আজকের তারিখ- Thu-02-07-2020

বিশ্বজুড়ে শ্রমিক পাঠাচ্ছে সরকার

যুগের খবর ডেস্ক: ইউরোপ থেকে পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে শ্রমিক পাঠানোর মন্দা কাটিয়ে নতুন করে বাংলাদেশের শ্রমবাজার খুলছে বিশ্বজুড়ে। চলতি মাসেই মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার খোলার সিদ্ধান্ত আসতে পারে দুই দেশের ওয়ার্কিং কমিটির সভা থেকে। পোল্যান্ড, হ্যাঙ্গেরি, রোমানিয়া, সিসেল, কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ বেশ কয়েকটি দেশ বাংলাদেশি শ্রমিক নিতে রাজি হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে বিদেশ থেকে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স তথা জনশক্তি রপ্তানিতেও ভাটা কেটে জোয়ার দেখা দেবে- এমনটাই আশা করা হচ্ছে। চলতি বছর সরকারিভাবে কম খরচে সাড়ে সাত লাখ শ্রমিক পাঠানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সরকার। এ লক্ষ্যে আগামী রবিবার থেকে ৬১ জেলায় সরকারিভাবে বিদেশ যেতে আগ্রহী দক্ষ, স্বল্পদক্ষ, অদক্ষ ও পেশাজীবী নারী-পুরুষের নিবন্ধন শুরু হচ্ছে। কোনো দালাল বা মধ্যসত্ত্বভোগী ছাড়াই ৬১ জেলায় নিবন্ধন শেষে দক্ষতা অনুযায়ী কাজের ব্যবস্থা করে বিদেশে পাঠাবে সরকার।

জানতে চাইলে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা শুক্রবার মুঠোফোনে আজকালের খবরকে বলেন, মালয়েশিয়ায় শ্রমিক পাঠাতে আগামী ২৪ ও ২৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় দুই দেশের জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটির সভা হবে। আশা করছি ওই সভা থেকে ভালো খবর পাওয়া যাবে। নতুন করে কোন কোন দেশে শ্রমিক পাঠানো হবেÑএমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, কম্বোডিয়ায় অলরেডি শ্রমিক পাঠানো হচ্ছে। চীনেও কর্মী পাঠানো শুরু করেছিলাম। বর্তমান পরিস্থিতির কারণে স্থগিত রেখেছি। নতুন করে সিসেল, রোমানিয়া, পোল্যান্ড, হ্যাঙ্গেরিসহ কয়েকটি দেশ শ্রমিক নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। শিগগিরই কাতার ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে শ্রমিক পাঠানো শুরু হবে। ২০২০ সালে সাড়ে সাত লাখ শ্রমিক বিদেশ পাঠানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছি।

বহুপ্রতিক্ষিত মালয়েশিয়া বাংলাদেশি শ্রমিক পাঠাতে গত ৬ নভেম্বর মালয়েশিয়ার পুত্রাজায়ায় উভয় দেশের মন্ত্রী পর্যায়ের দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্বল্প অভিবাসন ব্যয়ে দেশটিতে কর্মী নিয়োগে উভয় দেশ সম্মত হয়েছে। গত নভেম্বরে দেশটির মানবসম্পদ মন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধি দলের ঢাকায় সফরে আসার কথা থাকলেও ওই সময়ে তিনি দিল্লি সফরে যান। আগামী ২৪ ও ২৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় দুই দেশের মন্ত্রী পর্যায়ের জয়েন্ট ওয়ার্কি কমিটির সভা হবে। সভায় সিন্ডিকেন্ড ছাড়াই শ্রমিক নেওয়ার কর্মপন্থা চূড়ান্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে দশ সিন্ডিকেটের অনৈতিক কর্মকা-ের কারণে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহথির মোহাম্মদ প্রধানমন্ত্রীর হওয়ার পরে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেওয়া বন্ধ করে দেন। মালয়েশিয়া সরকার ঘোষণা দেয় আর কোনো সিন্ডিকেট নয়; শ্রমবাজার চালু হলে সকল বৈধ রিক্রুটিং এজেন্সিই কর্মী নিয়োগের সুযোগ পাবে। প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদও মালয়েশিয়ায় সিন্ডিকেটবিহীন শ্রমবাজার চালুকরণে ব্যাপক কূটনৈতিক তৎপরতা চালাচ্ছেন।

মালয়েশিয়ায় শ্রমিক পাঠাতে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমেদ দেশটির সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করেছেন। জয়েন্ট ওয়ার্কিং কমিটির সুপারিশগুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে। মালয়েশিয়া সরকারের মানবসম্পদ মন্ত্রী কুলাসেগরান বলেছেন, তার দেশে বর্তমানে বিভিন্ন সেক্টরে ছয় লাখ কর্মীর প্রয়োজন রয়েছে। এর মধ্যে এক লাখ ৪০ হাজার দক্ষ কর্মীর খুব বেশি প্রয়োজন। দক্ষ কর্মীর অভাবে কয়েকটি সেক্টরে কাজের সমস্যা হচ্ছে। বাংলাদেশের মন্ত্রী ইমরান আহমেদ মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রীকে বলেছেন, বাংলাদেশে এখন দক্ষ কর্মীর কোনো কমতি নেই। উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে কর্মীদের।

প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানিয়েছে, নানা কারণে ২০১২ সালের আগস্ট মাস থেকে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগ বন্ধ করে দেয় সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইইউই) সরকার। দীর্ঘ প্রায় ৮ বছর পরে জনশক্তি রপ্তানির দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ ইইউই সরকার বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়ার বন্ধ দ্বার খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। চলতি সপ্তাহে সংবাদ সম্মেলন করে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমেদ।

গত ১৭ নভেম্বর দুবাই ওয়ার্ল্ড সেন্টারে পাঁচ দিনব্যাপী দুবাই এয়ার শো ২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের ফাঁকে সৌজন্য সাক্ষাতে আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সশস্ত্র বাহিনীর ডেপুটি কমান্ডার শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের কাছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘদিন সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশের বন্ধ শ্রমবাজার খুলে দেওয়ার আহ্বান জানান। ক্রাউন প্রিন্স প্রধানমন্ত্রীকে আাশ্বস্ত করেন। সেটাই এখন বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে। এর আগে গত ১৬ অক্টোবর আবুধাবি সফরকালে প্রবাসীমন্ত্রী ইমরান আহমদও সংযুক্ত আরব আমিরাতের হিউম্যান রিসোর্স অ্যান্ড ইমিরাটাইজেশন মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে শ্রমবাজার চালুর অনুরোধ জানান।

মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম ধনী দেশ কাতারেও বাংলাদেশিদের শ্রম বাজার খুলেছে। কাতারের রাজধানী দোহায় অনুষ্ঠিত এক যৌথ কারিগরি কমিটির সভায় দেশটি বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়ার নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, ২০২২ সালে কাতারে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। অন্তত দুই লাখ জনশক্তি পাঠানো সম্ভব হবে।

জনশক্তি রপ্তানির বড় শ্রমবাজার সৌদি আরব থেকে প্রতিমাসেই প্রায় দুই থেকে তিন হাজার কর্মী খালি হাতে দেশে ফিরছে। এদের মধ্যে নানা নির্যাতনের শিকার হয়ে নারী গৃহকর্মীর সংখ্যা বেশি। দেশে ফেরত আসাদের মধ্যে বৈধ আকামাধারী কর্মীও রয়েছে। সরকারের কূটনৈতিক তৎপড়তায় এ সমস্যারও সমাধান হচ্ছে। সম্প্রতি প্রবাসী সচিব মো. সেলিম রেজার নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের দ্বিপাক্ষিক সভা করেছে। শিগগিরই দেশটি পুরোদমে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়া শুরু হবে বলে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আশা করছেন।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী নির্দেশে বিদেশে বাংলাদেশের দূতাবাসের লেবার উইংগুলো শ্রমবাজার সম্প্রসারণে বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নেওয়া নতুন নতুন শ্রম বাজার সৃষ্টি হচ্ছে। এ ছাড়া মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়ার মধ্য দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম দেশ কুয়েত, ওমান, জর্ডান ও লেবানন বিপুলসংখ্যক কর্মী নিতে আগ্রহ দেখাচ্ছে। এ ছাড়া বৈধভাবে ইউরোপিও ইউনিয়নভুক্ত পোল্যান্ড ও হাঙ্গেরিতে শ্রমিক পাঠাবে সরকার।

রবিবার থেকে নিবন্ধন শুরু: বৈধভাবে বিদেশ যেতে আগ্রহীরা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে (বিকাশ/নগদ/শিওরক্যাশ/রকেট) ২০০ টাকা পাঠিয়ে নিবন্ধন করতে পারবেন। সম্প্রতি জনশক্তি কর্মসংস্থান ও পরিসংখ্যান ব্যুরো এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী বছরে প্রতি উপজেলা থেকে এক হাজার কর্মী বিদেশ পাঠানোর কথা রয়েছে। সে অনুযায়ী সরকারিভাবে বিদেশে কর্মী পাঠাতে গত বছরের ১ আগস্ট ঢাকা জেলায় নিবন্ধন শুরু হয়। পরে ২৭ অক্টোবর শুরু হয় নারয়ণগঞ্জ ও গাজীপুর জেলার নিবন্ধন। আগামী রবিবার থেকে দেশের বাকি ৬১ জেলার নিবন্ধন শুরু হবে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীন জনশক্তি কর্মসংস্থান ও পরিসংখ্যান ব্যুরোর কেন্দ্রীয় ডাটাব্যাংকে এ নিবন্ধন কর্মসূচি চলবে।

নিবন্ধনকারীর যোগ্যতায় সম্পর্কে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নিবন্ধনকারী কর্মীর বয়স অবশ্যই ১৮ বছরের ওপরে হতে হবে। তবে মধ্যপ্রাচ্যে নারী গৃহকর্মী হিসেবে যেতে আগ্রহীদের বয়স ২৫ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে হতে হবে। নিবন্ধনকারীর অন্তত ছয় মাসের বৈধ পাসপোর্ট ও নিজস্ব মোবাইল থাকতে হবে। নিবন্ধনের আপডেট তথ্য মাঝে মধ্যে তাকে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেবে কর্তৃপক্ষ।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি দপ্তর বা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে গিয়ে নিবন্ধন করা যাবে। নিবন্ধনের সময় সব যোগ্যতা বা অভিজ্ঞতা সনদ ডাটাব্যাংকে সংযোজন করতে হবে। তবে ডাটাব্যাংকে নিবন্ধন কোনোভাবেই নিবন্ধনকারীর বিদেশ যাওয়া নিশ্চিত করবে না। এ নিবন্ধনের মেয়াদ হবে দুই বছর। তাই এ সময়ের মধ্যে কোনো যোগ্যতা বা অভিজ্ঞতা অর্জিত হলে তা ডাটাব্যাংকে সংযোজনের সুযোগ থাকবে। নিবন্ধনকারীর যোগ্যতার ভিত্তিতে সরকার বিদেশে কাজের ব্যবস্থা করবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )