টেলিভিশনগুলোকে সামাজিক দায়িত্ব পালনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

1539173722
যুগের খবর ডেস্ক: সমাজের প্রতি দায়িত্ব পালনে বেসরকারি টেলিভিশন স্টেশনগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বেসরকারি টেলিভিশন স্টেশনগুলোর মালিকদের অ্যাটকোর পরিচালকরা সাক্ষাত করতে গেলে তাদের উদ্দেশে এই আহ্বান রাখেন সরকার প্রধান।
তিনি বলেন, “লাভের দিকটা যেমন দেখছে, সমাজের প্রতিও তাদের দায়িত্ব আছে। সমাজের প্রতি দায়িত্বটাই সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ।”
বুধবার সকালে অ্যাটকোর পরিচালকরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গিয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।
তারা সদ্যপ্রণীত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন বলে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের জানান।
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নানা ধারা মত প্রকাশের স্বাধীনতা খর্ব করবে দাবি করে তার বিরোধিতা করছে সাংবাদিক ও অধিকারকর্মীরা।
অ্যাটকোর নেতারা অনলাইন প্রচার মাধ্যমগুলোকে জবাবদিহির মধ্যে আনতে প্রধানমন্ত্রীকে আহ্বান জানান।
প্রধানমন্ত্রী সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতার বিষয়টি তুলে ধরে বলেন, “আমরা চাই, সমাজের যেন অশুভ কাজ না হয়। সমাজটা যেন সুন্দরভাবে গড়ে উঠতে পারে। সমাজটাকে যেন আমরা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি। সংস্কৃতি চর্চাটা যেন আরও বিকশিত হয়।”
সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরতেও বেসরকারি টেলিভিশন মালিকদের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।
“খাদ্য উৎপাদন, কৃষি উৎপাদন, আমাদের সমাজকে আরও কীভাবে উন্নত করা যায়। যত বেশি প্রচার করে যাচ্ছি, মানুষের মাঝে পরিবর্তনটা তত হচ্ছে। সেদিকগুলোকে নজর দেওয়ার জন্য আমি অনুরোধ জানাব।”
সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ যেন দেশের নাগরিকদের কোনো ক্ষতির কারণ না হতে পারে, সে দিকে সরকারের নজরদারি থাকার কথাও মনে করিয়ে দেন শেখ হাসিনা।
তিনি বলেন, “জঙ্গিবাদ আর সন্ত্রাস বিশ্বব্যাপী একটা সমস্যা। আমাদের দেশে এখন পর্যন্ত আমরা জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসকে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছি। সারাক্ষণ আমাদের নজরদারিতে আছে। যেন কোনোভাবে মানুষের ক্ষতি করতে না পারে।”
আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের কথা বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এত টেলিভিশন চ্যানেল চলত না, যদি না আর্থ-সামাজিক উন্নতি না হত। গ্রামে এখন টেলিভিশন আছে। আর্থিক সচ্ছলতা আসছে বলেই আপনারা এতগুলো চ্যানেল চালাতে পারছেন।”
সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর বাংলাদেশে প্রথম বেসরকারি টিভি একুশে টেলিভিশনের অনুমতি দেওয়া হয়।
শেখ হাসিনা বলেন, “এর আগে যারা ক্ষমতায় ছিল, বেসরকারি খাতে রেডিও দেবে, টেলিভিশন দেবে, এই চিন্তা কারও ছিল না। তখন রেডিও আর টিভিটা ছিল ক্ষমতা দখলের একটা মাধ্যম। একটা মাত্র চ্যানেল ছিল বিটিভি।”
বেসরকারি টেলিভিশন অনুমতি দিতে গিয়ে ‘অনেক বাধা’ পাওয়ার কথাও জানান শেখ হাসিনা।
২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতায় যাওয়ার পর থেকে ৪১টি টেলিভিশনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে ৩০টি চ্যানেল সম্প্রচারে রয়েছে।
“৩০টা প্রাইভেট টেলিভিশন চলছে, এটা কম না,” বলেন শেখ হাসিনা।
সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, “এমনি এমনি হয় না; সময় দিতে হয়, কাজ করতে হয়, চিন্তা করতে হয়, কার্যকর করার জন্য ব্যবস্থা নিতে হয়।”
সরকারের পাশাপাশি ব্যাক্তি উদ্যোগে উন্নয়ন নিশ্চিত করার উপর জোর দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “মানুষকে কিন্তু এটা চিন্তা করতে হবে; সব কিছু সরকারের ওপর নির্ভরশীল হলে হবে না।
“নিজেরা কতটুকু কী করতে পারলাম। নিজেরা কী করতে পারি। যে এলাকায় বসবাস করি; সে এলাকার জন্য কতটুকু করতে পারি, এলাকার মানুষের জন্য কতটুকু করতে পারি; সে চিন্তাটাও মানুষের মধ্যে থাকতে হবে।”
এক্ষেত্রে তরুণ প্রজন্মের সক্রিয়তা প্রত্যাশা করে শেখ হাসিনা বলেন, “একটা আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে; আমরা নিজেদের কাজ নিজেরা করি, নিজেরা করব এবং নিজেরা করার মতো দক্ষতাও আমরা অর্জন করব। সরকারের মুখাপেক্ষী হয়ে না, আমরা নিজেরাই আমরা নিজেদের দেশের উন্নয়ন করব।”

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪