আজকের তারিখ- Tue-25-06-2024

ব্রহ্মপুত্র গিলছে চিলমারীর শাখাহাতি, গৃহহীন ২শতাধিক পরিবার হুমকির মুখে আশ্রয়ণ কেন্দ্র ও বিদ্যালয়

স্টাফ রিপোর্টার: পানি কমলেও ভাঙ্গে বাড়লেও গেলে চিলমারীকে। নেই যেন শান্তি। আছে শুধুই চোখের পানি। বছরের পর বছর চলছে ভাঙ্গনের এই যুদ্ধ। কবে কোথায় কখন থামবে এই যুদ্ধ তা অজানা চিলমারীবাসীর। ভাঙ্গন কবলিত বেশির ভাগ মানুষের নেই থাকার কোন স্থান, নেই একটু শান্তির আবাস। একটু সুখের আশায় আশ্রয়ের সন্ধানে প্রতি নিয়ত ছুটছে মানুষ। দিনের পর দিন নিঃস্ব করে দিচ্ছে এই নদী ভাঙ্গন। আর সেই ভাঙ্গনের শিকার হয়ে নদী গর্ভে চলে যাচ্ছে উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের শাখাহাতিসহ কয়েকটি গ্রাম। আর হুমকির মুখে পড়েছে সরকারী বিদ্যালয়, আশ্রয়ণ কেন্দ্র। এছাড়াও ইতিমধ্যে কয়েকশত বাড়িঘর নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে এবং মানুষকে বানিয়েছে অসহায়। প্রায় ২শতাধিক পরিবার হয়ে পড়েছে গৃহহীন।
জানা গেছে, বন্যা মৌসুমে নদী ভাঙ্গনের তান্ডব থাকে কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে। সেই সাথে পানি কমলে ভাঙ্গে, বাড়লেও থাকে ভাঙ্গনের তান্ডবলীলা। সেই তান্ডব প্রকট আকার ধারন করেছে। বারবার পানি বৃদ্ধি, কমে যাওয়া, উজানের ঢল ও বৃষ্টির সাথে সাথে। ব্রহ্মপুত্রের থাবায় উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের শাখাহাতি, কড়াইবড়িশালসহ বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গনের তান্ডব দেখা দিয়েছে। সেই সাথে নিমিষেই গিলে খাচ্ছে সবকিছু। ব্রহ্মপুত্রের তান্ডবলীলায় ভাঙ্গছে বাড়িঘর, বিলীন হচ্ছে ফসলি জমিসহ বিভিন্ন স্থাপনা। সেই সাথে মানুষকে করছে নিঃস্ব। ভাঙ্গনের শিকার হয়ে বাড়িঘরসহ লক্ষ লক্ষ টাকার সম্পদ হারিয়ে গৃহহীন হয়ে পড়ছে শতশত পরিবার। ব্রহ্মপুত্রের এই ভাঙ্গনের মুখেই রয়েছে শাখাহাতি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, শাখাহাতি আশ্রয়ণ কেন্দ্রসহ সরকারী বেশকিছু স্থাপনা। এছাড়াও হুমকির মুখে রয়েছে গ্রামের শতশত বাড়িঘরসহ হাজারো একর ফসলি জমি। ইতিমধ্যে ভাঙ্গনে বিলিন হয়েছে সাব মেরিন ক্যাবল ও বিদ্যুৎ খুটি। সদ্য ভাঙ্গনের শিকার আমজাদ, জাহানারা, ইসহাকসহ অনেকে বলেন, নদী আমাদের বসত বাড়ি কেড়ে নিল, কেড়ে নিল আমাদের সাজানো সংসার। তারা আরো বলেন, নদী আমার লক্ষ লক্ষ টাকার সম্পদ কেড়ে নিচ্ছে আর প্রশাসন ১০ কেজি করে চাল নিয়ে আইসে, হামরা ত্রাণ চাই না, চাই নদী ভাঙ্গন থেকে রক্ষা পেতে। ভাঙ্গনের তান্ডব চলছে স্বীকার করে চিলমারী ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বলেন, যে হারে ভাঙ্গছে এর প্রতিরোধ না হলে চিলমারী ইউনিয়নের পুড়ো এলাকাসহ সরকারী স্কুল, আশ্রয়ণ কেন্দ্র নদী গর্ভে চলে যাবে। তিনি আরো বলেন, ইতিমধ্যে কয়েকশত বাড়িঘর বিলিন হয়ে গেছে। কথা হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রাফিউল আলম বলেন, সরেজমিন এলাকা পরিদর্শন করেছি, পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে কথা বলে কিছু জিও ব্যাগ ফেলানোর কাজ শুরু করা হয়েছে, এছাড়াও ভাঙ্গন ঠেকাতে পরিকল্পনা করা হয়েছে বরাদ্দ এলে কাজ শুরু করা হবে। এব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ড কুড়িগ্রামের নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, বিষয়টি জানতে পেরে তাৎক্ষনিকভাবে কিছু জিও ব্যাগ ফেলানো হয়েছে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু চরাঞ্চল হওয়ায় ভাঙ্গন ঠেকানো বড় কষ্টকর।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )