আজকের তারিখ- Tue-07-04-2020
 **   করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৫ **   চিলমারীতে কষ্টে আছে নিম্ন আয়ের মানুষ : চাহিদার তুলনায় ত্রাণ সামগ্রী অপ্রতুল **   রৌমারীতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের আরো দায়িত্বশীল হওয়ার আহবান গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর **   চিলমারীতে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু **   করোনায় আরও চার জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৯ **   রাজিবপুর ফেয়ারপ্রাইজ ডিলারদের ১০টাকা কেজি চাউল সরকারী খাদ্য গুদামে বিক্রি **   চিলমারীতে করোনা সংক্রমন রোধে সবুজপাড়া পাঠাগারের উদ্যোগে গরীব অসহায় মানুষের মধ্যে মাস্ক বিতরণ **   চিলমারীতে ৩ জনের নমুনা সংগ্রহ **   অবশেষে গার্মেন্টস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ‘র **   চিলমারীর মাঝি, কুলি-শ্রমিকদের দুর্দিন

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস আজ

যুগের খবর ডেস্ক: রক্ত, অশ্রুস্নাত বিক্ষুব্ধ বিদ্রোহের দিন। বাঙালির শৃঙ্খলমুক্তির দিন। আজ সেই ২৬ মার্চ। মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। বাঙালির দীর্ঘ স্বাধিকার আন্দোলনের চূড়ান্ত লড়াইয়ের সূচনা পর্ব।
কোনো হুইসেল বা সৈনিকের ঘোষণায় নয়, এ মহার্ঘ স্বাধীনতা অর্জন করতে বাঙালিকে করতে হয়েছে দীর্ঘ সংগ্রাম, দিতে হয়েছে এক সাগর রক্ত। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ধাপে ধাপে পুরো বাঙালি জাতিকে স্বাধীনতার প্রশ্নে ঐক্যবদ্ধ করেন। ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের অব্যবহিত পরেই ভাষার প্রশ্নে একাত্ম হয় বাঙালি। ১৯৪৮, ’৫২ পেরিয়ে ’৫৪, ’৬২, ’৬৬-এর পথ বেয়ে আসে ’৬৯। ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানে কেঁপে ওঠে জেনারেল আইয়ুবের শাসন। জনতার সাগরে উন্মাতাল স্রোতধারা। ‘জাগো জাগো বাঙালি জাগো’, ‘তোমার আমার ঠিকানা-পদ্মা মেঘনা যমুনা’, ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগানে স্লোগানে প্রকম্পিত হয় গ্রাম-শহর, জনপদ।

শত ষড়যন্ত্র ও সামরিক জান্তার রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে সত্তরের জাতীয় ও প্রাদেশিক নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন পায় বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ; কিন্তু বাঙালির হাতে শাসনভার দেওয়ার বদলে শুরু হয় ষড়যন্ত্র। প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া ও পাকিস্তান পিপলস পার্টির জুলফিকার আলী ভুট্টো বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে আলোচনার নামে করতে থাকেন কালক্ষেপণ। প্রস্তুত হয় হিংস্র কায়দায় বাঙালি নিধনযজ্ঞে। তবে, ৭ মার্চের বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণেই পাওয়া যায় দিকনির্দেশনা। আক্ষরিক অর্থেই তখন পূর্ব পাকিস্তানের প্রশাসন চলছিল বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে। সেই প্রবল প্রদীপ্ত আন্দোলনের জোয়ারে ধীরে ধীরে বাঙালির হৃদয়ে আঁকা হয় একটি লাল-সবুজ পতাকা, একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশের ছবি; কিন্তু বাঙালির আবেগ, সংগ্রাম ও মুক্তির আকাক্সক্ষা নির্মূল করতে অস্ত্র হাতে নামে হানাদার পাক সেনা। শোষিত ও নির্যাতিত মানুষের স্বাধীনতার আকাক্সক্ষা রক্তের বন্যায় ডুবিয়ে দিতে পাক বাহিনী ’৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে শুরু করে নিষ্ঠুর গণহত্যা। সেই কালরাত থেকেই শুরু হয় মৃত্যু, ধ্বংস, আগুন আর আর্তনাদের পৈশাচিক বর্বরতা; কিন্তু ওই ঘোরতর অমানিশা ভেদ করে দেশের আকাশে উদিত হয় স্বাধীনতার চিরভাস্বর সূর্য। ২৬ মার্চের সূচনালগ্নে গ্রেপ্তার হওয়ার আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ওয়্যারলেসের মাধ্যমে স্বাধীনতার ঘোষণা করে বলেন, এটাই হয়তো আমার শেষ বার্তা, আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। পাকিস্তান সেনাবাহিনী অতর্কিতে পিলখানার ইপিআর ঘাঁটি, রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স আক্রমণ করেছে এবং শহরের লোকদের হত্যা করছে। ঢাকা-চট্টগ্রামের রাস্তায় রাস্তায় যুদ্ধ চলছে। আমি বিশ্বের জাতিগুলোর কাছে সাহায্যের আবেদন করছি। আমাদের মুক্তিযোদ্ধারা বীরত্বের সঙ্গে মাতৃভূমি মুক্ত করার জন্য শত্রুদের সঙ্গে যুদ্ধ করছে। সর্বশক্তিমান আল্লাহর নামে আপনাদের কাছে আমার আবেদন ও আদেশ- দেশকে স্বাধীন করার জন্য শেষ রক্তবিন্দু থাকা পর্যন্ত যুদ্ধ চালিয়ে যান। আপনাদের পাশে এসে যুদ্ধ করার জন্য পুলিশ, ইপিআর, ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট ও আনসারদের সাহায্য চান। কোনো আপস নেই, জয় আমাদের হবেই। আমাদের পবিত্র মাতৃভূমি থেকে শেষ শত্রুকে বিতাড়িত করুন। সব আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী এবং অন্য দেশপ্রেমিক ও স্বাধীনতাপ্রিয় লোকদের এ সংবাদ পৌঁছে দিন। আল্লাহ আমাদের মঙ্গল করুন। জয় বাংলা। বঙ্গবন্ধুর এই ‘স্বাধীনতার ঘোষণা’ প্রচার হওয়ার পর পাকিস্তানি হানাদারবাহিনীর বর্বর ও নির্বিচারে গণহত্যা, লুণ্ঠন, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ ও সর্বব্যাপী পৈশাচিক হত্যাযজ্ঞের বিরুদ্ধে বাঙালি জাতি তাদের সর্বশক্তি নিয়ে ইস্পাত কঠিন প্রত্যয়ে সশস্ত্র লড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে। সারা দেশে শুরু হয় প্রতিরোধ যুদ্ধ। দেশের অকুতোভয় সন্তানরা নয় মাস যুদ্ধ করে ৩০ লাখ শহিদের রক্ত এবং দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে ছিনিয়ে আনে স্বাধীনতা। একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর হানাদার বাহিনী মাথা নত করে পরাজয় স্বীকার করে আত্মসমর্পণে বাধ্য হয়। বিশ্বের মানচিত্রে স্থান পায় এক সাগর রক্তের বিনিময়ে একটি স্বাধীন দেশ, স্বাধীন পতাকা- যার নাম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ।

যাদের রক্ত ও সম্ভ্রমের মূল্যে আমরা পেয়েছি মহামূল্যবান এ স্বাধীনতা, তাদের কাছে মহামূল্য ঋণ, গভীর কৃতজ্ঞতা, ভালোবাসা ও বিনম্র শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করার দিন আজ। মহান স্বাধীনতা দিবসে জাতি আজ উৎসবের পাশাপাশি গভীর শ্রদ্ধা, ভালোবাসা আর বেদনায় স্মরণ করবে মহান মুক্তিযুদ্ধের লাখো শহীদকে। স্মরণ করবে স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনাকারী তার সহকর্মী জাতীয় নেতাদের। জাতি শ্রদ্ধা জানাবে বীরাঙ্গনা আর শহীদমাতাদের। দৃপ্ত শপথ নেবে জঙ্গি-সন্ত্রাস ও যুদ্ধাপরাধীমুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে। স্বাধীনতাবিরোধী শত্রুদের সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার শপথ।

স্বাধীনতার ৪৯তম বার্ষিকীতে এবার এক ভিন্ন প্রেক্ষাপট জাতির সামনে এসেছে স্বাধীনতা দিবস। এবার স্বাধীনতা দিবসে যুক্ত হয়েছে করোনা ভাইরাস। এ ভাইরাসে শুধু বাংলাদেশ নয়, গোটা বিশ্ব কাঁপছে করোনাতে। স্বাধীনতার এ ৪৯তম বার্ষিকীতে জাতি মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করবে। তবে, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির কারণে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধ ও ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধু ভবনে জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানানোসহ সব জাতীয় কর্মসূচি বাতিল করা হয়েছে। আওয়ামী লীগও এ বছর স্বাধীনতা দিবসের কর্মসূচি বাতিল ঘোষণা করে।

সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে প্রতিবারের মতো এ বছর সব ধরনের অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে। তবে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আজ সরকারি ছুটির দিন। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বাণী দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন। বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, স্বাধীনতার কাক্সিক্ষত লক্ষ্য অর্জনে জাতিকে আরও অনেক দূর যেতে হবে। রাষ্ট্রপতি বলেন, অনেক ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত মহান স্বাধীনতা। বঙ্গবন্ধু সবসময় রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি একটি সুখী-সমৃদ্ধ দেশ গড়ার স্বপ্ন দেখতেন। তার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে বর্তমান সরকার নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। আবদুল হামিদ বলেন, আমরা ২০৪১ সালে একটি উন্নত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখছি। জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে স্বাধীনতা সংগ্রামে শহীদ ও সম্ভ্রম হারোনো মা-বোনদের শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন এবং জাতির পিতার স্বপ্ন ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বৈষম্যহীন সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

এদিকে জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতেরেস বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশি নাগরিকদের উষ্ণ অভিনন্দন জানিয়েছেন। গতকাল বুধবার রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকে পাঠানো এক বার্তায় জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, জাতিসংঘের প্রতিটি সদস্য রাষ্ট্রেরই স্বতন্ত্র সংস্কৃতি, ইতিহাস ও ঐতিহ্য রয়েছে। এ বৈচিত্রতা আমাদের সংস্থা ও বিশ্বকে সমৃদ্ধ করেছে। জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক এজেন্ডায় আপনার দেশের অংশগ্রহণ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি আরও বলেন, এ বছর, টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রার (এসডিজি) প্রথম দশকে কর্মকা-ে একটি সুন্দর বিশ্বায়ন গড়ে তোলাকে অবশ্যই আমাদের সম্মিলিত লক্ষ্য হিসেবে গ্রহণ করতে হবে; যা সবার স্বার্থে কাজ করবে এবং জলবায়ু প্রশ্নে চূড়ান্ত পদক্ষেপ নেবে। গুতেরেস বলেন, সবার জন্য একটি শান্তিপূর্ণ, ন্যায়ভিত্তিক ও টেকসই বিশ্ব গড়ে তুলতে তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের জনগণের অংশগ্রহণ ও সমর্থন কামনা করেন। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে বেতার, টেলিভিশন, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া ও সংবাদপত্রে বিশেষ নিবন্ধ ও অনুষ্ঠানমালা প্রচার করবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )