ভূখণ্ডের অংশ দাবি করার পর বাংলাদেশের প্রতিবাদের মুখে ওয়েবসাইট থেকে তথ্য সরিয়ে নিয়েছে মিয়ানমার। দেশটি এ ঘটনা ঘটিয়ে বিশ্বের দৃষ্টি রোহিঙ্গা থেকে অন্যদিকে সরানোর চেষ্টা করলেও তাতে কোনো লাভ হয়নি। কারণ ইচ্ছাকৃত এসব ভুল কাজ মিয়ানমারকে ইমেজ সংকটে ফেলছে বলে মনে করছেন কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা।
আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকরা বলছেন, মিয়ানমার এ ধরনের ইচ্ছাকৃত ভুল অনেক করেছে। তারা চুক্তি করেও রোহিঙ্গাদের ফেরত প্রক্রিয়া শুরু করেনি। এই চাপ আন্তর্জাতিকভাবে আরও বাড়ছে। বিশ্ব জানে মিয়ানমার কী ধরনের রাষ্ট্র।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. শহীদুল হক গতকাল বিকেলে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে জানান, বাংলাদেশের প্রতিবাদের মুখে সেন্টমার্টিন দ্বীপকে নিজেদের ম্যাপ থেকে সরিয়ে নিয়েছে। সংসদীয় কমিটি এ বিষয়ে তৎপর থাকার এবং অন্য কোনো ওয়েবসাইটে কিংবা অন্য কোথাও এ ধরনের তৎপরতা রয়েছে কি না, তা মনিটর করার জন্য মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করেছে।
সাবেক রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জমির আজকালের খবরকে বলেন, মিয়ানমার দূরভিসন্ধি করেছিল। মনে করেছিল সেন্টমার্টিন দ্বীপকে নিজেদের ভূখণ্ডের অংশ বলে সবার দৃষ্টি সরিয়ে নেবে। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি। এতে আন্তর্জাতিক চাপ আরো বাড়ছে। কারণ সেন্টমার্টিন দ্বীপ যে বাংলাদেশের, তা বিশ্ব জানে। কারণ সমুদ্রসীমা নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতের রায় আছে, সেখানে বাংলাদেশের মালিকানার বিষয়টি স্পষ্ট। তাই ভুল করে আবার সেই ভুল স্বীকার করলেও কোনো কাজ হবে না। আর মিয়ানমার যে এ রকম ভুল কাজ করে, তা বিশ্বের কাছে পরিষ্কার হচ্ছে।
মিয়ানমার সরকারের জনসংখ্যাবিষয়ক বিভাগের ওয়েবসাইট সম্প্রতি তাদের দেশের যে মানচিত্র প্রকাশ করেছে, তাতে সেন্টমার্টিনকে তাদের ভূখণ্ডের অংশ দেখানো হয়েছে। ওই মানচিত্রে মিয়ানমারের মূল ভূখণ্ড এবং বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের অন্তর্গত সেন্টমার্টিন দ্বীপকে একই রঙে চিহ্নিত করা হয়। অন্যদিকে বাংলাদেশের ভূভাগ চিহ্নিত করা হয় অন্য রঙে। তার প্রেক্ষিতে গত শনিবার ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত লুইন উকে তলব করে তাকে প্রতিবাদপত্র ধরিয়ে দেওয়া হয়। তলবের সময় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত বলেন, ভুলবশত হয়েছে।
সাবেক রাষ্ট্রদূত হুমায়ুন কবীর গতকাল আজকালের খবরকে বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার আন্তর্জাতিকভাবে বড় ধরনের চাপের মধ্যে আছে। তাই তারা এ ধরনের কর্মকাণ্ড করে দৃষ্টি সরানোর চেষ্টা করছে। এ ধরনের ভুল কাজ তো মিয়ানমার নতুন করে করছে না। তারা এর আগেও অনেকবার করেছে। কিন্তু তাতে কোনো কাজ হচ্ছে না। এসব করে চাপ কমানো যাবে না; বরং আন্তর্জাতিকভাবে তাদের এ ধরনের কাজের জন্য নিজেদের ইমেজ সংকটে পড়ছে।
সাবেক এ কূটনীতিক আরও বলেন, পৃথিবী এখন মিয়ানমারের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছে।
ইউরোপীয় ইউনিয়ন পোশাক খাতে শুল্ক সুবিধা প্রত্যাহারের চিন্তা করছে, যা মিয়ানমারের অর্থনীতির জন্য বিরাট হুমকির বিষয়।
হুমায়ুন কবীর আরও বলেন, রোহিঙ্গাদের ফেরত নেওয়ার জন্য মিয়ানমার কয়েক দফায় প্রতিশ্রুতি ও চুক্তি করেও তা কার্যকর করছে না। বিষয়টি নিয়ে জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো কার্যকর পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে। মিয়ানমার এ বিষয় চিন্তা করেই নানাদিক থেকে তাদের চাপ কমানোর চেষ্টা করছে।
ভুল কাজ করে পরে স্বীকার এবং ক্ষমা চাওয়া মিয়ানমারের জন্য একটি নিত্যঘটনা। গত জুলাই মাসে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে প্রকাশিত একটি বইয়ে ভুয়া ছবি প্রকাশের জন্য ক্ষমা চেয়েছিল মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। রোহিঙ্গা সংকটের ‘আসল সত্য’ প্রকাশকৃত বইয়ে অন্য দেশের পুরনো দুটি ছবি ব্যবহার করা হয়। এর মধ্যে পুরনো সাদা-কালো একটি ঝাপসা ছবিতে দেখা যায়, এক লোক কৃষিকাজে ব্যবহৃত নিড়ানি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন দুই লাশের পাশে। ক্যাপশনে বলা হয়েছে- ‘স্থানীয়দের নির্মমভাবে হত্যা করেছে বাঙালিরা।’ বলা হয়েছিল ১৯৪০ এর দশকে মিয়ানমারের দাঙ্গার অধ্যায়ে। ছবির বিবরণে বর্মি ভাষায় বোঝানো হয়েছে- রোহিঙ্গাদের হাতে বৌদ্ধ হত্যার ছবি। ওই ছবি আসলে তোলা হয়েছিল ১৯৭১ সালে, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময়, যখন লাখ লাখ মানুষকে হত্যা করেছিল পাকিস্তানি সেনাবাহিনী।
ঝাপসা হয়ে আসা আরেকটি সাদা-কালো ছবিতে দেখা যায়, অসংখ্য মানুষ গাট্টি-বোঁচকা নিয়ে পাহাড়ি পথ ধরে কোথাও যাচ্ছে। তার ক্যাপশনে বলা হয়েছে- বৃটিশ ঔপনিবেশিক শক্তি মিয়ানমারের দক্ষিণ অংশ দখল করে নেওয়ার পর বাঙালিরা এ দেশে প্রবেশ করে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী বোঝাতে চেয়েছে, ওই ছবি ১৯৪৮ সালের আগের, মিয়ানমারের কোনো এলাকার। মূলত ১৯৯৬ সালে রুয়ান্ডায় তোলা একটি রঙিন ছবিকে বিকৃত করেই সেনাবাহিনীর বইয়ের ওই ছবি তৈরি হয়েছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪