আজকের তারিখ- Tue-29-09-2020

চিলমারীতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুই সহকারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা

স্টাফ রিপোর্টার: কুড়িগ্রামের চিলমারীর চর শাখাহাতি ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ নাহিদ হাসান ও নাওশালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ রবিউল ইসলাম এর বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত এবং বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়েছে। মামলা করেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ শহীদুল ইসলাম।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস স্মারক নং- জেপ্রাশিঅ/বিঃমাঃ/চিল/কুড়ি/২৫৯৮, তারিখঃ ০৯/১২/২০১৯ইং একটি অভিযোগ নামার মাধ্যমে জানা যায়, চর শাখাহাতি ১নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ নাহিদ হাসানের বিরুদ্ধে চিলমারী শিক্ষা অফিস গত ২৪/০৯/২০১৯ইং তারিখের উশিঅ/চিল/কুড়ি/৫০১ নং স্মারক পত্রের প্রতিবেদনে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবরে প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদনে উল্লেখ রয়েছে অনুমতি ছাড়াই গত ২০১৯ সালে সর্বমোট ০৯দিন বিদ্যালয়ে অনুমোদনহীন ভাবে অনুপস্থিত ছিলেন এবং তার নৈমিত্তিক ছুটি গ্রহন করার প্রবনতা বেশী লক্ষ করা যায়। বিদ্যালয়ের হাজিরা খাতায় প্রধান শিক্ষকের অনুমতি ব্যতিরেকে জোরপূর্বক নিজেই নৈমিত্তিক ছুটি লেখেন বা স্বাক্ষর করেন মর্মে প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে জানা যায়। উপজেলা শিক্ষা অফিসের দপ্তর স্মারক নং-উশিঅ/চিল/কুড়ি/৩৬৩, তারিখ ১১/০৬/২০১৯ইং অনুযায়ী কৈফিয়ত তলব করা হলে, উক্ত কৈফিয়তের জবাব পাওয়া যায়নি। ওই শিক্ষক গত ১৭/০৪/২০১৯ইং তারিখে কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকা সত্তে¡ও অনুপস্থিতির উপর উপস্থিতি স্বাক্ষর করেন।
অপরদিকে একই উপজেলার নাওশালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার স্বাক্ষরিত স্মারক নং-জেপ্রাশিঅ/বিঃমাঃ/চিল/কুড়ি/২৪৯৬ তারিখঃ ২৮/১১/২০১৯ইং তারিখের অভিযোগ নামার মাধ্যমে জানা যায়, চিলমারী শিক্ষা অফিস গত ২৫/০৯/২০১৯ইং তারিখের উশিঅ/সদর/কুড়ি/৫০৬ নং স্মারক পত্রের প্রতিবেদনে ওই শিক্ষক কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই গত ২০১৯ সালে সর্বমোট ২৬ দিন বিদ্যালয়ে অনুমতি ছাড়া অনুপস্থিত ছিলেন। গত ০৪/০৮/২০১৯ইং তারিখে ওই শিক্ষক বিদ্যালয়ের হাজিরা খাতা বাহিরে নিয়ে যাওয়ার সময় প্রধান শিক্ষক কারণ জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষককে গালিগালাজ ও আঘাত করা সহ জীবন নাশের হুমকি প্রদান করে। সংশ্লিষ্ট ক্লাস্টারের সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার ওই শিক্ষককে নিয়মিত বিদ্যালয়ে না আসার কারণ জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক রুকুনুজ্জামান এর সামনে ঔদ্ধোত্বপূর্ণ আচরণ করেন। দীর্ঘদিন বিদ্যালয়ে অনুমতি ছাড়াই অনুপস্থিতির কারণে বিদ্যালয়ের শ্রেনী পাঠদান বিঘিœত ও কোমলমতী শিশুদের পড়ালেখার যথেষ্ট ক্ষতি সাধিত হচ্ছে এবং প্রাথমিক শিক্ষার গুনগত মানউন্নয়ন বাধাগ্রস্থ হওয়ায় অভিযুক্ত দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃংখলা ও আপিল) বিধিমালা,২০১৮ এর ৩(খ) ও (ঘ) ধারা অনুযায়ী বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়।
এ ব্যাপরে জেলা শিক্ষা অফিসার শহীদুল ইসলাম বলেন, অভিযুক্ত দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় পর্যায়ে মামলা দায়ের করেছি। মামলাটি বিচারাধীন অবস্থায় রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )