আজকের তারিখ- Tue-10-12-2019

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা-১ ‘যুদ্ধ’ শেষ হয়নি তাদের

যুগের খবর ডেস্ক: যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলা সদর থেকে চৌদ্দ কিলোমিটার পূর্ব দিকের একটি গ্রাম আয়াপুর। ওই গ্রামের মধ্যপাড়ায় ২৬ শতাংশ জমির ওপর যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ইরাদত আলী খানের একতলা আধাপাকা টিনশেড ঘর। তার বয়স ৭২। কর্মজীবনে তিনি ছিলেন বাঘারপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্টোরকিপার। অবসরের পর থেকে আয়াপুর গ্রামের এই পৈতৃক ভিটাতেই শুয়ে শুয়ে দিন কাটছে তার।

কেমন আছেন জানতে চাইতেই ইরাদত আলী সমকালকে জানালেন, স্বাধীনের সময় থেকেই আর ভালো কিছু খেতে পারেন না। কষ্ট হয়। রাজাকাররা জবাই করতে গিয়ে তার ঘাড়ের নালি (শিরা) কেটে দিয়েছিল। ভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়ার পর বঙ্গবন্ধু তাকে রোমানিয়া ও রাশিয়া পাঠিয়ে চিকিৎসা করিয়েছেন। কিন্তু সব খাবার খেতে পারেন না। স্ত্রীও অসুস্থ। পাঁচ ছেলের মধ্যে দু’জন টুরিস্ট ভিসায় বিদেশে গিয়ে কষ্টে আছে। তিনি নিজেও একা চলাফেরা করতে পারেন না।

আরও অনেক কিছু বলতে চাইছিলেন ইরাদত আলী। থামিয়ে দিয়ে জানতে চাওয়া- স্বাধীন বাংলাদেশে জীবন সায়াহ্নে কী চান? হয়তো আগেই ভেবে রেখেছিলেন এ জন্য সময় নেননি। বললেন, তোমরা ঢাকায় থাকো। বড় বড় দালানকোঠা। আমার অনেক টাকার দরকার। সুচিকিৎসা করাব। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গেও দেখা করতে চাই। স্বাধীনের পর তার বাবার (বঙ্গবন্ধুর) সঙ্গে দেখা করেছিলাম বলেই তো বিদেশে চিকিৎসা হয়েছিল। শুধু ইরাদত আলী খান নন, হাজারো যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার জীবন সায়াহ্নে এসে এভাবেই দিনাতিপাত করছেন। যাদের অনেকেরই হাত-পা এবং শরীরের বিভিন্ন অংশ মুক্তিযুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অনেকে আবার স্বাধীনতার ৪৮ বছরে এসেও শরীরে ‘গুলি’ বা ‘স্পিল্গন্টার’ বহন করে অসহ্য যন্ত্রণা নিয়ে বেঁচে রয়েছেন। রাজধানীর মোহাম্মদপুরে মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ারে গিয়ে জানা যায়, গত দুই মাসে মৃত্যুবরণ করেছেন ২২ জন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ার ও আশপাশের এলাকায় এখনও বসবাস করছেন ৯৭ জন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা। তাদের অনেকেই এখন শারীরিকভাবে অসুস্থ। সহযোদ্ধাদের হারিয়ে তারাও এখন মৃত্যুকে আলিঙ্গনের অপেক্ষায়।

মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের পরিসংখ্যান বলছে, বর্তমানে ৯ হাজার ৬৭৫ জন পাচ্ছেন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার ভাতা। পঙ্গুত্বের স্তরভেদে এসব যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সর্বনিম্ন ২৫ হাজার থেকে ৪৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাতা পেয়ে আসছেন। আরও এক হাজার ৬৭৭ জনের ‘যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা’র আবেদন রয়েছে যাচাই-বাছাইয়ের অপেক্ষায়। এ জন্য যাচাই-বাছাই কমিটি গঠন করা হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সমকালকে বলেন, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধারা সাধারণ মুক্তিযোদ্ধাদের চেয়ে ভাতা ও সুযোগ-সুবিধা অনেক বেশি পান। অনেকে বুঝে-না বুঝেও ভাতা বেশি পেতে গিয়ে আবেদন করেছেন। এটি একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে যাচাই-বাছাই করা হয়। এ জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি যাদের সুপারিশ করবে তাদের আবার সিএমএইচের চিকিৎসকের মাধ্যমে চূড়ান্তভাবে নির্ণয় করা হবে। আমরা চাইছি একটি প্রকৃত তালিকা, যে তালিকা নিয়ে কোনো প্রশ্ন থাকবে না। এ জন্য মন্ত্রণালয় সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছে বলেও জানান তিনি।

রাজধানীর চিড়িয়াখানা রোডে মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের জায়গায় নিজস্ব উদ্যোগে তৈরি টিনশেড ঘরে বসবাস করছে ৯০ জন যুদ্ধাহত ও শহীদ পরিবার। সেখানে কল্যাণ ট্রাস্টের ৩৯ বিঘা জমি রয়েছে। তবে এর অধিকাংশই মুক্তিযোদ্ধাদের নামে দখল করে রেখেছে প্রভাবশালীরা। সেখানে (চিড়িয়াখানা রোড) কথা হয় পঁয়ষট্টি ঊর্ধ্ব রংপুরের যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলীর সঙ্গে। তিনি সমকালকে বলেন, ‘গুলিতে তার হাত ও চোখ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কারও সাহায্য ছাড়া চলাফেরাও করতে পারেন না। তাই জীবনের এই অন্তিম সময়ে এসে কেবলই পেছনের দিনের কথা মনে পড়ে; তাকে রেখে যারা চলে গেছেন তাদের কথা মনে হয়। কবে মিলবে জীবনের মুক্তি!’

খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের ফ্ল্যাট বা ভিটেমাটি-ঘর হয়েছে। দুই বেলা ভাতের জন্য এখন আর অসুস্থ শরীর টেনে ভিক্ষেও করতে হয় না। ছেলেমেয়েদেরও অনেকের মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরি হয়েছে। তবুও ভালো নেই একাত্তরের সেই অসম সাহসী যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধারা। সরকারি সুযোগ-সুবিধা তাদের জীবন ধারণের সুযোগ করে দিলেও দুর্বিষহ কষ্ট থেকে মুক্তি দেয়নি। বার্ধক্যের শরীরে বাসা বেঁধেছে নানাবিধ রোগ। চোখের জ্যোতিও কমে গেছে অনেকটা। বর্তমানে বহু কষ্টে চিকিৎসাসেবা চলছে তাদের। অথচ তাদের জন্য নেই বিশেষায়িত কোনো হাসপাতাল। প্রায়ই হাসপাতালগুলোতে গিয়ে চিকিৎসা নিতে তাদের সইতে হয় বিভিন্ন ধরনের কটূক্তিও।

এ বিষয়ে খেতাবপ্রাপ্ত, যুদ্ধাহত ও শহীদ পরিবার বহুমুখী সমবায় সমিতির চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত মাহমুদ পারভেজ জুয়েল সমকালকে বলেন, ‘অনেক অপেক্ষার পর বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের কষ্ট লাঘবে রাজধানীর পাঁচটি সরকারি হাসপাতালে কেবিনে ফ্রি চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। সেটিও প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। বিশেষ করে ঢাকার বাইরে জেলা শহরগুলোতে এমন ব্যবস্থা না থাকায় সেখানকার যুদ্ধাহত ও সাধারণ মুক্তিযোদ্ধারা দুঃসহ জীবন-যাপন করছেন। যদিও সরকারিভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য চিকিৎসাসেবা পুরোটাই ফ্রি বলা হয়। যখন বড় বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে আমরা যাই তখন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ফ্রি চিকিৎসা দিতে অপারগতা প্রকাশ করে। এক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বিশেষায়িত হাসপাতাল অথবা সব হাসপাতালে মুক্তিযোদ্ধাদের ফ্রি চিকিৎসা নিশ্চিত করা প্রয়োজন।’

বিষয়টি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রীর নজরেও দেওয়া হয়। তিনি সমকালকে বলেন, ‘বর্তমান সরকার ইতোমধ্যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে সকল নাগরিক বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা পাবেন। এ হিসেবে মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ৬৫ বছরের নিচে শতকরা দুইভাগের বেশি হবে না। আমরা চেষ্টা করছি, মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য এমন কিছু ব্যবস্থা করা যার মাধ্যমে দেশের সব হাসপাতালেই মুক্তিযোদ্ধারা শতভাগ স্বাস্থ্যসেবার সুবিধা ভোগ করতে পারেন। তাদের যেন কোনো সমস্যা না হয়।’ এ লক্ষ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চলছে বলেও জানান মন্ত্রী।

স্বাধীনতার পর রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশে ১৯৭২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট গঠিত হওয়ার পর যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার তালিকাভুক্তি এবং তাদের রাষ্ট্রীয় ভাতা দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়। তখন কল্যাণ ট্রাস্টে নিয়োজিত চিকিৎসক যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আবেদনকারীর পঙ্গুত্বের মাত্রা চিহ্নিত করতেন। তবে বর্তমানে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের আবেদন মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টে গ্রহণ করা হয়। পরে ওই আবেদন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের (সিএমএইচ) চিকিৎসকের কাছে পাঠানো হয় পঙ্গুত্বের মাত্রা নির্ধারণের জন্য। সেখানে যুদ্ধাহতকে পরীক্ষা শেষে চিকিৎসকের প্রতিবেদন আসার পর তার ভিত্তিতে ভাতাসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ শেষে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল থেকে গেজেট প্রকাশ করা হয়। এরপর পঙ্গুত্বের স্তরভেদে এসব যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সর্বনিম্ন ২৫ হাজার থেকে ৪৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাতা পেয়ে থাকেন।

মাসিক ভাতা ছাড়াও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার পরিবার রেশনসামগ্রী হিসেবে সর্বোচ্চ চারজনের পরিবারের জন্য চাল ৩৫ কেজি, আটা ৩০ কেজি, সয়াবিন তেল আট লিটার, আট কেজি মসুর ডাল, পাঁচ কেজি চিনি পেয়ে থাকেন। যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের ২০০ ইউনিট বিদ্যুৎ বিল, দুই বার্নারের একটি গ্যাসের চুলা, জনপ্রতি মাসিক ১২৫ লিটার পানির বিল এবং এক হাজার ৫০০ বর্গফুট হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফ করা হয়েছে। যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের বিদেশে চিকিৎসা প্রদানের বিষয়েও সরকারের একটি নীতিমালা রয়েছে। এর আওতায় একজনকে ট্রাস্টের মাধ্যমে সর্বোচ্চ আট লাখ টাকা পর্যন্ত বিদেশে গিয়ে চিকিৎসার জন্য দেওয়া হয়। ভারত সরকারও প্রতি বছর একশজন মুক্তিযোদ্ধাকে ফ্রি চিকিৎসা দেয়, যার মধ্যে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধারাও আছেন। এসবের বাইরে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল বিশেষ বৃত্তির ব্যবস্থা করেছে। যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের দুই সন্তানের জন্য প্রতিবছর এক হাজার ৬০০ টাকা শিক্ষা অনুদান দিয়ে থাকে। অনধিক দুই সন্তানের জন্য কন্যা বিবাহ ভাতাও পায় যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার পরিবার। এই ভাতা ১৯ হাজার ২০০ টাকা। এ ছাড়াও গত বছর থেকে মাসিক ১ হাজার ১০০ থেকে ১ হাজার ৯০০ টাকা পর্যন্ত মোবাইল কার্ড সুবিধাও পাচ্ছেন যুদ্ধাহতরা।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, দেশে এখন গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ২ লাখ ৩৪ হাজার ৩৭৮। ভাতা পাচ্ছেন ১ লাখ ৮৭ হাজার ৯৮২ জন। এর মধ্যে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে এ পর্যন্ত নতুন করে সরকারি গেজেটভুক্ত হয়েছেন ৩৫ হাজার ৪৮৯ জন। স্বাধীনতার পর বিভিন্ন সরকারের আমলে এ পর্যন্ত ছয়বার তালিকা প্রণয়ন করা হয়। কিন্তু প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার তালিকা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন রয়েছে এখনও। এমন পরিস্থিতির মধ্যেই ২০১৭ সালের ২১ জানুয়ারি সারাদেশে মুক্তিযোদ্ধা হিসেব গেজেটভুক্তির জন্য প্রায় দেড় লাখ ব্যক্তির আবেদন যাচাই-বাছাইয়ের কার্যক্রম শুরু করে সরকার। দুই বছরেও মুক্তিযোদ্ধার চূড়ান্ত তালিকা প্রণয়ন করতে পারেনি মন্ত্রণালয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )
x
শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন
কুড়িগ্রাম জেলার অন্যতম জনপ্রিয় সাপ্তাহিক পত্রিকা “যুগের খবর” ৭ বছর পেরিয়ে ৮ বছরে পদার্পণ করতে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে পত্রিকাটির সকল সাংবাদিক এবং পাঠক ও শুভানুধ্যায়ীদেরকে ৭ম বর্ষপূর্তির শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাই। --সম্পাদক
Days
Hours
Minutes
Seconds