১৪ শর্তে সিলেটে সমাবেশের অনুমতি পেল ঐক্যফ্রন্ট

1540135725
যুগের খবর ডেস্ক: নানা ঘটনার পর অবশেষে সিলেটে সমাবেশ করার অনুমতি পেয়েছে ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’। নবগঠিত এই রাজনৈতিক জোটকে ১৪ শর্তে আগামী বুধবার সমাবেশ করার অনুমতি দিয়েছে সিলেট মহানগর পুলিশ (এসএমপি)। আজ  রাতে ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটি ও সমন্বয়ক কমিটির যৌথসভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় সিলেট সমাবেশে প্রধান অতিথি থাকবেন ড. কামাল হোসেন। আর বক্তা থাকবেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
সিলেটে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে মহানগর পুলিশ। রবিবার বিকেলে ঐক্যফ্রন্টের সিলেট কর্মসূচির সমন্বয়ক ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদকে টেলিফোন করে সমাবেশের অনুমতি দেওয়ার বিষয়টি পুলিশ জানিয়েছে। ২৪ অক্টোবর সিলেট নগরের রেজিস্টারি মাঠে এই সমাবেশ হওয়া কথা রয়েছে।
আলী আহমদ জানান, সমাবেশের জন্য ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে তিনি স্বাক্ষর করে পুলিশকে অবহিতকরণপত্র দিয়েছিলেন। অনুমতি না পাওয়ায় এ ব্যাপারে উচ্চ আদালতে একটি রিট করেন তিনি। রিট করার প্রায় দুই ঘণ্টা পর বিকেল সাড়ে চারটার দিকে সিলেট মহানগর পুলিশের (এসএমপি) পক্ষ থেকে সমাবেশের অনুমতি দেওয়ার বিষয়টি জানানো হয়।
আলী আহমদ বলেন, ‘সমাবেশ করতে অনুমতির বিষয়টি আমাদের ফোনে জানানো হলেও আমরা এ বিষয়ে পুলিশের কাছ থেকে লিখিত কপি সংগ্রহ করব।’
এ ব্যাপারে   সন্ধ্যায় যোগাযোগ করলে সিলেট মহানগর পুলিশের কমিশনার গোলাম কিবরিয়া সিলেটে ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ করার অনুমতি দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। আগের দিন সমাবেশের অনুমতি না দিয়ে এক দিন পর অনুমতি দেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা বিষয়টি ভেবে দেখেছি, এরপর অনুমতি দিয়েছি।’
ঐক্যফ্রন্টের সিলেট কর্মসূচি সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকা বিএনপির নেতারা জানান, সিলেট নগরের রেজিস্টারি মাঠে ২৩ অক্টোবর বেলা একটায় সমাবেশের জন্য পুলিশকে অবহিতকরণপত্র দেওয়া হয়েছিল ১৭ অক্টোবর। পুলিশ এই চিঠি পেয়ে পরদিন সমাবেশের অনুমতি নেই বলে জানিয়েছিল। ওই দিন জেলা ও নগর বিএনপির প্রস্তুতি সভা করার ক্ষেত্রে পুলিশ নিষেধ করে। এরপর সমাবেশের তারিখ এক দিন পিছিয়ে ২৪ অক্টোবর বেলা দুইটায় সমাবেশ করার জন্য পুলিশকে অবহিতপত্র দেওয়া হলে পুলিশ নিরাপত্তাজনিত কারণে অনুমতি নেই জানিয়ে দিয়েছিল।
এদিকে সিলেটে ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ করার জন্য দুই দফা তারিখ বদল ও পুলিশকে দুবার অবহিতকরণপত্র দিয়ে অনুমতি না পাওয়ায় বিএনপির নেতা-কর্মীদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছিল। জেলা ও নগর বিএনপির দায়িত্বশীল দুজন নেতা জানিয়েছেন, সমাবেশ না করতে পারলেও ঐক্যফ্রন্টের কেন্দ্রীয় নেতাদের সিলেট সফর সফল করার প্রস্তুতি নিয়েছিল বিএনপি।
রবিবার দুপুরে হাইকোর্টে রিট করেন বিএনপি নেতা আলী আহমদ। আবেদনে সমাবেশের অনুমতি না দেওয়া কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারির আর্জি জানানো হয়, এছাড়া সমাবেশ করতে দেওয়ার আবেদনও করা হয়। সোমবার এই রিটের শুনানির তারিখ ধার্য করেন আদালত। তবে তার আগেই পুলিশ সমাবেশের অনুমতি প্রদান করে। রাতে নেতা-কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ দেখা দেয়।
ঐক্যফ্রন্টকে বেঁধে দেওয়া ১৪ শর্তের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- রাষ্ট্রবিরোধী কোনো ধরনের বক্তব্য বা বিবৃতি দেওয়া যাবে না, ধর্মীয় অনুভ‚তি বা মূল্যবোধের ওপর আঘাত হানে এ ধরনের কোনো বক্তব্য বা বিবৃতি প্রদান বা কোনো ব্যানার, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করা যাবে না এবং ২টা থেকে ৫টার মধ্যে কর্মসূচি শেষ করতে হবে।
রাত থেকে সমাবেশ সফলের প্রস্তুতি শুরু করে দেওয়া হয়েছে জানিয়ে মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আজমল বখত চৌধুরী বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রথম কর্মসূচি হচ্ছে এটি। শান্তিপূর্ণভাবে সমাবেশ সফলের সর্বাত্মক চেষ্টা থাকবে আমাদের।’
এদিকে সমাবেশের বিষয়ে পুলিশের অনুমতির আগেই আজ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, সমাবেশের বিষয়ে অনুমতির ব্যাপারে ঐক্যফ্রন্টের নেতারা ইঙ্গিত পেয়েছেন। ইতোমধ্যে পুলিশ অনুমতি দিয়ে দিয়েছে। অফিশিয়াল চিঠি না পাওয়ার আগ পর্যন্ত ঐক্যফ্রন্ট নেতারা অহেতুক নাটক করবেন, এটা তাদের পুরনো অভ্যাস।  দুপুরে রাজধানীর ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ মন্তব্য করেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন- সিলেটে বড় বড় নেতা যাবেন, নিরাপত্তার বিষয়টি পুলিশ একটু খতিয়ে দেখে। তিনি বলেন, ‘অলরেডি পুলিশ তাদের অনুমতি দিয়ে দিয়েছে। আমার তো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে, তিনি আমাকে বলেছেন যে সভা-সমাবেশ যেখানেই করতে চান, এ ব্যাপারে কোনো বাধা-নিষেধ থাকবে না, থাকার কথাও নয়।’
ঐক্যফ্রন্ট সিলেটে সমাবেশের জন্য আদৌ অনুমতি পাবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দেখুন, অনুমতি নিয়ে নাটক করা এটা তাদের পুরনো অভ্যাস। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি অনুমতি পেয়েছে, কিন্তু এটা নিয়ে নাটক করতে তারা দ্বিধা করেনি। আমি এখানেও বলছি, এটা তাদের পুরনো অভ্যাস। তারা অনুমতি নিয়ে নাটক করেন।’
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম গতকাল শনিবার এক অনুষ্ঠানে মন্তব্য করেন, নির্বাচন কমিশন বিভক্ত হয়ে পড়েছে। বিএনপির মহাসচিবের এই বক্তব্যে বিষয়ে সাংবাদিকরা দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব কি ভুলে গেছেন যে, নির্বাচন কমিশন পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট? প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে আরও চারজন কমিশনার আছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘একজন কমিশনার কোনো ইস্যুতে যদি ভিন্নমত পোষণ করেন অথবা নোট অব ডিসেন্ট দেন, এটা তো গণতন্ত্রের বিউটি। সেখানেও ইন্টারনাল ডেমোক্রেসি কাজ করছে, সেটাই আমরা মনে করব। এটাকে নিয়ে বিভক্তির যে অভিযোগ তিনি (মির্জা ফখরুল) তুলেছেন, এটা সম্পূর্ণই কাল্পনিক ও হাস্যকর ব্যাপার।’
সরকার ও ইসির কাছে ৭ দফা ও ১১ লক্ষ্য তুলে ধরা হবে 
জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ঘোষিত ৭ দফা দাবি ও ১১ দফা লক্ষ্য লিখিতভাবে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছে তুলে ধরার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জোটের নেতারা।
আজ বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত রাজধানীর মতিঝিলে গণফোরামের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জোটের স্টিয়ারিং কমিটি ও সমন্বয়ক কমিটির যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে জোট নেতা ও জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব সাংবাদিকদের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি বলেন, লিখিতভাবে সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের কাছে ৭ দফা ও ১১ লক্ষ্য তুলে ধরা হবে।
রব বলেন, সিলেটে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে ড. কামাল হোসেন প্রধান অতিথি। প্রধান বক্তা থাকবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এছাড়া সভাপতি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সিটি মেয়র আরিফুল হক।
বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, গণফোরামের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টু, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, জেএসডি সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সদস্যসচিব আ ব ম মোস্তফা আমীন, ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ, নাগরিক ঐক্যের নেতা শহীদুল্লাহ কায়সার প্রমুখ।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪