আজকের তারিখ- Mon-27-06-2022
 **   পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা জোরদারে সেনাবাহিনীকে চিঠি **   চিলমারীতে জালনোট প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত **   চিলমারীতে মাদক বিরোধী মানববন্ধন, র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত **   চিলমারীতে নদীর ভাঙ্গন রোধ কার্যক্রমের উদ্বোধন করলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী **   পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে চিলমারীতে আওয়ামী লীগের আনন্দ শোভাযাত্রা **   পদ্মা সেতু উদ্বোধন: প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ সাকিব-তামিমদের **   ভাগ্য পরিবর্তনে যেকোনো ত্যাগ করতে প্রস্তুত: প্রধানমন্ত্রী **   পদ্মা সেতু স্পর্ধিত বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি: প্রধানমন্ত্রী **   পদ্মা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী **   পদ্মা সেতু: শেখ হাসিনার দৃঢ়তার বহিঃপ্রকাশ

স্বাগত ২০২২

চিলমারী, রবিবার, ০২ জানুয়ারী, ২০২২ খ্রিঃ

সময়ের নিয়ম অনুযায়ী আরেকটি বছর। শুরু হলো। পুরানোকে বিদায় জানানোর মধ্য দিয়ে আরও একটি নতুন বছর। আমাদের দ্বারে এসেছে। নতুন বছর মানে নতুন সম্ভাবনা। নতুনের আবাহন, স্বপ্ন ও সম্ভাবনা নিয়ে প্রতি বছর পহেলা জানুয়ারি আমাদের মাঝে আসে। যেমন আসে। পহেলা বৈশাখ । এ দুটি বিশেষ দিনকেই আমরা বরণ করে নিই। একটির মধ্যে নিহিত রয়েছে আন্তর্জাতিকতা, অন্যটি আবহমান বাংলার চিরায়ত ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে ধারণ করে বাঙালি হৃদয়ে। আবর্তিত হয়। নতুন বছরে নতুন দিন আসে, আমরা উজ্জীবিত ও জাগ্রত হই।
নববর্ষ প্রতিটি মানুষের জীবনে বিশেষ শান্তিও সমৃদ্ধির তৎপর্যের দাবি রাখে। নতুন বছরকে সামনে রেখে বা নতুন বছরে পা দিয়ে সোপানে এগিয়ে মানুষ শপথ নেয় আগত দিনগুলোকে সুন্দরভাবে সাজানোর। বিদায়ী বছরের যা যাক বাংলাদেশ কিছু ভুল ত্রুটি, যা কিছু প্লানিময় পরিহার করার। শুধু ব্যক্তি জীবনই নয়, জাতীয়ভাবেও নতুন বছরটি ইতিবাচক হয়ে দেখা যাবে এমনটি আশা করা হয়। করোনার বিষে নীল ছিল ২০২০। বিষয় হয়নি ২০২১ সালেও, যা দিয়েছে, কেড়ে নিয়েছে তারও ঢের। মহামারি করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে কেবল জনজীবনই নয়, বিপর্যস্থ হয়েছে দেশের অর্থনীতিও। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের উৎসব মুখর পরিবেশেও লাগাম টেনেছে করোনা। এ অদৃশ্য শক্তির কালো অন্ধকারে হারিয়ে গেছে দেশবরেণ্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, লেখক, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, সঙ্গীত ও অভিনয় শিল্পী নানা ক্ষেত্রের বিশিষ্টজনদের জীবন প্রদীপ। আবার অনেকেই বরণ করেছেন স্বাভাবিক মৃত্যু। বিদায়ী বছরে হারানো সেই সব মানুষদের মধ্যে আছেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, হোসেন তৌফিক আহমদ, রফিকুল ইসলাম, হাসান আজিজুল হক, সৈয়দ আবুল মকসুদ, রিয়াজ উদ্দিন। আহমদ, সারাহ বেগম কবরী, এটিএম শামসুজ্জামান, ফকির আলমগীর ও মিতা হক। ইতিহাসের বিবেচনায় বাঙালি এক প্রাচীন জাতি। গাঙ্গেয় ব-দ্বীপের। অধিবাসীদের রয়েছে পাঁচ হাজার বছরের ঐতিহ্য। আমাদের আধুনিক ইতিহাসও অহংকার করার মতো। জাতিগতভাবে বাঙালিরা যে সচেতন এবং আত্মমর্যাদা। সম্পন্ন তা ফুটে উঠেছে ভাষা ও স্বাধীনতার জন্য এ জাতির আত্মত্যাগের ইতিহাসে। প্রকৃতি উদারভাবে আমাদের দান করেছে উর্বর মাটি। এ মাটিতে বীজ বুনলেই সহজেই ভরে যায় ফসলের মাঠ। এ দেশের নদ-নদী, খাল-বিল, হাওড় বাওড় যতœ পেলে সোনার খনিতে রূপান্তরিত হয়। মানব সম্পদে সমৃদ্ধ এ দেশকে দরিদ্র বলার অবকাশ নেই। বাংলাদেশের মানুষ প্রতিকূল অবস্থাকে জয় করার সাহসও রাখে। প্রকৃতি আমাদের সেভাবেই সৃষ্টি করেছে। আমাদের রয়েছে। পরিশ্রমী মানুষ। ঐক্যবদ্ধভাবে প্রয়াস চালালে এ জাতিকে সমৃদ্ধ বিশ্বের কাতারে নিয়ে যাওয়া কঠিন কিছু নয়। তবে বাংলাদেশের উন্নয়নের বিভিন্ন ধাপ পেরিয়ে ক্রমেই এগিয়ে চলেছে। দেশ আজ অর্থনীতিতে তো বটেই, সামাজিক সূচকেও অগ্রগতির দৃষ্টান্ত স্থাপন করা সক্ষম হয়েছে। বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা, বিশ্ব মিডিয়া এবং উন্নত দেশগুললো বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার উচ্ছসিত প্রশংসা করেছে। করোনা মহামারি মোকাবেলা করেও খাতওয়ারি উন্নয়ন পরিমাপে বাংলাদেশ যে এগিয়ে চলছে, তা স্পষ্ট। নতুন জীবনের জয়গান গেয়ে আমরা উজ্জীবিত হই। আনন্দ-উন্নয়নের পাশাপাশি আমরা অঙ্গীকার করি, নতুন নতুন বছরে নতুনভাবে চলতে। নতুনভাবে জীবন যাপন করতে। একথা বলার অপেক্ষা রাখেনা, পুরানোকে বিদায় দিয়ে নতুনকে বরণ করে নেওয়াই মানুষের সহজাত প্রবণতা। প্রতি বছর বছরকে বরণ করতে আমরা উল্লসিত, আনন্দিত হলেও এবারের প্রেক্ষাপট ভিন্ন। কেননা করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে পুরো বিশ্ব বিপর্যস্থ। এ মহামারি মানুষের জীবনকে বদলে দিয়েছে। থমকে গেছে একেকটি খাত। করোনার সংক্রমণ ও সংক্রমণে মৃত্যুর বিভীষিকাময় প্রতিনিয়ত মানুষকে পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হচ্ছে। সংক্রমণ রোধে লকডাউনের মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল, আবার জীবন ও জীবিকার প্রয়োজনে তা শিথিল করা হয়েছে। এরই মধ্যে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও টিকা কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে। যা নতুন করে আশার সঞ্চার রয়েছে মানুষের মনে। সার্বিকভাবে ২০২১ ঘটনাস্থল বছর হলেও বছরজুড়ে আলোচনায় ছিল করোনাভাইরাস। আমরা নতুন বছরে সুখী বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখছি। সন্ত্রাস, দুর্নীতি, সহিংসতা ও গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সবাইকে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে। মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম লক্ষ্য ছিল বহুত্ববাদী সমাজ প্রতিষ্ঠা, এটা তখনই সম্ভব, যখন দলমত নির্বিশেষে সবাই গণতান্ত্রিক শর্তগুলো অবাধে উপভোগ করতে পারবে । নতুন বছরে দেশের প্রতিটি মানুষের জীবন সুখ ও সমৃদ্ধিতে ভরে উঠুক। নতুন বছরে সরকারের কর্মোদ্দীপনায়, দেশ ও জাতির সুনাম। আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে আরও বিস্তৃত লাভ করুক এ প্রত্যাশা আমাদের। পুরনো বছরের সব দুঃখ-বেদনা, ব্যর্থতাকে ঝেরে ফেলে শান্তি ও সমৃদ্ধির পথ ধরে এগিয়ে চলার নতুন প্রত্যয়ে শুরু হোক নতুন বছর। আমাদের পাঠক, গ্রাহক, বিজ্ঞানদাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের নতুন বছরের শুভেচ্ছা। শুভ নববর্ষ।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )