আজকের তারিখ- Tue-29-11-2022

হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন আজ

যুগের খবর ডেস্ক: নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন আজ রবিবার। ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার কুতুবপুর গ্রামে জন্ম বাংলা সাহিত্যের এই কিংবদন্তির।
বেঁচে থাকলে আজ ৭৪ বছরে পা দিতেন তুমুল পাঠকপ্রিয় এই লেখক। ১০ বছরেরও বেশি সময় ধরে তিনি নেই। কিন্তু কে বলবে তা? তার লেখাতেই আজও মাতোয়ারা পাঠক।
গল্প, উপন্যাস, কবিতা ছাড়াও হুমায়ূনের পদচারণে ছিল নাটক-গান ও সিনেমায়। শিল্প-সাহিত্যের সব অঙ্গনেই তরুণদের কাছে তিনি অনুকরণীয়।
হুমায়ূন আহমেদের বহুমাত্রিক রচনা সহজেই পাঠকের হৃদয় স্পর্শ করে যায়। বাঙালি মধ্যবিত্ত জীবনের সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্নার গল্প সহজ-সাবলীল ও হৃদয়গ্রাহী ভাষায় উঠে এসেছে তার লেখনীতে।
ব্যক্তি মানুষের আনন্দ-বেদনা, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, আবেগ-অভিমান, মনস্তাত্ত্বিক জটিলতা আর সমাজের প্রেক্ষাপটে মানুষের জীবনের বহুমাত্রিক অনুষঙ্গ অসাধারণ নৈপুণ্যে প্রতিভাত তার সৃষ্টিতে।
হুমায়ূনের রচনার অন্যতম বৈশিষ্ট্য চরিত্র নির্মাণ। তার সৃষ্ট চরিত্রগুলো যেন বার বার ফিরে আসে পাঠক মনে। হিমু, মিসির আলী, শুভ্ররা যেন পাঠকের অনেক কাছের।
এগুলো প্রতীকী চরিত্র হলেও এদের সবারই মিল যেন প্রগাঢ় মানবিক মূল্যবোধে। সেটা হোক চিন্তা-ভাবনায় উদ্ভট হিমু বা যুক্তিবাদী সত্যসন্ধানী মিসির আলী কিংবা বিবেকবান শুভ্র।
হুমায়ূনের গল্প, উপন্যাসের বিভিন্ন ছোট ছোট উক্তি পাঠকের কাছে খুবই জনপ্রিয়।
যেমন- বাদশাহ নামদারে লিখেছেন, ‘রাজা যায়, রাজা আসে। প্রজাও যায়, নতুন প্রজা আসে। কিছুই টিকে থাকে না। ক্ষুধার্ত সময় সব কিছু গিলে ফেলে, তবে গল্প গিলতে পারে না। গল্প থেকে যায়।’
‘এই পৃথিবীতে চোখের জলের মতো পবিত্র তো আর কিছু নেই। এই পবিত্র জলের স্পর্শে সব গ্লানি-সব মালিন্য কেটে যায়।’- কুহক
রজনীতে লিখেছেন, ‘মানুষ হয়ে জন্মানোর সবচেয়ে বড় কষ্ট হচ্ছে মাঝে মাঝে তার সব কিছু পেছনে ফেলে চলে যেতে ইচ্ছা করে, কিন্তু সে যেতে পারে না। তাকে অপেক্ষা করতে হয়। কিসের অপেক্ষা তাও সে ভালোমতো জানে না।’
প্রেম-বিরহ-রাজনীতি নিয়ে এমন আরও অসংখ্য উক্তি আছে, যা পাঠকমুখে বেশ জনপ্রিয়।
আশির দশকে বাংলাদেশের টেলিভিশন নাটক ধারাবাহিকের ইতিহাসে আলোড়ন সৃষ্টি করেন তিনি। ১৯৮৩ সালে হুমায়ূনের প্রথম টেলিভিশন নাটক ‘প্রথম প্রহর’। আর প্রথম ধারাবাহিক নাটক ‘এইসব দিনরাত্রি’ ব্যাপকভাবে দর্শক-সমাদৃত হয়।
এ ছাড়াও রয়েছে ‘বহুব্রীহি’, ‘কোথাও কেউ নেই’, ‘আজ রবিবার’, ‘নক্ষত্রের রাত’সহ তুমুল জনপ্রিয় বহু একক ও ধারাবাহিক নাটক।
চলচ্চিত্র নির্মাণেও সার্থক ছিলেন হুমায়ূন। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গল্প নিয়ে নির্মাণ করেছেন ‘আগুনের পরশমণি’ ও ‘শ্যামল ছায়া’র মতো চলচ্চিত্র।
নির্মাণ করেছেন ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’, ‘দুই দুয়ারী’, ‘চন্দ্রকথা’, ‘নয় নম্বর বিপদ সংকেত’, ‘আমার আছে জল’ এবং ‘ঘেটু পুত্র কমলা’র মতো সব চলচ্চিত্র।
সাহিত্য ও চলচ্চিত্রে অনেক পুরস্কার পেয়েছেন হুমায়ূন আহমেদ। ১৯৮১ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পান তিনি। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৯৪ সালে পান ‘একুশে পদক’।
আর চলচ্চিত্রে ১৯৯২ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। কাহিনীকার, সংলাপ রচয়িতা, চিত্রনাট্যকার ও শ্রেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে তিনি মর্যাদাপূর্ণ এই পুরস্কার পেয়েছেন।
বাংলাদেশের তুমুল জনপ্রিয় এই কথাশিল্পী ও চলচ্চিত্রকার ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে ২০১২ সালের ১৯ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।
সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )
x
পাঠকপ্রিয় সাপ্তাহিক যুগের খবর ও অন-লাইন নিউজ পোর্টাল www.jugerkhabor.com এর দশম বর্ষপূর্তি ও ১১তম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে সকল পাঠক, গ্রাহক,প্রতিনিধি, বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা। ----- এস, এম নুরুল আমিন সরকার, সম্পাদক ও প্রকাশক।।