আজকের তারিখ- Sat-30-05-2020

ওস্তাদ ছাড়াই তিনি প্রায় পাঁচশ শিষ্যের ওস্তাদ! দেড় হাজার যাত্রাপালা ও নাটক পরিচালনা করেছেন উলিপুরের নজির হোসেন

নুরবক্ত আলী, উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: যাত্রা ভারতীয় রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় লোকনাট্য ধারা। এগুলো প্রধানত চার ঘন্টা ব্যাপী আয়োজনে রয়েছে বিপুল বিনোদন। কর্নেট, ফ্লুট বাঁিশ আর ঢোঁলের উচ্চ শব্দ ও চড়া আলোর ব্যবহার এবং দৈত্যাকার মঞ্চ নাটকীয় উপস্থাপনার বৈশিষ্ট্য। ছন্দভাব ছিলো মন মাতানো। এর মধ্যে মিশে আছে বাঙালির দীর্ঘকাল ব্যাপ্ত শিকড় বিস্তারী সাংস্কৃতির আনন্দ বেদনা। কালের বিবর্তনে আজকে যাত্রাপালা হারিয়ে যাচ্ছে। তবুও সেই যাত্রার রঙ, ঢঙ, স্মৃতি জড়িয়ে ধরে আছে যাত্রা প্রিয় কিছু যাত্রা অভিনয় শিল্পী, যাত্রা সঙ্গীত শিল্পী, যাত্রা পরিচালক ও যাত্রায় কাজ করা মানুষগুলো। এমন এক জন মানুষ যিনি কুড়িগ্রাম জেলাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় মঞ্চায়িত হওয়া প্রায় ১৫০০ যাত্রাপালা ও নাটকের পরিচালনা করেন। প্রায় পাঁচ শতাধিক শিষ্যের গুরু মোঃ নজির হোসেন কবিরাজ। তিনি কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার ধরণীবাড়ী ইউনিয়নের মাদারটারী গ্রামে ১৯৫৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা মৃত আইজুদ্দিন ব্যাপারী ও মাতা মৃত রহিমা বেগম। পেশায় তিনি একজন পশু চিকিৎসক। এলাকায় তাকে সকলেই ওস্তাদ বলে ডাকেন। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা প্রাথমিক বিদ্যালয় পাশ। এই সামান্য লেখাপড়ায়ও সৃজনশীলতার কমতি নেই মানুষটার মাঝে। গীতিকার, সুরকার ও পরিচালনায় তার দক্ষতা ছিল, যা ওস্তাদ ছাড়াই নিজে নিজেকে গড়িয়ে তুলেছিলেন। কোনো ওস্তাদ ছাড়াই তিনি প্রায় পাঁচশ শিষ্যের ওস্তাদ! অবাক বিষয় হলেও এটাই সত্যি। আব্দুল আলীম, আব্দুল লতিফ, আতা খান, সুবীর নন্দীর মতো শিল্পীদের গানে অনুপ্রেরণা পেয়ে তিনি নিজে ও কিছু বন্ধুসহ শুরু করে পথচলা। শুরুতে যাত্রা পরিচালনার পাশাপাশি যাত্রাপালার মঞ্চে নিজে অভিনয় ও গান গাইলেও পরবর্তীতে তার সৃজনশীলতাকে কাজে লাগাতে শুরু করে দেয় যাত্রাপালা ও নাটক পরিচালনা করা। তিনি প্রেমের ফাঁসি, হিংসার পরিণাম, কলঙ্কের ফুল, গরীবের ছেলে, রিক্সাওয়ালার ছেলে, প্রেমের সমাধীর তীরে, কাঞ্চনমালা, গরীব কেন কাঁদে, ও আবির ছড়ানো বাংলার মসনদ এর মতো অনেক নাটক ও যাত্রাপালা পরিচালনা করেন। শুধু তাই নয় ৩০টির মতো যাত্রাপালা রচনার পাশাপাশি গান রচনা করেন প্রায় ২ শতাধিক। যা তিনি এখন তিনি নিজে নিরবে গেয়ে যান। বাদ্যযন্ত্রের মধ্যে বাঁশি, হারমোনিয়াম, তবলা, জুড়ি, ঢোল, খোল, বেহালা যেন তার মনে গেঁথে আছে। তাঁর হাতে আসলেই যেনো বাদ্যযন্ত্র গুলো নিজে নিজেই বেজে উঠে। সর্বশেষ তিনি ”আবির ছড়ানো বাংলার মসনদ (মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক নাটক) মঞ্চায়ন করেন ১৯৯৬সালে নিজ উপজেলাধীন চৌমুহনী বাজারে। এখন আর আগের মতো উচ্চ শব্দের যাত্রাপালার আয়োজন হয় না তাই ভেঙ্গে যাওয়ার পথে তার গানের দল। তারপরও তিনি যেন এখন আকড়ে ধরে আছে ঠিক যেন এখনো তাঁর মন চাচ্ছে মানুষের মনে আনন্দ দিয়ে যাই।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )