বিদ্যমান জনবল দিয়েই ডিজিটাল ডাকঘর সম্ভব: মোস্তাফা জব্বার

1547566435
যুগের খবর ডেস্ক: ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ডাক বিভাগের বর্তমান যে জনবল আছে তাদের দিয়েই ডিজিটাল ডাকঘর গড়ে তোলা সম্ভব। তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষ নতুন বিষয়কে অন্য দেশের মানুষের তুলনায় ভালোভাবে রপ্ত করতে পারেন। তাই ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিদ্যমান জনবলকে যারা বাধা  মনে করেন তাদের সঙ্গে আমি একমত নই।
গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর ডাক অধিদফতর মিলনায়তনে ডাক অধিদফতর আয়োজিত সরকারের ‘নির্বাচনী ইশতেহার ২০১৮ বাস্তবায়নে ডাক বিভাগের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা ও ডকুমেন্ট উপস্থাপন  অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন মন্ত্রী।
অনুষ্ঠানে ডাক বিভাগের পক্ষ থেকে নির্বাচনের ইশতেহারের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আগামী দিনের মহাপরিকল্পনা তুলে ধরা হয়। এতে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি এই তিন ভাগে যে কাজগুলো করা দরকার সেগুলো মন্ত্রীকে অবহিত করা হয়। নতুন সরকার গঠনের পর এত অল্প সময়ের মধ্যে ইশতেহার অনুযায়ী পরিকল্পনা দিতে পারায় সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, সরকার গঠনের মাত্র আট দিনের মধ্যে সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার ২০১৮ বাস্তবায়নে ডাক বিভাগের করণীয় শীর্ষক কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন ডাক বিভাগকে ডিজিটালাইজড করার জন্য একটি মাইলফলক। তিনি বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল ডাকঘর গড়ে তুলতে এটি একটি অনন্য উদ্যোগ। তিনি বলেন, ২০০৮ সালে প্রদত্ত নির্বাচনী ইশতেহার আমরা ভুলিনি বলেই আজকের এই বাংলাদেশ। অগ্রগতির অগ্রযাত্রা বেগবান করতে প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটিয়ে এবং তিনি বলার আগে কাজ করার উদ্যোগ নেওয়ার জন্য ডাক বিভাগের উদ্যোগের প্রশংসা করেন মোস্তাফা জব্বার। ডাক বিভাগের অতিরিক্ত মহাপরিচালক এস এস ভদ্র অনুষ্ঠানে ইশতেহার ২০১৮ বাস্তবায়নে ডাক বিভাগের করণীয় শীর্ষক পরিকল্পনা পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে উপস্থাপন করেন।
মোস্তাফা জব্বার, ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল ডাকঘর প্রতিষ্ঠায় সম্ভাব্য সব ধরনের প্রচেষ্টা গ্রহণের দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ডাক বিভাগ নিয়ে যে নেতিবাচক ধারণা ছিল, যুগোপযোগী কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে সে ধারণা পাল্টে দেওয়া হয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল ডাকঘর দেখতে চাই। ‘আমি মনে করি আমাদের সে সক্ষমতা আছে’। ডাক বিভাগের বিদ্যমান জনবল দিয়েই তা সম্ভব। এখন আমাদের এগিয়ে যাওয়ার সময়। সবার সম্মিলিত উদ্যোগে ডাক বিভাগ লক্ষ্য অর্জনে সক্ষম হবেই। তিনি বলেন, ২০০৮ সালের ইশতেহারের ভিতরকার বিষয় জনগণ পর্যন্ত পৌঁছানো কঠিনতম লড়াই ছিল। এই লড়াই এটুআইসহ আইসিটি সংশ্লিষ্টদের ভ‚মিকা ছিল অভাবনীয়। মন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদৃষ্টিসম্পন্ন কর্মসূচি তুলে ধরে বলেন, ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরাম ২০১২ সালে শিল্প বিপ্লব ফোর পয়েন্ট জিরোর কথা বলেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০৮ সালেই ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণা করেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় লাঙ্গল-জোয়ালের দেশ থেকে বাংলাদেশ আজ চতুর্থ শিল্প বিপ্লব বা ডিজিটাল শিল্প বিপ্লবের নেতৃত্বকারী দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। ডাক বিভাগের মহাপরিচালক সুশান্ত কুমার মÐলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে এটুআই প্রকল্প পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান এবং এটুআই পলিসি এডভাইসার আনির চৌধুরী বক্তৃতা করেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪