আজকের তারিখ- Thu-26-01-2023

“স্বাধীনতা যুদ্ধের একটি স্মৃতিচিহ্ন একটি ইতিহাস”

আবু হুরায়রা: বাংলাদেশ আমাদের প্রিয় জন্মভূমি। রক্তের সাগরে ভেসে উঠা একটি রাষ্ট্র। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে আছে অসংখ্য স্বাধীনতা যুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন। যে গুলো দেখলে মনে পড়ে মুক্তিযুদ্ধের নির্মমতা কত ভয়াবহ। তেমনি একটি স্মৃতিচিহ্ন কালের স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে চিলমারী উপজেলার বালাবাড়ি রেল স্টেশন সংলগ্ন মাঠে। “স্বাধীনতা যুদ্ধে সম্মুখ সমরের স্মৃতিস্তম্ভ” নাম ধারন করে। এটি অযন্ত-অবহেলা পড়ে আছে। যার সংরক্ষন প্রয়োজন। আমরা নতুন প্রজন্ম। আমরা মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি। তবে আমরা মুক্তিযোদ্ধা দেখেছি। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন দেখেছি। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস পড়েছি। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধকে জানার জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের সাক্ষাত করেছ্ িতাঁদের কাছে যুদ্ধের অনেক গল্প শুনেছি। বজরা তবকপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান, শিকার পাড়া গ্রামের জোবেদ আলী ও ফিরোজ রশিদ তাঁদের কাছে স্বাধীনতা যুদ্ধের লোমহর্ষক কাহিণী শুনে আমরা অবাক। সাক্ষাতকারে তারা বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ-‘প্রত্যেক ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তোল। তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবিলা করতে হবে।’ বঙ্গবন্ধুর সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানের উত্তাল জনসমুদ্রের ভাষণের ঢেউ সারা দেশের ন্যায়। চিলমারীতেও আঘাত হানে। চিলমারীতে গঠিত হয় ছক্কু মিয়ার নেতৃত্বে সংগ্রাম কমিটি। ২৬ শে মার্চের স্বাধীনতার ঘোষণার পর থেকে পাক বাহিনী ট্রেনযোগে বালাবাড়ি রেল স্টেশনে আসতে শুরু করে। সেখানে তারা ঘাঁটি বসায়। মুক্তিযোদ্ধাদের দমন-পীড়ন চালার জন্য গঠন করে টর্চার শেল। নারী-পুরুষ ধরে এনে এ শেলে নির্যাতন চালায়। অনেককে হত্যা করে। এ এক নির্মম ইতিহাস। হানাদার বাহিনীর অত্যাচারের বিরুদ্ধে চিলমারীর বীর সন্তান শওকত আলী সরকার (বীর বিক্রম), আকতারুজ্জামান, ইঞ্জিনিয়ার আবুল কাসেম চাঁদ প্রমুখ মুক্তিযোদ্ধাগণ দূর্বার গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলেন। পাক হানারা এমল কোন নির্যাতন নেই, যা তারা করেনি। এমন কোন অস্ত্র নেই, যা তারা ছোড়েনি। তাদের অনেক গোলাবারুদ ক্ষয় হয়েছে, অনেক লোককে হত্যা করেছে। কিন্তুু চিলমারীর স্বাধীনতাকামী মানুষদের মনোবল ভাঙ্গতে পারেনি।
রৌমারী ভারতের মেঘালয় রাজ্যের সীমান্তবর্তী থানা। মুক্তিযুদ্ধের সময় ছিল একমাত্র মুক্তাঞ্চল ছিল সামরিক প্রশিক্ষণ ক্যাম্প। জেড ফোর্সের নেতৃত্বাধীন ৮ম বেঙ্গল রেজিমেন্ট কোম্পানীর শক্তিশালী অবস্থান। মুক্তিযুদ্ধে চিলমারী ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট। সে কারণে পাক হানাদার বাহিনীর চিলমারীতে ব্যাপক আনাগোনা। তারা বালাবাড়ি রেল স্টেশন, ব্রীজ, থানাহাট পুলিশ স্টেশন, ওয়াপদা ভবন, রাজারভিটা, জোড়গাছ এসব জায়গায় ঘাঁটি গেড়ে বসে। ফলে শত্রুর মোকাবিলায় মুক্তিযোদ্ধাগণ সরব হয়ে উঠে। নায়ের সুবেদার আব্দুল মান্নান কমান্ডার আবুল কাশেম চাঁদের নেতৃত্বে এলাকার দামাল ছেলেরা জড়ো হয়। বুক ভরা আশা অসীম সাহসই তাদের অস্ত্র। দেশ প্রেমই তাদের শক্তি। এটা দিয়ে শত্রু পক্ষের ছোড়া কামানের গোলার মোকাবিলা করবে। মুক্তিযুদ্ধাদের মরণপন শফত। চিলমারী থেকে পাক হানাদার বাহিনীকে হঠাতে না পারলে যুদ্ধের মোড় পাল্টে যেতে পারে। তাই ৭১ এর ১৭ অক্টোবর শত্রু ক্যাম্পগুলোতে ব্যাপক হামলার প্রস্তুতি। ১১নং সেক্টর কমান্ডার আবু তাহেরের সুদক্ষ কৌশলী পরিকল্পনায় শুরু হয় একযোগে পাক হায়েনাদের ঘাঁটিতে ব্যাপক হামলা। মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমনে টিকতে পারেনি পাক হানাদার বাহিনী। একে একে পতন হতে থাকে তাদের ঘাঁটিগুলো। ফলে শত্রুমুক্ত হয় চিলমারী। বিনিময়ে লাভ করি একটি স্বাধীন দেশ, একটি স্বাধীন ভূখন্ড; একটি মানচিত্র, একটি লাল সবুজের পতাকা। এজন্য হারাতে হয়েছে অনেক দেশ প্রেমিক জনতা, অনেক মা-বোনের ইজ্জত। যার স্মৃতিগুলো অমর হয়ে দাঁড়িয়ে আছে রাজ স্বাক্ষী হিসেবে। চিলমারীর ‘স্বাধীনতা যুদ্ধে সম্মুখ সমরে স্মৃতিস্তম্ভ’ তন্মধ্যে অন্যতম। এটি মুক্তিযুদ্ধের দলিল, স্বাধীনতার স্তম্ভ, স্বাধীন দেশের অমর-অক্ষয় সম্পদ।

লেখক- আবু হুরায়রা, ৭ম শ্রেণি, রাজারভিটা ফাজিল মাদ্রাসা, চিলমারী।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )