আজকের তারিখ- Mon-27-06-2022
 **   পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা জোরদারে সেনাবাহিনীকে চিঠি **   চিলমারীতে জালনোট প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত **   চিলমারীতে মাদক বিরোধী মানববন্ধন, র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত **   চিলমারীতে নদীর ভাঙ্গন রোধ কার্যক্রমের উদ্বোধন করলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী **   পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে চিলমারীতে আওয়ামী লীগের আনন্দ শোভাযাত্রা **   পদ্মা সেতু উদ্বোধন: প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ সাকিব-তামিমদের **   ভাগ্য পরিবর্তনে যেকোনো ত্যাগ করতে প্রস্তুত: প্রধানমন্ত্রী **   পদ্মা সেতু স্পর্ধিত বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি: প্রধানমন্ত্রী **   পদ্মা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী **   পদ্মা সেতু: শেখ হাসিনার দৃঢ়তার বহিঃপ্রকাশ

‘আমরা সবাই মিলে হাত তুলে প্রতিজ্ঞা করেছিলাম’

স্পোর্টস ডেস্ক: এবাদত হোসেন- ঘরের মাঠে বল হাতে মাঝেমধ্যেই ঝলক দেখিয়েছেন। সেই সঙ্গে ছিলেন আলোচনায়ও। তার পারফরম্যান্সের সঙ্গে উইকেট পাওয়ার উদযাপনটা ছিল নজরকাড়া। উইকেট শিকারের পর খানিকটা মার্চ করেই ঠুকে দেন স্যালুট। এবার বিশ্ববাসীও দেখল তার সেই স্যালুট। মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের জয়ের নায়ক এবাদতের ক্রিকেটে আসার গল্পটা বেশ লম্বা। তার এই স্যালুটের পেছনে লুকিয়ে আরেক গল্পও। তিনি বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারের সঙ্গে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর সদস্যও।
যেটা নিজেও স্মরণ করেছেন ম্যাচের পর, ‘আমি বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর সেনা। আমি জানি, কীভাবে স্যালুট করতে হয়। ভলিবল থেকে ক্রিকেটে আসা একটি লম্বা গল্প। আমি ক্রিকেট উপভোগ করছি এবং বাংলাদেশ দলকে প্রতিনিধিত্ব করার চেষ্টা করছি, বাংলাদেশ বিমানবাহিনীকেও।’
২০১২ সালে বিমানবাহিনীতে যোগ দেন। খেলতেন তখন ভলিবল। কিন্তু ছোটবেলা থেকে ক্রিকেটের প্রতি ছিল তার বাড়তি টান। যেটা ২০১৬ সালের পেসার হান্টে উঠে আসে ভালোভাবেই। সেবার গতি দিয়ে সবার নজর কাড়েন। সেখান থেকে বিসিবির হাইপারফরম্যান্স টিমে। আর একটি ক্যাম্পে তার ওপর চোখ পড়ে কোচ আকিভ জাভেদের। এরপরই ঘুরে যায় তার গতিপথ। ২০১৯ সালের মার্চে টেস্ট ক্যাপও পেয়ে যান। জাতীয় দলে নাম লিখিয়ে নিজের সেরাটা দিয়েই পারফর্ম করতে থাকেন। ক্রমেই তার ওপর আস্থা বাড়ে নির্বাচকদের। এবার তো নিউজিল্যান্ডে বল হাতে ম্যাজিকই দেখালেন এবাদত।
সে জন্য বোলিং কোচ ওটিস গিবসনকেও ক্রেডিট দিয়েছেন এই পেসার, ‘দুই বছর ধরে আমি ওটিস গিবসনের সঙ্গে কাজ করছি। তিনি সব সময় আমাদের সাহায্য করেন। বাংলাদেশের কন্ডিশনে আমরা খুব একটা সহায়তা পাই না। এখনও আমরা শিখছি। দেশের বাইরে কীভাবে বল করতে হয়, শিখছি। কীভাবে রিভার্স করতে হয়, নিউজিল্যান্ডে ভালো লেন্থে কীভাবে বল করতে হয়। আমি চেষ্টা করেছি টপ অব দ্য স্টাম্প হিট করতে। সাফল্য এসেছে তাতেই। একটু ধৈর্য ধরতে হয়েছে। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে গত ১১ বছরে (২০ বছরে) আমাদের ভাইয়েরা ও আমাদের দল কোনো জয় পায়নি। আমরা এবার একটি লক্ষ্য নিয়ে এসেছিলাম। আমরা সবাই মিলে হাত তুলে প্রতিজ্ঞা করেছি, নিউজিল্যান্ডের মাটিতে আমরা এটা (জয়) করতে পারি। নিউজিল্যান্ডকে ওদের মাটিতে আমরা হারাতে পারি। আরেকটা ব্যাপার, আমরা জানি যে নিউজিল্যান্ড টেস্টের চ্যাম্পিয়ন। যদি তাদের মাটিতে তাদের হারাতে পারি, আমাদের পরবর্তী প্রজন্মও জানবে যে তারাও হারাতে পারবে। এটাই ছিল মূল লক্ষ্য।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )