মনোনয়ন এবং আসন সব এরশাদের একক সিদ্ধান্ত

1542729621
যুগের খবর ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ডেকে ও সাক্ষাৎকার নিলেন না জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তিনি এককভাবে প্রার্থী চূড়ান্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন। রাজনৈতিক মেরুকরণে যদি অন্যকোনো জোটে যেতে হয়, সে সিদ্ধান্তও এককভাবে এরশাদ নেবেন। কারণ হিসেবে এরশাদ বলেছেন, ‘এখনো মামলা ঝুলছে আমার, একটাও নিষ্পত্তি হয়নি।’
মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর গুলশানের ইমানুয়েল কনভেনশন সেন্টারে দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।
জাপা সূত্রে জানা গেছে, মনোনয়ন প্রত্যাশী ২৮৬৫ জনের ফরম যাচাই-বাছাই করে গতকাল সাক্ষাৎকার নিতে ৭৮০ জনকে ডাকা হয়েছিল। সকাল ১০টায় সাক্ষাৎকার শুরু হওয়ার কথা থাকলেও দুপুর পোনে ১২টার দিকে সাক্ষাৎকারের নির্ধারিত স্থান গুলশানের ইমানুয়েল সেন্টারে আসেন এরশাদ, জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ, কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার।
সাক্ষাৎকার না নিয়ে ক্ষণে ক্ষণে সিদ্ধান্ত পরিবর্তনকারী এরশাদ বলেন- দেশ, পার্টি এবং দলের নেতাকর্মীদের কথা বিবেচনা করেই ৩০০ আসনে প্রার্থিতা চূড়ান্ত করা হবে। আমি ৩০০ আসনে মনোনয়ন চূড়ান্ত করবো, এখানে আর কারো দায়িত্ব নেই। আমি দেখতে চাই ৩০০ আসনেই জাতীয় পার্টির যোগ্য প্রার্থী আছে। প্রাথমিকভাবে ৩০০ আসনে প্রার্থী ঘোষণা করবো। তারপর সম্মিলিত জাতীয় জোটের সঙ্গে প্রার্থিতা চূড়ান্ত করা হবে। রাজনৈতিক মেরুকরণে যদি অন্যকোনো জোটে যেতে হয়, আমি এককভাবে সিদ্ধান্ত নেবো।
নেতাকর্মীদের উদ্দেশে এরশাদ বলেন, তোমরা নিজ নিজ এলাকায় ফিরে যাবে, সময়মতো আমি সিদ্ধান্ত জানাবো। যা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবো, আশাকরি তোমরা তা মেনে নেবে। আমাদের সুদিন এসেছে, জাতীয় পার্টি আবার জেগে উঠেছে। ক্ষমতা ছেড়ে দেওয়ার পর এবার সর্বোচ্চ মনোনয়নপত্র বিক্রি হয়েছে। এটা আমাদের বড় অর্জন।
এ সময় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা একযোগে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেওয়ার দাবি তোলেন। তাদের দাবির জবাবে এরশাদ বলেন, ‘এই সিদ্ধান্ত আমার ওপর ছেড়ে দাও। এখনো মামলা আছে তো আমার নামে, তোমরা জানো। একটা দিনের জন্যও মুক্ত ছিলাম না, এখনো নেই। একটা দিনের জন্যও সুখে ছিলাম না, শান্তিতে ছিলাম না। এখনো মামলা ঝুলছে আমার, একটাও নিষ্পত্তি হয়নি। আমার মত দুঃখী রাজনীতিবিদ আর কেউ নেই। আমার চেয়ে কেউ কষ্ট করেনি, অসহ্য কষ্ট সহ্য করেছি। আমি একা সারাদেশ ঘুরেছি। তখন আমার সঙ্গে কেউ ছিল না। আজ এত লোক আমার সঙ্গে, জাপার দুঃখ ঘুচে গেছে।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কথা উল্লেখ করে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ বলেন, কারাগারে আমার চিকিৎসা হয়নি। খালেদা জিয়া বলেছিলেন, এরশাদকে মরতে দাও। এরশাদ মরে নাই, জাতীয় পার্টি এখনো বেঁচে আছে। জাতীয় পার্টিকে বাঁচিয়ে রেখেছি, আজকের দিনটির জন্য। আজ মাঠে আছে আওয়ামী লীগ আর জাতীয় পার্টি। আর কোনো দল নেই মাঠে।
তিনি বলেন, এবার জাপার সর্ববৃহৎ মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করা হয়েছে। পার্টির সাংগঠনিক রূপ নিয়েছে, যা ধরে রাখতে হবে। জাপা বিলীন হয়ে যায়নি, তার প্রমাণ আপনারা। ৩০০ আসনে প্রার্থী আছে কি-না, দেখতে চেয়েছিলাম। আমরা সফল হয়েছি।
এরশাদ বলেন, চেয়ারম্যান হিসেবে আমাকে কঠিন দায়িত্ব পালন করতে হবে। সবাইকে প্রার্থী করতে পারব না। আমি যাকে যোগ্য মনে করব, মনোনয়ন দেব। আর এটা সবাইকে মেনে নিতে হবে। এ সময় সাবেক এই রাষ্ট্রপতি জানান, জাপা থেকে বাংলাদেশ ইসলামী জোট ও বিএনএ মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছে। এই দুটি দল জাপার প্রার্থী হিসেবে যুক্ত হবে।
অনুষ্ঠানের সমাপনী বক্তব্যে বিরোধীদলীয় নেতা ও জাপার সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ বলেন, ‘আজ আমাদের আনন্দের দিন। অনেক নবীন এবার প্রার্থী। এতে আমি খবুই খুশি হলাম।’ তিনি বলেন, ‘জাপার ক্ষমতার সময় যে উন্নয়ন হয়েছে, তা আর কেউ করতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু দেশের উন্নয়ন করার সময় পাননি। কিন্তু, আমরা যে উন্নয়ন করেছিলাম, তা ছিল ধারাবাহিক।’ রওশন আরও বলেন, ‘এক এলাকায় একজন প্রার্থী হবেন। কিন্তু, বাকি সবাইকে তাকে সমর্থন করে কাজ করতে হবে। জাতীয় পার্টির প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ বেড়েছে, এটা অত্যন্ত ভালো দিক।’
বক্তব্যের মধ্যে হঠাৎ করে রওশন এরশাদ গেয়ে উঠেন- ‘নতুন বাংলাদেশ গড়ব মোরা, নতুন করে আজ শপথ নিলাম’, নব জীবনে ফুল ফোটাব, প্রাণে প্রাণে আজ শিক্ষা নিলাম’ তার সঙ্গে উপস্থিত নেতাকর্মীরাও পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যানের সঙ্গে গলা মেলান।
ইমানুয়েল থেকে বেরিয়ে জাপার কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেন, ‘চেয়ারম্যান স্যার (এরশাদ) বলেছেন এত প্রার্থীর সাক্ষাৎকার একদিনে নেওয়া সম্ভব হবে না। তিনি নেতাকর্মীদের সম্মতি নিয়ে প্রার্থী চূড়ান্ত করবেন একাই। তিনি যাকে ভালো মনে করেন তাকে মনোনয়ন দেবেন। আমরা সবাই তার প্রতি একমত পোষণ করেছি।’
এর আগে সাক্ষাৎকার গ্রহণ কার্যক্রমের শুরুতে স্বাগত বক্তব্যে জাপার মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, একাদশ জাতীয় নির্বাচনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্ধারণে যে ধরনের সিদ্ধান্ত নেবেন তা পার্টির সবাই মেনে নেবেন। একইসঙ্গে পার্টির চেয়ারম্যানকে আশ্বস্ত করেছেন, যেকোনো সিদ্ধান্তে পার্টির কেউ তাকে (এরশাদ) ছেড়ে যাবেন না। কারণ আপনাকে সবাই বিশ্বাস করেন। জাপা মহাসচিব আরও বলেন, বৃহত্তর স্বার্থে মহাজোট কিংবা অন্য কোনো জোটে আপনি (এরশাদ) যাবেন কি-না সেটা একান্ত আপনার সিদ্ধান্ত। আপনি নির্ভুল পথে হাঁটছেন। জাতীয় নির্বাচনে জাপা চেয়ারম্যানের সিদ্ধান্ত অনেক বড় প্রভাব ফেলবে এমন কথা উল্লেখ করে হাওলাদার বলেন, বহু বছর ধরে সংগ্রাম করে জাপা আজকের এই অবস্থানে এসেছে। আপনি (এরশাদ) যে সিদ্ধান্ত নেবেন তা সবাই মেনে নেবে।
উপস্থিত ছিলেন জাপা প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং বন ও পরিবেশমন্ত্রী ব্যরিস্টার আসিনুল ইসলাম মাহমুদ, কাজী ফিরোজ রশীদ, জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু, অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন খান, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, শেখ মুহম্মদ সিরাজুল ইসলাম, ফখরুল ইমাম, শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু, নুর-ই-হাসনা লিলি চৌধুরী, অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম, মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা, সুনীল শুভ রায়, এস এম ফয়সল চিশতী, মীর আবদুস সবুর আসুদ, এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা প্রমুখ।
সাক্ষাৎকারে অংশ নিতে মঙ্গলবার সকাল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা তাদের কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে গুলশানের ইমানুয়েলস মিলনায়তনের বাইরে ভিড় করতে থাকেন। তবে মিলনায়তনের ভেতরে প্রবেশ করতে পারেন শুধু মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। সাক্ষাৎকার না নেওয়ায় অনেকে হতাশ ও ক্ষুব্ধ হয়েছেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪